Breaking News
Rujira: কয়লা পাচার মামলায় অভিষেক পত্নী রুজিরাকে তলব ইডির      Railway: অসংক্ষরিত টিকিটের ক্ষেত্রে পরিচয় পত্রের ব্যবস্থা থাকলে মৃতের পরিবার হয়ত টাকাটা পেত!      Railway: করমণ্ডল এক্সপ্রেস দুর্ঘটনায় পরিবারের কেউ নিখোঁজ! সনাক্ত করতে বিশেষ ব্যবস্থা রেলের      Train Accident: ওড়িশার বালেশ্বরে ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনা! মৃত অন্তত ১০০      ED: মানিকের ফোন থেকেই কালীঘাটের কাকুর খোঁজ, ইডির কাছে হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাটের তথ্য      DA: অবশেষে ডিএ আন্দোলনকারীদের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়      Bayron: দলবদলু বিধায়ক বায়রন বিশ্বাসকে নিয়ে এবার উল্টো সুর মমতার গলায়      Congress: 'আমি তৃণমূলেরই লোক' দল পরিবর্তন করে দাবি সাগরদীঘির বিধায়ক বায়রনের      IPL: আইপিএল ফাইনালে চেন্নাই বনাম গুজরাত, বৃষ্টি হলে কে জিতবে!      Prerona: সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রেরণার উদ্দেশে ভাষা সন্ত্রাস 'অনুপ্রেরণার'     

SSC

SSC: দীর্ঘ ৭৬৮ দিন অবস্থান বিক্ষোভের পর এবার রাজভবনে ডেপুটেশন বঞ্চিত চাকরিপ্রার্থীদের

রাজপথে ধরণার পর এবার রাজভবনে (Raj Bhavan) অভিযান। দীর্ঘ ৭৬৮ দিন অবস্থান বিক্ষোভের (Demonstration) পর এবার রাজভবনে ডেপুটেশন কর্মসূচি গ্রহণ করলেন বঞ্চিত চাকরিপ্রার্থীরা। সূত্রের খবর, বঞ্চিত চাকরিপ্রার্থীদের মহা ঐক্য মঞ্চের তরফ থেকে আজ অর্থাৎ শুক্রবার রাজ্যপালের কাছে ডেপুটেশন দেওয়ার কর্মসূচি গ্রহণ করেছেন তাঁরা। তাঁদের দাবি, অবিলম্বে তাঁদের নিয়োগ করতে হবে। অভিযোগ ভোটের আগে রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে তাঁদের প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু সেই প্রতিশ্রুতি পালন করা হয়নি বলে দাবি চাকরী প্রার্থীদের। সূত্রের খবর, ১১ টি চাকরিপ্রার্থীর মঞ্চের দুজন করে চাকরি প্রার্থী যাবেন রাজভবনে, যদিও এখনও অবধি  তাঁদের কাছে অনুমতি নেই রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করার।।

সূত্রের খবর, বঞ্চিত ১১ টি মঞ্চের চাকরি প্রার্থী ও কর্মরত এনএসকিউএফ শিক্ষকদের সমস্যার সমাধানে হস্তক্ষেপ চেয়ে তাঁরা রাজভবনে রাজ্যপালের দ্বারস্থ হবেন, তাঁদের দাবি, অবিলম্বে রাজ্যের অভিভাবক রাজ্যপাল মহাশয়কে উদ্যোগ নিতে হবে এবং রাজভবন দ্বারা মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ এ আলোচনায় বসার জন্য বিশেষ ব্যবস্থা করতে হবে।

a month ago
ED: এবার আড়াই হাজার কোটির পুরসভায় নিয়োগ দুর্নীতি! তদন্তে কোমর বাঁধছে ইডি

শিক্ষায় নিয়োগ দুর্নীতি-কাণ্ডের (Education Scam) পর এবার পুরসভায় নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে কোমর বাঁধছে ইডি। সূত্রের খবর, নিয়োগ-কাণ্ডে ধৃত অয়ন শীলের সংস্থা এবিএস ইনফোজোন থেকে বাজেয়াপ্ত নথি কেন্দ্রীয় সংস্থার (ED) তুরুপের তাস হতে চলেছে। বাজেয়াপ্ত নথি ঘেঁটে ইডি দক্ষিণবঙ্গের ২২টি পুরসভায় নিয়োগে গরমিল পেয়েছে বলে খবর। তাই এই নিয়োগ-কাণ্ডে (Municipality Recruitment scam) তদন্তের অনুমতি চেয়ে দিল্লির সদর দফতরের দ্বারস্থ হচ্ছে ইডি। জানা গিয়েছে, মোট আড়াই হাজার কোটি টাকার পুর দুর্নীতি-কাণ্ডের প্রাথমিক খোঁজ মিলেছে।

এদিকে, প্রায় চার দিনের মাথায় শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি-কাণ্ডে সিবিআই গ্রেফতার করেছে তৃণমূল বিধায়ক জীবনকৃষ্ণ সাহাকে। সিবিআই সূত্রে খবর, অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রে সুপারভাইজার পদে নিয়োগেও লক্ষ-লক্ষ টাকা তুলেছেন জীবন। আশাকর্মী নিয়োগের চাকরি বিক্রি করেছেন তৃণমূল বিধায়ক। শুধু প্রাথমিক শিক্ষক বা এসএসসি নিয়োগ দুর্নীতি কাণ্ডের সঙ্গে নয়, তদন্তে দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন ক্ষেত্রে সরকারি স্থায়ী বা অস্থায়ী পদে নিয়োগের নামে চাকরিপ্রার্থীদের কাছ থেকে লাখ লাখ টাকা তুলেছেন জীবনকৃষ্ণ।

2 months ago
SSC: ফের তৎপর সিবিআই, রাজ্যের ৫ জায়গায় হানা, বিধায়কের বাড়ি থেকে উদ্ধার প্রার্থীতালিকা

এসএসসি (SSC) নবম-দশম মামলায় চাঞ্চল্যকর তথ্য সিবিআইয়ের (CBI) হাতে। শুক্রবার মুর্শিদাবাদের (Murshidabad) বড়ঞার তৃণমূল বিধায়ক জীবনকৃষ্ণ সাহার বাড়ি তল্লাশি চালায় সিবিআই। পাশাপাশি সূত্রের খবর, একই দিনে রাজ্যের আরও ৫ টি জায়গায় হানা দেয় সিবিআইয়ের দল। তদন্তে ফের তৎপর সিবিআই। একই সঙ্গে মুর্শিদাবাদের তিন জায়গা, বীরভূম সহ বিভিন্ন জেলায় শুক্রবার তল্লাশি চালান কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার গোয়েন্দারা। শুক্রবার ভোর ৫টা নাগাদ নিজাম প্যালেস থেকে সিবিআইয়ের পাঁচটি টিম বের হয়। তাঁদের সঙ্গে ছিল বিশাল কেন্দ্রীয় বাহিনী।

সিবিআই সূত্রে খবর, মুর্শিদাবাদের রঘুনাথগঞ্জে নিতাই সাহা নামে একজনের বাড়িতে তল্লাশি চালায় সিবিআইয়ের একটি দল। অভিযোগ, এই নিতাই ছিলেন এসএসসি কাণ্ডের অন্যতম এজেন্ট। পাশাপাশি, এদিন মুর্শিদাবাদে তৃণমূল বিধায়ক জীবনকৃষ্ণ সাহার বাড়িতেও যায় সিবিআইয়ের দ্বিতীয় দল। সিবিআই সূত্রের খবর, পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে যোগাযোগ ছিল মুর্শিদাবাদের বড়ঞার বিধায়ক জীবনকৃষ্ণ সাহার। জীবনকৃষ্ণের সুপারিশে নাকি দিয়ে চাকরি হয়েছিল একাধিক অযোগ্য প্রার্থীর। প্রসঙ্গত, এই জীবনকৃষ্ণ হলেন এজেন্ট নিতাইয়েই শ্বশুর।

অভিযোগ, এদিন জীবনকৃষ্ণের বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে একটি প্রার্থীতালিকা উদ্ধার করেছে সিবিআই৷ এছাড়া, কার কার কাছে কত টাকা পাঠানো হত সেই লিস্টও উদ্ধার হয়েছে৷ এমনকি, বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ডকুমেন্টস ও নথিও পেয়েছ সিবিআই৷ সিবিআইয়ের তৃতীয় দল যায় মুর্শিদাবাদের নবগ্রামের বিধায়কের বাড়িতে। কিন্তু উনি চিকিৎসা কারণে কলকাতায় এসেছেন বলে সূত্রের খবর। সিবিআই সূত্রে খবর, এঁর সঙ্গেও নাকি যোগাযোগ ছিল নিয়োগ দুর্নীতি কাণ্ডে ধৃত প্রাক্তন যুব তৃণমূল নেতা কুন্তল ঘোষের। এছাড়াও, বীরভূমে যায় সিবিআইয়ের একটি দল। তদন্তে অগ্রগতি আনতে কিছু দিন আগেই সাত আধিকারিককে নিয়ে একটি বিশেষ টাস্ক ফোর্স গঠন করেছিল সিবিআই। তারপরেই এদিন একযোগে এতগুলো অভিযান৷


2 months ago


CBI: নিয়োগ-কাণ্ডে গঠিত সিবিআই সিট কর্তার স্বেচ্ছাবসরের আবেদন, খতিয়ে দেখবে হাইকোর্ট

নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় (SSC Scam) গঠিত হয়েছিল সিবিআইয়ের (CBI) সিট। কলকাতা হাইকোর্টের (Calcutta High Court) নির্দেশেই গঠিত হয়েছিল সিট। এবার সেই সিটেরই সদস্য ধরমবীর সিং (Dharambir Singh) অবসর নিতে চেয়ে আবেদন জানালেন কলকাতা হাইকোর্টে। হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের কাছে এ বিষয়ে শুক্রবার দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি। তবে আবেদন নিয়ে এখনই সিদ্ধান্ত নেয়নি বিচারপতি। 

জানা গিয়েছে, কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশ ছাড়া এই সিটের কোনও সদস্য ছেড়ে যেতে পারেন না। যেহেতু সিট গঠন করেছে কলকাতা হাইকোর্ট, তাই আদালতের অনুমতি ছাড়া ধরমবীরের এই আবেদনে সাড়া দেওয়া সম্ভব নয় সিবিআইয়ের। বিষয়টি দ্রুত খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। সিটে কয়েকজন বাংলাভাষী অফিসার নিয়োগের চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে বলেও এদিন আদালতে জানান সিবিআইয়ের আইনজীবী।

যেহেতু আদালত এই সিট গঠন করেছে, তাই আদালতের অনুমতি ছাড়া ধরমবীর সিংহের এই আবেদনে সাড়া দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না, আদালতে জানাল সিবিআই। এই বিষয়ে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গপাধ্যায়ের দৃষ্টি আকর্ষণ সিবিআইয়ের। তাই দ্রুত খতিয়ে দেখার আশ্বাস বিচারপতির। তবে এই সিটে কিছু বাংলাভাষী আধিকারিক নিয়োগের ভাবনা বিচারপতির।

2 months ago
Group: গ্রুপ-সি নিয়োগে দুর্নীতি, হাইকোর্টের নির্দেশে শনিবার থেকে চাকরিহারা ৮৪২ জন

গ্রুপ ডি-র পর এবার গ্রুপ সি-তে (Group C) চাকরিরত ৮৪২ জনের চাকরি বাতিলের নির্দেশ বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের। শনিবার বিকেল তিনটের মধ্যে এই নির্দেশ কার্যকর করবে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ (WBBSE)। এমনটাই এসএসসি-কে (SSC) নির্দেশ বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের। এই ৮৪২ জনের মধ্যে ৫৭ জনকে কোনও সুপারিশপত্র দেয়নি কমিশন। এমনটাই হাইকোর্টকে (Calcutta High Court) অবগত করেছিল স্কুল সার্ভিস কমিশন। এতে আরও বিস্মিত কলকাতা হাইকোর্ট।

জানা গিয়েছে, ৫৭ জন সুপারিশহীন এবং সুপারিশ পাওয়া ৭৮৫ জনের চাকরি বাতিল করতে হবে। শনিবার বিকেলের মধ্যে এই ৮৪২ জনের সুপারিশপত্র বাতিল করে নিয়োগ বাতিলের নির্দেশ বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের। শুক্রবার আদালত জানিয়েছে, আগামী দশ দিনের মধ্যে ওয়েটিংলিস্ট থেকে নতুন নিয়োগ করতে হবে।

আগামীকাল থেকেই এই ৮৪২ জন স্কুলে যেতে পারবে না। করতে পারবেন না স্কুলের কোনও কাজ। স্কুলের কাগজপত্র যা তাঁদের কাছে আছে, অবিলম্বে তা স্কুলকে জমা দিতে হবে শনিবারের মধ্যে। এই মর্মেই নির্দেশ আদালতের। জানা গিয়েছে, গ্রুপ সি নিয়োগে ৪০%-র বেশি চাকরি হারালেন হাইকোর্টের নির্দেশে।

3 months ago


CBI: এসপি সিনহার ফ্ল্যাটে সিবিআই তল্লাশি, বাজেয়াপ্ত নগদ ৫০ লক্ষ-গয়না

স্কুল সার্ভিস কমিশন বা এসএসসি-র (SSC Scam) প্রাক্তন উপদেষ্টা শান্তিপ্রসাদ সিনহা নিয়োগ দুর্নীতি-কাণ্ডে জেলবন্দি। এবার তাঁর (SP Sinha) কলকাতার ফ্ল্যাট থেকে নগদ-গয়না বাজেয়াপ্ত করল সিবিআই। এই কেন্দ্রীয় সংস্থাই (CBI) এসপি সিনহাকে নিয়োগ-কাণ্ডের অভিযুক্ত হিসেবে গ্রেফতার করেছিল। তারাই বুধবার প্রাক্তন এসএসসি কর্তার ফ্ল্যাটে তল্লাশি চালায়। বাজেয়াপ্ত হয়েছে আনুমানিক ৫০ লক্ষ টাকা নগদ। দেড় কেজির সোনা এবং অন্তত ১৫০০ চাকরিপ্রার্থীর নামের তালিকা।

অভিযোগ, এদিন সিবিআই যে ফ্ল্যাটে তল্লাশি চালায়, সেই ফ্ল্যাটের পরোক্ষে মালিকানা শান্তিপ্রসাদ সিনহা এবং তাঁর স্ত্রীয়ের। যদিও অন্য ব্যক্তির নামে সেই ফ্ল্যাট রেজিস্টার্ড। শিক্ষা দুর্নীতি-কাণ্ডে কলকাতা হাইকোর্টের নির্দেশে এফআইআর দায়ের করে তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই। সেই এফআইআর-এ নাম রয়েছে রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়, এসপি সিনহা-সহ অন্যদের। মূলত একাদশ-দ্বাদশের সহকারী শিক্ষক নিয়োগের দুর্নীতির অভিযোগে এই সিবিআই তদন্ত।

3 months ago
Group D: 'গ্রুপ-ডি-র ওয়েটিং লিস্ট গঙ্গার মতো স্বচ্ছ নয়', কী প্রসঙ্গে কোর্টের এই মন্তব্য

নবম-দশম শিক্ষক নিয়োগের পর এবার গ্রুপ-ডি-র ওয়েটিং লিস্ট নিয়ে মন্তব্য কলকাতা হাইকোর্টের। মঙ্গলবার বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসু জানান, 'গ্রুপ-ডি-র ওয়েটিং লিস্ট কিন্তু গঙ্গার মত স্বচ্ছ নয়। এটা মনে রাখতে হবে।' গ্রুপ-ডি-র নিয়োগ সংক্রান্ত একটি মামলার প্রেক্ষিতে মন্তব্য বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসুর। ওয়েটিং লিস্ট থেকে নিয়োগের ক্ষেত্রে স্কুল সার্ভিস কমিশনকে অনেক বেশি সতর্ক থাকতে হবে। এমন নির্দেশ কমিশনকে দিয়েছেন বিচারপতি। 

বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশে সম্প্রতি ১৯১১ জন কর্মরত গ্রুপ ডি কর্মীর চাকরি বাতিল হয়েছে। এই ১৯১১ জনের শূন্যপদে ওয়েটিং লিস্ট থেকে নিয়োগ প্রক্রিয়াও শুরু করার নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের। বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের এই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে বিচারপতি সুব্রত তালুকদারের এজলাসে দায়ের হওয়া মামলাও এই মুহূর্তে বিচারাধীন। এমতাবস্থায় বিচারপতি বসুর মঙ্গলবারের মন্তব্য তাৎপর্যপূর্ন বলে মনে করছেন আইনজীবীরা।

মঙ্গলবার নবম-দশম শিক্ষক নিয়োগে তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য করেন বিচারপতি বসু। মাধ্যমিক পরীক্ষা চলাকালীন বেআইনি ভাবে নিয়োগ পাওয়া শিক্ষকদের চাকরি বাতিল নিয়ে বিশ্বজিৎ বসু বলেন, 'রাজ্যজুড়ে মাধ্যমিক পরীক্ষা চলছে। এখন ভুয়ো শিক্ষকদের চাকরি বাতিল হলে পুরো পরীক্ষায় প্রভাব পড়বে। পরীক্ষার্থীরা সমস্যায় পড়তে পারেন। তাই এখনই এনিয়ে কোনও নির্দেশ দেওয়া সমস্যার। মাধ্যমিক মিটলে পরবর্তী পদক্ষেপ করবে আদালত।' 

3 months ago
Court: 'মেয়েদের স্কুলে নিরাপত্তার দায়িত্বে সিভিক পুলিস', হাওড়ার এসপি-কে হাইকোর্টের নির্দেশ

হাওড়ার মেয়েদের স্কুলে (Howrah Girls School) নেই নিরাপত্তারক্ষী। সিভিক পুলিসকে (Civic Police) নিরাপত্তারক্ষীর কাজে লাগাতে নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসুর। জেলা পুলিস সুপারকে এই মর্মে নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট (Calcutta High School)। বোর্ডের উদ্দেশে মন্তব্য, 'আপনারা স্কুলগুলোর ছাত্রছাত্রীদের কথা ভাবুন। তাঁদের ভবিষ্যত আপনাদের হাতে। এই অচলায়তন ভাঙতে গেলে সময় লাগবে। কিন্তু বোর্ড, আপনারা শুরু করুন। আমি তিন সপ্তাহ পর ফল পেতে চাই।'

হাওড়া আমতা রসপুর বালিকা বিদ্যালয়ে অঙ্কের শিক্ষিকা ২০১৬ থেকে নেই। স্কুলের মিড ডে মিল খাওয়ার জন্য জায়গা নেই। খেলার মাঠ থাকলেও, সেটা ব্যবহার হয় সাইকেল রাখতে। এই স্কুলে শিক্ষিকার সংখ্যা আট জন, ৫৪৮ জন ছাত্রী। পড়ুয়া-শিক্ষিকা এই অনুপাত দেখেও উদ্বিগ্ন কলকাতা হাইকোর্ট।

হাইকোর্টের মন্তব্য,'শিক্ষকদের বদলি পছন্দ না হলে পরে মামলা করুন। না গেলে পরের মাস থেকে বেতন বন্ধ করে দেব।' বিচারপতি জানান, 'রাজনৈতিক চাপের কথা ভুলে যান, রাজ্যের যে স্কুলে পড়ুয়ার সংখ্যা অত্যন্ত কম তার অনুমোদন প্রত্যাহার করুন।' রাজ্যের স্কুল শিক্ষা দফতরকে এই পরামর্শ বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসুর।

হাওড়ার রসপুর স্কুলের মামলার প্রেক্ষিতে দেখা গিয়েছে, একটি বিদ্যালয়ে ১৩ জন পড়ুয়ার জন্য ৫ জন শিক্ষক। অন্যদিকে অপর একটি স্কুলে প্রায় ৫৫০ জন পড়ুয়া আছে, কিন্তু বাংলার শিক্ষক নেই। ২০১৬ থেকে গণিতের শিক্ষক নেই। তারপরেই বিদ্যালয়ের অনুমোদন প্রত্যাহারের জন্য শিক্ষা দফতরকে পরামর্শ দেন বিচারপতি বসু। উত্তরে শিক্ষা দফতরের আইনজীবী জানান, 'এটা করতে গেলে একটু সমস্যা আছে। স্থানীয়স্তরে সমস্যা হতে পারে, রাজনৈতিক চাপ আসতে পারে।'

4 months ago


Justice: নিয়োগ-কাণ্ডে নিরপরাধ না হওয়া পর্যন্ত ডক্টরেট ব্যবহার নয়, সুবীরেশকে কোর্টের নির্দেশ

গ্রুপ-ডি নিয়োগ (Group D) দুর্নীতি মামলায় সুবীরেশ ভট্টাচার্যকে পার্টি করতে নির্দেশ হাইকোর্টের। এসএসসি-র (SSC) প্রাক্তন চেয়ারম্যান সুবীরেশ ভট্টাচার্যকে অবিলম্বে জানাতে হবে কার বা কাদের নির্দেশে তিনি এই দুর্নীতি (Corruption) করেছেন। যদি না জানান, তাহলে তিনিই দোষী বলে ধরা হবে। তিনি তাঁর ডিগ্রি আপাতত ব্যবহার করতে পারবেন না, যত দিন না সিবিআইয়ের আনা অভিযোগ ভুল প্রমাণিত হয়। তিনি যদি আদালতের নির্দেশে এসে জানান কারা কারা যুক্ত ছিল, তাহলে প্রয়োজনে পরিবারকেও কেন্দ্রীয় বাহিনীর নিরাপত্তা দেওয়া হবে। শুক্রবার পর্যবেক্ষণে জানান বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় (Justice Ganguly)।

জানা গিয়েছে, নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় এসএসসি-র প্রাক্তন চেয়ারম্যান সুবীরেশ ভট্টাচার্যকে কঠোর ‘সাজা’র কথা শোনালেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। গ্রুপ-ডি নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের নির্দেশ। যত দিন না এই মামলার নিষ্পত্তি হচ্ছে, ততদিন নিজের ‘ডক্টরেট’ উপাধি ব্যবহার করতে পারবেন না সুবীরেশ।

শুক্রবার এসএসসি কোর্টকে জানিয়েছে, সুবীরেশ ভট্টাচার্য এই দুর্নীতির আমলে কমিশনের চেয়ারম্যান ছিলেন। কমিশনের ডাটা রুম তিনি ব্যবহার করতে না দিলে এই কাজ সম্ভব ছিল না।

4 months ago
Group D: ওএমআর শিট কারচুপি, কোর্ট নির্দেশে ১৯১১ গ্রুপ ডি কর্মীর চাকরি বাতিল

সম্ভাবনাকে সত্যি করেই ১৯১১ জন গ্রুপ ডি কর্মীর চাকরি বাতিল করল মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। স্কুল সার্ভিস কমিশনের (SSC Group D) সুপারিশকে মান্যতা দিয়ে পর্ষদের এই সিদ্ধান্ত। কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের (Justice Ganguly) বেঁধে দেওয়া সময়সীমা ধরেই এই পদক্ষেপ এসএসসি এবং মধ্যশিক্ষা পর্ষদের। জানা গিয়েছে, ওএমআর শিট (OMR Sheet) জালিয়াতির জেরে ২৮২০ জন গ্রুপ ডি পদে চাকরির সুপারিশ পত্র পেয়েছিলেন। তাঁদের মধ্যে চাকরি হারানো এই ১৯১১ জন চাকরিতে যোগ দেন, বাকিরা যোগ দেননি।

এদিন মধ্যশিক্ষা পর্ষদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায় এই ১৯১১ জন প্রার্থীর নিয়োগপত্র বাতিলের কথা। বৃহস্পতিবারই হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছিল, যাঁদের চাকরি বাতিল হবে, সেই শূন্যপদে মেরিট লিস্টে ওয়েটিংয়ে থাকা যোগ্য প্রার্থীদের নিয়োগ করতে হবে। তাঁদের বিস্তারিত তালিকাও প্রকাশ করবে এসএসসি। জানা গিয়েছে, যে ১৯১১ জনের নিয়োগ বাতিল বলে ঘোষণা হয়েছে, তাঁরা আজ থেকে কোনও বেতন পাবেন না। পাশাপাশি এযাবৎকাল পাওয়া বেতন কিস্তিতে ফেরত দিতে হবে, এই নির্দেশ এদিন দিয়েছেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়।

তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে এই ১৯১১ জনকে সিবিআই তদন্তের প্রয়োজনে জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারবে, নিতে পারবে হেফাজতেও। কোর্ট অর্ডার ছাড়া দেশের কোনও নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেবেন না এই 'অযোগ্য' চাকরিপ্রার্থীরা। এই নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। আগামি ১৪ মার্চ এই মামলার পরবর্তী শুনানি, স্কুল সার্ভিস কমিশন-মধ্যশিক্ষা পর্ষদ হলফনামা দিয়ে জানাবে তারা কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে।

4 months ago


SSC: দুর্নীতির কথা কার্যত ‘কবুল’ কমিশনের, ৮০০-র বেশি স্কুল শিক্ষকের চাকরি যাওয়ার পথে

২০১৬ সালে এসএসসি-র (SSC Case) নবম-দশম শ্রেণির চাকুরিপ্রার্থীদের তালিকায় ছিল মোট ৯৫২ জনের নাম। সেই তালিকায় বহু চাকরিপ্রার্থীর ক্ষেত্রে সার্ভার এবং ওএমআর শিটে প্রাপ্ত নম্বরে ব্যাপক ফারাক ধরা পড়েছে। এসএসসি সূত্রে খবর, কারও কারও নম্বরের ফারাক ৫৩। সেই তালিকা দেখে কলকাতা হাইকোর্টের (Caluctta High Court) বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসু এসএসসিকে প্রশ্ন করেন, 'এঁদের বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়ার কথা ভাবছে কমিশন?' বৃহস্পতিবার সেই ব্যবস্থা নেওয়ার কথাই জানানো হল এসএসসির তরফে। এর মাধ্যমে দুর্নীতি (Corruption) যে হয়েছিল, ঠারেঠোরে তা-ও মেনে নেওয়া হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে।

জানা গিয়েছে, রাজ্যের ৮০০-র বেশি স্কুলশিক্ষকের চাকরি যাওয়ার পথে। দুর্নীতির কথা কার্যত ‘কবুল’ করে একথা জানাল স্কুল সার্ভিস কমিশন বা এসএসসি। নির্দিষ্ট আইন মেনে ২০১৬-র নবম-দশমের নিযুক্ত শিক্ষকদের তালিকা থেকে ‘অযোগ্য’ ৮০০-রও বেশি শিক্ষকের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা হবে পর্যায়ক্রমে। আগামী সপ্তাহেই জারি হবে এই সংক্রান্ত নোটিস।

4 months ago
OMR:হাতে একদিন, গ্রুপ ডি পদে ২৫০০-র বেশি চাকরি বাতিলের নির্দেশ কোর্টের

গ্রুপ ডি OMR শিট বিকৃত মামলায় আড়াই হাজারের বেশি চাকরি বাতিলের নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের। গ্রুপ-ডি মামলায় (Group D Case) শুক্রবারের মধ্যে চাকরির সুপারিশ বাতিলের নির্দেশ বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের (Justice Abhijit Ganguly)। ২৮২০ জন যারা কারচুপি  করেছে, তাঁদের প্রত্যেকের চাকরি বাতিল করতে হবে। এদের তালিকা আবার নতুন করে আপলোড করতে হবে, নোটিশ দিতে হবে। ৬৯৮৮ যারা মেরিট লিস্টে তাঁদের তালিকা থেকে শূন্যপদ পূরণ করতে হবে। এদের মধ্যে কারও OMR শিট বিকৃত পাওয়া গেলে পরে তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। দেখা যাক কার অদৃশ্য হাত আছে এসবের পিছনে। বৃহস্পতিবার শুনানিতে এই মন্তব্য করেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য, কমিশন সব OMR পরীক্ষা করেছে, যেগুলি সিবিআই দিয়েছে। OMR শিটগুলি গাজিয়াবাদ থেকে উদ্ধার হয়। এসএসসিকে বিচারপতি বলেন, ' পরীক্ষা করে কারচুপি হয়েছে, যদি আপনি জেনেছেন তাহলে পদক্ষেপ নিতেই হবে। অনেক সময় দিয়েছি। এবার তাঁরা আসতে বাধ্য এই কোর্টে। কিছুদিন জেলে থাকার ব্যবস্থা করব।'

এদিন আরও একধাপ এগিয়ে বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, 'বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসুর মত আমি উদার নই।'

4 months ago
SSC: 'দোষী প্রমাণ হলে টাকা ফেরত এবং জেল', হাইকোর্টের বার্তা অযোগ্য চাকরিপ্রাপকদের

OMR Sheet বিকৃতির ফলে প্যানেলভুক্ত ১৬৯৮ জনের বিরুদ্ধে কেন মামলা করছেন না? তদন্তে গতি আনুন। বুধবার এসএসসি নিয়োগ (SSC Recruitment) দুর্নীতি মামলায় এই মন্তব্য করেন বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসু (Justice Basu)। তাঁর মন্তব্য,'স্কুল সার্ভিস কমিশন বা এসএসসি-র উচিৎ নিজে থেকে পদক্ষেপ করা।' এদিন এজলাসে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন স্কুল সার্ভিস কমিশন আর মধ্যশিক্ষা পর্ষদের আইনজীবী। কেন্দ্রীয় সংস্থার আইনজীবী এসএসসি-র উদ্দেশে বলেন, 'সিবিআই হাতে হাড়িভর্তি রসগোল্লা তুলে দেবে এটা হয় না।' পাল্টা এসএসসি আইনজীবীর সওয়াল, 'সেই রসগোল্লার হাড়ি আরশোলায় ভর্তি।'

এই বিতণ্ডার মধ্যেই বিচারপতি বসুর মন্তব্য, 'আমাদের চিন্তা শুধু শিশুদের নিয়ে আর যারা দীর্ঘদিন ধরে চাকরির প্রতীক্ষায় বসে রয়েছে তাঁদের নিয়ে। ইতিমধ্যে ছয় বছর হয়ে গিয়েছে।' স্কুল সার্ভিস কমিশন কাজ শুরু করুক। অযোগ্যদের সরিয়ে দেওয়া হোক, ওয়েটিং লিস্টে থাকা প্রার্থীদের মধ্য থেকে যোগ্যদের নিযুক্ত করা হোক। তালিকা তৈরি হলেই আদালত প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেবে। সব কাজ একদিনের মধ্যেই করতে হবে। আমাদের দেখতে হবে কত তাড়াতাড়ি শূন্যপদগুলি পূরণ করা যায়। কারণ ছাত্ররা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, স্ক্রুটিনি শুরু করুন। যারা অপেক্ষায়, তাঁদের তালিকা প্রস্তুত রাখুন। ভুয়ো চাকুরিজীবীদের বরখাস্ত করার সঙ্গে সঙ্গে নতুনদের নিয়োগ করুন।

গ্রুপ ডি মামলা বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসু এহেন মন্তব্য করেছেন বুধবার। তাঁর প্রশ্ন, 'যারা OMR Sheet বিকৃত করেছেন এবং যারা এর ফলে উপকৃত হয়েছেন দুজনেই কি সমানভাবে দায়ী নয়?' এই প্রসঙ্গে সিবিআইয়ের আইনজীবী জানান, 'যারা তদন্তে সহযোগিতা করছে না, তাঁদের সঙ্গে কী করতে হয় আমরা জানি।'

সিবিআইয়ের উচিত এই ১৬৯৮ জনের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করা। এঁরা আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ পাবেন। নিজেদের নির্দোষ প্রমাণ না করতে পারলে টাকাও যাবে, জেলেও যাবে। এই মন্তব্যও এদিন করেন বিচারপতি বসু।

এদিকে এই OMR শিট বিকৃতি প্রসঙ্গে মধ্যশিক্ষা পর্ষদের আইনজীবী জানান, 'যাদের OMR Sheet বিকৃত করা হয়েছে, তাঁদের মধ্যে ১৬৯৮ জনকে সুপারিশ পত্র দিয়েছিল এসএসসি। ১৬৯৪ জন নিয়োগপত্র পেয়েছে।' এই তথ্য শুনেই বিচারপতি জানান, 'এই ১৬৯৮ জনকে নোটিশ জারি করা দরকার। এঁদের বক্তব্য শোনার প্রয়োজন রয়েছে। যারা বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের দেওয়া সুযোগের সদ্ব্যবহার করেননি, তাঁরাও এই দুর্নীতিতে সমানভাবে দায়ী। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় অসদুপায় অবলম্বন করে নিযুক্ত সবাইকে চাকরি ছেড়ে তদন্তে সহযোগিতার নির্দেশ দিয়েছিলেন।' জানা গিয়েছে, আগামী সপ্তাহে পরবর্তী শুনানি।

4 months ago


Court: 'সমাজ থেকে জঞ্জাল সরিয়ে উপযুক্তদের জায়গা দিন', নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় মন্তব্য হাইকোর্টের

নবম দশমে নিয়োগ দুর্নীতি (Recruitment Scam) মামলায় সিবিআইয়ের উপর তীব্র অসন্তুষ্ট হাইকোর্ট। এবার এই তদন্তকারী সংস্থার (CBI) কাজের ধরনে বিরক্ত বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসু (Justice Basu)। মঙ্গলবার সকালে একটি রিপোর্ট, সিল বন্ধ খামে জমা দেয় সিবিআই। সেটার সঙ্গে সিবিআইয়ের আইনজীবীর রিপোর্টের কোন মিল নেই। বিরক্ত হাইকোর্টের (Calcutta high Court) বিচারপতি বলেন, "দেশের একটা প্রধান তদন্তকারী সংস্থার এমন ভুল কাম্য নয়। সিবিআইয়ের ফাইল করা রিপোর্টে যা আছে তার চাইতে আইনজীবীর ফাইলে আরও বেশি তথ্য আছে। এটা কীভাবে হয়? এটা কি আপনার রেপুটেশনের সঙ্গে মিল খায়? আপনার ভূমিকা নিয়ে সন্দেহ হচ্ছে। সব পেপার তিনবার চেক করে পাঠানো উচিৎ। এত দেরি হচ্ছে কেন। সমাজ থেকে জঞ্জাল সরিয়ে উপযুক্তদের জায়গা করে দিন।'

একইভাবে এদিন শুনানিতে স্কুল সার্ভিস কমিশনের ভূমিকায় সরব বিচারপতি বসু। "সব কি আদালতের দায়িত্ব? আপনাকে কেউ ঠকিয়ে চলে গেল। চুপ করে বসে থাকবেন? এত ভয় কেন? যা হয়েছে মুছে এগিয়ে চলুন। নিজের ক্ষমতা কেন প্রয়োগ করছেন না? আপনার চেয়ারম্যানকে বলুন। এদের চাকরি থেকে বরখাস্ত করুন।'  বৃহস্পতিবার সিবিআইকে ফের রিপোর্ট দিতে নির্দেশ হাইকোর্টের।

এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য, নবম-দশম নিয়োগ দুর্নীতিতে বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসুর এজলাসে সিবিআই গোপন রিপোর্ট দিতে গিয়ে ভুল রিপোর্ট দিয়ছে। যা নিয়ে বিরক্ত প্রকাশ করেছে কোর্ট। সিবিআইকে বিচারপতির কটাক্ষ, 'কেন তদন্তে এত দেরি করছে সিবিআই। জানি না সিবিআই কেন এতো ধীর গতিতে চলছে!'

4 months ago
CBI: কাকে ঘুষ দিয়ে চাকরি, বেআইনি নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তিদের থেকে সিবিআই জানুক: কোর্ট

বেআইনি ভাবে নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তিদের সরাসরি জেরা করুক সিবিআই (CBI Investigation)। কাকে টাকা দিয়ে তাঁরা চাকরি পেয়েছেন, জানুক কেন্দ্রীয় সংস্থা। মঙ্গলবার নিয়োগ দুর্নীতি মামলার শুনানিতে এই নির্দেশ হাইকোর্টের (Calcutta High Court) বিচারপতি বিশ্বজিত বসুর (Justice Basu)। তিনি বলেন, 'এটা ইয়ার্কি হচ্ছে! পড়ুয়াদের কথা না ভেবে এভাবে চাকরি পাচ্ছে, আবার এসব কথা বলছে। টাকা কাদের দিয়ে চাকরি পেয়েছে, এটা জানতেই হবে সিবিআইকে।'

এদিকে এসএসসিকে হাইকোর্টের প্রশ্ন, 'যদি এই কর্মীদের সরিয়ে দেওয়া হয়, সেখানে দ্রুত নিয়োগের জন্য কতটা প্রস্তুত এসএসসি। কারণ কর্মী না থাকলে স্কুল চালানো সমস্যা হবে।  কেন এসএসসি এদের সরাতে নিজে পদক্ষেপ করছে না?'

এমনকি ৪৪৮৭ জন চতুর্থ শ্রেণীর কর্মী ও ওয়েটিং লিষ্টে থাকা প্রার্থীদের ওএমআর শিট প্রকাশ করতে হবে। ওই ওএমআর শিট প্রকাশ করতে হবে ৩১ জানুয়ারির মধ্যে। যেগুলি সিবিআই গাজিয়াবাদ থেকে উদ্ধার করেছে, সেই ওএমআর শিট প্রকাশের নির্দেশ দিয়েছে আদালত। ৮ ফেব্রুয়ারি এই মামলার পরবর্তী শুনানি। এর আগে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় ও ওমআর শিটগুলো আপলোডের নির্দেশ দিলেও সেটা এখনও কার্যকর করেনি এসএসসি। সেই নিয়ে এবার দ্বিতীয় নির্দেশ।

4 months ago