Breaking News
Summon: বাবা, মা ও অভিষেকের পরে অভিষেকের স্ত্রীকেও তলব ইডির      Abhishek: দিল্লির থানা থেকে বেরিয়ে কলকাতায় রাজভবন অভিযানের ডাক অভিষেকের      Dengue: ডেঙ্গির থাবায় মৃত্যু আরও তিন জনের, নয়া পদক্ষেপ নবান্নের      ED: ইডিকে আগেই জানানো উচিত ছিল, অভিষেকের মামলায় মন্তব্য ডিভিশন বেঞ্চের      Abhishek: নিজের কথাই রাখছেন অভিষেক, যাচ্ছেন না ইডির তলবে      Delhi: লাঠি উঁচিয়ে তাড়া করে রাজঘাট থেকে তৃণমূলকে বের করে দিল দিল্লি পুলিস      Meeting: একদিকে ইডি, অন্যদিকে বঞ্চনার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ, সোম-মঙ্গলের প্লান কষতে দিল্লিতে বৈঠকে অভিষেক      Abhishek: দিল্লির উদ্দেশ্যে রওনা দিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, নজরে ৩ অক্টোবর      Accident: দুর্ঘটনার কবলে তৃণমূলের দিল্লিগামী বাস, আশঙ্কাজনক ১১ জন      Justic Sinha: জলে কুমির ডাঙায় বাঘ! রনংদেহী জাস্টিস সিনহার নির্দেশে মহাফাঁপরে ইডি ও অভিষেক     

Halim

Halim: পবিত্র ইদের উৎসবে মেতে উঠুন সুস্বাদু হালিম খেয়ে, জানুন ইতিহাস

শান্তনু বন্দ্যোপাধ্যায়: প্রতিবছর রমজান মাসে শহরের মোগলাই রেস্তোরাঁগুলিতে পরিবেশিত হয় সুস্বাদু হালিম। রকমারি ডাল, সুগন্ধি চাল, গম, ঘি, রকমারি মশলা, পেঁয়াজ, আদা, রসুন, ধনেপাতা, পুদিনা পাতা প্রভৃতি সংমিশ্রনে তৈরি সুস্বাদু হালিম। এর প্রতি বাঙালি খাদ্যরসিকদের একটা আকর্ষণ রয়েছে। যদিও রমজান মাসে মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষরা ভোরের সূক্ষ্ম আলো থেকে শুরু করে সূর্যাস্ত পর্যন্ত নির্জলা উপবাসের পরে হাইপ্রোটিন সমৃদ্ধ হালিম পদটি খেয়ে তাদের সারাদিনের পুষ্টির ঘাটতি মেটাতে পারেন।

তবে এই রমজান মাসে শুধু মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষরাই নয় অন্য সম্প্রদায়ের খাদ্যরসিক মানুষরাও এই সময়ে সুস্বাদু হালিমের স্বাদ গ্রহণ করতে শহরের মোগলাই খাবারের রেস্তোরাঁগুলোতে ভিড় জমান। এই হালিমের উৎপত্তিস্থল মধ্য প্রাচ্য। গম, ডাল ও মাংসের সংমিশ্রনে তৈরি এই পদের নাম ছিল হারিশ। কথিত আছে ষোড়শ শতকে পারস্যের সম্রাটের শাহি দস্তরখান থেকে মোগল সাম্রাট হুমায়ুনের মারফত ভারতে আসে হারিশ। পরবর্তী সময়ে হারিশ, হালিম নামে পরিচিত হয়ে ওঠে। তবে এদেশে হায়দরাবাদের চারমিনার থেকে চার কিলোমিটার দূরে অবস্থিত সৈন্যদের ব্যারাক বা ব্যারাকস থেকেই হালিমের জয়যাত্রা শুরু হয়। উনিশ শতকে আরবের হাদরামি সেপাইরা হায়দরাবাদের নিজামের দেহরক্ষী হিসেবে নিযুক্ত হন। তারা সৈন্যদের ব্যারাকে থাকাকালীন মধ্যপ্রাচ্যর হারিশ রান্না চালু করেছিলেন।


মধ্যপ্রাচ্যের হারিশের পাক প্রণালীর সঙ্গে হায়দরাবাদের সুগন্ধি চাল, ঘি রকমারি মশলা ও দেশীয় গুল্মর সংমিশ্রনে তৈরি হয় এক অনন্য হালিম। বর্তমানে ভারতের সর্বধর্মীয় সম্প্রদায়ের খাদ্যরসিক মানুষের কাছে হালিমের এক আলাদা আকর্ষন রয়েছে। প্রতি বছরের মত এই বছরেও কলকাতার ৭৬ বছরের প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী মোগলাই খাবারের রেস্তোরাঁ আমিনিয়াতে পরিবেশিত হচ্ছে সুস্বাদু মশলাদার হায়দরাবাদি মটন ও চিকেন হালিম।

দাম ২২০ টাকা। আমিনিয়া রেস্তোরাঁর বাইরের স্টল থেকে হালিম কিনে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়া আমিনিয়াতে বসেও জমিয়ে হালিম খাওয়া যাবে প্রতিদিন বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত। দেশি ঘি, পেঁয়াজ, আদা, রসুন, পাঁচ রকমের ডাল, গমের ডালিয়া, বাসমতি চাল, রকমারি মশলা, ধনেপাতা, পুদিনা পাতা, কাচা লঙ্কা কুচি দিয়ে তৈরি পাতি লেবুর রস ছড়িয়ে পরিবেশিত মটন বা চিকেন হালিম গরম-গরম তন্দুরি রুটি সহযোগে খাবার মজাই আলাদা। স্বাদে-গন্ধে অতুলনীয়। হালিমের পরিমাণ বেশ ভাল। চাইলে দুজনে ভাগ করেও খাওয়া যায়।

6 months ago
Court: বকখালিতে নৃশংস হত্যা, ৪ বছর আগের খুনের ঘটনায় আসামির ফাঁসি

এক যুবককে মৃত্যুদণ্ডের (Life Sentence) আদেশ কাকদ্বীপ (Kakdwip Court) অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা আদালতের। এক মহিলাকে খুনের অপরাধে দোষী সাব্যস্ত সমর পাত্রকে মৃত্যুদণ্ড দিলেন বিচারক তপন কুমার মণ্ডল। জানা গিয়েছে, মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি ফ্রেজারগঞ্জ কোস্টাল থানা এলাকার পাতি বুনিয়ার বাসিন্দা। 

কাকদ্বীপ কোর্টের সরকারি আইনজীবী এই কেসের পিপি ইনচার্জ অমিতাভ রায় জানান, 'ফ্রেজারগঞ্জ কোস্টাল থানা এলাকায় ১২/০৪/২০১৮-তে একটি কেস রেজিস্টার্ড হয়। অভিযুক্তর নামে কেস নম্বর ৩০/২০১৮, আইপিসি-র আন্ডার সেকশন ৩০২ ধারায় একটি মামালা রুজু হয়। নামখানা থানার দারিদ্রনগরের এক গরীব পরিবারের মেয়ে দুর্গা মাঝিকে লোভ দেখিয়ে বকখালির মৌমিতা হোটেলে নিয়ে যায় সমর পাত্র। সেখানেই তাঁকে নৃশংসভাবে খুন করে আসামি।' 

তদন্তে জানা গিয়েছে, খুন করে হোটেলের জানালা ভেঙে পালিয়ে যায় সে। প্রায় দেড় মাস পরে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। মোট ১৮ জন সাক্ষী ও ৬৩টি ডকুমেন্টস পেশ করা হয় আদালতে। 

সব তথ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে বিচারক তপন কুমার মণ্ডল অভিযুক্ত সমর পাত্রের মৃত্যুদণ্ড ঘোষণা করেন। তবে এই রায় শোনার পর কান্নায় ভেঙে পড়েন সমর পাত্রর পরিবার। সমর পাত্রের পরিবারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এই রায়ের বিরুদ্ধে তাঁরা উচ্চ আদালতে আবেদন করবেন।

7 months ago
Fire: নাসিকের কাছে শালিমার এক্সপ্রেসে ভয়াবহ আগুন, আতঙ্কিত যাত্রীরা নেমে পড়েন স্টেশনে

কালো ধোঁয়ায় ঢেকে গিয়েছে চারপাশ। দাউদাউ করে জ্বলছে ট্রেনের (Train Fire) একটি কামরা। ভয়াবহ আগুনের সাক্ষী থাকেন হাওড়াগামী ট্রেনের যাত্রীরা। দুর্ঘটনাটি ঘটেছে শনিবার সকালেই নাসিক রোড রেলওয়ে স্টেশনের কাছে একটি ট্রেনে। ১৮০৩০ শালিমার-লোকমন্যতিলক ট্রেনটি (Shalimar Express) হাওড়া (Howrah) থেকে মুম্বই (Mumbai)যাচ্ছিল। নাসিকের কাছে আচমকাই ট্রেনের একটি কামরায় আগুন লাগে। এখনও অবধি কোনও হতাহতের খবর মেলেনি। জ্বলন্ত ট্রেনটিকে নাসিক রেলস্টেশনে আনা হয়েছে। দমকলকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে আগুন নেভানোর চেষ্টা করছে।

রেল পুলিস জানিয়েছে, "ফায়ার টেন্ডার আগুন নেভানোর চেষ্টা করছে।" সেন্ট্রাল রেলওয়ের মুখ্য জনসংযোগ আধিকারিক শিবাজি এম সুতার বলেন, "ইঞ্জিনের পাশে থাকা লাগেজ বগি/পার্সেল ভ্যানটি ট্রেন থেকে বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। এবং শীঘ্রই ট্রেনটি নিরাপদে আবার চালু হবে৷ আগুন লাগার কারণ এখনও জানা যায়নি৷ "

স্বাভাবিকভাবেই, আগুন লাগার ঘটনায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন যাত্রীরা। পার্সেল ভ্যানে আগুন লাগায় কোনও হতাহত হননি। আগুন লাগার কথা জানতে পেরে ট্রেন থেকে নেমে পড়েন। স্টেশনেও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। সাদা ধোঁয়ায় ভরে যায় স্টেশন। সঙ্গে সঙ্গে খবর দেওয়া হয় দমকলে। স্থানীয় বাসিন্দারাও আগুন নেভানোর কাজে হাত লাগান।

11 months ago


LockUp: হাওড়ায় শালিমার জিআরপি থানার লক-আপ ভেঙে পালাল খুনে অভিযুক্ত দুই আসামি

হাওড়ার শালিমার জিআরপি (GRP) থানার লক-আপ (Lock Up) ভেঙে পালাল দুই আসামি (Accused)। এই ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। জানা গিয়েছে, রাজু হরি ও সমীরুল মোল্লা নামে ওই দুজনকে গ্রেফতার করেছিল শালিমার জিআরপি। এদের বিরুদ্ধে খুনের (Murder) অভিযোগ রয়েছে। চলন্ত ট্রেন থেকে এরা পরিচিত একজনকে ধাক্কা মেরে ফেলে দিয়েছিল আবাদা স্টেশনের কাছে। এবার দেখুন, কীভাবে তারা লক-আপ ভেঙেছে।


জিআরপি সূত্রে জানা গিয়েছে, গত ১৮ ই আগস্ট এই দুজনকে গ্রেফতার করেছিল রেল পুলিস। ১৯ তারিখ কোর্টে হাজির করা হয়। দুজনেরই পুলিস হেফাজত হয়। তাদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিস। আপাতত সিসিটিভি ফুটেজে কেবলমাত্র তাদের পালিয়ে যাওয়ার ছবিটুকুই ধরা পড়েছে। সেখানে দেখা যাচ্ছে, দুজনেই দৌড়ে পালাচ্ছে।

কিন্তু তারা কোথায় লুকিয়ে, সেটাই এখন পুলিসের তদন্তের বিষয়। অন্যদিকে, এই ঘটনার খবর পেয়েই পুলিসের পদস্থ কর্তারা পরিদর্শনে আসেন। দেখা যায়, গারদেরই একটা অংশে বড় জায়গা ভাঙা অবস্থায় রয়েছে। কিন্তু দুজন আসামি সেই জায়গা ভেঙে কীভাবে বেরিয়ে গেল এবং কেন তা কারও নজরে এল না, সেটাই আশ্চর্যের বলে পুলিসেরই একটা অংশ মনে করছে।


one year ago
Howrah Fire: শালিমারে রং কারখানায় ভয়াবহ আগুন, দগ্ধ ম্যানেজার সহ ৬ কর্মী

হাওড়ার শালিমারে রঙের কারখানায় ভয়াবহ আগুন। ঘটনাস্থলে পৌঁছয় দমকলের একাধিক ইঞ্জিন। ঘন জনবসতিপূর্ণ এলাকা হওয়ায় বেশ বেগ পেতে হয় দমকলকর্মীদের। ম্যানেজার সহ ছয় কর্মীর অগ্নিদগ্ধ হওয়ার খবর মিলেছে। আহত হয়েছেন ২০ থেকে ২৫ জন কারখানার কর্মী। আহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে বলে অনুমান।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বলেন, কারখানার একটি রুমে প্রথমে আগুন লাগে। এসি থেকেই এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে বলে অনুমান। কারখানার কর্মীরা আগুন নেভানোর চেষ্টা করেন প্রাথমিক স্তরে। এরপর পরিস্থিতি হাতের বাইরে যাচ্ছে দেখে দমকলকে খবর দেন তাঁরা। ততক্ষণে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। আর কারখানায় দাহ্য পদার্থ মজুদ থাকায় তা ভয়াবহ আকার নেয়।

স্থানীয় সূত্রে খবর, বুধবার দুপুর আড়াইটে নাগাদ একটি বিস্ফোরণের শব্দ শুনতে পান স্থানীয়রা। তড়িঘড়ি ছুটে এসে কারখানার লেলিহান শিখা দেখতে পান। কারখানার আশেপাশে বসতি এলাকা হওয়ায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এলাকাবাসী। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে আসেন দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু।

ঠিক কী কারণে এই অগ্নিকাণ্ড? তা এখনই কিছু নিশ্চিত করে বলতে পারেনি দমকল। আহতদের ইতিমধ্যে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

one year ago


Shalimar parking শালিমার স্টেশন এলাকায় পার্কিং নিয়ে ঝামেলা, প্রহৃত উত্তরপাড়ার পরিবার

পার্কিংয়ের জন্য দাবিমতো টাকা না দিলে হেনস্তা, মারধর এবং হুমকি। রবিবার সকালে এই ঘটনা শালিমার স্টেশনের।

জানা যায়, উত্তরপাড়ার বাসিন্দা নিরজ শ্রীবাস্তব, তাঁর বাবা ও মাকে রিসিভ করতে অন্যান্য আত্মীয়দের নিয়ে শালিমার স্টেশনে যান। সেখানে পার্কিং জোনের বাইরে গাড়ি পার্ক করেন। সেই সময় কিছু স্থানীয় দুষ্কৃতী তাঁর থেকে পার্কিং ফি দাবি করে বলে অভিযোগ। তিনি তা দিতে অস্বীকার করলে প্রায় ১০ থেকে ১২ জন তাঁদের বেধড়ক মারধর করে। অভিযোগ, মারের চোটে একজনের নাক থেকে রক্ত বের হতে থাকে। ঘটনাস্থলে ছুটে আসে রেল পুলিস এবং বি গার্ডেন থানার পুলিস। তড়িঘড়ি আহতদের নিয়ে যাওয়া হয় সাউথ হাওড়া স্টেট জেনারেল হাসপাতালে। সেখানে তাঁদের প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়।

এই ঘটনার পর আহত ও আক্রান্তদের পরিবারের পক্ষ থেকে লিখিতভাবে বি গার্ডেন থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। ইতিমধ্যেই পুলিস ঘটনার তদন্ত শুরু করছে।

আক্রান্তের পরিবারের অভিযোগ, দুষ্কৃতীরা জোরপূর্বক তাঁদের কাছে টাকা চায়। টাকা দিতে অস্বীকার করলে তাঁদের দেওয়া হয় হুমকি। এমনকি থানাতে এসেও তাঁদের পরে দেখে নেবে বলে জানায় তারা। ঘটনায় রীতিমতো আতঙ্কিত পরিবার। সঠিক বিচারের দাবি জানান তাঁরা।

তবে পুলিস সূত্রে জানা যায়, মোট ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে এজেসি বোস বি গার্ডেন থানার পুলিস।

2 years ago