Breaking News
Senior Citizen: কেউ আতঙ্কে, কেউ আবার দিব্যি আছেন, শহর কলকাতায় কেমন আছেন একাকী বয়স্করা?      cctv: ঘুমের ব্যাঘাত হওয়ায় মারধর! সিসিটিভি ফুটেজ দেখে গ্রেফতার বৃদ্ধার পরিচারিকা      Mamata: 'বাংলায় বিনিয়োগ করলে...' দুবাইয়ের মঞ্চ থেকে বিনিয়কারীদের পথ দেখালেন মমতা      Parineeti-Raghav:শনিবার সকাল ১০টা বাজতেই শুরু হল পরিণীতি-রাঘবের বিয়ের অনুষ্ঠান      Manish: শর্ত সাপেক্ষে জামিন পেলেন অনুব্রতর হিসেব রক্ষক মনীশ কোঠারি      Summon: পুর-নিয়োগ দুর্নীতিতে আরও ৩৪ পুর-কর্মীকে তলব, চাপে মদনের পুরসভা কামারহাটি      Anubrata: পিছল ইডির করা মামলা, মেয়ের মত অনুব্রতরও পুজো কাটতে চলেছে তিহারে      Court: আদালতে কিছুটা স্বস্তি রাজ্যের, সমবায় দুর্নীতির তদন্ত সিবিআইয়ে আস্থা সার্কিট বেঞ্চের      Nipah virus: নিপা আতঙ্ক এবার বাংলাতেও, বেলেঘাটা আইডিতে ভর্তি কেরল ফেরত পরিযায়ী শ্রমিক      Abhishek: ফের আদালতে ধাক্কা অভিষেকের, লিপস অ্যান্ড বাউন্ডস মামলায় মিলল না বাড়তি সময়     

খেলাধুলা

Sushil: জুনিয়র কুস্তিগীর খুনে অলিম্পিক পদকজয়ী সুশীল কুমারের বিরুদ্ধে চার্জ গঠন

কুস্তিগির সাগর ধনখড় খুনে অলিম্পিক (Olympic Medalist) পদকজয়ী সুশীল কুমারের (Sushil Kumar) বিরুদ্ধে চার্জ গঠন। দিল্লির (Delhi Court) এক আদালতে এই কুস্তিগীরের বিরুদ্ধে চার্জ (Murder Charge) গঠন হয়েছে। সুশীল ছাড়া আরও ১৭ জনের বিরুদ্ধেও চার্জ গঠন করা হয়ে। চার্জে নাম দুই পলাতক অভিযুক্তর। সুশীলদের বিরুদ্ধে খুন, খুনের চেষ্টা-সহ একাধিক ধারায় চার্জ গঠন হয়েছে। উল্লেখ্য,সম্পত্তিগত বিবাদের জেরে ২০২১-র ৪ মে সুশীল এবং কয়েক জন সঙ্গী প্রাক্তন জুনিয়র জাতীয় চ্যাম্পিয়ন কুস্তিগীর সাগর এবং তাঁর বন্ধুদের উপরে হামলা চালানোর অভিযোগ ওঠে।

গুরুতর জখম সাগরের পরে মৃত্যু হয়। ময়নাতদন্তে উল্লেখ, ভোঁতা কিছু দিয়ে আঘাতের ফলে রক্তক্ষরণে ওই জুনিয়র কুস্তিগীরের মৃত্যু হয়েছে। দিল্লি পুলিস সুশীল-সহ ২০ জনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ধারায় এফআইআর দায়ের করে। এই অভিযোগে

খুনের অভিযোগ ২০২১-র ২৩ মে গ্রেফতার করা হয় অলিম্পিকে পদকজয়ী এই কুস্তিগীরকে। অগাস্টে পুলিসের দায়ের প্রথম চার্জশিটে উল্লেখ, সুশীল ষড়যন্ত্র করে এই হামলা চালিয়েছে। তাঁর উদ্দেশ্য ছিল তরুণ কুস্তিগীরদের মধ্যে নিজের ক্ষমতা জাহির করা। 

এদিকে, ২০২১-র ২ জুন থেকে জেলবন্দি সুশীল। গত বছর ট্রায়াল কোর্টে সুশীলের জামিনের আবেদন খারিজ হয়ে যায়। আদালতের তরফে বলা হয়েছিল, প্রাথমিক ভাবে এই হামলার ঘটনার ভিডিয়ো ফুটেজে সুশীলকে দেখা যাচ্ছে। যদিও সুশীলের আইনজীবীর দাবি ছিল, পুলিস তাঁর মক্কেলের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা সাজিয়েছে।


12 months ago
BCCI: বোর্ডের সভাপতি পদ থেকে সরতে পারেন সৌরভ, তাঁর উত্তরসূরি সম্ভবত রজার বিনি

BCCI-র সভাপতি পদ থেকে সরতে পারেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় (Sourav Ganguly)। সূত্রের খবর, তাঁর জায়গায় বসতে পারেন বিশ্বকাপজয়ী প্রাক্তন ক্রিকেটার রজার বিনি (Roger Binny)। ১৮ অক্টোবর ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের বার্ষিক (AGM) সভায় এই রদবদলে চূড়ান্ত সিলমোহর পড়বে। বিসিসিআই-তে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং জয় শাহদের প্রথম দফায় তিন বছরের টার্ম শেষ। কিন্তু সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে আরও একটা টার্ম অর্থাৎ ২০২৫ পর্যন্ত তাঁদের গদি নিশ্চিত ছিল। সেই মোতাবেক জয় শাহ বিসিসিআই সচিব থাকলেও, বোর্ড সভাপতি পদে রদবদল আসন্ন। সেই সম্ভাবনা ক্রমশ প্রবল। ভারতীয় ক্রিকেটের দাদার উত্তরসূরি হিসেবে উঠে আসছেন কর্নাটক ক্রিকেট অ্যাসোশিয়েশনকে প্রতিনিধিত্ব করা রজার বিনি।

জানা গিয়েছে, ইতিমধ্যে IPL-এর চেয়ারম্যান পদে ব্রিজেশ প্যাটেলের পরিবর্তে আসছেন অরুন সিং ধুমল। সব সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে ১৮-ই অক্টোবর বোর্ডের বার্ষিক সভায়। সূত্রের খবর, রাজধানীতে কেন্দ্রীয় সরকারের প্রভাবশালী মন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করে মঙ্গলবার মুম্বই উড়ে যাচ্ছেন 'দাদা'।

সেখানে যোগ দেবেন বোর্ডের শীর্ষ পদাধিকারীদের বৈঠকে। এই বৈঠকের বিশেষ তাৎপর্য রয়েছে। ১৮ তারিখ বোর্ডের বার্ষিক সাধারণ সভার আগে এই বৈঠক কার্যত সেমিফাইনাল। বিসিসিআইয়ের পরবর্তী মুখ কে হবেন? তাঁর সঙ্গেই বা কে কে থাকবেন সেটা অনেকটা স্পষ্ট হয়ে যেতে পারে আজকের বৈঠকে।

12 months ago
Cricket: সৌরভ আর সভাপতি থাকছেন না সম্ভবত!

বিশাল রদবদল হতে চলেছে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ড বা বিসিসিআইতে (BCCI)। খবরটি এক হিন্দি পত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে এবং বোর্ডের তরফ থেকে সংবাদটির বিরুদ্ধে কেউ মুখ খোলেননি। বরং কেউ কেউ বলছেন এমনটাই নাকি হতে চলেছে। 


প্রথমে শোনা যাচ্ছিল, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় (Sourav Ganguly) সরে যাবেন। এবং তাঁর জায়গায় আসতে পারেন অমিত শাহের পুত্র জয় শাহ। সংবাদটি অনেক মিডিয়ায় বেরিয়ে গিয়েছিল যে সৌরভ জয়দের ক্ষমতায় থাকার সময়সীমা ২০২৫ অবধি থাকছে। এবং তারপর ৩ বছরের জন্য তাঁদের কুলিং পিরিয়ডে যেতে হবে অর্থাৎ ওই তিন বছর তাঁরা বোর্ডের কোনও পদে থাকতে পারবেন না। 


এখানেই বিশেষজ্ঞরা প্রশ্ন তুলেছিলেন যে, জয় ২০২৮ এ ফের ক্ষমতায় আসতে পারবেন এমন নিশ্চয়তা নেই। কাজেই অবিলম্বে বোর্ড সচিবের পদ ছেড়ে তিনি হয়ত সভাপতির পদে যেতে চাইবেন। অন্যদিকে সৌরভ চেষ্টা করবেন বিশ্ব ক্রিকেটের সভাপতি হওয়ার।

কিন্তু সংবাদ মাধমের কাছে নতুন তথ্য আসছে নিয়মিত। শোনা যাচ্ছে যা, সৌরভকে পদ ছাড়তেই হচ্ছে এবং সৌরভ প্রস্তুতও রয়েছেন। জয় শাহও নাকি সভাপতির দাবিদার হচ্ছেন না। তিনি ফের নির্বাচনে দাঁড়াবেন ওই সচিব পদের জন্য। এই মানসিকতার কারণ সূত্র মারফত যা জানা যাচ্ছে যে, জয় ক্রিকেট জগতের কেউ ছিলেন না। এমনকি পাড়ার ক্রিকেট খেলেছেন বলেও সংবাদ নেই। 

কাজেই বিজেপির একটি অংশ নাকি চাইছেন যে, এমন কেউ আসুন যিনি ক্রিকেটটা খেলেছেন। অবশ্য এর আগে মাঠের বাইরের মানুষরাই তো বোর্ড প্রেসিডেন্ট হয়েছেন, কিন্তু বর্তমান শাসক দল ওই পদ্ধতিতে বিশ্বাসী নয়। এই জটিলতার ফাঁকে বোর্ড সভাপতির প্রার্থী হিসাবে নাম উঠে এল ১৯৮৩ বিশ্বকাপ জয়ী ভারতীয় দলের অন্যতম রজার বিনির নাম। তিনি প্রার্থী হচ্ছেন।

অন্যদিকে, সৌরভ সাধারণ সদস্য হিসাবে বোর্ডে থাকছেন। থাকার কথা বাংলা ক্রিকেট বোর্ডের অভিষেক ডালমিয়ার কিন্তু তাঁর জায়গায় প্রতিনিধিত্ব করবেন সৌরভ। আগামী ১২ অক্টোবর নমিনেশন জমা হবে এবং যদি ভোটের প্রয়োজন হয় তবে নির্বাচন হবে ১৮ অক্টোবর।

12 months ago


Dona Ganguly: চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত ডোনা গঙ্গোপাধ্যায়, ভর্তি হাসপাতালে

অসুস্থ ডোনা গঙ্গোপাধ্যায় (Dona Ganguly)। চিকেনগুনিয়ায় (Chikungunya) আক্রান্ত ডোনা। বোর্ড সভাপতি সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের (Sourav Ganguly) স্ত্রীকে নবমীর রাতেই ভর্তি করা হয়েছে দক্ষিণ কলকাতার এক বেসরকারি হাসপাতালে (Hospital)। বর্তমানে  শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হয়েছে বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে।

সূত্রের খবর, গায়ে জ্বর ও র‍্যাশ দেখা গিয়েছে ডোনার। পুজোর মধ্যেই বেশ কিছুদিন ধরে অসুস্থতা বোধ করছিলেন সৌরভ-জায়া। ঝুঁকি না নিয়ে মঙ্গলবার রাতে তাঁকে বেহালার বাড়ি থেকে হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। পরীক্ষার পর চিকিৎসকরা নিশ্চিত হন যে, তিনি চিকেনগুনিয়ায় আক্রান্ত হয়েছেন।

চিকিৎসক সপ্তর্ষি বসুর অধীনে ভর্তি রয়েছেন সৌরভ-পত্নী। আপাতত ২৪ ঘণ্টা পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে তাঁকে। তবে তিনি কবে সুস্থ হয়ে বাড়ি আসবেন সে ব্যাপারে কিছুই জানানো হয়নি। খুব স্বাভাবিকভাবে এই অসুস্থতা গঙ্গোপাধ্যায় পরিবারের কাছে যথেষ্ট উদ্বেগের কারণ।

12 months ago
Team: শিয়রে টি-২০ বিশ্বকাপ, কিন্তু কোথায় দাঁড়িয়ে ভারতের প্রথম একাদশ?

প্রসূন গুপ্ত: মহেন্দ্র সিং ধোনি চলে যাওয়ার পরে ভারতীয় ক্রিকেট দল কেমন একটা ছন্নছারা ভাবে চলছে। রবি শাস্ত্রীর আমলে আইসিসির কোনও বড় ট্রফি নেই। বিরাট কোহলি অধিনায়ক হওয়ার পরে তাঁর মধ্যে সৌরভ গাঙ্গুলির আগ্রাসন দেখা গেলেও নিজের ফর্ম হারিয়ে গত দু-আড়াই বছর বড় রানের বাইরে। নেতৃত্ব ছেড়েও ফর্মে ফিরতে পারছিলেন না বিরাট। তবে এশিয়া কাপ এবং সাম্প্রতিক অস্ট্রেলিয়া সিরিজে বড় রান তাঁকে হয়তো কিছুটা অক্সিজেন দিয়েছে। অন্যদিকে ভারতীয় দলে প্রতিদিনই কেউ না কেউ ভালো খেলে দিলেও ধারাবাহিকতার অভাব। বিশেষ করে ডেথ ওভার বোলিংয়ে শামি, বুমরাহর অভাব দেখা যাচ্ছে। ব্যাটিংয়ে কেএল রাহুল অফ ফর্ম, কোনওদিন রান পাচ্ছেন রোহিত, কোনওদিন ফ্লপ।

এভাবেই ব্যাটিং চলছে, তবে এর মধ্যে ধারাবাহিক ভালো খেলছেন সূর্যকুমার যাদব| বুধবার দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে দুর্দান্ত খেলে রেকর্ড করলেন সূর্য। টি-২০ বিশ্বকাপের একটু স্বস্তিতে টিম ইন্ডিয়া। অন্যদিকে বোলিংয়ের অবস্থা তথৈবচ। ভুবনেশ্বর কুমারের মতো প্রতিভাবান বোলারের অফ ফর্ম ভাবাচ্ছে দ্রাবিড়দের। যদিও দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে ম্যাচে আর্ষদীপের বোলিং কিছুটা কমিয়েছে দুশ্চিন্তা।  ঠিক কোন রহস্যে ফাস্ট বোলার মহম্মদ শামিকে দলের বাইরে রাখা হয়েছে কেউ জানে না। আসলে ভারতীয় ক্রিকেট দল নিয়ে বড্ড বেশি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে। মিডল অর্ডার থেকে টেল এন্ড, বিশেষ করে উইকেট কিপিং, সব জায়গাতেই চলছে পরীক্ষা-নিরীক্ষা। ধারাবাহিক অফ ফর্মে থাকা ঋষভ পন্থ যেমন জায়গা পাচ্ছে। তেমনই জায়গা পাচ্ছেন দীনেশ কার্তিক।

গত তিন মাসে দ্বিপাক্ষিক সিরিজে ভারতের ফল আশানুরূপ হলেও, আইসিসি টুর্নামেন্টে তীরে এসে তরী ডোবার ইতিহাস ভারতের সেই ২০১৪ থেকে।  এদিকে, আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপ অস্ট্রেলিয়াতে। সেখানে ভারত প্রতিকূল পিচে খেলবে। সেখানে গ্রিনটপ বা দ্রুতগামী বোলারদের উপযুক্ত উইকেটই অপেক্ষা করবে। এই মুহূর্তে আর্ষদীপের বল সুইং করেছে। চোটের কবলে জসপ্রীত বুমরা। এই মুহূর্তে দরকার উইকেট টেকার মহম্মদ শামিকে। প্রশ্ন উঠেছে মহম্মদ সিরাজকে নিয়েও। তিনি এত আশা জাগানোর পর কোথায়? প্রশ্ন উইকেটের পিছনে কে থাকবে পন্থ নাকি কার্তিক? এসব নিয়ে ভারতের এখনই ভাবা দরকার।

12 months ago


Durand Cup: মুম্বইকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন ব্যাঙ্গালোর এফসি, কমবেশি সব ট্রফির মালিকানা সুনীল ছেত্রী

যত দিন যাচ্ছে ভারতীয় স্ট্রাইকার সুনীল ছেত্রীর একের পর এক কৃতিত্ব ব্যাগে পুড়ছেন | ভাবা গিয়েছিলো বাইচুং ভুটিয়ার পর আন্তর্জাতিক মানের স্ট্রাইকার যে কবে আসবে তার ঠিক নেই। দু'জনই পাহাড়ের ছেলে। সাধারণত পাহাড়ি খেলোয়াড়দের দম প্রচুর হয় বলে মানুষ জানে। কিন্তু স্কিল, সেটাও তো একটি বিষয়। গৌতম সুরজিৎদের সময়ে ভারত খুব বেশি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেনি। এর আগে পিকে চুনীদের আমলে ভারত এশিয়াডে দুর্দান্ত ফল করেছিল। পরবর্তী ভালো ফল বলতে ওই এশিয়াডে ১৯৮২ তে দিল্লিতে চতুর্থ স্থান অর্জন করেছিল ভারত। কিন্তু সে সব আদি ইতিহাস। এখন খেলার মূলমন্ত্র স্পিড ও স্কিল। বিশ্বকাপ থেকে ইউরোপিয়ান বা ল্যাটিন আমেরিকার ফুটবল সম্পূর্ণ বদলে গিয়েছে।

ভারতও বদলেছে নিজেকে কিন্তু ভারতে গত ৪০ বছরে বাইচুং ভুটিয়া, সুদীপ চ্যাটার্জি এবং সুনীল ছেত্রী ছাড়া এই দক্ষতা দেখতে পারেনি তেমন ভাবে কেউই। স্পিড বিষয়টিকে আয়ত্ব করা কঠিন বিষয়। সুনীলকে কিন্তু বিদেশিরা আন্তর্জাতিক মানের খেলোয়াড় হিসাবে মেনে নিয়েছে। বিদেশি টিমে সুনীল খেলেছে।

রবিবার ছিল ডুরান্ড কাপের ফাইনাল। টানটান উত্তেজনা ছিল ফাইনাল ঘিরে। ইতিমধ্যে একে একে বিদায় নিয়েছে ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান এবং সারা জাগিয়েছিল মহামেডানও। ইদানিং তথাকথিত এই তিন বাংলার কোনও দলের ক্লাবে ট্রফি ওঠেনি। ফাইনালে খেলেছে সুনীল ছেত্রীর ব্যাঙ্গালোর এফসি এবং মুম্বই সিটি। মজার বিষয় এই দুই ক্লাবের কোনও অস্তিত্বই ছিল না কয়েক বছর আগে। কিন্তু আইএসএল আসার পর অনেক দলের মধ্যে এই দুটি দলও অন্যতম। মুম্বইকে অনেকেই বলেছিলো ডার্ক হর্স। কিন্তু ফাইনালে দাগ ফোটাতেই পারেনি। সুনীলকে অবশ্য মুম্বই কিছুটা আটকে রাখতে 'পুলিসম্যান' মার্কিং করেছিল তাতে ব্যাঙ্গালোরের সুবিধা হয়েছে। ২-১ গোলে জিতে ডুরান্ড কাপ এখন ব্যাঙ্গালোরে।

সুব্রত ভট্টাচার্যের জামাইয়ের লকারে অনেক ট্রফি আছে, ছিল না ডুরান্ড। এবার পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপালের হাত ধরে সেটাও চলে এলো সুনীলের দেরাজে। এই রেকর্ড বাইচুংয়ের ছিল না।

12 months ago
Sourav: আইসিসি সভাপতি হতে গেলে সৌরভের সামনে একাধিক হার্ডল, কোন পথে মহারাজের প্রশাসক ভাগ্য?

প্রসূন গুপ্ত: হাওয়ায় ভাসছে সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় আরও ক্ষমতায় থাকার সুযোগ পেলেও তিনি কি ২০২৫ পর্যন্ত ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সভাপতি থাকতে পারবেন? বৃহস্পতিবার সিএন পোর্টালে লেখা হয়েছিল, সৌরভ নয় বিসিসিআই সভাপতি হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা জয় শাহর। অন্য জাতীয় সংবাদ মাধ্যমও সেই দাবি করছে।

তবে ক্রীড়া প্রশাসকের রাজনীতি কখনই প্রত্যক্ষ রাজনীতিমুক্ত নয়। সবাই জানে বিসিসিআই বা এআইএফএফ স্বসাশিত সংস্থা। শাসক দল চেষ্টা করে নানাভাবে ক্রীড়া, সাংস্কৃতিক এবং সামাজিক দুনিয়ার সঙ্গে যুক্ত স্বশাসিত সংস্থাগুলোয় ক্ষমতা বিস্তার করা। কেন্দ্রে যখন ইউপিএ সরকার তখনও বিসিসিআই, এআইএফএফ কিংবা আইওসি-র মতো সংস্থায় প্রধান শাসক দল কংগ্রেসের পছন্দের লোক বসানো হয়েছিল। সে সুরেশ কালমাডি হোক, শরদ পাওয়ার কিংবা প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সি হোক। এই রীতির ব্যতিক্রম ছিল না বাংলার পূর্বতন বাম জমানা।

আমরা দেখেছি, বামফ্রন্ট বিশেষ করে সিপিএম রাজ্যের শাসনভার নিয়ন্ত্রণের সঙ্গেই ক্লাব, লাইব্রেরি, ক্রীড়া, সিনেমা জগৎ থেকে শুরু করে সামাজিক সব জায়গাতেই তাদের দলের লোককে বকলমে বসিয়েছিল। সেই একই পথে কি হাঁটছে বিজেপি? সম্প্রতি ফুটবল, হকি ইত্যাদি সব জায়গাতেই তাদের কাছের লোক জায়গা পেয়েছে। তাহলে ক্রিকেট কেন ব্যতিক্রম হবে? বিসিসিআই শীর্ষ পদে জয় শাহের উত্তরণ সম্ভাবনা জোরালো করে এই প্রশ্ন ভাবাচ্ছে বিশেষজ্ঞদের।

জয় শাহ এখনই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের শীর্ষপদ না পেলে তাঁকে অপেক্ষা করতে হবে ২০২৮ অবধি। তাই কি এবারেই সৌরভকে সরিয়ে জয় শাহকে বিসিসিআই সভাপতি করতে ঝাঁপাবে গেরুয়া শিবির?

যদি তাই হয়, তাহলে সৌরভ গাঙ্গুলির ভবিষ্যৎ কী? সৌরভ হয়তো চাইতে পারেন আইসিসির সভাপতি হতে, কিন্তু সেখানেও হার্ডল। দাবিদার অনেক, বিশ্ব ক্রিকেট সংস্থার বর্তমান সভাপতি আরও দু'বছর মেয়াদবৃদ্ধি চেয়েছেন। হয়তো পেয়েও যাবেন, এছাড়া চেন্নাই ক্রিকেট বোর্ড চাইছে তাঁদের প্রতিনিধি আইসিসি সভাপতি হোক। শোনা যাচ্ছে বর্তমান সে রাজ্যের শাসক দল এবিষয়ে কেন্দ্রের সঙ্গে একপ্রস্থ কথা বলে রেখেছে।

তাহলে সৌরভের হয়ে গলা ফাটাবে কে? সম্ভবত আইসিসি-র শীর্ষপদে যাওয়ার কাজ এখন কঠিন তাঁর পক্ষে। সেক্ষেত্রে তিনি কি ক্রীড়া ভাষ্যকার হয়ে ফিরবেন? সেখানেও বাধা, স্বার্থের সংঘাতে ভুগবেন তিনি। তাহলে রাস্তা খোলা একমাত্র রাজনীতিবিদ হওয়ার। অমিত শাহ তাঁর বাড়িতে যাওয়ার পর এই জল্পনা মাথাচাড়া দিয়েছিল। কিন্তু কোনওপক্ষ থেকেই উত্তর আসেনি। সৌরভ ভোটে দাঁড়াতে চাইবেন না। সম্প্রতি ইউনেস্কোর অনুষ্ঠানে একেবারে মুখ্যমন্ত্রীর পাশে মহারাজকে দেখা গিয়েছে। তাই নিরাপদ ভাবে জিততে রাজ্যসভা তাঁর জন্য আদর্শ। প্রশ্ন এ রাজ্য থেকে কি তিনি রাজ্যসভায় যাবেন বিজেপির সমর্থনে?

এমনও হতে পারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আশীর্বাদধন্য হিসেবে তিনি তৃণমূলের সাংসদ হতে পারেন। কারণ যাই হোক না বাংলার মহারাজ লম্বা রেসের ঘোড়া এবং ক্যালকুলেটিভ। তাই সময় সুযোগ বেছে সেরাটাই বাছবেন প্রিন্স অফ ক্যালকাটা, এমনটাই ধারণা দাদা অনুরাগীদের।

12 months ago
Roger: আন্তর্জাতিক টেনিসকে বিদায় রজার ফেডেরারের, ফেডেক্সের নেট মাধ্যমে অবসর ঘোষণা

প্রতিযোগিতামূলক টেনিস কোর্ট (Tennis) থেকে অবসর ঘোষণা ফেডেক্সের। লেভার কাপের পর আর টেনিস খেলবেন না বলে জানান রজার ফেডেরার (roger Federer)। ২০টি গ্র্যান্ড স্ল্যামের মালিক গত বছর উইম্বলডনের (Wimbledon) পর চোটের জন্য আর কোর্টে নামেননি। যদিও চোট সারিয়ে তাঁর কোর্টে ফেরা নিয়ে ছিল তুমুল জল্পনা। তার মধ্যেই অবসর ঘোষণা আন্তর্জাতিক টেনিসের অন্যতম সফল পুরুষ ক্রীড়াবিদের (Male Athletes)। বৃহস্পতিবার নেটমাধ্যমে অবসরের সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন তিনি।

ফেডেরার লেখেন, 'গত তিন বছরে অনেক বাধার সম্মুখীন হয়েছি। বারবার চোট এবং অস্ত্রোপচার হয়েছে, খেলায় ফিরতে কঠোর পরিশ্রম করেছি। কিন্তু নিজের শারীরিক সক্ষমতা কতটা এবং কত দূর পর্যন্ত, সেটাও জানি। গত কয়েক দিনে নিজের ভবিষ্যৎ পরিষ্কার বুঝেছি। এখন আমার ৪১ বছর বয়স। গত ২৪ বছরে দেড় হাজারেরও বেশি ম্যাচ খেলেছি। আমি যতটা ভেবেছিলাম, টেনিস আমাকে তার থেকেও বেশি দিয়েছে।প্রতিযোগিতামূলক টেনিসে আমার সময় যে শেষ, সেটা এ বার বুঝতে পেরেছি।’

তিনি আরও লেখেন, 'পরের সপ্তাহে লন্ডনে লেভার কাপই আমার শেষ এটিপি প্রতিযোগিতা। ভবিষ্যতে আরও অনেক টেনিস খেলব ঠিকই। কিন্তু গ্র্যান্ড স্ল্যাম বা ট্যুরে আমাকে আর দেখা যাবে না। এই সিদ্ধান্ত নেওয়া খুবই কঠিন কারণ, টেনিস থেকে অনেক কিছু পেয়েছি। তবে, একই সঙ্গে আমার কাছে উচ্ছ্বাস করার মতো অনেক কিছু রয়েছে।'

ফেডেরারের দীর্ঘ টেনিস জীবনে আধ ডজন অস্ট্রেলিয়ান ওপেন, এক বার ফ্রেঞ্চ ওপেন, আট বার উইম্বলডন এবং পাঁচ বার ইউএস ওপেন দেরাজে তুলেছেন। এছাড়া ২০১৪-য় সুইৎজারল্যান্ডের হয়ে ডেভিস কাপ জেতেন। তিন বার হপম্যান কাপ এবং ২০০৮ বেজিং অলিম্পিক্স ডাবলসে সোনা জেতেন। সিঙ্গলসে ২০১২ লন্ডন অলিম্পিক্সে রুপোও পান তিনি।

12 months ago


BCCI: সুপ্রিম নির্দেশে ২০২৫ পর্যন্ত নিশ্চিত সৌরভ-জয় শাহের মসনদ, কিন্তু মহারাজ আর কতদিন বোর্ড সভাপতি?

প্রসূন গুপ্ত: বুধবার সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে ২০২৫ অবধি বর্তমান ক্রিকেট বোর্ডের দায়িত্বপ্রাপ্তরা দায়িত্বে থাকতে পারবেন। কার্যত খুশি সৌরভ ভক্তরা বিশেষ করে বাঙালি ক্রিকেটপ্রেমীরা। কিন্তু এখানেই অনেক প্রশ্ন উঠে এসেছে যে দায়িত্বে থাকার অধিকার পেয়েছেন ঠিকই সৌরভ এন্ড কোম্পানি। কিন্তু স্বপদে অর্থাৎ সভাপতির পদে সৌরভ কতদিন থাকতে পারবেন?

প্রথমত বিশ্ব ক্রিকেট বোর্ড বা আইসিসির সভাপতির পদ খালি হয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন দেশের ক্রিকেট বোর্ডের কর্মকর্তারা ওই পদে সৌরভ গাঙ্গুলিকে চাইছেন। পাকিস্তান থেকে নিউজিল্যান্ড চাইছে, সৌরভকে দায়িত্ব দেওয়া হোক। দু-একটি দেশের আপত্তি থাকলেও সেসব ম্যানেজ করা যাবে বলেই ধারণা ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের। কিন্তু সৌরভ শেষ পর্যন্ত রাজি হবেন কি? একবার ওই পদে গেলে ফের ফিরে এসে দেশের ক্রিকেটের দায়িত্ব পাওয়া কঠিন। ডালমিয়া ছাড়া আর কেউই ফিরে পাননি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের গুরু দায়িত্ব।

দ্বিতীয় সমস্যা ঘরের অন্দরেও। আপাতত বোর্ড সচিব হিসেবে অমিত শাহর পুত্র জয় ২০২৫ অবধি কমিটিতে থাকছেন মহারাজের সঙ্গে। কিন্তু ২০২৫ এর পর ৩ বছর এঁরা কেউই ক্রিকেট বোর্ডের কোনও পদে থাকতে পারবেন না, যাকে প্রশাসনিক পরিভাষায় কুলিং পিরিয়ড বলছে। এমনটাই এটিই ধার্য করেছে সুপ্রিম কোর্ট। প্রশ্ন হচ্ছে ২০২৮ এর আগে জয় আর ফিরতে পারবেন না বোর্ডের কোনও দায়িত্বে। জয় শাহ কি এটা মেনে নেবেন?

ইতিমধ্যে ফুটবল বোর্ডের বা এআইএফেরের সভাপতি হয়েছেন বিজেপি সদস্য কল্যাণ চৌবে। বাইচুং ভুটিয়াকে রীতিমতো হেলায় হারিয়েছেন তিনি। তাই ক্রিকেট পিচে জোর গুঞ্জন বোর্ড সভাপতি হওয়ার আকাঙ্ক্ষা জয় শাহের। সেখানে বর্তমান বোর্ড সভাপতি সৌরভকে আইসিসি-তে পাঠিয়ে ফাঁকা আসন পূর্ণ করার উদ্যোগ নিতেই পারেন অমিত পুত্র।

12 months ago
BCCI: সুপ্রিম কোর্টে বড় স্বস্তি! ২০২৫ পর্যন্ত বিসিসিআইয়ের পদে সৌরভ এবং জয় শাহ

২০২৫ অবধি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের (BCCI) সভাপতি এবং সচিব হিসেবে থাকছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় (Sourav Ganguly) এবং জয় শাহ (Jay Shah)। প্রশাসনিকস্তরে কুলিং অফ পিরিয়ড নিয়ে বিসিসিআইকে স্বস্তি দিয়ে এই সিদ্ধান্ত জানাল সুপ্রিম কোর্ট (Supreme Court)। অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি লোঢা কমিটির সুপারিশ মেনে দেওয়া পূর্বতন রায় বুধবার পুনর্বিবেচনা করেছে শীর্ষ আদালত। সুপ্রিম কোর্ট আগে জানিয়েছিল রাজ্য সংস্থা এবং বোর্ড মিলিয়ে সর্বোচ্চ ছ'বছর প্রশাসনিক পদে থাকা যাবে। তারপর যেতে হবে কুলিং অফ পিরিয়ডে। অর্থাৎ পদ ছাড়তে হবে ক্রীড়া প্রশাসককে।

কিন্তু বুধবার বিচারপতি ডিওয়াই চন্দ্রচূড় এবং হিমা কোহলির বেঞ্চ জানিয়েছে, রাজ্য সংস্থায় ৬ বছর এবং বোর্ডে ছয় বছর অর্থাৎ ১২ বছর প্রশাসক পদে থেকে তারপর কুলিং অফে যাওয়া যাবে। সেই হিসেব ধরলে ২০২৫ পর্যন্ত বিসিসিআইয়ের সভাপতি এবং সচিব পদে বহাল থাকছেন সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় এবং জয় শাহ।

সৌরভ এবং জয় দু'জনেই রাজ্য ক্রিকেট সংস্থার পদে ছিলেন। ২০১৯ সালে সৌরভ বিসিসিআই সভাপতি হলে ছাড়েন সিএবি-র পদ। ২০১৫ থেকে সিএবি সভাপতি সৌরভ। একইভাবে গুজরাত ক্রিকেট সংস্থার পদেও দীর্ঘদিন ধরে আসীন জয় শাহ। তাই ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডে এই দুয়ের ভবিষ্যৎ নিয়ে জল্পনা তৈরি হয়েছিল। সুপ্রিম কোর্ট পূর্বতন রায়ে স্থির থাকলে পদত্যাগ করতে হবে সৌরভ এবং জয় শাহকে। এই আশঙ্কার মধ্যেই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জেরে আরও তিন বছর পদে থেকে গেলেন এই দু'জন।

12 months ago


Asia Cup: মরুশহরে ফাইনালে পাকিস্তানকে হারিয়ে এশিয়া কাপের খেতাব শ্রীলঙ্কার ঝুলিতে

এভাবেও ফিরে আসা যায়। দেখিয়ে দিল শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দল (Srilanka Cricket Team)। দেশ জুড়ে চলছে আর্থিক ও রাজনৈতিক সংকট। তার মধ্যেও এশিয়া কাপে (Asia Cup 2022)  ক্রিকেট মাঠে সাফল্য কিছুটা স্বস্তি দিল শ্রীলঙ্কা বাসীকে। এশিয়া কাপে পাকিস্তানকে (Pakistan Cricket Team) হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা। মরুশহরে অনুষ্ঠিত হয় এই মেগা টুর্নামেন্ট।

ফাইনালে পাকিস্তানকে ২৩ রানে হারিয়ে আট বছর পর এশিয়ার সেরা শ্রীলঙ্কা। ফাইনালে শ্রীলঙ্কার ভানুকা রাজাপক্ষে ৪৫ বলে ৭১  অপরাজিত রান করেন। হাসারাঙ্গা ৩৬রানে ভর করে ১৭০রান এনে দিলেন লঙ্কাবাহিনীকে। ১৭১ রানের টার্গেট তাড়া করতে নেমে পাকিস্তান ধসে গেল দেড়শোর আগেই। ফাইনালে অলআউটের লজ্জা নিয়ে মাঠ ছাড়তে হল পাক বাহিনীকে।

উল্লেখ্য,  এখনও অবধি মাত্র দু-বার এশিয়া কাপ জিতেছে পাকিস্তান। প্রথম বার এশিয়া কাপ জয় ২০০০ সালে। পরবর্তী এশিয়া কাপ ট্রফি জিততে লেগেছিল আরও ১২ বছর। এবারেও এশিয়া কাপ জয়ের সুযোগ বাবর আজমের নেতৃত্বাধীন পাকিস্তানের কাছ থেকে হাতছাড়া হয়ে গেল।

one year ago
Cricket: ধারাবাহিকতার অভাবে ভুগছে ভারতীয় ক্রিকেট

এশিয়া কাপ (Asia Cup 2022) টি ২০ থেকে বিদায় নিয়েছে ভারত। দুর্দান্ত ভাবে শুরু করেও শেষ পর্যন্ত ফাইনাল ল্যাপে শ্রীলঙ্কা (Sri Lanka) ও পাকিস্তানের (Pakistan) কাছে হেরে বিদায় নিতে হয়েছে ভারতকে। ইদানিং কয়েক বছর ধরেই ভারতের (Indian Cricket Team) ধারাবাহিকতার অভাব পরিলক্ষিত হয়েছে নিয়মিত ভাবেই।

এর দায়ে কাকে ফেলা যাবে? যদিও টেস্ট, একদিবসীয় এবং ২০ ওভারের খেলতে দল গঠনের একটি সিলেকশন কমিটি রয়েছে। কিন্তু তবুও আজ একথা সকলেরই জানা যে শেষপর্যন্ত বিসিসিআই সভাপতি সৌরভ গাঙ্গুলি এবং সম্পাদক জয় শাহের একটা ভূমিকা আছেই। ক্রিকেটের দল নিয়ে এত পরীক্ষা নিরীক্ষা এর আগে ৫০/৬০ বছরে কেউ দেখেননি। অধিনায়কের কোনও ঠিক ঠিকানা নেই। অন্তত ৭ জন অধিনায়ক দলের মধ্যে রয়েছেন। কখনও রোহিত কখনও কে রাহুল থেকে ঋষভ পন্থ হয়ে কে নয়? দল নায়কের একটা ভূমিকা থেকেই যায় সেটি নিশ্চয় সৌরভের থেকে ভালো কেউ জানেন না।

অন্যদিকে, সৌরভের প্রিয় বন্ধু রাহুল দ্রাবিড় বর্তমানে দলের সব ধরনের টুর্নামেন্টের কোচ। তিনিও এক সময়ে অধিনায়ক ছিলেন। এছাড়া দলে রয়েছেন প্রাক্তন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। এঁরা নিশ্চয় বুঝতে পারছেন যে কোথাও একটা ফাঁক থেকে যাচ্ছে। এর ফলে বারবার তীরে এসে তরী ডুবছে। দলের অবস্থায় তাই। অন্তত ৩০ জন খেলোয়াড়কে ঘুরিয়ে ফিরিয়ে খেলানো হচ্ছে। এতে একটা টিম ওয়ার্ক গড়ে উঠছে না। ওপেনিং করবে কে তারও কোনও ঠিক নেই। শেষ ম্যাচে কোহলিকে দিয়ে ওপেন করানো হয়েছিল।

সামনেই টি ২০ বিশ্বকাপ অস্ট্রেলিয়াতে। এই টুর্নামেন্টের বিভিন্ন খেলোয়াড় আইপিএলে নিয়মিত খেলে থাকেন। এদের খেলার ধার দুর্দান্ত। কাজেই সেরা ১৪ জন খেলোয়াড়কে বেছে নেওয়াটাই এখন আসল কর্তব্য। শোনা যাচ্ছে, দুবাইতে ফাস্ট বোলাররা ডুবিয়েছে দলকে। ফলে বুমরা শামি এবং সিরাজকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে। ইতিমধ্যেই বুমরাকে বেঙ্গালুরুতে যেতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেখানে ভিভিএস লক্ষণ পরীক্ষা করে দেখবেন বুমরা খেলতে পারবেন কি না। সৌরভকে কিন্তু অনেক দায়িত্ব নিতে হবে।

one year ago
Asia Cup: শ্রীলঙ্কার কাছে ৬ উইকেটে হেরে কার্যত এশিয়া কাপের বাইরে ভারত

হারের পর হার। পাকিস্তানের (Pakistan Cricket Team) পর শ্রীলঙ্কাও (Srilanka Cricket Team) হারালো ভারতকে। এবার এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার কাছে হার রোহিতদের (Rohit Sharma)। সুপার ফোরের ম্যাচে ভারতকে ৬ উইকেটে হারিয়ে এশিয়া কাপের (Asia Cup 2022) ফাইনালের টিকিট কার্যত পাকা করে ফেলল লঙ্কাবাহিনী। টসে জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেয় দ্বীপরাষ্টের দলটি। রোহিত শর্মার ৭২ এবং সূর্যকুমারের ৩৪ রানে ভর করে ভারত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৭৩ রান তোলে। রান পেলেন না কোহলি (virat kohli)। মিডল অর্ডার ভরসা দিতে ব্যর্থ। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪ উইকেট হারিয়ে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয় শ্রীলঙ্কা। উল্লেখ্য, ১৯তম ওভারে বড় রান দিলেন ভুবনেশ্বর কুমার। মিস ফিল্ডিং, গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ওয়াইড বল। খুচরো ভুলে ম্যাচ হাতের বাইরে গেল। শেষ ওভারে পঞ্চম বলে রান আউট মিস করলেন পন্থ। এর পরেই ঝড় উঠেছে সোশ্যাল সাইটে। ধোনির প্রসঙ্গ তুলে নেটিজেনরা বলছেন, পন্থের শিক্ষা নেওয়া উচিত পূর্বসূরীর কাছ থেকে। এই হারেই চলতি টুর্নামেন্ট থেকে কার্যত ছিটকেই গেলেন রোহিতরা। আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচ বাকি থাকলেও এখন অনেক জটিল অঙ্কের হিসেব ভারতের কাছে। বিশ্বকাপের আগে এশিয়া কাপ হলুদ কার্ড দেখিয়ে গেল ম্যানেজমেন্টকে।

হারের পর হার। পাকিস্তানের (Pakistan Cricket Team) পর শ্রীলঙ্কাও (Srilanka Cricket Team) হারালো ভারতকে। এবার এশিয়া কাপে শ্রীলঙ্কার কাছে হার রোহিতদের (Rohit Sharma)। সুপার ফোরের ম্যাচে ভারতকে ৬ উইকেটে হারিয়ে এশিয়া কাপের (Asia Cup 2022) ফাইনালের টিকিট কার্যত পাকা করে ফেলল লঙ্কাবাহিনী। টসে জিতে প্রথমে বল করার সিদ্ধান্ত নেয় দ্বীপরাষ্টের দলটি। রোহিত শর্মার ৭২ এবং সূর্যকুমারের ৩৪ রানে ভর করে ভারত নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৭৩ রান তোলে। রান পেলেন না কোহলি (virat kohli)। মিডল অর্ডার ভরসা দিতে ব্যর্থ। জবাবে ব্যাট করতে নেমে ৪ উইকেট হারিয়ে জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় রান তুলে নেয় শ্রীলঙ্কা।

উল্লেখ্য, ১৯তম ওভারে বড় রান দিলেন ভুবনেশ্বর কুমার। মিস ফিল্ডিং, গুরুত্বপূর্ণ সময়ে ওয়াইড বল। খুচরো ভুলে ম্যাচ হাতের বাইরে গেল। শেষ ওভারে পঞ্চম বলে রান আউট মিস করলেন পন্থ। এর পরেই ঝড় উঠেছে সোশ্যাল সাইটে। ধোনির প্রসঙ্গ তুলে নেটিজেনরা বলছেন, পন্থের শিক্ষা নেওয়া উচিত পূর্বসূরীর কাছ থেকে।

এই হারেই চলতি টুর্নামেন্ট থেকে কার্যত ছিটকেই গেলেন রোহিতরা।  আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে ম্যাচ বাকি থাকলেও এখন অনেক জটিল অঙ্কের হিসেব ভারতের কাছে। বিশ্বকাপের আগে এশিয়া কাপ হলুদ কার্ড দেখিয়ে গেল ম্যানেজমেন্টকে।

one year ago


Asia Cup: সুপার ফোরের রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে ভারতকে ৫ উইকেটে হারাল পাকিস্তান

ক্যাচেস উইন ম্যাচেস। এতো ক্রিকেট পরিভাষায় আছে। মরু শহরে সুপার সানডে। পাক ইনিংসের ১৮ তম ওভারে আসিফ আলির সহজ ক্যাচ মিস করলেন অর্শদীপ সিং। জীবন পেয়ে ভয়ঙ্কর আসিফ ম্যাচ জেতালেন পাকিস্তানকে।   এশিয়া কাপের সুপার ফোরের ম্যাচে পাকিস্তানের কাছে ৫ উইকেটে হারতে হল ভারতকে। বিরাট রানে ফেরার দিনেও খালি হাতে ফিরতে হল রোহিত শর্মাকে।

অথচ শুরু দেখে কে ভেবেছিলেন ম্যাচ হারবে মেন ইন ব্লুজ। রাহুল, রোহিত জুড়ি ঝড় তুলেছিলেন। ওপেনিং পার্টনারশিপ যখন ভাঙল তখন স্কোরবোর্ডে ৫৪ রান উঠে গিয়েছে। কিন্তু শেষটা আর ভালো হল না। ১৮১ তে থেমে গেল ভারত। ৪৪ বলে বিরাট করলেন ৬০। নট আউট। প্রাপ্তি এইটুকুই। কিন্তু শেষ ওভারে ৩ টে ডট বল প্রশ্ন তুলে দিল। পাক ম্যাচের আগে বিশেষ মুখাবরণ পরে প্রস্তুতি নিয়েছিলেন বিরাট। সুপার সানডে ইঙ্গিত দিল, ফর্মে ফিরবেন কিং কোহলি।

পাশাপাশি সূর্য, পন্থ, পান্ডিয়া সবাই ব্যর্থ। মোক্ষম সময়ে রিভার্স সুইপে উইকেট ছুঁড়ে দিলেন পন্থ। আর কবে পরিণত হবেন? জবাবে বাবর আজমরা দাপট দেখালেন। ভুবনেশ্বর, হার্দিক সবাই মার খেলেন। ২০ বলে ৪২ করে গেলেন নওয়াজ। মহোম্মদ রিজওয়ান করলেন ৭১। একা রবি বিশ্নই ছাড়া সেভাবে প্রভাব ফেলতে পারলেন না কোনো বোলার।

one year ago
AIFF: কবে বিশ্বকাপ খেলবে ভারত? কী জানালেন সদ্য নির্বাচিত সভাপতি কল্যাণ চৌবে

প্রসূন গুপ্ত: প্রিয়রঞ্জনের পর ফের এক বাঙালি এআইএফএফের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছে। আট দশকের বেশি সময় পরে ভারতীয় ফুটবলের সর্বোচ্চ পদে একজন প্রাক্তন ফুটবলার।  একটা সময়ে দেশীয় ফুটবল বলতে প্রথমে বাংলা, পরে কেরালা পঞ্জাব এবং গোয়া।  আজকের ফুটবলে সারা দেশের বিভিন্ন শহর একেবারে পেশাদারি মোড়কে দল করে বিভিন্ন টুর্নামেন্টে যোগ দিচ্ছে।

প্রফুল্ল প্যাটেলের আমলে এই পরিবর্তন এসেছিল, কিন্তু ভারতীয় ফুটবলকে কর্পোরেট মোড়কে বাঁধতে কেরামতি দেখিয়েছিলেন নীতা আম্বানি। আইপিএল যেমন ললিত মোদীর মস্তিষ্কপ্রসূত, আইএসএল-কে বিশ্বজনীন করার পিছনে খানিকটা কৃতিত্ব প্রাপ্য মুকেশ আম্বানি-পত্নীর। আইএসএল আসার পর দল গঠনে বহু বিদেশি ভারতে এসেছে এবং নিঃসন্দেহে খেলার প্রভূত উন্নতি হয়েছে। আজকের ভারতীয় ফুটবলাররা অনেক দ্রুত দৌড়চ্ছে মাঠে। এই সময়েই এআইএফএফ-কে ধাক্কা দেয় ফিফা।যেহেতু ভারতীয় ফুটবল সংস্থায় কোনও নির্বাচিত কমিটি নেই, কাজেই তারা ভারতীয় ফুটবলকে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিল। সুপ্রিম কোর্টের মধ্যস্থতায় দ্রুত নির্বাচন ডেকে সেই সমস্যার সমাধান হয়েছে।

ফুটবল বা ক্রিকেটের যাঁরা সভাপতির আসন অলংকৃত করেন সংশ্লিষ্ট খেলার উন্নতিতে তাঁদের ক্ষমতা অনেক বেশি। যেমনটা করে দেখিয়েছিলেন জগমোহন ডালমিয়া। এআইএফএফ বা বিসিসিআই, দু'টি সংস্থাই স্বসাশিত এবং রাজনীতি বহির্ভূত। সাম্প্রতিক এআইএফএফ নির্বাচনে ৩৩-১ ভোটে ভারতীয় ফুটবলের কিংবদন্তি বাইচুং ভুটিয়াকে হারিয়ে সভাপতি হয়েছেন কল্যাণ চৌবে।

কল্যাণ ভালো খেলোয়াড় ছিলেন কিন্তু তিনি বাইচুং নয়, তবে জয় এলো কী করে? বাইচুংয়ের অভিযোগ, সম্পূর্ণ রাজনৈতিক হস্তক্ষেপে জয় পেয়েছেন কল্যাণ। কল্যাণ জিতলেও বাইচুংকে উপদেষ্টা কমিটিতে রাখেন তিনি। কিন্তু 'অসম্মানিত' বাইচুং সেই কমিটিতে থাকতে নারাজ। অবশ্য এত ঘটনার পরে সোজাসাপ্টা কল্যাণ মিডিয়াকে জানান যে, তাঁর অনেক দায়িত্ব কিন্তু তিনি কোনও স্বপ্ন দেখতে নারাজ। ৮ বছর পরে ভারত বিশ্বকাপে খেলবে এমন গ্যারান্টি তিনি দেবেন না। কারণ এই কাজ মোটেও সহজ নয়। বরং ভারতীয় ফুটবলের সার্বিক উন্নতি তিনি চান। দেখার ব্যাপার যে মোহনবাগানের প্রয়াত সম্পাদক অঞ্জন মিত্রর জামাই কল্যাণ কী ভাবে উন্নতির পথে এগোন।

one year ago