Breaking News
Abhishek Banerjee: বিজেপি নেত্রীকে নিয়ে ‘আপত্তিকর’ মন্তব্যের অভিযোগ, প্রশাসনিক পদক্ষেপের দাবি জাতীয় মহিলা কমিশনের      Convocation: যাদবপুরের পর এবার রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়, সমাবর্তনে স্থগিতাদেশ রাজভবনের      Sandeshkhali: স্ত্রীকে কাঁদতে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়লেন 'সন্দেশখালির বাঘ'...      High Court: নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় প্রায় ২৬ হাজার চাকরি বাতিল, সুদ সহ বেতন ফেরতের নির্দেশ হাইকোর্টের      Sandeshkhali: সন্দেশখালিতে জমি দখল তদন্তে সক্রিয় সিবিআই, বয়ান রেকর্ড অভিযোগকারীদের      CBI: শাহজাহান বাহিনীর বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ! তদন্তে সিবিআই      Vote: জীবিত অথচ ভোটার তালিকায় মৃত! ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত ধূপগুড়ির ১২ জন ভোটার      ED: মিলে গেল কালীঘাটের কাকুর কণ্ঠস্বর, শ্রীঘই হাইকোর্টে রিপোর্ট পেশ ইডির      Ram Navami: রামনবমীর আনন্দে মেতেছে অযোধ্যা, রামলালার কপালে প্রথম সূর্যতিলক      Train: দমদমে ২১ দিনের ট্রাফিক ব্লক, বাতিল একগুচ্ছ ট্রেন, প্রভাবিত কোন কোন রুট?     

sukanyamondal

Anubrata: তিহারে অনুব্রতর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছেন তৃণমূলের দুই সাংসদ

গরু পাচারকাণ্ডে আগে থেকেই তিহারে আছেন অনুব্রত মণ্ডল (Anubrata Mondal)। সম্প্রতি তিহারে পাঠানো হয়েছে তাঁর মেয়ে সুকন্যকেও (Sukanya Mondal)। এবার তৃণমূলের বীরভূম জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের শারীরিক পরিস্থিতির খোঁজ নিতে দিল্লি যাচ্ছেন দলের দুই সাংসদ (MP)। তৃণমূল সূত্রের খবর, দলের রাজ্যসভার সাংসদ দোলা সেন এবং বোলপুরের সাংসদ অসিত মাল শুক্রবার জেলবন্দি অনুব্রতের সঙ্গে দেখা করবেন। দেখা করার জন্য তিহার জেল কর্তৃপক্ষের তরফে প্রয়োজনীয় অনুমতিও মিলেছে। সব কিছু ঠিক থাকলে শুক্রবার সকাল ১১টা নাগাদ তিহার জেলে যাবেন দোলা এবং অসিত। ১২টা পর্যন্ত তাঁদের সেখানে থাকার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। রাজ্যের শাসকদলের তরফে আনুষ্ঠানিক ভাবে অবশ্য এই বিষয়ে কিছু জানানো হয়নি।

বৃহস্পতিবারই গরু পাচার মামলায় সুকন্যার জামিনের আর্জি খারিজ করে দেয় দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ আদালত। অনুব্রতের জামিনের আবেদন সংক্রান্ত মামলার শুনানিও স্থগিত হয়ে যায় বৃহস্পতিবার। সোমবার থেকে আদালতে গরমের ছুটি পড়ে যাওয়ায় আগামী এক মাসে আর এই মামলার শুনানি হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তাই মনে করা হচ্ছে, গোটা জুন মাসে তিহার জেলেই কাটাতে হবে অনুব্রত এবং সুকন্যাকে।

দলে ‘দক্ষ সংগঠক’ হিসাবে পরিচিত অনুব্রত একাধিক ভোট বৈতরণী পার করিয়েছেন বলে মনে করেন তৃণমূল নেতৃত্ব। নিয়োগ দুর্নীতিকাণ্ডে অভিযুক্ত এবং জেলবন্দি পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে দল সমস্ত পদ থেকে সরিয়ে দিলেও গরু পাচার মামলায় অভিযুক্ত অনুব্রতের ক্ষেত্রে তেমন কোনও পদক্ষেপ করেনি দল। বরং, বীরভূমের জেলা সভাপতি হিসাবে তাঁকেই রেখে দিয়েছে দল। দলের শীর্ষ নেতৃত্ব বহু বার প্রকাশ্যেই তাঁর পাশে দাঁড়ানোর ইঙ্গিত দিয়েছেন। এর আগে দুর্নীতিকাণ্ডে অভিযুক্ত দলের দুই যুবনেতাকেও বহিষ্কার করেছিল তৃণমূল।

সেদিক থেকে দেখতে গেলে এই প্রথম দলের জেলবন্দি কোনও নেতাকে দেখতে যাচ্ছে তৃণমূলের প্রতিনিধিদল। রাজনীতির কারবারিদের একাংশ মনে করছেন, দলের একদম উচ্চ নেতৃত্বের অনুমোদনক্রমেই অনুব্রতকে দেখতে যাচ্ছেন তৃণমূলের দুই সাংসদ। দল যে এই ‘বিপদের দিনে’ও অুনুব্রতর পাশে আছে, তাতেই আনুষ্ঠানিক সিলমোহর পড়তে চলেছে দলীয় প্রতিনিধিদের এই তিহার-সফরে।

one year ago
Meeting: কেবল ১০ মিনিট, গ্রেফতারির পর বাবা-মেয়ের প্রথম মুলাকাত তিহারে

সম্প্রতি বাবা, মেয়ে ও তার পরিবারের সিএর বিরুদ্ধে চার্জশিট দিয়েছে ইডি (ED)। ইডির কৃপায় জেলে (Jail) আছেন তিনজনই। একই জেলে আছেন বাবা ও মেয়ে অর্থাৎ অনুব্রত মন্ডল (Anubrata Mondal) ও তাঁর কন্যা সুকন্যা মন্ডল (Sukanya Mondal)। একই জেলে থাকলেও গ্রেফতারের পর অনুব্রত মন্ডলের সঙ্গে একবারও দেখা হয়নি সুকন্যা মন্ডলের। মেয়ের গ্রেফতারীর পর অবশ্য প্রতিক্রিয়া দিয়েছিলেন অনুব্রত মণ্ডল। তিনি সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছিলেন আমার মেয়েকে গ্রেফতারী ঠিক নয়।

শনিবার অনুব্রত ও তাঁর কন্যার অনুরোধে, অনুব্রত মন্ডলের সঙ্গে সুকন্যা মন্ডলের ১০ মিনিটের জন্য দেখা করার অনুমতি দেয় ইডি। অনুব্রত মণ্ডল পূর্বেই জানিয়েছিল শনিবার মেয়ের সঙ্গে দেখা হবে। এদিন মেয়ের সঙ্গে দেখা করে বেরোনোর পর অনুব্রত মণ্ডলকে জিজ্ঞেস করা হয়, তাঁদের কথোপকথনের বিষয়ে। সে বিষয়ে অবশ্য অনুব্রত মণ্ডল এবং সুকন্যা মন্ডল কেউই মুখ খোলেননি। 

সম্প্রতি ইডির চার্জশিটে, ইডি জানিয়েছে অনুব্রত কন্যা সুকন্যার আয় বলতে শিক্ষকতার টাকাই ছিল। শিক্ষকতার টাকা ছাড়া বাদবাকি সবই বাবা অনুব্রত মন্ডলের আঙ্গুলি হিলনীতেই হয়েছে। পাশাপাশি সুকন্যার গ্রেফতারীর পর প্রথমবার জামিনের জন্য আবেদন করা হয় দিল্লির রাউস এভিনিউ আদালতে। কেষ্টকন্যা সুকন্যা মন্ডলের এই আবেদন আগামী ১২ তারিখ শুনানি হবে বলে সূত্রের খবর।

one year ago
Sukanya: বাবার অনুমতিতেই সব সই! তবে কি নিজের নামের বিপুল সম্পত্তির কথা জানতেন না সুকন্যা

বাবা যেখানে বলতেন, সেখানেই সই করে দিতাম। ইডির (ED) কাছে এমন জানিয়েছেন অনুব্রতর (Anubrata Mondal) কন্যা সুকন্যা মণ্ডল (Sukanya Mondal)। এরফলে বাবার সঙ্গে মেয়ের বক্তব্যের তালমিল খুঁজতে গিয়ে হিমশিম খেয়েছে ইডির আধিকারিকরা। ইডির চার্জশিটে এবার নাম এসেছে সুকন্যার। পেশায় সাধারণ স্কুল শিক্ষিকা। অথচ তাঁর নামে অ্যাকাউন্টে বিপুল অর্থ! কোথা থেকে এল সঙ্গতিহীন টাকা? বীরভূমের তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডলের কন্যা গরু পাচার মামলায় অন্যতম অভিযুক্ত সুকন্যা মণ্ডল ইডির এই প্রশ্নের জবাবে যা বলেছেন, তার সঙ্গে বিস্তর ফারাক খুঁজে পাচ্ছে তদন্তকারী সংস্থা ইডি। বৃহস্পতিবার দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ কোর্টে ইডির তৃতীয় অতিরিক্ত চার্জশিটে উঠে এসেছে সেই অসঙ্গতির বিবরণও।

ইডির দাবি, সুকন্যা জেরায় জানিয়েছেন, তিনি একটি স্কুলে শিক্ষিকার চাকরি করেন। সেই বাবদ প্রাপ্ত বেতনই তাঁর আয়ের একমাত্র উৎস। কিন্তু তদন্তে উঠে এসেছে আরও একাধিক ফার্ম এবং সংস্থায় শেয়ারহোল্ডার হিসাবে নাম রয়েছে অনুব্রতের কন্যার। ইডির এই প্রশ্নের জবাবে সুকন্যা দাবি করেছিলেন, তিনি এ ব্যাপারে কিছুই জানেন না। সবই জানেন তাঁর বাবা, অনুব্রত মণ্ডল।

পাশাপাশি ইডির চার্জশিটে সুকন্যাকে উদ্ধৃত করে আরও দাবি করা হয়েছে যে, তিনি বাবার কথাতেই ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট খোলার ফর্ম-সহ বিভিন্ন নথিপত্রে সই করতেন। মেসার্স এএনএম অ্যাগ্রোকেম ফুডস প্রাইভেট লিমিটেড নামে সংস্থার মালিক হিসাবে নাম রয়েছে সুকন্যার। সুকন্যা তদন্তকারীদের জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে কিছুই জানা নেই তাঁর, বাবা জানেন। এ ছাড়া ভোলেবোম রাইস মিল নিয়েও কিছু জানেন না বলে ইডিকে জানিয়েছেন অনুব্রত-কন্যা। তাঁর জানা নেই, রাইস মিলের ডিরেক্টর এবং ম্যানেজার কে। তবে ইডিকে সুকন্যা জানিয়েছেন, এ ব্যাপারে তাঁর বাবা কিছু জানলেও জানতে পারেন।

one year ago


Anubrata:'অন্যায়'.... মেয়েকে গ্রেফতারী নিয়ে আক্ষেপের সুর অনুব্রতর গলায়!

বেশিদিন বেনিয়ম করেননি ইডি (ED), বাবার গ্রেফতারীর ৮ মাসের মাথায় বাবার কোলে মেয়েকে ফিরিয়ে দিয়েছে তাঁরা। অর্থাৎ অনুব্রতর (Anubrata Mondal)  গ্রেফতারীর পরে সুকন্যাকেও (Sukanya Mondal) গ্রেফতার করেছে ইডি। রবিবার সুকন্যার ১২ দিনের জেল হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছে আদালত, আপাতত তাঁকে কাটাতে হবে তিহার জেলে।

এবার মেয়েকে গ্রেফতার করা নিয়ে এই প্রথম মুখ খুললেন অনুব্রত মণ্ডল। তৃণমূলের বীরভূম জেলার সভাপতি বর্তমানে তিহারে বন্দি। আবার গরু পাচার মামলায় বর্তমানে তিহাড়ে বন্দি কেষ্ট-কন্যা সুকন্যাও। সোমবার অনুব্রতকে হাজির করানো হয়েছিল দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ আদালতে। সেখানেই সুকন্যার গ্রেফতারি নিয়ে মুখ খোলেন তিনি। বিচারক সোমবার অনুব্রতকে আগামী ৪ মে পর্যন্ত জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়েছেন।

সোমবার আদালতে হাজির করানোর সময় সুকন্যার গ্রেফতার নিয়ে মাত্র চার শব্দে প্রতিক্রিয়া দেন অনুব্রত। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘মেয়েকে গ্রেফতার করা অন্যায়।’ মেয়েকে গ্রেফতারের পর এই প্রথম তা নিয়ে মন্তব্য করলেন ওই তৃণমূল নেতা। গত বুধবার গরু পাচার মামলায় দীর্ঘ ক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছিল সুকন্যাকে। তার পর তাঁকে গ্রেফতার করে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। গরু পাচার মামলাতেই সাড়ে আট মাস আগে অর্থাৎ গত ১১ অগস্ট গ্রেফতার করা হয়েছিল সুকন্যার বাবা অনুব্রতকে। তার পর থেকে তদন্তকারীদের নজরে ছিলেন মেয়েও। 

গত ৩০ এপ্রিল দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ আদালতে হাজির করানো হয়েছিল সুকন্যাকে। সেই সময় বিচারক তাঁকে তাঁকে ১২ দিন জেল হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেন।

one year ago
Sukanya: আপাতত বাবার কোলেই ফিরলেন মেয়ে, সুকন্যার ১২ দিনের তিহাড় বাসের নির্দেশ আদালতের

বাবার কোলেই ফিরলেন মেয়ে। অনুব্রত মণ্ডলের (Anubrata Mondal) মতো কন্যা সুকন্যা মণ্ডলও (Sukanya Mondal) আপাতত তিহাড় (Tihar) জেলেই থাকবেন। রবিবার তাঁকে ১২ দিনের জেল হেফাজতে পাঠাল দিল্লির রাউস এভিনিউ আদালত। গরু পাচার মামলায় অভিযুক্ত সুকন্যা। ভার্চুয়াল মাধ্যমে তাঁকে দিল্লির আদালতে হাজির করানো হয়েছিল। সেখানেই তাঁকে জেল হেফাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেওয়া হল।

গত বুধবার গরু পাচার মামলায় দীর্ঘক্ষণ জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় সুকন্যাকে। তারপর এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)-র হাতে গ্রেফতার হন তিনি। গ্রেফতারির পর শনিবার পর্যন্ত ইডির হেফাজতে পাঠানো হয় তাঁকে। সেই সঙ্গে নির্দিষ্ট সময়ের জন্য আইনজীবীর সঙ্গে সাক্ষাতের অনুমতি দেওয়া হয়। এই গরু পাচার মামলায় সাড়ে আট মাস আগে গ্রেফতার হয়েছিলেন বীরভূমের তৃণমূল জেলা সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল। তার পর থেকেই তদন্তকারীদের নজরে ছিলেন সুকন্যা। বুধবার সকালেই ডেকে পাঠানো হয়েছিল সুকন্যাকে। দিনভর জিজ্ঞাসাবাদ করা হয় অনুব্রত-কন্যাকে। ইডি সূত্রে দাবি, সুকন্যা জিজ্ঞাসাবাদের সময় অসহযোগিতা করেন। তারপরই সন্ধ্যায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

গরু পাচার মামলায় অনুব্রতকে দিল্লি নিয়ে গিয়ে নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে ইডি। অনুব্রত এবং তাঁর পরিবারের সম্পত্তি সংক্রান্ত খোঁজখবর জানতে সুকন্যাকেও তলব করেছিল ইডি। গত মার্চ মাসেই তাঁকে এক বার তলব করা হয়। কিন্তু তিনি হাজিরা এড়ান। তার আগের বার আইনজীবী মারফত চিঠি দিয়ে সুকন্যা বেশ কিছু দিন সময় চেয়েছিলেন। তৃতীয় বারও তিনি ইডির তলব এড়ান। তাঁর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে জানানো হয়, সুকন্যা শারীরিক ভাবে অসুস্থ।

সুকন্যার নামে বিপুল সম্পত্তির হদিশ পাওয়া গিয়েছে বলে দাবি ইডির। বোলপুরে তাঁর মালিকানায় প্রচুর জমিজমা রয়েছে। ব্যাঙ্কে ১৬ কোটি টাকার ফিক্সড ডিপোজ়িটও রয়েছে সুকন্যার। এই সম্পত্তি হিসাব বহির্ভূত বলে দাবি ইডির। গরু পাচারকাণ্ডের সঙ্গে তাঁর যোগ থাকতে পারে বলে মনে করছেন গোয়েন্দারা। ইডি দাবি করে, বিপুল সম্পত্তি নিয়ে কেষ্ট-কন্যার কাছে প্রশ্ন করা হয়। কিন্তু তিনি সদুত্তর দেননি। তিনি জানিয়ে দেন, ওই সব প্রশ্নের উত্তর তাঁর বাবা এবং হিসাবরক্ষক মণীশ কোঠারিই (যিনি এখন ইডি হেফাজতে) দিতে পারবেন। ইডি সূত্রে খবর, ওই কারণেই অনুব্রত এবং সুকন্যাকে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা ভাবা হয়।


one year ago


Custody: চোখে মুখে কাঁদো-কাঁদো ভাব! ৩ দিনের ইডি হেফাজতের নির্দেশ কেষ্ট কন্যা সুকন্যার

অনুব্রত (Anubrata Mondal) কন্যা সুকন্যা মণ্ডল (Sukanya Mondal) কে তিনদিনের ইডি (ED) হেফাজত দিল আদালত। বুধবার রাতে জেরা করার সময় তাঁকে গ্রেফতার করে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার দিল্লির রাউস অ্যাভিনিউ কোর্টে পেশ করা হয় অনুব্রত কন্যাকে। বৃহস্পতিবার তাঁকে তিনদিনের ইডি হেফাজতের নির্দেশ দেয় ওই আদালত।

প্রসঙ্গত গরু পাচার মামলায় ২০২২ সালের ১১ ই আগস্ট গ্রেপ্তার হয় তাঁর বাবা অনুব্রত মণ্ডলকে। এরপর ইডি এ ঘটনার তদন্ত করে জানতে পারে, সুকন্যার নামে বিপুল সম্পত্তি রয়েছে, যার হদিসও পায় ইডি। এরপরই জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাঁকে তলব করা হয়, কিন্তু সেই হাজিরা বারবার বিভিন্ন অছিলায় এড়িয়ে ছিলেন তিনি। এরপর বুধবার ইডির দিল্লির দফতরে হাজারে দিতে যায় সুকন্যা মন্ডল, সেখানেই জেরায় অসঙ্গতি পেয়ে পিএমএলএ ৩ অ্যাক্টে তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

one year ago
Anubrata: গরু পাচার ফলস কেস, সব মামলা মিথ্যা, অভিযোগ অনুব্রতর

বুধবার অনুব্রত কন্যা সুকন্যা মণ্ডলকে (Sukanya Mondal) গরু পাচার (Cattle Smuggling) কাণ্ডের তদন্ত সূত্রে গ্রেফতার করেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট তথা ইডি (ED)। বৃহস্পতিবার সুকন্যাকে আদালতে পেশ করে হেফাজতে চাইবে কেন্দ্রীয় এই তদন্ত এজেন্সি। তারই মধ্যে এদিন আবার শুনানি ছিল অনুব্রত মণ্ডলের।

তিহাড় থেকে এদিন ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে শুনানিতে যোগ দেন অনুব্রত ও তাঁর একদা দেহরক্ষী সায়গল হোসেন। বিচারক প্রথমে তাঁর কাছে জানতে চান, কেমন আছেন? শুনে অনুব্রত বলেন, 'একদম ভাল নেই। একদম না।'

তিহাড় থেকে আসানসোল জেলে ফিরতে চেয়ে মামলা করে রেখেছেন অনুব্রত। বিচারক এদিন জানতে চান সেই মামলার কী অবস্থা? জবাবে অনুব্রত বলেন, মামলা চলছে। আদালত চাইলে তাঁকে আসানসোলে ফেরত পাঠাতে পারে। সেই সঙ্গে অনুব্রত অভিযোগ করেন, তাঁর বিরুদ্ধে ফলস কেস সাজিয়েছে সিবিআই। সব মামলা মিথ্যা। এ কথা বলে জামিন চান অনুব্রত। বিচারক শুনে বলেন, তিনি অনুব্রত মণ্ডলের কথা শুনলেন ঠিকই। কিন্তু এ সব কথা অর্থহীন। আদালতের কাছে শুধুমাত্র কাগজেরই মূল্য রয়েছে।

অনুব্রত মণ্ডল ও সায়গল হোসেন ছাড়াও এই মামলায় ইতিমধ্যে গ্রেফতার করা হয়েছে অনুব্রত মণ্ডলের চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট মনীশ কোঠারিকে। তার পর এবার মেয়ে সুকন্যাকেও গ্রেফতার করেছে ইডি। অর্থাৎ বীরভূমে কেষ্টর কাছে লোক আর কেউ এখন বাইরে নেই। সবাই হয় জেলে,  নয় হেফাজতে রয়েছে।


one year ago
Sukanya: গ্রেফতারি জেনেই কি হাজিরা এড়াচ্ছিলেন! হাজির হতেই ইডির জালে অনুব্রত কন্যা

গরু পাচার (Cattle Smuggling) মামলায় বাবাকে পূর্বেই গ্রেফতার করেছিল ইডি (ED)। বুধবার রাতে অনুব্রত (Anubrata Mondal) কন্যা সুকন্যা মণ্ডলকে (Sukanya Mondal) গ্রেফতার করে ইডি। বারবার হাজিরার নির্দেশ অমান্য করেন সুকন্যা। গ্রেফতারি নিশ্চিত জেনেই কি হাজিরা এড়াচ্ছিলেন অনুব্রত কন্যা, এ প্রশ্নও উঠছিল বারবার। বুধবার ইডির দিল্লির অফিসে হাজিরা দিতে যান সুকন্যা মণ্ডল। তাঁকে জেরা করে কিছু অসঙ্গতি মেলায় সুকন্যাকে গ্রেফতার করে ইডি। আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার তাঁকে আদালতে পেশ করবেন ইডি আধিকারিকরা। সূত্রের খবর, সুকন্যার কয়েক কোটি টাকার সম্পত্তির হদিশ তথ্যাকারে আদালতকে জানাবে ইডি। 

চাকরিতে প্রভাব খাটানো থেকে শুরু করে কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি, নানা অভিযোগ অনুব্রত মণ্ডলের কন্যা সুকন্যা মণ্ডলের বিরুদ্ধে। গরু পাচার মামলায় সেই সংক্রান্ত জিজ্ঞাসাবাদের পরেই বুধবার সন্ধ্যায় দিল্লিতে তাঁকে গ্রেফতার করেছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থাটির অভিযোগ, সুকন্যা তদন্তে অসহযোগিতা করেছেন। ইডি সূত্রে খবর, সুকন্যার নামে ব্যাঙ্কে কোটি কোটি টাকা গচ্ছিত আছে। এর পাশাপাশি, ওই সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, অনুব্রতের নামে বোলপুরে ২৪০ কাঠা জমি রয়েছে। আর তাঁর কন্যা সুকন্যার নামে রয়েছে ১২০ কাঠা জমি! বোলপুর পুর এলাকার মধ্যেই এই বিপুল পরিমাণ জমি আছে বলে ইডি সূত্রে খবর। বর্তমান বাজারদর অনুযায়ী, এই জমির আনুমানিক মূল্য ২৫ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। আগেই বীরভূমের বোলপুরে অনুব্রতের নামে ২৪০ কাঠা জমির কাগজ প্রকাশ্যে এসেছিল। এ বার সুকন্যার নামে ১২০ কাঠা জমি সংক্রান্ত সরকারি নথিও প্রকাশ্যে আনতে চলেছে ইডি।

বোলপুর পুর এলাকায় প্রত্যেক কাঠা জমির আনুমানিক দাম অন্তত ৭ লক্ষ টাকা। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে অনুব্রতের ২৪০ কাঠা ও তাঁর মেয়ে সুকন্যার ১২০ কাঠা জমির আনুমানিক মূল্য প্রায় ২৫ কোটি ২০ লক্ষ টাকা। আর এই কোটি কোটি টাকার সম্পত্তিই এখন কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার নজরে। বৃহস্পতিবার সুকন্যাকে আদালতে পেশ করার সময় ইডি এই নথিও প্রকাশ্যে আনতে পারে। ইডি সূত্রের খবর, গরু পাচারের টাকা বিনিয়োগ করতেই এই জমিগুলি কেনা হয়েছিল কিনা, তা খতিয়ে দেখছেন তদন্তকারীরা। স্থানীয় সূত্রে খবর, বেশির ভাগ জমিই ফাঁকা অবস্থায় পড়ে রয়েছে। যা থেকে তদন্তকারীদের অনুমান, অবৈধ উপায়ে পাওয়া টাকা বিনিয়োগ করার জন্যই জমিগুলি কেনা হয়েছিল। কেন্দ্রীয় এজেন্সি সূত্রে খবর, ১২০ কাঠা জমির বাইরে শিবশম্ভু রাইস মিলেও রয়েছে অনুব্রত-কন্যার জমি।

one year ago


Sukanya:বাবার পর এবার মেয়ে, গরু পাচার-কাণ্ডে ইডির হাতে গ্রেফতার সুকন্যা

ইডির হাতে গ্রেফতার অনুব্রত মণ্ডলের কন্যা সুকন্যা মণ্ডল। গরু পাচার মামলায় বেশ কয়েকবার তলব করা হয়েছিল অনুব্রত কন্যাকে। কিন্তু বিভিন্ন অছিলায় বারবার হাজিরা এড়িয়েছিলেন তিনি। এবার বুধবার ইডির হাতে গ্রেফতার অনুব্রত কন্যা সুকন্যা মণ্ডল। গত বছর ১১ই আগস্ট গরু পাচার মামলায় গ্রেফতার হয় বীরভূমের দাপুটে তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডল। বাবার গ্রেফতারির ৮ মাসের মাথায় গ্রেফতার অনুব্রতর মেয়ে। ইতিমধ্যে তিহার জেলে বন্দি রয়েছেন অনুব্রত।

আসানসোল জেলে ফিরে আসার জন্য দিল্লি হাইকোর্টে দায়ের অনুব্রতর আবেদন নিম্ন আদালতে ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে।  এদিকে, বুধবার দিল্লিতে ইডির দফতরে হাজিরা দেন সুকন্যা। তাঁকে দফায় দফায় জেরার পরেই গ্রেফতারির সিদ্ধান্ত নেয় কেন্দ্রীয় সংস্থা।

one year ago
Sukanya: পেট ব্যথার দোহাই দিয়ে তৃতীয় বার ইডির হাজিরা এড়ালেন অনুব্রত কন্যা

পেটে ব্যথা নিয়ে ভর্তি ছিলেন হাসপাতালে (Hospital)। এবার ওই পেট ব্যথার দোহাই দিয়েই ইডির হাজিরা এড়ালেন অনুব্রত-কন্যা (Anubrata Mondal)। এই নিয়ে তিনবার হাজিরা এড়ালেন অনুব্রতর কন্যা সুকন্যা মণ্ডল (Sukanya Mondal)। সোমবারই সুকন্যাকে দিল্লির ইডির দফতরে হাজিরা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল ইডি। কিন্তু গত দু’বারের মতো এ বারেও তিনি যাননি। কারণ হিসাবে শারীরিক অসুস্থতার কথা বলেছেন সুকন্যা।

অনুব্রতকে হেফাজতে নেওয়ার পর তদন্ত করে, অনুব্রত কন্যা সুকন্যার বিষয়ে অনেক চাঞ্চল্যকর তথ্যের নাগাল পান ইডির আধিকারিকরা। সূত্রের খবর, অনুব্রত এবং তাঁর পরিবারের সম্পত্তি সংক্রান্ত খোঁজখবর জানতে সুকন্যাকেও তলব করে ইডি। গত মার্চ মাসেই এক বার তলব করা হয়। কিন্তু তিনি হাজিরা এড়ান। তার আগের বার আইনজীবী মারফত চিঠি দিয়ে সুকন্যা বেশ কিছু দিন সময় চেয়েছিলেন। তৃতীয় বারও তিনি ইডির তলব এড়ালেন। সূত্রের খবর, কয়েকদিন আগেই তিনি বোলপুর হাসপাতালে পেট ব্যাথা নিয়ে ভর্তি হন। দু'দিন চিকিৎসার পর তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

প্রসঙ্গত, গত বছর অগাস্টে অনুব্রত গ্রেফতার হওয়ার পরই সুকন্যাকে দিল্লিতে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ করে সিবিআই। তারা দাবি করে, বিপুল সম্পত্তি সম্পর্কে কেষ্ট-কন্যার কাছে প্রশ্ন করা হয়। কিন্তু তিনি সদুত্তর দেননি। তিনি জানিয়ে দেন, ওই সব প্রশ্নের উত্তর তাঁর বাবা এবং হিসাবরক্ষক মণীশ কোঠারিই (যিনি এখন ইডি হেফাজতে) দিতে পারবেন। ইডি সূত্রে খবর, ওই কারণেই অনুব্রত এবং সুকন্যাকে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার কথা ভাবা হয়।

one year ago


Sukanya: পেটে যন্ত্রণা নিয়ে হাসপাতালে সুকন্যা! দু'দিন পর ছাড়লো বোলপুরের নার্সিংহোম

তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডলের (Anubrata Mondal) কন্যা সুকন্যা মণ্ডল পেটের যন্ত্রণা নিয়ে ভর্তি হয়েছিলেন বোলপুরের এক বেসরকারি নার্সিংহোমে। দু'দিন ভর্তি থাকার পর শনিবার ছুটি পান তিনি। পেটে টিউমার বা সিস্টের যন্ত্রণায় ভর্তি হয়েছিলেন সুকন্যা (Sukanya Mondal) বলে হাসপাতাল সূত্রে খবর। যদিও অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন পড়লে বোলপুরে (Bolpur) অপারেশন তিনি করাবেন না বলে জানা গিয়েছে। আগামী সপ্তাহে সুকন্যা মণ্ডলকে আবার নতুন করে দিল্লিতে তলব করেছে ইডি। দিল্লির ইডি (ED) হাজিরা এড়াতেই কি নতুন পরিকল্পনা?

অনুব্রত মণ্ডলের দিল্লি যাত্রার পর গত একমাসে দু'বার সুকন্যাকে ইডি তলব করেছে। দু'বারই সমন এড়িয়েছেন তিনি। আগামি সপ্তাহে ফের একবার তাঁকে হাজিরা দিতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই তলবের মধ্যেই সুকন্যার চিকিৎসাধীন হওয়ার মধ্যেই কৌশল দেখছে বিরোধী শিবির। চলতি মাসের প্রথমে একবার সুকন্যাকে তলব করেছিল কেন্দ্রীয় সংস্থা। কিন্তু শেষ মুহূর্তে নোটিস হাতে পাওয়ায় তিনি হাজিরা এড়িয়েছেন, এমনটাই সূত্রের খবর।  


one year ago
ED: একমাসে দু'বার ইডি হাজিরা এড়ান অনুব্রত কন্যা, আগামি সপ্তাহে ফের তলব সুকন্যাকে

গরু পাচার মামলায় (Cow Smuggling Case) গত একমাসে দু'বার ইডি হাজিরা এড়ালেন অনুব্রত কন্যা। জানা গিয়েছে, চলতি মাসের ৪ তারিখ সুকন্যা মণ্ডলকে ইডির (ED) দিল্লি অফিসে হাজিরার জন্য সমন পাঠানো হয়েছিল। সেই সমন নাকি সুকন্যা (Sukanya Mondal) হাতে পান ৩ এপ্রিল। স্বল্প নোটিশে তিনি দিল্লি পৌঁছতে পারবে না বলে হাজিরা এড়ান সুকন্যা মণ্ডল।

সূত্রের খবর, হাজিরার জন্য ফের নোটিশ পাঠানো হয়েছে সুকন্যা মণ্ডলকে। আগামী সপ্তাহে হাজিরার নির্দেশ পেয়েছেন সুকন্যা মণ্ডল। জানা গিয়েছে, অনুব্রত মণ্ডলকে দিল্লি নিয়ে যাওয়ার পর সুকন্যাকে এই নিয়ে তিন বার তলব করলো কেন্দ্রীয় সংস্থা। যার মধ্যে দু'বার হাজিরা এড়িয়েছেন সুকন্যা। এবার আগামী সপ্তাহের নোটিশে হাজিরা দেন কিনা সেটাই দেখার।

এদিকে, আসানসোল জেলে ফেরত আসতে চেয়ে ইতিমধ্যে দিল্লি হাইকোর্টে দ্বারস্থ হয়েছেন অনুব্রত মণ্ডল। যদিও জুলাই পর্যন্ত সেই মামলার শুনানি পিছিয়ে গিয়েছে। অর্থাৎ আগামি চার মাস তৃণমূল নেতাকে তিহারেই থাকতে হচ্ছে বলে খবর।

one year ago
ED: ফের ইডি হাজিরা এড়ালেন সুকন্যা, 'মণীশ কী করেছে জানি না', জবাব অনুব্রতর

ফের হাজিরা এড়ালেন কেষ্ট কন্যা সুকন্যা মণ্ডল (Sukanya Mondal)। চলতি মাসের ১৫ তারিখের পর আজ অর্থাৎ সোমবার ২০ তারিখ সুকন্যাকে দিল্লির অফিসে হাজিরা দিতে বলে ইডি (ED)। গত ১৫ তারিখ শরীর অসুস্থতার দোহাই দিয়ে হাজিরা এড়িয়েছিলেন। এবারও হাজিরা এড়ালেন অনুব্রত কন্যা। কেন হাজিরাতে এলেন না, সে বিষয়ে অবশ্য কিছু জানায়নি অনুব্রত কন্যা। একই সঙ্গে আজকে অনুব্রত (Anubrata Mondal) ঘনিষ্ঠ ২ চালকল ব্যবসায়ীকেও তলব করা হয়েছিল, তলব করা হয়েছিল সুকন্যার গাড়ি চালক ও বীরভূমের ছাত্র পরিষদের নেতাকেও। সূত্রের খবর হাজিরা এড়িয়েছেন তারাও। 

ওই একই ঘটনায় অনুব্রত মণ্ডলের হিসেবে রক্ষক মনীশ কোঠারিকে গ্রেফতার করে ইডি, ৬ দিনের জেল হেফাজতের পর, সোমবার তাঁকে আদালতে তোলা হলে আদালত তাকে ১৪ দিনের জেল হেফাজাতের নির্দেশ দেয়। ফলত আগামী ১৪ দিন মনীশ কোঠারির ঠিকানা তিহার জেল। সোমবার আদালত থেকে তিহার যাওয়ার পথে মনীশ সাংবাদিকদের বলেন, 'আমার বিচারব্যবস্থার উপর আস্থা আছে।' 

পাশাপাশি এদিন সকাল থেকেই ম্যারাথন জেরা চলে অনুব্রতর। ইডির দাবি, প্রথম দিকে জেরায় বারবার মনীশ কোঠারির নাম নিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এখন জেরার সময় অনুব্রত বারবার বলছেন, 'মনীশ কোঠারি কি করেছে আমি কিছুই জানি না।' পাশাপাশি এদিন সায়গলকে নিয়ে প্রশ্ন করা হলে অনুব্রত জানান, 'সায়গল কেবল আমার দেহরক্ষী ছিল।' এছাড়াও ইডির দাবি, 'আবার শ্বাসকষ্টের সমস্যা বেড়েছে অনুব্রত মণ্ডলের। কাল রাত থেকে ফের শ্বাসকষ্ট সমস্যায় ভুগছেন। আজ অনুব্রতর স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।'

হাসপাতাল সূত্রে খবর, শ্বাসকষ্টের জন্য অনুব্রতকে ঘনঘন ইনহেলার ব্যবহার করতে বলা হয়েছে। বেশি শ্বাসকষ্ট বাড়লে আগের মত অক্সিজেন মাস্ক ব্যবহার করতে বলেছেন চিকিৎসকরা।

one year ago


ED: জোর করেই কোম্পানি মেয়ের নামে করেছিলেন অনুব্রত, ইডির জেরায় দাবি মনীশ কোঠারির

রীতিমত ভয় দেখিয়েই কোম্পানির মালিকানা মেয়ের নাম করে ছিলেন, এমনই দাবি কেষ্ট মণ্ডলের (Anubrata Mondal) হিসেব রক্ষক মনীশ কোঠারির (Manish Kothari)। ইডির (ED) জেরায় মনীশ জানিয়েছেন, 'সুকন্যার নামে থাকা একটি খাবারের কোম্পানি আসলে মনীশ কোঠারি এন্ড গ্রুপের। মনীশের সঙ্গে আরও ১৬ জন ছিল এই কোম্পানির শেয়ার হোল্ডার।

ইডি সূত্রে দাবি, জেরায় মনীশ স্বীকার করেছে ২০১৮ সালে এই কোম্পানিটি জোর করে সুকন্যার নামে হস্তান্তর করতে বাধ্য করেছিলেন অনুব্রত মণ্ডল। ৩ কোটি ৬০ লক্ষ টাকায় ফুড কোম্পানিটি সুকন্যার নামে হস্তান্তর করেছিলেন মনীশ কোঠারিরা। কোম্পানির নামে থাকা ১৫ কোটি টাকার সম্পত্তি অনুব্রতর নির্দেশে বাধ্য হয়ে দিতে হয়েছে সুকন্যাকে। ইচ্ছে না থাকলেও অনুব্রত মণ্ডলের নির্দেশেই এই কোম্পানি সুকন্যাকে বিক্রি করতে বাধ্য হয়েছিলেন মনীশরা।

এর আগে সিবিআইয়ের জেরার মুখে অনুব্রতর হিসাব রক্ষক মনীশ কোঠারি জানিয়েছিলেন, 'যখন যা বলতেন অনুব্রত, তখন তাই করতে হতো।' এছাড়া কেন্দ্রীয় সংস্থার জেরার মুখে পড়ে তিনি আরও জানিয়েছিলেন, অনুব্রত মনীশদের পুরোনো কোম্পানির নামে আরও জমি কিনেছিলেন।

এছাড়া তাঁর স্ত্রীর নামেও কেনা হয়েছিল বহু টাকার সম্পত্তি। এই সংক্রান্ত সমস্ত নথিপত্র তদন্ত করে উদ্ধার করেছে সিবিআই। যা সিবিআই এর চার্জশিটেও উল্লেখ রয়েছে। ২০১৩ সাল থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত ওই  ফুড কোম্পানির নামে কেনা সম্পত্তি তথ্যের এক অংশ সিএন এর হাতে। একইসঙ্গে ইডি সূত্রে খবর, মনীশের মাধ্যমেই আরো এক কোম্পানি নীর ডেভলপার প্রাইভেট লিমিটেড চালু করেন সুকন্যা।

one year ago
Anubrata: গরু পাচারের কালো টাকাতেই সুকন্যার নামে ফিক্সড ডিপোজিট!

কেন্দ্রীয় সংস্থা ইডির (ED) জেরায় উঠে এলো চাঞ্চল্যকর তথ্য। ইডি সূত্রে খবর, শনিবার জেরার মুখে পড়ে অনুব্রতর (Anubrata Mondal) হিসেব রক্ষক মনীশ কোঠারি জানিয়েছেন, 'গরু পাচারের কালো টাকাতেই করা হয় সুকন্যা মণ্ডলের ফিক্সড ডিপোজিট। কেষ্ট কন্যা সুকন্যা মণ্ডলের ১৬ কোটি টাকার ফিক্সড ডিপোজিটের তথ্য আগেই প্রকাশ করেছে সিএন। প্রায় ১০ কোটি টাকার ফিক্সড ডিপোজিটের নথি সিএন এর হাতে।

দেখা গিয়েছে, বোলপুরের ব্যাঙ্ক অফ বরদাতেই সুনক্যার নামে রয়েছে ১১ টা ফিক্সড ডিপোজিট। যেখানে রয়েছে ৫ কোটি ২৭ লক্ষ টাকা। সুকন্যার নামে রয়েছে সল্টলেকের এসবিআই ব্যাঙ্কের শাখায় ৫ টা ফিক্সড ডিপোজিট। সেখানে রয়েছে ৪ কোটি ৫৭ লক্ষ ৬৬ হাজার ২৬৪ টাকা। এই সব গরু পাচারের কালো টাকাতেই করা হয় ফিক্সড ডিপোজিট। এই সব ফিক্স ডিপোজিট খোলা হয়েছে দু'বছরের মধ্যে। অর্থাৎ ২০১৯ সালের মার্চ থেকে ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসের মধ্যে।

one year ago