Breaking News
Film Festival: শুরু ২৯তম কলকাতা আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব, উদ্বোধনে 'বাদশা' নয় ভাইজান      SSKM: বেড নেই এসএসকেএম-এ! দেড় বছরের শিশুকে ফিরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে      BJP: জাতীয় সঙ্গীত 'অবমাননা' মামলায় জোর ধাক্কা রাজ্যের! বিজেপি বিধায়কদের গ্রেফতারে 'না' হাইকোর্টের      Recruitment Scam: ফের তৃণমূলের দুই কাউন্সিলরের বাড়ি থেকে উদ্ধার নিয়োগ সংক্রান্ত নথি ও অ্যাডমিট কার্ড!      Congress: স্বাধীনতার পর প্রথম তেলেঙ্গানায় সরকার গঠনের পথে কংগ্রেস      Deganga: গুরুতর অভিযোগ! মিড ডে মিলের চাল লুকিয়ে রাখা হচ্ছে স্কুলের শৌচালয়ে      Sujoykrishna: সুজয়কৃষ্ণের ভয়েস স্যাম্পেল টেস্টে 'ঢিলেমি'! এসএসকেএম-এর ভূমিকা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন      Recruitment Scam: এবারে দেবরাজ চক্রবর্তীর বাড়ি থেকে উদ্ধার নিয়োগ সংক্রান্ত একাধিক নথি!      Jyotipriya: এসএসকেএম-এও নেই স্বস্তি! সিসিটিভি ক্যামেরার নজরাধীন রাখার নির্দেশ আদালতের      CBI: কোথাও বিধায়ক, কাউন্সিলর, কোথাও ব্যবসায়ীর বাড়িতে হানা, রাজ্যজুড়ে ফের সক্রিয় সিবিআই     

Cbi

Recruitment Scam: ফের তৃণমূলের দুই কাউন্সিলরের বাড়ি থেকে উদ্ধার নিয়োগ সংক্রান্ত নথি ও অ্যাডমিট কার্ড!

নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় অ্যাকশন মোডে সিবিআই (CBI)। সোমবার ফের ২ তৃণমূল কাউন্সিলরের বাড়িতে তল্লাশি চালায় সিবিআই আধিকারিকরা। আর এবারে তল্লাশি চালাতেই উদ্ধার করা হল নিয়োগ সংক্রান্ত আরও নথি ও অ্যাডমিট কার্ড। ফলে প্রশ্ন উঠছে, কাউন্সিলরের বাড়িতে এই নথিগুলো কোথা থেকে এল? আর এরই তদন্ত করছে সিবিআই।

জানা গিয়েছে, সোমবার বিধাননগরের কাউন্সিলর দেবরাজ চক্রবর্তীর বাড়িতে তল্লাশি চালায় সিবিআই আধিকারিকরা। উদ্ধার করা হয় ১৪ থেকে ১৫ টি চাকরিপ্রার্থীদের অ্যাডমিট কার্ড এবং ৫ থেকে ৬ টি বদলি সংক্রান্ত নথি। সমস্ত নথি, সিবিআইয়ের কাছে প্রাপ্ত নথির সঙ্গে মিলিয়ে দেখা হচ্ছে। এছাড়াও অ্যাডমিট কার্ডের প্রার্থীদের এবং যাঁদের বদলি সংক্রান্ত নথি পাওয়া গিয়েছে, তাঁদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে সিবিআইয়ের তরফে বলে সূত্রের খবর। পাশাপাশি জানা গিয়েছে, তাঁদের খুব শীঘ্রই তলব করার সম্ভাবনা রয়েছে।

অন্যদিকে এই নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় কাউন্সিলর বাপ্পাদিত্য দাশগুপ্তের বাড়িতেও তল্লাশি চালায় সিবিআই আধিকারিকরা। উদ্ধার হয় প্রাথমিক নিয়োগ সংক্রান্ত এবং এসএসসি নিয়োগ সংক্রান্ত একাধিক নথি। প্রায় ১০০ পাতার নিয়োগ সংক্রান্ত নথি উদ্ধার হয়েছে বলে সিবিআই সূত্রে খবর। কলকাতা পুরসভার একজন কাউন্সিলরের বাড়িতে এত নিয়োগ সংক্রান্ত নথি কেন ছিল এ নিয়ে তদন্ত করছে সিবিআই। প্রয়োজনে তাঁকেও তলবের সম্ভাবনা রয়েছে সিবিআইয়ের তরফে বলে সূত্রের খবর। উল্লেখ্য, পার্থ ঘনিষ্ঠ বলেও রাজনৈতিক মহলে পরিচিত এই কাউন্সিলর।

2 days ago
Recruitment Scam: গ্রুপ সি-এর কর্মীদের নিয়োগ সংক্রান্ত নথি চেয়ে পর্ষদকে চিঠি সিবিআই-এর

রাজ্য জুড়ে বেড়ে চলা দুর্নীতির আবহেই গ্রুপ সি (Group C) মামলায় তৎপর কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা সিবিআই (CBI)। আদালতের ডেডলাইনকে মাথায় রেখেই ময়দানে নেমেছেন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। এবারে রাজ্যের এসএসসি গ্রুপ সি পদে চাকরি পাওয়া সমস্ত শিক্ষাকর্মীদের নথি মধ্যশিক্ষা পর্ষদের কাছে চেয়ে পাঠিয়েছে সিবিআই। এর পরই নড়েচড়ে বসেছে মধ্যশিক্ষা পর্ষদ।

আদালতের চাপ বাড়তেই অ্যাকশন মোডে সিবিআই। নিয়োগ দুর্নীতির রহস্য শেষ করতে তৎপর কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। ফলে শিক্ষকদের পর এবারে গ্রুপ সি পদে চাকরি পাওয়া ক্লার্কদের নথি চেয়ে পাঠাল সিবিআই। নিয়োগ সংক্রান্ত নথি চেয়ে মধ্যশিক্ষা পর্ষদকে নোটিস পাঠানো হয়েছে। এর পর পর্ষদের পক্ষ থেকে সমস্ত জেলার স্কুল পরিদর্শকদের চিঠি দিয়ে গ্রুপ সি পদে চাকরি পাওয়া ক্লার্কদের নথি চেয়ে পাঠানো হয়েছে। সমস্ত নথি মধ্যশিক্ষা পর্ষদের হাতে আসলেই তা সিবিআই-এর কাছে পাঠিয়ে দেওয়া হবে বলেই পর্ষদ সূত্রে খবর।

নিয়োগ দুর্নীতিতে ইতিমধ্যেই জেলবন্দি রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী থেকে শিক্ষাদফতরের একাধিক কর্তা। এক বছরের বেশি সময় ধরে জেলবন্দি রয়েছেন তাঁরা। কিন্তু দুর্নীতির শিকড়ে পৌঁছনোর দিশা দেখতে এখনও ব্যর্থ কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। এর মধ্যেই ঘাড়ে এসে পড়েছে আদালতের ডেডলাইন। সেই নির্দেশকে মাথায় রেখেই তদন্তের জাল গোটাতে তৎপর তাঁরা। তদন্তে মূল মাথার সন্ধানের অপেক্ষায় রাজ্যবাসী।

4 days ago
OMR Sheet: নেতা ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীর বেসরকারি কলেজ থেকে উদ্ধার ভুয়ো ওএমআর শিট!

এবারে শাসক দলের নেতা ঘনিষ্ঠ এক ব্যবসায়ীর বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হল বেশ কিছু ভুয়ো ওএমআর শিট, একটি মোবাইল ও ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় (Recruitment Scam) তৎপর কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজ্যুজুড়ে তৃণমূল একাধিক বিধায়ক-কাউন্সিলরদের বাড়িতে হানা দিয়েছেন সিবিআই আধিকারিকরা। তবে শুধুমাত্র শাসক দলের নেতারা নন, নেতা ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ী ঝান্টু শেখের বাড়িতেও হানা দেয় সিবিআই। এর পর তাঁর ছেলে সুজল আনসারির কলেজেও তল্লাশি চালায় সিবিআই। আর সেখান থেকেই উদ্ধার করা হয় ভুয়ো ওএমআর শিট।

জানা গিয়েছে, আজ সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৫টা ১৫ মিনিট অবধি সুজল আনসারির বাড়ি ও কলেজে তল্লাশি চালানো হয়। এর পর বেশ কিছু ভুয়ো ওএমআর শিট, একটি মোবাইল ও ব্যাংক অ্যাকাউন্টের তথ্য নিয়ে সুজল আনসারির কলেজ থেকে বেরিয়ে যান কেন্দ্রীয় তদন্তকারী আধিকারিকরা।

জানা গিয়েছে, বড়ঞা থানার কুলি মোড়ের বাসিন্দা ঝান্টু শেখ পেশায় ব্যবসায়ী। ঝান্টু শেখের ভালো নাম মোহাম্মদ আনারুল হক আনসারি। তাঁর বাড়িতে বৃহস্পতিবার সকাল কেন্দ্রীয় বাহিনী জওয়ানদের নিয়ে তদন্তকারী সংস্থা হানা দেয়। জানা গেছে, এই ঝান্টু শেখ ছাড়াও তাঁর ছেলে সুজল আনসারির নামেও রয়েছে একাধিক বাড়ি, সম্পত্তি ও বেসরকারি কলেজ। দুপুর ১টা থেকে বড়ঞার এক কলেজে শুরু হয়েছিল তদন্ত। তারপর সুজল আনসারির ভাই চঞ্চল আনসারিকে নিয়ে আসা হয়েছিল। কলেজে বেশ কিছুক্ষণ তল্লাশি চালানোর পর কোন কোন অ্যাকাউন্টে কত কত টাকা গিয়েছে, সেই সংক্রান্ত একটি ডাইরির পাশাপাশি চঞ্চল আনসারির মোবাইল ফোন ও বেশ কিছু ওএমআর শিট উদ্ধার করে নিয়ে যায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী আধিকারিকরা।

আরও জানা গিয়েছে, সুজল আনসারি বর্তমানে কোথায় আছে তা কেও জানে না। সূত্রের খবর, বড়ঞার তৃণমূল বিধায়ক জীবনকৃষ্ণ সাহা নিয়োগ দুর্নীতিতে গ্রেফতার হওয়ার পর থেকেই কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি এই সুজল আনসারির। এছাড়াও আজ ঝান্টু শেখকে তাঁর ছেলের বিষয়ে সাংবাদিকরা জিজ্ঞাসা করলে তিনি বলেন, 'আমার ছেলে চোর। তবে শুধু তাই নয়, তিনি সাংবাদিকদের সঙ্গেও চরম দুর্ব্যবহার করেন।'

5 days ago


Jafikul Islam: নিয়োগ দুর্নীতিতে এবারে বিধায়কের বাড়ি থেকে উদ্ধার লক্ষ লক্ষ টাকা

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে এর আগে রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কলকাতার বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছিল কোটি কোটি টাকা। এবারে তৃণমূল বিধায়কের বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হল লক্ষ লক্ষ টাকা। সিবিআই সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার সিবিআই তল্লাশি চালিয়ে ডোমকলের বিধায়ক জাফিকুল ইসলামের বাড়ি থেকে উদ্ধার করেছে ২৪ লক্ষ টাকার বেশি।

শাহী সভার পরই শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে তৎপর সিবিআই। বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজ্যজুড়ে তল্লাশি চালাচ্ছেন সিবিআই আধিকারিকরা। এদিন ডোমকলের তৃণমূল বিধায়ক জাফিকুল ইসলামের বাড়িতেও হানা দেয় সিবিআই। এর পর বেলা গড়াতেই সেখানে আনা হয় টাকা গোনার মেশিন। এর পরই সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, তাঁর বাড়ি থেকে নগদ ২৪ লক্ষ ১২ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে। তবে বিধায়ক জাফিকুল ইসলাম আগেই স্বীকার করেছিলেন যে, তাঁর কাছে বর্তমানে ২৪লক্ষ ১২ হাজার টাকা ছিল। এই টাকা তিনি তাঁর জমি বিক্রি করে জমা করে রেখেছিলেন বাড়িতে। আর সিবিআই সূত্রেও জানা গিয়েছে যে, আনুমানিক সেই পরিমাণ টাকাই উদ্ধার হয়েছে। কাউন্টিং মেশিনটি আবার পুনরায় ব্যাংকে পাঠানো হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

6 days ago
Debraj: 'আমি সব দিয়েছি'... সিবিআই বেরোতেই কী বললেন সল্টলেকের দাপুটে কাউন্সিলর দেবরাজ

লক্ষ্মীবারের সকালে বিধাননগরের কাউন্সিলর দেবরাজ চক্রবর্তীর রাজারহাটের বাড়িতে হানা দিয়েছিল সিবিআই আধিকারিকরা। বিধাননগর পুরসভার মেয়র পারিষদ সদস্য দেবরাজের বাড়িতে প্রায় চার ঘন্টা ধরে চলে তল্লাশি। এরপর বেলা ১ টা নাগাদ দেবরাজ চক্রবর্তীর বাড়ি থেকে বেরোয় সিবিআই। সঙ্গে অবশ্য় দেখা যায় দেবরাজকেও। এরপর দমদম পার্কে দেবরাজের দ্বিতীয় বাড়িতে তল্লাশির উদ্দেশে যান সিবিআই আধিকারিকরা। এরপর এদিন দুপুর পৌনে ৩ টে নাগাদ তাঁর দমদম পার্কের দ্বিতীয় বাড়ি থেকে বেরোয় সিবিআই। জানা গিয়েছে, পুর নিয়োগ দুর্নীতি মামলার কারণে দেবরাজের বাড়িতে এদিন হানা দিয়েছে সিবিআই। 

সংবাদমাধ্য়মে সরাসারি দেবরাজ জানায়, এদিন সকালে ৮ টা নাগাদ কোর্টের নির্দেশ অনুযায়ী সাতজন সিবিআই আধিকারিকের একটি দল সহ কেন্দ্রীয়বাহিনী আমার বাড়িতে আসে। তখন বাড়ি ছিলাম না। খবর পেয়ে তারপর বাড়িতে এসে দেখি সার্চ ওয়ারেন্ট নিয়ে সিবিআই এসেছিল। 'আমি আমার ব্য়াঙ্ক ডিটেলস সহ পরিজনদের ব্য়াঙ্ক ডিটেলস যা যা নথি চেয়েছিলেন আমি সব দিয়েছি' তবে আমার বাড়ি তল্লাশি করে গুরুত্বপূর্ণ কোনও নথি পায় নি তাঁরা। আমাকে সার্চ লিস্ট দিয়ে গেছে সিবিআই। তিনি আরও বলেন পরবর্তী সময়ে যদি কোনও নথি দরকার পড়ে তাহলে আমি তা পেশ করব। 

জানা গিয়েছে, এদিন সকাল ৯ টা ১০ টা নাগাদ প্রথমে তৃণমূল কাউন্সিলর দেবরাজ চক্রবর্তীর রাজারহাটের বাড়িতে হানা দেয় সিবিআই। কিন্তু সেই সময় বাড়িতে ছিলেন না দেবরাজ। সিবিআই আধিকারিকদের দেখে দেবরাজের বাড়ির সদস্য়রা খবর দেন তাঁকে। এরপর তিনি কিছুক্ষণের মধ্য়ে গাড়ি করে নিজের বাড়ির সামনে আসেন এবং সিবিআই আধিকারিকদের নিজে নিজের বাড়ির ভিতরে প্রবেশ করেন।

6 days ago


CBI: জাফিকুল ইসলামের বাড়ি থেকে পাওয়া যেতে পারে কোটি কোটি টাকা! আনা হল টাকা গোনার মেশিন

এবারে ডোমকলের তৃণমূল বিধায়ক জাফিকুল ইসলামের বাড়িতে আনা হল টাকা গোনার মেশিন। তবে কি শাসক দলের এই বিধায়কের বাড়ি থেকে উদ্ধার হবে কোটি কোটি টাকা! এই নিয়েই উঠছে প্রশ্ন। নিয়োগ দুর্নীতি মামালায় আজ, বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজ্যজুড়ে তল্লাশি অভিযান শুরু করেছে সিবিআই (CBI)। শাসক দলের একাধিক নেতা-বিধায়ক-কাউন্সিলরের বাড়িতে হানা দিয়েছে সিবিআই আধিকারিকরা। এরপরই জানা গিয়েছে, বেলা গড়াতেই জাফিকুল ইসলামের বাড়িতে ইতিমধ্যেই টাকা গোনার মেশিন আনল সিবিআই।

শাহী সফরের পরই নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় ফের তৎপর কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। সিবিআই সূত্রে খবর, প্রাথমিক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সুনির্দিষ্ট কিছু তথ্য প্রমাণ পাওয়া গিয়েছে। তার ভিত্তিতেই তল্লাশি ও জিজ্ঞাসাবাদ। মানিক ভট্টাচার্যের ঘনিষ্ঠ ডোমকলের বিধায়ক জাফিকুল ইসলাম নিয়োগ দুর্নীতিতে জড়িত বলেই সন্দেহ তদন্তকারীদের। আর তল্লাশি চলাকালীন টাকা গোনার মেশিন আনা হতেই শোরগোল পড়ে গিয়েছে। এই বিধায়কের বাড়ি থেকে কত টাকা উদ্ধার করা হয়, সেটাই এখন দেখার। উল্লেখ্য,  নিয়োগ দুর্নীতিতে ধৃত রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কলকাতার বাড়িতে রাখা টাকা গুনতে মেশিন আনতে হয়েছিল।

6 days ago
CBI: কোথাও বিধায়ক, কাউন্সিলর, কোথাও ব্যবসায়ীর বাড়িতে হানা, রাজ্যজুড়ে ফের সক্রিয় সিবিআই

শাহ সফরের পরের দিনই সক্রিয় সিবিআই। সূত্রের খবর, রাজ্য জুড়ে বেশ কয়েকটি জায়গায় সিবিআই তল্লাশি শুরু হয়েছে। জানা গিয়েছে, বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই সল্টলেক, মুর্শিদাবাদ, কলকাতার কিছু জায়গায় তৃণমূল কাউন্সিলর ও ব্যবসায়ীর বাড়িতে সিবিআই হানা দেয়। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তে সকাল থেকেই পার্থ চট্টোপাধ্যায় ঘনিষ্ঠ কাউন্সিলর বাপ্পাদিত্য দাসগুপ্তের বাড়িতে সিবিআই তল্লাশি শুরু হয়েছে। ওদিকে ডোমকলের  তৃণমূল বিধায়ক জাফিকুল ইসলামের বাড়িতে বৃহস্পতিবার হানা দিল সিবিআই আধিকারিকরা। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় ধৃত মানিক ঘনিষ্ঠ জাফিকুল জড়িয়ে আছেন কি না তার তদন্তেই এদিন সকালে ডোমকলে আসেন তারা। এর আগে শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় জড়িত থাকার অভিযোগে বড়ঞার বিধায়ক জীবন কৃষ্ণ সাহাকে গ্রেফতার করেছে সিবিআই।

গতকাল অর্থাৎ বুধবার ধর্মতলার সভা থেকেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপি নেতা অমিত শাহ দুর্নীতি নিয়ে মমতা ও তৃণমূলকে টার্গেট করেন। তারপর দিন অর্থাৎ বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই রাজ্যজুড়ে বহু যায়গায় সিবিআই হানা শুরু হয়েছে। জানা গিয়েছে, ডোমকলের পাশাপাশি মুর্শিদাবাদেও এক ব্যবসায়ীর বাড়িতে সিবিআই হানা দিয়েছে। বড়ঞায় বিধায়ক জীবনকৃষ্ণের গ্ৰেফতারের পর এবার ফের সিবিআই হানা বড়ঞায়, বড়ঞা থানার কুলি মোড়ের বাসিন্দা ঝান্টু সেখ পেশায় ব্যবসায়ী তার বাড়িতে বৃহস্পতিবার সকাল সকাল কেন্দ্রীয় বাহিনী জওয়ানদের নিয়ে তদন্তকারী সংস্থা হানা দেয়। জানা গেছে এই ঝানটু শেখের বেশ কিছু বেসরকারি কলেজ ও বিভিন্ন জায়গায় সম্পত্তি রয়েছে। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী আধিকারিকেরা ঝান্টু শেখের বাড়িতে পৌঁছেছে এবং জিজ্ঞাসাবাদ চলছে।

ওদিকে পাটুলি, সল্টলেকে তৃণমূল কাউন্সিলরদের বাড়িতে হানা সিবিআইয়ের। পাটুলিতে নিয়োগ দুর্নীতির মূল মাথা পার্থ ঘনিষ্ঠ কাউন্সিলর বাপ্পাদিত্য দাসগুপের বাড়িতে হানা দেয় সিবিআই। ওদিকে বিধাননগর পৌরনিগমের মেয়র পরিষদ সদস্য ৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর দেবরাজ চক্রবর্তীর বাড়িতে সিবিআই হানা। নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে সিবিআই এর এই অভিযান বলে সূত্র মারফত খবর।

6 days ago
Fraud: ভুয়ো সিবিআইয়ের পরিচয়ে এক লক্ষ টাকা ছিনতাইয়ের অভিযোগ

শহরে নতুন প্রতারণার ফাঁদ। সিবিআই পরিচয় দিয়ে এবার সক্রিয় প্রতারকের গ্য়াং। বুধবার এমনই এক প্রতরণার শিকার হলেন টেগোর স্ট্রিট এলাকার এক ব্যবসায়ী। অভিযোগ, ভুয়ো সিবিআইয়ের পরিচয়ে এক লক্ষ টাকা লুঠ করা হয়েছে। যদিও এখনও পর্যন্ত অভিযুক্তদের কোনও খোঁজ পাওয়া যায়নি। তবে ইতিমধ্য়ে অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি শুরু করেছে পুলিস। 

জানা গিয়েছে, এদিন সকালে ওই ব্য়বসায়ী তাঁর কর্মচারীর হাতে টাকার ব্য়াগ দিয়ে পাঠায় গন্ত্যব্যে পৌছে দেওয়ার জন্যে। এরপর যাওয়ার পথে টেগোর স্ট্রিটের কাছে কয়েকজন সিবিআই পরিচয় দিয়ে সেই কর্মীকে ঘিরে ধরে। এরপর ওই কর্মীর কাছ থেকে তাঁর ব্য়াগ ছিনিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করে ওই ভুয়ো সিবিআইয়ের দল। অভিযোগ, এরপর ওই কর্মী ব্য়াগ দিতে অস্বীকার করলে তাঁর কাছ থেকে জোরপূর্বক ব্য়াগ ছিনিয়ে নিয়ে চম্পট দেয় ওই ভুয়ো সিবিআইয়ের দল। জানা গিয়েছে, ছিনতাই যাওয়া ব্য়াগের ভিতরে এক লক্ষ টাকা ছিল। 

এরপর ছিনতাইয়ের অভিযোগে পোস্তা থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিস এই গোটা ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে। তবে এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ব্য়াপক আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়। 

7 days ago


Mahua: 'সিবিআই কি এতই বেকার?' টাকা নিয়ে প্রশ্ন কাণ্ডে তদন্ত শুরু হতেই সিবিআইকে আক্রমণ মহুয়ার

মহা ফ্যাসাদে তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র (Mahua Moitra)। আর সেই জন্যই বোধ হয় একেবারে সপ্তম সুরে গলা চড়ালেন কৃষ্ণনগরের সাংসদ। নদিয়া কৃষ্ণনগর দু নম্বর ব্লকের ধুবুলিয়া এলাকায় প্রকাশ্য এক পথসভা থেকে ঠিক এই ঝাঁঝালো সুর শোনা গেল সাংসদের গলায়। সরাসরি সিবিআই-কে তোপ দেগে বললেন, 'সিবিআই কি এতই বেকার? তাঁর কতগুলো জুতো আছে তা গুনে যাক।'

টাকার বদলে প্রশ্ন বিতর্কে বিপাকে মহুয়া মৈত্র। শনিবার জানা গিয়েছে, লোকপালের সুপারিশ মেনেই তৃণমূল সাংসদের বিরুদ্ধে প্রাথমিক তদন্ত শুরু করে দিয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। এএনআই সূত্রে সেই খবর পাওয়ার পর থেকেই যেন মহুয়াকে একটু বেসামাল দেখাচ্ছে। ফলে রবিবার সকাল হতেই কৃষ্ণনগরের ধুবুলিয়া এলাকায় প্রকাশ্যে সিবিআইকে আক্রমণ করে বললেন, "কোথায় কোন বিজেপির চোর-ছ্যাঁচড় সাংসদ ঝাড়খণ্ডের বিজেপির, সে নাকি টুইট করেছে, আপনার বিরুদ্ধে সিবিআই কমপ্লেন নিয়ে নিয়েছে। আমি বললাম, খুব ভালো। আমার পায়ে কত জোড়া জুতো আছে, তোরা এসে গোন। আমি এখন জানতে চাই, সিবিআইয়ের কি এখন এতটাই বেকার? যে আদানির ১৩ হাজার কোটির কয়লা কেলেঙ্কারি নিয়ে অভিযোগ রেজিস্টার না করে আমার কত জোড়া জুতো আছে, আমি ক'টা ক্লিপ পরি মাথায়, সেটা জানতে এগিয়ে।" এককথায় রবিবাসরীয় সভা থেকে এত লম্ফঝম্প, এত বাকবিতণ্ডার পর এটুকু বোঝাই যাচ্ছে, 'ক্যাশ ফর কোয়ারি' নিয়ে বোধ হয় একটু বেশিই অস্বস্তিতে মহুয়া।

a week ago
Mahua: আরও বিপাকে মহুয়া! 'টাকা নিয়ে প্রশ্ন' কাণ্ডে তৃণমূল সাংসদের বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্ত শুরু

আরও বিপাকে কৃষ্ণনগরের সাংসদ মহুয়া মৈত্র (Mahua Moitra)। এবারে মহুয়া মৈত্রের বিরুদ্ধে ওঠা টাকার বিনিময়ে প্রশ্নের অভিযোগ নিয়ে প্রাথমিক তদন্ত শুরু করে দিল সিবিআই (CBI)। জানা গিয়েছে, লোকপালের নির্দেশেই এই তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই। ২৫ নভেম্বর, শনিবার থেকেই এই তদন্ত শুরু করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

সংসদে প্রশ্ন তোলার জন্য ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে মহুয়া মৈত্রর বিরুদ্ধে লোকপালের কাছে অভিযোগ দায়ের করেছিলেন বিজেপি সাংসদ নিশিকান্ত দুবে। তিনি মহুয়া মৈত্রর বিরুদ্ধে আর্থিক লাভের জন্য জাতীয় নিরাপত্তার সঙ্গে আপস করার অভিযোগও করেছিলেন। এর পর তাঁর বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। পরে সিবিআই সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন মহুয়া মিত্রের বিরুদ্ধে কেস রেজিস্টার করে প্রাথমিক তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই।

এই মূহুর্তে সিবিআই একটি প্রাথমিক অভিযোগ নথিভুক্ত করেছে। এটি, অভিযোগগুলি পূর্ণাঙ্গ তদন্তের যোগ্য কিনা তা নিশ্চিত করার প্রথম পদক্ষেপ। তদন্ত চলাকালীন সময়ে পর্যাপ্ত প্রাথমিক উপাদান পাওয়া গেলে সিবিআই এটিকে এফআইআরে রূপান্তর করতে পারে। নিয়ম অনুযায়ী, প্রাথমিক তদন্তের সময় সিবিআই অভিযুক্তকে গ্রেফতার বা তল্লাশি অভিযান চালাতে পারবে না। কিন্তু তাঁরা সাংসদ মহুয়ার কাছে প্রয়োজনীয় প্রশ্নের জবাব তলব করতে পারে। তাঁকে প্রশ্নও করতে পারবে সিবিআই। ফলে এই তদন্ত রিপোর্টের পরই স্থির হবে, মহুয়ার বিরুদ্ধে কোনও ফৌজদারি মামলা দায়ের হবে কিনা।

a week ago


Recuitment Scam: ওএমআর শিট কেলেঙ্কারিতে নয়া মোড়, মুম্বইয়ের সংস্থা থেকে বাজেয়াপ্ত মূল মূল্যায়ন পত্র

প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় (Recruitment Scam) ওএমআর শিট (OMR Sheet) কেলেঙ্কারিতে নয়া মোড়। মুম্বইয়ের সংস্থা থেকে বাজেয়াপ্ত মূল মূল্যায়ন পত্র, আর সেই মূল্যায়ন পত্র থেকেই নয়া মোড় সিবিআই তদন্তে। জানা গিয়েছে, এস বসু রায় অ্যান্ড কোম্পানির তরফে মূল্যায়ন নম্বর পর্ষদকে দেওয়া হয়। এস বসু রায় অ্যান্ড কোম্পানির তরফে মুম্বইয়ের সংস্থাকে বরাত দেওয়া হয়েছিল চাকরিপ্রার্থীদের ওএমআর শিট মূল্যায়নের। কিন্তু ওএমআর শিটের নম্বর ও প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদে জমা পড়া তালিকার মূল্যায়নে বিস্তর ফারাক। সিবিআই সূত্রে দাবি, এই হাত বদলের পরই হয়েছে নম্বরে কারচুপি। মুম্বইয়ের ওই সংস্থার এক কর্তাকে এবার তলব করতে চলেছে সিবিআই। বেশ কিছু নথি চাওয়া হয়েছে প্রাথমিক পর্ষদ থেকেও। কার নির্দেশে নম্বরে বদল, জানতে তৎপর সিবিআই।

সূত্রের খবর, এস বসু রায় অ্যান্ড কোম্পানির একাধিক কর্তার বাড়িতে তল্লাশির পাশাপাশি জিজ্ঞাসাবাদ এবং কয়েকজনকে গ্রেফতারও করেছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। তারা মুম্বই গিয়ে সেই সংস্থার থেকেও একাধিক তথ্য সংগ্রহ করেছে। সিবিআইয়ের হাতে আসা এই নয়া তথ্য প্রসঙ্গে বঞ্চিত এক চাকরীপ্রার্থী অরুণিমা পালের দাবি, এই অভিযোগ আমরা বারবার করে আসছি। আমাদের ওএমআর শিট বিকৃত করা হয়েছে। আর মাস্টারমাউন্ড মানিক ভট্টাচার্য।

2 weeks ago
CBI: রাজ্যে ১০০ কোটির দুর্নীতি, সিবিআইকে সুপারিশ কেন্দ্রীয় শিক্ষা মন্ত্রকের

মিড ডে মিলে আর্থিক বেনিয়মের অভিযোগ। রাজ্যের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক রিপোর্ট যৌথ রিভিউ কমিটির। সূত্রের খবর, শিক্ষামন্ত্রকের কাছে ইতিমধ্যেই সেই রিপোর্ট পেশ করা হয়েছে। রাজ্যকে বিঁধতে রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর কাছে হাতিয়ার সেই রিপোর্ট। সূত্রের খবর, রিপোর্টে উল্লেখ রয়েছে, ১৬ কোটির মিড ডে মিলে দুর্নীতি হয়েছে। ১০০ কোটি টাকার গরমিলের অভিযোগ। জেলা থেকে আসা রিপোর্টের সঙ্গে কেন্দ্রের রিপোর্টও মিলছে না বলে সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে। অভিযোগ, অতিরিক্ত পড়ুয়া দেখানো হচ্ছে রাজ্যের তরফে। পড়ুয়া উপস্থিতির হারও বাড়িয়ে দেখানো হচ্ছে।

কখনও সাপ, কখনও বাঙ কিংবা টিকটিকি। প্রতন্ত গ্রামে দিন আনা দিন খাওয়া পরিবারের বাচ্চাগুলো যখন দুপুরের খাবারটা মুখে তুলতে বসে, তখন তাতে দেখতে পায় ঝলসে যাওয়া টিকটিকি, সাপ-ব্যাঙদের। অনেকে খেয়েও ফেলে, অসুস্থও হয়। মিড ডে মিলে এভাবে সরীসৃপদের ঝলসানো দেহ পাওয়া গত কয়েক মাসে কার্যত নিত্য নৈমিত্তিক খবর হয়ে উঠেছে বাংলায়। সে খবর বারবার প্রকাশিত হয়েছে। কাঠগড়ায় উঠেছে প্রশাসন। খতিয়ে দেখার আশ্বাস মিলেছে, তবুও রোজনামচায় পরিবর্তন আসেনি। মিড মিল ইস্যুতে রাজ্যকে বারবার বিঁধেছেন বিরোধীরা।

এবার কেন্দ্রের তরফ যে রিপোর্ট জমা পড়েছে, তা রীতিমতো চমকে ওঠার মতন। শিক্ষা, রেশন, চাকরি, মানুষের মৌলিক অধিকারগুলোতে যে দুর্নীতির খবর সামনে এসেছে, সে অধ্যায়ে নবতম সংযোজন মিড ডে মিল। বাচ্চাদের খাবারেও দুর্নীতি! রিপোর্ট কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রকে জমা পড়েছে। তাতে উল্লেখ রয়েছে, বেশ কিছু ক্ষেত্রে বেনিয়ম ধরা পড়েছে। যত সংখ্যক উপস্থিতির হার দেখানো হয়েছে, তার থেকে কম রয়েছে উপস্থিতি। কর্মদিবসের হারেরও গড়মিল। সেখানেও বেশি করে দেখানোর কথা রিপোর্টে উল্লেখ রয়েছে। ১৬ কোটি মিড ডে অতিরিক্ত ‘এস্টিমেশনে’ চলে গিয়েছে। এই মিড ডে মিলের দাম ১০০ কোটি টাকা। কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রক ইতিমধ্যেই CAG কে তদন্ত করতে বলা হয়েছে। সিবিআই-কেও মিড ডে মিল দুর্নীতিতে তদন্তের সুপারিশ করল কেন্দ্রীয় শিক্ষামন্ত্রক।

2 weeks ago
CBI: কলকাতায় সিবিআইয়ের বড় রদবদল, বদলি হলেন অপরাধ দমন শাখার ডিআইজি

সিবিআইয়ের কলকাতা শাখায় বড় রদবদল। কলকাতার অ্যান্টি করাপশন ব্রাঞ্চ থেকে সরিয়ে দেওয়া হল ডিআইজি জয়দেবনকে। তাঁর জায়গায় দায়িত্বে দেওয়া হয়েছে পঙ্কজ কুমার সিং-কে। নিয়োগ দুর্নীতির তদন্তের মাঝেই সিবিআইয়ে এই রদবদল, বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

২০০৮ ব্যাচের মধ্যপ্রদেশ ক্যাডার ছিলেন জয়দেবন। নতুন ডিআইজিও ২০০৮ ব্যাচের অরুণাচল প্রদেশ -গোয়া - মিজোরাম এবং ইউনিয়ন টেরিটোরি ক্যাডার। এক মাস আগেই সিবিআইতে এসেছেন। তাঁকেই কলকাতায় আনা হল। জানা গিয়েছে, দিল্লিতে পাঠানো হয়েছে জয়দেবনকে।

কয়েক বছর ধরেই গরু ও কয়লা পাচার দুর্নীতি মামলার তদন্ত করছে সিবিআই। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলার তদন্তের দায়িত্বও কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। চলছে তল্লাশি অভিযান, হাই প্রোফাইল ব্যক্তিদের জড়িত থাকার সন্ধান মিলেছে। কিন্তু, তদন্ত চলছেই। এখনও কোনও মামলারই কিনারা করতে পারেননি তাঁরা। ইতিমধ্যেই সেই বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছে আদালত। তদন্তে গতি আনতেই তাহলে কলকাতা শাখায় রদবদল করা হল ? উঠছে প্রশ্ন।

4 weeks ago


Anubrata: এবারও কেষ্টর পুজো কাটবে তিহাড় জেলেই, জামিনের আবেদন খারিজ সুপ্রিম কোর্টে

সুপ্রিম কোর্টে (Supreme Court) ফের জামিন পেলেন না অনুব্রত মণ্ডল (Anubrata Mondal)। যেমনটা আশঙ্কা করা হয়েছিল, এবারও পুজো কাটবে জেলেই। গরু পাচার কাণ্ডে বর্তমানে অনুব্রতর ঠিকানা তিহাড় জেল। উল্লেখ্য, 'প্রভাবশালী তত্ত্বে'ই অনুব্রতর জামিনের বিরোধিতা করে সিবিআই (CBI)। মামলার পরবর্তী শুনানি চার সপ্তাহ পর।

গত বছরের অগাস্ট মাসে বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলকে গরুপাচার মামলায় গ্রেফতার করেছিল সিবিআই। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাঁকে দিল্লিতে নিয়ে যান কেন্দ্রীয় তদন্তকারীরা। তিহাড় জেলে আপাতত বন্দি অনুব্রত মণ্ডল। এদিন গরু পাচার কাণ্ডে সিবিআই-এর করা মামলায় দেশের শীর্ষ আদালতে জামিনের আবেদন করেন বীরভূমের তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল। বুধবার সেই মামলার শুনানিতে সিবিআইয়ের আইনজীবী এস ভি রাজু অনুব্রতর জামিনের বিরোধিতা করেন। তাঁর যুক্তি ছিল, "অনুব্রত প্রভাবশালী, জেল থেকে বাইরে বেরোলে যা ইচ্ছে তাই করবে, ক্ষতি হবে তদন্তে। বিচারপতিদেরও হুমকি দিচ্ছে।"

শুনানি শেষে বিচারপতি অনিরুদ্ধ বসু এবং বেলা এম ত্রিবেদী সিবিআইকে কাউন্টার হলফনামা দাখিল করার নির্দেশ দেন। মামলার পরবর্তী শুনানি চার সপ্তাহ পরে। ফলে এবারও অনুব্রতর পুজোও কাটবে তিহাড় জেলেই।

2 months ago
CBI: শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় সিবিআই-এর দ্বিতীয় গ্রেফতারি

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় প্রথম গ্রেফতারের ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই সিবিআই-এর হাতে গ্রেফতার আরও এক। ওএমআর শিট প্রস্তুতকারী সংস্থা এস বসু রায় এন্ড কোম্পানির সঙ্গে যুক্ত কৌশিক মাজিকে গ্রেফতার করল সিবিআই। সিবিআই সূত্রে খবর, মঙ্গলবার কৌশিককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকে পাঠিয়েছিল। সেসময় তাঁর বয়ানে অসংগতি পাওয়ায় গ্রেফতার করে সিবিআই। আদালতেও তাঁকে পেশ করা হবে।

উল্লেখ্য, সোমবার ওএমআর শিট বিকৃতিকাণ্ডে এস বসু রায় এন্ড কোম্পানির কর্মী পার্থ সেনকে গ্রেফতার করে সিবিআই।

2 months ago