Breaking News
ED: মিলে গেল কালীঘাটের কাকুর কণ্ঠস্বর, শ্রীঘই হাইকোর্টে রিপোর্ট পেশ ইডির      Ram Navami: রামনবমীর আনন্দে মেতেছে অযোধ্যা, রামলালার কপালে প্রথম সূর্যতিলক      Train: দমদমে ২১ দিনের ট্রাফিক ব্লক, বাতিল একগুচ্ছ ট্রেন, প্রভাবিত কোন কোন রুট?      Sarabjit Singh: ভারতীয় বন্দি সরবজিৎ সিং-এর হত্যাকারী সরফরাজকে গুলি করে খুন লাহোরে      BJP: ইস্তেহার প্রকাশ বিজেপির, 'এক দেশ এবং এক ভোট' লাগু করার প্রতিশ্রুতি      Fire: দমদমে ঝুপড়িতে বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ড, ঘটনাস্থলে দমকলের একাধিক ইঞ্জিন      Bengaluru Blast: বেঙ্গালুরু ক্যাফে বিস্ফোরণকাণ্ডে কাঁথি থেকে দুই সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করল এনআইএ      Sheikh Shahjahan: 'সিবিআই হলে ভালই হবে', হঠাৎ ভোলবদল শেখ শাহজাহানের      CBI: সন্দেশখালিকাণ্ডে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের...      NIA: ভূপতিনগর বিস্ফোরণকাণ্ডে এবার কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ NIA     

bjp

BJP: 'নবান্ন অভিযানে পুলিস সংযত ছিল', মমতা-অভিষেকের মন্তব্যকে তীব্র আক্রমণ বিজেপির

মঙ্গলবার নবান্ন অভিযান প্রসঙ্গে পুলিসের প্রশংসায় মুখর মুখ্যমন্ত্রী। পুলিস সংযম দেখিয়েছে একইভাবে মন্তব্য করেছেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনকি, আন্দোলনের নামে গুণ্ডামি করেছে বিজেপি। এই অভিযোগ করেন মমতা-অভিষেক। বুধবার সেই অভিযোগের পাল্টা দিয়েছে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল। বঙ্গ বিজেপির সভাপতি সুকান্ত মজুমদারের খোঁচা, 'পুলিস নাকি শান্ত ছিল এমন দাবি করেছে বাংলায় চর্চিত যুবরাজ। উনি এক লাখ টাকা দিয়ে পুলিসের ঢিল তুলে ছোড়ার ছবি দেখতে পাবেন কিনা জানি না। নিরস্ত্র বিজেপি সমর্থকদের মারতে পুলিস ঢিল তুলে ছুড়েছে। ১২ তারিখ এসব চলছে। রেলের জায়গায় ঢুকে মহিলা সমর্থকদের হেনস্থা করেছে পুলিস।'

এদিন বঙ্গ বিজেপির সভাপতি অভিষেকের উদ্দেশে কটাক্ষের সুরে বলেন, 'বাংলার চর্চিত যুবরাজ পুলিসের ভূমিকায় খুশি নয়। তিনি আগামি দিনে যে তৃণমূল তৈরি করবে, সেই দলের পুলিস মানুষের মাথা লক্ষ্য করে গুলি করবে। অর্থাৎ আগামি দিনে ট্রিগার হ্যাপি পুলিস তৈরি হবে। সেই ইঙ্গিত এদিন দিয়েছেন বাংলার যুবরাজ।'

বুধবার নাম না করে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে খোঁচা দেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন সেই মন্তব্যের তীব্র নিন্দা করেন সুকান্ত মজুমদার। বিজেপির রাজ্য সভাপতির পাশাপাশি পৃথক সাংবাদিক বৈঠকে শুভেন্দু জানান, তৃণমূল কংগ্রেস প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানির মালকিন এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর সর্বভারতীয়স্তরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকে নানাভাবে আক্রমণ করেন। একইভাবে রাজ্যে শুভেন্দু অধিকারীকে ব্যক্তিগত স্তরে আক্রমণ করেন। সেভাবেই এদিন এসএসকেএম-এ প্রমাণ ছাড়া যে আক্রমণ ভাইপো করেছে সেটা নিম্নরুচির।

অভিষেকের উদ্দেশে শুভেন্দুর চ্যালেঞ্জ, 'আপনাকেও তিহার জেলে মধু কোরা, ওপি চৌতালাদের সঙ্গে থাকতে হবে। যে অপমান আজ উনি করেছেন তাঁর বিচারের ভার বাংলার জনতার হাতে ছাড়লাম। এই ঔদ্ধত্যের শেষ হবে।'

   

2 years ago
Firhad: অন্য সৌজন্য! মীনাদেবীকে দেখতে গেলেন ফিরহাদ, আহত এসিপি-কে ফোন সুকান্তর

মঙ্গলবার নবান্ন অভিযান (Nabanna Abhijan) ঘিরে তুঙ্গে ছিল রাজনৈতিক তরজা। বুধবার অন্য সৌজন্যে নজির দেখল বঙ্গ রাজনীতি। অনেকে বলছেন, এটাই হওয়া উচিৎ। কী সেই সৌজন্য? বুধবার বিশুদ্ধানন্দ হাসপাতালে গিয়ে আহত বিজেপি কাউন্সিলর (BJP Councillor) মীনাদেবী পুরোহিতের খোঁজ নিয়েছেন মেয়র ফিরহাদ ববি হাকিম (Firhad Hakim)। পাশাপাশি এসএসকেএম চিকিৎসাধীন কলকাতা পুলিসের এসিপি-র খোঁজ ফোনে নিয়েছেন সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumder)। যেখানে দুই ঘটনায় একে অপরের দিকে অভিযোগের আঙুল তুলেছে তৃণমূল এবং বিজেপি। 

যদিও মীনাদেবীকে দেখে বেড়িয়ে ববি হাকিম জানান, কলকাতা পুরসভার দীর্ঘদিনের সহকর্মী হিসেবে উনাকে দেখতে এসেছি। পুরসভা মীনাদেবীর চিকিৎসার সব ব্যবস্থা করবে। মুখ্যমন্ত্রীও সুস্থ কামনা করে অভিনন্দন পাঠান। একজন মানুষ, অপর মানুষের সুস্থতা কামনা করবে। উনি একসময় ডেপুটি মেয়রও ছিলেন।

এদিকে, কলকাতা পুলিসের অ্যাসিস্টেন্ট কমিশনার দেবজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে ফোন করেন বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। তিনি জানান, পুলিসও আমাদের মতো মানুষ। এসিপির সঙ্গে কথা হয়েছে। কথা বলতে পারছেন। তবে কষ্ট আছে, খুব ভালো নেই বললেন। আশা করি সুস্থ হয়ে যাবেন দ্রুত।

2 years ago
Mamata: 'নবান্ন অভিযানে পুলিস গুলি চালাতে পারত', মন্তব্য মমতার, 'গুণ্ডামি' খোঁচা অভিষেকেরও

বুধবার পূর্ব মেদিনীপুরে (East Midnapore) প্রশাসনিক সভা করে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (CM Mamata)। সেই সভার ফাঁকে নবান্ন অভিযান নিয়ে বিজেপিকে (BJP) আক্রমণ করেন তিনি। মঙ্গলবার বিজেপির নবান্ন অভিযানের (Nabanna Abhijan) নামে মানুষের হেনস্থা করেছে। আমাদের একাধিক পুলিসকর্মী আহত। বিঘ্নিত হাটের ব্যবসা। এই অভিযোগ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, 'পুলিস চাইলে গুলি চালাতে পারত। কিন্তু সেটা কাম্য নয়। পুলিস যথেষ্ট নিয়ন্ত্রিত ভাবে ব্যবস্থা নিয়েছে। কিন্তু বাইরে থেকে লোক এনে গুণ্ডামি ঠিক নয়। রেলের জায়গা থেকে ইট ছুড়েছে, বোমা ছুড়েছে। লোক নেই বলে গুণ্ডামি করছে, আন্দোলনের নামে ব্যাগে বোমা-বন্দুক আনা যায় না। মাথা ফাটিয়ে দেব, এসব ঠিক নয়।'

তিনি জানান, গণতান্ত্রিক উপায়ে আন্দোলন করলে আমরা বাধা দিই না। কিন্তু অসামাজিক কাজ করলে পুলিস আইন মোতাবেক ব্যবস্থা নেবে। এদিকে, নবান্ন অভিযানে আন্দোলনের নামে দাদাগিরি, গুণ্ডাগিরি হয়েছে। বিজেপি নেতাদের মদতে এসব হয়েছে। বুধবার এসএসকেএম-এ দাঁড়িয়ে এই দাবি করেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানান, 'শান্ত বাংলাকে অশান্ত করছে বিজেপি। পুলিস ধৈর্য এবং সংযমের পরিচয় দিয়েছে। ৩-৪ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কাউকে রেয়াত করা হবে না। নবান্ন অভিযানে পেট্রোল এল কী করে? ইচ্ছাকৃত গণ্ডগোল করতে পেট্রোল আনা হয়েছিল। নিরস্ত্র পুলিসকে লোহার রড দিয়ে মারধর করা হয়েছে। পুলিস চাইলে গুলি চালাতে পারতো। যেটা বাম আমলে হয়েছে, সিপিএম ভাবতো না, আমরা ভেবেছি এটাই পরিবর্তন। পরিকল্পিতভাবে পুলিসের উপর হামলা হয়েছে। অ্যাসিসটেন্ট কমিশনারের হাত ভেঙে দিয়েছে। উনার মাথায় হেলমেট ছিল বলে বেঁচে গিয়েছেন। বাংলায় ক্ষমতায় এলে কী করত বিজেপি? দুষ্কৃতীদের স্বর্গরাজ্যে পরিণত করত।'

তাঁর মন্তব্য, 'ভুল বুঝিয়ে ক্ষমতায় আসতে চায় বিজেপি। ত্রিপুরায় আমাদের উপর হামলা হয়েছে। সেখানে আমরা তো আইন হাতে তুলে নিইনি। সিপিএম-র হার্মাদরা এখন বিজেপিতে গিয়েছে। লাল ঝাণ্ডা ছেড়ে গেরুয়া ঝাণ্ডা ধরেছে। যারা সিঙ্গুর, নন্দীগ্রাম করেছে তাঁরাই এখন এসব করছে। আমার সামনে যদি এরকম হামলা হতো, তাহলে আমি মাথায় শ্যুট করতাম।'

এ প্রসঙ্গে উল্লেখ্য, নবান্ন অভিযানের সময় কর্তব্যরত থাকা অ্যাসিসটেন্ট কমিশনারের উপর হামলা চালিয়েছে বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা। তৃণমূলের অন্দর থেকেই এই অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনায় চার জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিস। এদিকে, আহত এসি-র ডান হাতের হাড় ভেঙেছে। এসএসকেএম-এ চিকিৎসাধীন সেই পুলিসকর্তাকে এদিন দেখতে যান  তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপরেই মঙ্গলবারের নবান্ন অভিযান নিয়ে সরব হয়েছিলেন তিনি।

2 years ago


Mahua: 'বাংলাতেও যদি বুলডোজার পাঠানো হয়', সরকারি সম্পত্তি ধ্বংস নিয়ে বিজেপিকে মহুয়ার খোঁচা

ফের মহুয়া মৈত্রের ট্যুইট খোঁচায় বিদ্ধ বঙ্গ বিজেপি (Bengal BJP)। গেরুয়া শিবিরের নবান্ন অভিযানে (Nabanna Abhijan) সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুরের অভিযোগ তুলছে তৃণমূল। মঙ্গলবার মেছুয়া বাজার এলাকায় পুলিসের একটি গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের বিরুদ্ধে। এবার যারা সরকারি সম্পত্তি ভাঙচুর করেছে সেই বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে বুলডোজার পাঠালে কেমন হয়? ট্যুইট করে মহুয়া মৈত্র (Mahua Maitra) এই প্রশ্ন করেন।

তিনি বলেন, 'যদি বাংলা ভোগীজি অজয় বিষ্ঠের নীতি নিয়ে সরকারি সম্পত্তি ভাঙার অভিযোগে বিজেপি কর্মীদের বাড়িতে বুলডোজার পাঠায় তাহলে কী? বিজেপি কি নিজেদের নীতিতে স্থির থাকবে?' মহুয়া মিত্রের এই ট্যুইট ভাইরাল হতেই পাল্টা কটাক্ষ করেছে বিজেপি।

দলের প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি রাহুল সিনহা বলেন, 'সরকারি সম্পত্তি ভাঙার জন্য প্রথম জরিমানা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দেবেন। আর নবান্ন অভিযানে সরকারি সম্পত্তি ধ্বংস বিজেপি করেছে, তার কোনও প্রমাণ নেই। বিরোধী দলের থাকাকালীন যতগুলো সরকারি সম্পত্তি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ধংস করেছেন, তার এক শতাংশ ধ্বংস বিজেপি করেনি। আগে ওরা জরিমানা দিক, তারপর বিজেপির জরিমানা নিয়ে ভাববে।'

2 years ago
BJP: বঙ্গ বিজেপির পাশে কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব, পুলিসি অত্যাচারের বিরুদ্ধে সরব রবিশঙ্কর

মঙ্গলবার বিজেপির নবান্ন অভিযান (Nabanna Abhijan) নিয়ে রাজ্য নেতৃত্বের (Bengal BJP) পাশে দাঁড়াল কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। বুধবার রীতিমতো সাংবাদিক বৈঠক করে মমতা সরকার (TMC Government) এবং পুলিসের ভূমিকার সমালোচনা করেন বিজেপি নেতা রবিশঙ্কর প্রসাদ (Ravishankar Prasad)। তিনি বলেন, 'তৃণমূল এখন মূল থেকে আলাদা হয়ে গিয়েছে। মাটি থেকে লড়াই করে উঠে আসা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বদলে গিয়েছেন। সিপিএম-র আমল থেকেও তৃণমূল সরকারের আমলে বেড়েছে অত্যাচার, নাগরিক অধিকার হনন। বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের উপর যত আক্রমণ হবে, সরকার বিরোধী আন্দোলন ততবেশি জোরদার হবে।'

তিনি জানান, বঙ্গ বিজেপির প্রায় হাজার খানেক কর্মী-সমর্থক আহত হয়েছেন। ৪০০ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেওয়া হয়েছে। এখনও অনেকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় চিকিৎসাধীন। পুলিসি অত্যাচারের শিকার বিজেপির নেতা-সাংসদরা। যে রাজ্যে একজন মহিলা মুখ্যমন্ত্রী, সেই রাজ্য এই পুলিসি বর্বরতা নিন্দাজনক। রাজ্যের বিরোধী দলনেতাকে মহিলা পুলিস দিয়ে আটকের চেষ্টা আর প্রাক্তন ডেপুটি মেয়র পুলিসের লাঠির ঘায়ে আহত। 

তাঁর খোঁচা, 'মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লিতে এসে গণতন্ত্র বাঁচাও স্লোগান তোলেন আর নিজের রাজ্যে ফিরে গিয়ে গণতন্ত্র নষ্ট করছে রাজ্য মেশিনারিকে ব্যবহার করেন। আমাদের মহিলা কর্মী, সাংসদ, কেন্দ্রীয় সহসভাপতি; এঁদের সঙ্গে কী হয়েছে সব সংবাদ মাধ্যমে এসেছে।' 

মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি রবিশঙ্কর প্রসাদের বার্তা,'যে বা যারা এভাবে পুলিসকে ব্যবহার করে অত্যাচার করে বিরোধী, নাগরিকদের কণ্ঠরোধ করে, মানুষ তাঁদের জবাব দিয়ে দেয়। তার সবচেয়ে বড় উদাহরণ ইন্দিরা গান্ধী।' 

এদিকে, এদিনই একটি ট্যুইট করে বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের উপর পুলিসি নির্যাতনের অভিযোগে সরব হয়েছেন সহ-পর্যবেক্ষক অমিত মালব্য। লালবাজার অভিযানের একটি ভিডিও শেয়ার করে অমিত মালব্য লেখেন, 'শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদীদের উপর পাথর বৃষ্টি কি পুলিস ম্যানুয়ালের এসওপি-র মধ্যে পড়ছে? সেটাই মঙ্গলবার করেছে বাংলার পুলিস। একাধিক বিজেপি কর্মী আহত হয়েছেন। একটা পেশাদার বাহিনী এবং জিহাদিদের মধ্যে কি পার্থক্য থাকা উচিৎ নয়?'

2 years ago


Police: বিজেপির নবান্ন অভিযানে আহত ২৭ পুলিসকর্মী, হাত ভেঙেছে সহ-কমিশনারের

নবান্ন অভিযানে (Nabanna Abhijan) বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের মারধরে এখনও পর্যন্ত আহত ২৭ জন পুলিসকর্মী। যাঁদের মধ্যে জোড়াবাগান থানার অ্যাডিশনাল ওসি-সহ কলকাতা পুলিসের (Kolkata police) অ্যাসিসটেন্ট কমিশনার (AC) দেবজিৎ চট্টোপাধ্যায় রয়েছেন। এমনটাই অভিযোগ লালবাজার সূত্রের। জানা গিয়েছে, এসি পদমর্যাদার এই পুলিসকর্মীর ডান হাত ভেঙেছে। তিনি এসএসকেএম (SSKM) উডবার্ন ওয়ার্ডের চিকিৎসাধীন। মঙ্গলবার রাতেই এক্স-রে'র পাশাপাশি তাঁর প্রয়োজনীয় পরীক্ষা-নিরীক্ষা হয়েছে। চার সদস্যের চিকিৎসক দল তাঁকে পর্যবেক্ষণে রেখেছে। পাশাপাশি জোড়া বাগান থানার অতিরিক্ত ওসিকে সিএমআরআইতে ভর্তি করা হয়েছে।


কলকাতা পুলিস সূত্রে খবর, মেছুয়া বাজার এলাকায় পুলিসের গাড়িতে অগ্নিসংযোগ এবং এসি পদমর্যাদার ওই পুলিসকে মারধরের অভিযোগে দুটি মামলা রুজু হয়েছে। যেগুলোর মধ্যে আইপিসির ৩০৭ (খুনের চেষ্টা) ধারায় জামিন অযোগ্য মামলাও রয়েছে। পাশাপাশি সরকারি সম্পত্তি নষ্ট, সরকারি কর্মীর কাজে বাধাদানের মতো ধারায় মামলা রুজু হয়েছে। এই ঘটনায় এখনও পর্যন্ত চার জন গ্রেফতার হয়েছেন। বেলেঘাটা-নারকেলডাঙা এলাকা থেকে মঙ্গলবার রাতভর তল্লাশি চালিয়ে এঁদের গ্রেফতার করেছে পুলিস। সিসিটিভি খতিয়ে দেখে এঁদের চিহ্নিত করা হয়েছে।

যদিও মঙ্গলবার বিজেপির মিছিল শান্তিপূর্ণ এবং আইন মেনেই ছিল। এই দাবি সংবাদ মাধ্যমের সামনে করেছেন রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। উলটে তাঁর অভিযোগ, তৃণমূল কিংবা পুলিস গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটিয়েছে। পাল্টা মঙ্গলবার রাতে বিজেপির নবান্ন অভিযানের খণ্ডচিত্র তুলে ধরে ট্যুইট করেন তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি লেখেন, 'আজ গোটা দেশ দেখল বিজেপির গুণ্ডারা কতটা তাণ্ডব করতে পারে। ভেবেই শঙ্কিত এরা ক্ষমতায় থাকলে কী করতে পারতো। বিজেপিকে প্রত্যাখাত করার জন্য ধন্যবাদ বাংলার জনগণকে।'

2 years ago
TMC: 'বিজেপির নবান্ন অভিযান ফ্লপ, ছবি শুরু হতেই দি এন্ড', কটাক্ষ কুণালের

বিজেপির (BJP) নবান্ন অভিযান (Nabanna Abhijan) হাস্যকর এবং পুরো ফ্লপ। এঁদের গণ্ডগোল বাঁধানোর পরিকল্পনা পুলিস সফল ভাবে আটকে দিয়েছে। সিনেমা শুরুর আগেই দি এন্ড। এদিকে মানুষ দেখছে ট্রেলার, তারপরেই দি এন্ড। মঙ্গলবার দিনের শেষে এই মন্তব্য করলেন তৃণমূলের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ (Kunal Ghosh)। এদিন তিনি শুভেন্দু অধিকারী, সুকান্ত মজুমদার এবং দিলীপ ঘোষ; বঙ্গ বিজেপির তিন মুখকেই আক্রমণের নিশানা বানিয়েছেন। তাঁর মন্তব্য, 'শুভেন্দু অধিকারী কার দ্বারা হেনস্থা হয়েছেন, মহিলা না পুরুষ পুলিস? আমি তো দেখলাম সারাক্ষণ ধরে বললেন ডোন্ট টাচ মাই বডি। কে ওকে হেনস্থা করেছে? একজন আলুভাতে, হেনস্থার শুভেন্দু অধিকারী কী বোঝেন? নিজেই তো হাঁটতে হাঁটতে চলে গেলেন।'

রাজ্যের একদা বিরোধী দলনেত্রী তথা বর্তমান মুখ্যমন্ত্রীর প্রসঙ্গ টেনে তৃণমূল নেতা বলেন, 'মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পুরনো ছবিগুলো দেখুক। কীভাবে সিপিএম-র পুলিস চুলের মুঠি ধরে টানতে টানতে বের করতো। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সরাতে গেলে পুলিসকে যুদ্ধ করতে হতো। ভারতবর্ষের ইতিহাসে এমন বিরোধী দলনেতা হয়নি, যে হাঁটতে হাঁটতে পুলিসের জিপে উঠছে।' রসিকতার সুরে কুণালে মন্তব্য, 'শুভেন্দু অধিকারী নাকি বিরোধী দলনেতা। পুলিসের সামনে দাঁড়ানোর হিম্মত নেই। একজন আলুভাতে, সখী, অপদার্থ বিরোধী দলনেতা। লজ্জাবতী লতা, তুমি যুদ্ধ ঘোষণা করেছো, বাধা দেবে না, বসবে না? দিলীপ ঘোষ বলেছিলেন পুলিস বাধা দিলে রাস্তায় বসে পড়বেন। শুভেন্দু অধিকারীর আত্মসমর্পণ আজকের নবান্ন অভিযান। নানা অভিযোগে অভিযুক্ত একজন শুধু বাঁচতে বিজেপিতে গিয়েছে।'

মঙ্গলবার বিজেপির নবান্ন অভিযান প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে গেরুয়া শিবিরের কলহ খুঁচিয়ে দিয়েছেন কুণাল ঘোষ। তৃণমূল মুখপাত্র বলেন, 'দিলীপ ঘোষ বলছেন আমি নবান্ন অভিযান শেষ ঘোষণা করলাম। সুকান্ত মজুমদার বলছেন না শেষ নয় আমি আছি। যে বলছে সেটা আলাদা। আলাদা মানে, একটা দল একটা কর্মসূচি আর এঁদের কোনও সমন্বয় নেই। আমরা তো কবে থেকে বলছি দিলীপ ঘোষ বিজেপি, সুকান্ত বিজেপি, শুভেন্দু বিজেপি। সব টুকরে টুকরে গ্যাং।'

পাশাপাশি বিজেপির রাজ্য সভাপতি এদিন পুলিসের গাড়িতে আগুন লাগানোর জন্য তৃণমূলকে কাঠগড়ায় তোলেন। এই অভিযোগ প্রসঙ্গে কুণাল ঘোষ বলেন, 'সবাই দেখছে কে আগুন লাগিয়েছে, কে পাথর মেরেছে, কে অশান্তি করেছে। আর ট্রেনি সভাপতি আর ট্যুইট মালব্য বলছে তৃণমূল করেছে। এঁরা কী পাগল? এঁদের কোনও কর্মসূচি নেই, এঁদের সঙ্গে মানুষ নেই। শুধু কর্মীদের উসকে দিয়েছে অশান্তি করার জন্য। দলের রাজ্য সভাপতি হেলমেট পরে ঘুরছে। কারণ জানেন পিছনে ওর দলের কর্মীরাই পাথর নিয়ে দাঁড়িয়ে, ছুড়লে ওর মাথায় এসে পড়বে।'

2 years ago
Sukanta: হাওড়া ময়দানে গ্রেফতার 'আহত' সুকান্ত, 'লড়াই আরও জোরদার হবে', মন্তব্য বিজেপি সভাপতির

মঙ্গলবার বিজেপির (BJP) নবান্ন অভিযানে হাওড়া ময়দান থেকে মিছিলের দায়িত্বে ছিলেন সাংসদ সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumder)। এদিন দলীয় কর্মী-সমর্থকদের গ্রেফতার এবং লাঠিচার্জ এবং জলকামানের প্রতিবাদে হাওড়া ময়দানে (Howrah Maidan) অবস্থান বিক্ষোভ বসেন সুকান্ত মজুমদার। রাস্তা আটকে বসে থাকার জন্য তাঁকে গ্রেফতার করে হাওড়া সিটি পুলিস। যদিও রাজ্য সভাপতিকে গ্রেফতারি প্রসঙ্গে পুলিস-বিজেপি কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে বচসা বাঁধে। কিন্তু কর্মী-সমর্থকদের শান্ত হতে আবেদন করেন বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদার।

গ্রেফতারির পর প্রিজন ভ্যানে বসেই তাঁর দাবি, 'পুলিসের জলকামানে ঘাড়ে আঘাত লেগেছে এবং ব্যথা রয়েছে। বিজেপি কর্মীরা আইন মেনে চলেন। তাই পুলিসের গ্রেফতারির সময় যাতে কেউ বাধা না দেন নিশ্চিত করেছেন তিনি।' আগামি দিনে আন্দোলন আরও জোরালো হবে। এই দাবি করেন বঙ্গ বিজেপি সভাপতি।

বিজেপির বালুরঘাটের সাংসদের মন্তব্য, 'এমজি রোডে পুলিসের গাড়িতে আগুন বিজেপি লাগায়নি। পুলিস কিংবা তৃণমূল লাগিয়েছে।' এদিন নবান্ন অভিযানের আগে হাওড়া ময়দানে  ছোট বক্তৃতা দেন সুকান্ত মজুমদার। তিনি জানান, বিজেপিকে খুব সাবধানে থাকতে হবে। কারণ তৃণমূল প্ল্যান করেছে এই কর্মসূচিতে তাঁদের লোক ঢুকিয়ে গোলমাল পাকাতে।  শান্তিপূর্ণ এবং গণতান্ত্রিক উপায়ে মিছিলের আহ্বান জানিয়েছিলেন সুকান্ত মজুমদার।

তাঁর দাবি, 'উত্তরবঙ্গ এবং দক্ষিণবঙ্গ থেকে হাজার হাজার লোক এদিনের কর্মসূচিতে এসেছেন। জাতীয় সড়ক ফুটো করে ব্যারিকেড করে বিজেপিকে কর্মীদের আটকেছে পুলিস।'

2 years ago


PTS: 'লেডি পুলিস কেন আমায় টাচ করবে?', প্রশ্ন শুভেন্দুর, 'পুলিসের লেডি-জেন্টস হয় না', পাল্টা ডিসি সাউথ

মঙ্গলবার নবান্ন অভিযানের (Nabanna Abhijan) শুরুতেই আলিপুর পিটিএস-র সামনে পুলিসের সঙ্গে বচসায় জড়ান শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikary)। পুলিসের ব্যারিকেড ভাঙার চেষ্টা করলে তাঁকে আটকাতে যান দুই মহিলা পুলিসকর্মী। তাতেই মেজাজ হারান রাজ্যের বিরোধী দলনেতা। মহিলা পুলিসের উদ্দেশে তিনি বলেন, 'আপনি মহিলা হয়ে আমার গায়ে হাত দেবেন না। আমাকে ছোঁবেন না।' সেই মুহূর্তে কলকাতা সাউথ সেকশনের এক উচ্চপদস্থ আধিকারিকের (kolkata Police) সঙ্গে বচসায় জড়ান শুভেন্দু অধিকারী। ডেকে পাঠানো হয় ডিসি (সাউথ) আকাশ মাঘারিয়াকে।


তাঁকে শুভেন্দু অভিযোগ করেন, 'আপনার মহিলা পুলিস আমাকে টাচ করে কীভাবে?' পাল্টা ডিসি (সাউথ) জবাব দেন, 'পুলিসের লেডিজ-জেন্টস হয় না'। এই বলেই পিটিএস থেকে গ্রেফতার করে প্রিজন ভ্যানে তোলা হয় শুভেন্দু অধিকারিকে। যদিও আগে থেকেই রাহুল সিনহা এবং সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায়কে একই জায়গা থেকে গ্রেফতার করে পুলিস।

প্রিজন ভ্যানে ওঠার আগে তিনি হুঁশিয়ারি দেন, 'রাজ্যের বিরোধী দলনেতাকে এভাবে আটকানোর জন্য তিনি কোর্টের দ্বারস্থ হবেন।' প্রিজন ভ্যান থেকেই তাঁর স্লোগান, 'ভয় পেয়েছে মমতা।'

2 years ago
BJP: নবান্ন অভিযানে রণক্ষেত্র গঙ্গার দুই পাড়, পুলিসের গাড়িতে আগুন, মাথায় আঘাত মীনাদেবী পুরোহিতের

আজ বিজেপির (bjp) নবান্ন অভিযানে (Nabanna Abhijan) ধুন্ধুমার গঙ্গার দু' পাড়। সাঁতরাগাছিতে বিজেপি-পুলিস খণ্ডযুদ্ধ, লাঠিচার্জ, কাঁদানে গ্যাসের শেল। হাওড়া ময়দানে অবস্থান বিক্ষোভ সুকান্ত মজুমদার, অগ্নিমিত্রা পালদের। পাশাপাশি ব্র্যাবোর্ন রোডে ধুন্ধুমার। পুলিসের লাঠিতে মাথা ফাটল বিজেপি কাউন্সিলর মিনাদেবী পুরোহিতের। বিজেপি-পুলিস সংঘর্ষে আহত দুপক্ষের একাধিক। এমজি রোডে পুলিসের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দেওয়ার অভিযোগ। সাঁতরাগাছিতে পুলিস পিকেটে ভাঙচুরের অভিযোগ। শুধু শহর কলকাতা (Kolkata) নয়, হাওড়ায় যেকোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিত সামলাতে তত্পর পুলিস (police)। মঙ্গলবার সকাল থেকেই বিশাল পুলিস বাহিনী নামানো হয়। নবান্নের সামনে কড়া নিরাপত্তার চাদরে মুড়ে ফেলা হয়। গতকাল রাত থেকেই নবান্ন চত্বরে বাড়তি পুলিস কর্মী মোতায়ন করা হয়েছে। এদিন সকালে রাস্তায় বাস প্রায় নেই। বিজেপির নবান্ন অভিযান ঘিরে শহরের একাধিক ব্যস্ততম রাস্তায় এদিন যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হবে। বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ রাস্তা কিছুক্ষণের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে। কলকাতা ও হাওড়া থেকে নবান্নে পৌঁছনোর প্রতিটি পথে মিছিল আটকাতে  রাস্তায় ব্যারিকেড দেওয়া হয়েছে। লোহার ব্যারিকেডগুলিকে লোহার ক্ল্যাম্প দিয়ে মাটির সঙ্গে আটকে দেওয়া হয়েছে। যাতে তা কোনওভাবেই ভেঙে না যায়৷

কোথাও কোথাও লোহার ব্যারিকেড একটার উপর আরেকটা চাপিয়ে দিয়ে শক্ত করে বেঁধে ফেলা হয়েছে৷ এদিন বেলার দিকে একে একে আটক করা হয় রাজ্য বিজেপির তিন পরিচিত মুখ শুভেন্দু অধিকারী, লকেট চট্টোপাধ্যায় এবং রাহুল সিনহাকে। আলিপুর পিটিএস-র সামনে থেকে এই তিন নেতাকে প্রিজন তোলে পুলিস। যদিও পুলিসি এই অতি সক্রিয়তার বিরোধিতায় আদালতে যাওয়ার হুমকি দেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা। এই তিন জনকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে লালবাজার সেন্ট্রাল লকআপে।


পুলিস সূত্রে আরও খবর, সাঁতরাগাছিতে রাস্তা খুড়ে লোহার গার্ডরেল পুঁতে তার সঙ্গে ব্যারিকেডগুলিকে শক্ত করে বেঁধে দেওয়া হয়েছে৷ এছাড়াও জল কামান প্রস্তুত রাখা হয়েছে৷ সকাল থেকে ব়্যাফও নামানো হয়েছে হাওড়া শহরের বিভিন্ন রাস্তায়৷ ড্রোনের মাধ্যমে চলছে নজরদারি। বিজেপির কর্মসূচি শেষ না হওয়া পর্যন্ত দ্বিতীয় হুগলি সেতুতে যান চলাচল নিয়ন্ত্রণ করা হবে। বিকল্প পথ হিসাবে এজেসি বোস রোড, এক্সাইড মোড়, এজেসি বোস রোড হয়ে উত্তর অভিমুখে এপিসি রোড ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। অথবা এজেসি বোস রোড, জহরলাল নেহরু রোড, উত্তর অভিমুখে জহরলাল নেহরু রোড ব্যবহার করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৪ টে পর্যন্ত দ্বিতীয় হুগলি সেতু এবং দুপুর ১২ টা থেকে বিকেল ৪ টে পর্যন্ত হাওড়া ব্রিজ এড়িয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। ভোর ৪ টে থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত শহরে মালবাহী গাড়ি ঢোকা নিষিদ্ধ করেছে পুলিস।

2 years ago


Nabanna: মিছিলের ত্র্যহস্পর্শে মঙ্গলবার নবান্ন ঘিরবে বিজেপি, শহর সচল রাখতে পাল্টা প্রস্তুত লালবাজার

তিন জায়গা থেকে বিজেপির (BJP) নবান্ন অভিযানের (Nabanna Abhijan) পদযাত্রা এগোবে রাজ্য সচিবালয়ের দিকে। একটি পদযাত্রায় নেতৃত্ব দেবেন দিলীপ ঘোষ, বিজেপির রাজ্য দফতর থেকে সেই মিছিল এগোবে নবান্নের দিকে। সাঁতরাগাছি থেকে একটি মিছিল এগোবে নবান্নমুখী, এই মিছিলের নেতৃত্বে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। আর হাওড়া ময়দানের মিছিলকে নেতৃত্ব দেবেন সুকান্ত মজুমদার। সোমবার এই রুটম্যাপ জানান বঙ্গ বিজেপির সভাপতি সুকান্ত মজুমদার (Sukanta Majumder)।

তিনি জানান, শান্তিপূর্ণভাবে মানুষের প্রশ্ন মুখ্যমন্ত্রীর কাছে রাখতে এই নবান্ন অভিযান। তবে বিজেপির এই কর্মসূচি আটকাতে পুলিস-প্রশাসন সক্রিয় হয়েছে। রাজ্যের একাধিক স্টেশনে বিজেপির কর্মী-সমর্থকদের ট্রেনে উঠতে বাধা দেওয়া হয়েছে। ফালাকাটা, আলিপুরদুয়ার স্টেশনে বিজেপি কর্মীদের আটকাতে ঢুকে গিয়েছে রাজ্য পুলিস। এই অভিযোগ এদিন তোলেন সুকান্ত মজুমদার।

পাশাপাশি তাঁর হুমকি, 'পুলিসের এই অতিসক্রিয়তার জেরে কোনওভাবে আইনশৃঙ্খলার সমস্যা হলে তার দায় প্রশাসনের। আশা করব পুলিস-সহ অন্য সরকারি কর্মী যারা আছেন, তাঁরা আমাদের সাহায্য করবেন। কারণ মহার্ঘ ভাতা তাঁদেরও বাকি। তাঁদেরও একটা সংসার, সন্তান-সন্ততি আছে।' ১৪৪ ধারা ভেঙেই আমরা নবান্নের দিকে যাব। এদিন হুঁশিয়ারি সুকান্ত মজুমদারের। এদিকে, মঙ্গলবার বিজেপির নবান্ন অভিযানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষা এবং যান চলাচল সচল রাখতে তৎপর কলকাতা পুলিস। জানা গিয়েছে, এই কর্মসূচির নাকি অনুমতি নেই।

তাও দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বে একটা মিছিল কলেজ স্কোয়ার থেকে এমজি রোড হয়ে হাওড়া ব্রিজ যাবে। সেই মিছিল আটকাতে কলেজ স্কোয়ারে জারি ১৪৪ ধারা। সারা কলকাতাজুড়ে ২০০০ পুলিস মোতায়েন থাকবে। বিশেষ নজরদারির দায়িত্বে স্পেশাল সিপি দময়ন্তী সেন। অ্যাডিশনাল সিপি ২ জন, ডিসি পদমর্যাদার আইপিএস ১৮ জন। অ্যাসিসটেন্ট কমিশনার ৩২ জন। এছাড়াও ইনস্পেক্টর পদমর্যাদার অফিসার ৬২ জন এবং সার্জেন্ট থাকছেন ১২৪ জন। শহরের বিভিন্ন মোড়ে রাখা থাকবে ৫টি জল কামান। দুটি কলকাতা পুলিসের বজ্র যান। কাল সকাল থেকেই ড্রোনের মাধ্যমে আকাশপথে চলবে নজরদারি। সম্ভবত মঙ্গলবার দিনের বিশেষ সময়ে বন্ধ থাকবে হাওড়া এবং হুগলী ব্রিজ।

লাল বাজার সূত্রে খবর, অপ্রীতিকর পরিস্থিতি রোধে পর্যাপ্ত পুলিসি ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। হাওড়া ব্রিজে ওঠার মুখে পুলিসি বাধার মুখে পড়বে বিজেপির পদযাত্রা। এমনটাই লালবাজার সূত্রে খবর। অর্থাৎ মঙ্গলবার কাজের দ্বিতীয় দিনে শহর সচল রাখতে সব ব্যবস্থা সেরে রেখেছে কলকাতা পুলিস।

2 years ago
Gang rape: বাড়ির সামনে মোবাইলে ব্যস্ত তরুণীকে অপহরণ করে গণধর্ষণ, ব্যাপক চাঞ্চল্য টিটাগড়ে

ফের গণধর্ষণের (gang rape) শিকার হলেন এক তরুণী। ঘটনাস্থল টিটাগড় (Titagarh)। সেখানে মোবাইল (mobile) নিয়ে নিজের বাড়ির সামনে দাঁড়িয়ে ছিলেন ওই তরুণী। তখনই চার যুবক আসে। অভিযোগ, মুখে কাপড় চাপা দিয়ে জোর করে ওই তরুণীকে তুলে নিয়ে যায় পাশের এক জঙ্গলে। এরপর মদ্যপান করে সেই তরুণীকে গণধর্ষণ করে বলে অভিযোগ তরুণীর পরিবারের লোকজনের। শনিবার এমন ঘটনার পর নির্যাতিতা তরুণীর বাড়িতে আসে বিজেপির (BJP) মহিলা মোর্চা।

জানা যায়, টিটাগড়ের বাসিন্দা ওই তরুণী। ঘটনার পর থেকেই এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়। নির্যাতিতা তরুণী বারাকপুর আদালতে গোপন জবানবন্দী দেয় সেই চার যুবকের বিরুদ্ধে। শুক্রবার সকালে বিজেপির যুব মোর্চার প্রতিনিধি দল টিটাগড়ের সেই তরুণীর বাড়িতে গিয়ে তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথাবার্তা বলে। পাশাপাশি বিজেপির অভিযোগ, থানায় অভিযোগ করার পর থেকেই তরুণীর বাড়ির সদস্যদের খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না।

দোষীদের গ্রেফতার ও উপযুক্ত শাস্তির দাবি তুলে টিটাগড় থানার সামনে বিটি রোড কিছুক্ষণের জন্য অবরোধ করে বিজেপি যুব মোর্চার প্রতিনিধিরা। তারপর টিটাগড় থানার পুলিস অবরোধ তুলে দেয়। করা হয় লাঠি চার্জ। ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে ওই এলাকায়। 

2 years ago
Paresh: ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় তিন ঘণ্টা সিবিআই হাজিরা পরেশের, তুললেন 'রাজনৈতিক হেনস্থার' অভিযোগ

ভোট পরবর্তী হিংসা (Post Poll Violence) মামলায় ফের সিজিও কমপ্লেক্সে (CGO Complex) হাজিরা দিলেন তৃণমূল বিধায়ক পরেশ পাল। প্রায় আড়াই-তিন ঘণ্টা তিনি ছিলেন সিজিও কমপ্লেক্স। বিজেপি কর্মী অভিজিৎ সরকার খুনের ঘটনায় তাঁকে (TMC MLA Paresh Pal) দ্বিতীয়বার তলব করে কেন্দ্রীয় সংস্থা। সেই তলবে সাড়া দিতেই বেলেঘাটার বিধায়কের এই হাজিরা। মূলত অভিজিৎ খুনে উসকানিমূলক মন্তব্যের অভিযোগ বিধায়কের বিরুদ্ধে আনা হয়েছে। বিজেপি (BJP) কর্মীর পরিবার সেই অভিযোগ করেছে। এরপর হাইকোর্টের নির্দেশে ভোট পরবর্তী হিংসার সবকটি মামলার তদন্তভার যায় সিবিআইয়ের হাতে।

এদিন সিজিও থেকে বেড়িয়ে বেলেঘাটার তৃণমূল বিধায়কের মন্তব্য, 'রাজনৈতিকভাবে হেনস্থা করার চেষ্টা চলছে। তবে সিবিআই যতবার ডাকবে, ততবার আসব। বেলেঘাটায় কাউন্সিলর বলুন বা বিধায়ক সব আমাদের। তাই ওরা কাউকে তো অভিযুক্ত করবেই।' মঙ্গলবার পরেশ পালকে অভিজিতের মৃত্যুকালীন জবানবন্দী প্রসঙ্গে প্রশ্ন করা হলে তিনি জানান, এ ব্যাপারে আমি কিছু জানি না।'

যদিও পরেশ পালের গ্রেফতারির দাবিতে সরব অভিজিৎ সরকারের দাদা। তাঁর দাবি, 'এই খুনি-আসামি ঘুরে বেড়াচ্ছেন, এরপর তো আমি খুন হয়ে যাব। ভবিষ্যতে আরও মানুষ খুন হবে।' তিনি জানান তদন্তে সিবিআই নিশ্চয় আরও তথ্য প্রমাণ হাতে পেয়েছে তাই আবার ডেকেছে। ভাইয়ের মৃত্যুকালীন জবানবন্দিতে পরেশ পালের নাম রয়েছে। 

2 years ago


Dance: মালদহে চটুল নাচের আসরে ছাত্র-যুবদের ভিড়! কাঠগড়ায় তৃণমূল, পাল্টা ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস

শাসকদলের মদতেই চলছে চটুল নাচের আসর। চটুল গানে উদ্দাম নাচ (dance) স্বল্পবসনা নর্তকীদের। সঙ্গেই আবার চলছে জুয়া খেলা। সেই আসরে ভিড় জমিয়েছে এলাকার ছাত্র (student) থেকে যুবকরা। অভিযোগ তুলে তৃণমূলকে তীব্র কটাক্ষ বিজেপির (bjp)। ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সাফাই শাসকদলের। জানা যায়, মালদহের (Maldaha) হরিশ্চন্দ্রপুর থানা এলাকার অন্তর্গত ছত্রক গ্রামে যাত্রা পালার নামে চটুল গানে নাচের আসর। এলাকার সংস্কৃতি নষ্ট হচ্ছে বলে অভিযোগ করে তৃণমূলকে তীব্র কটাক্ষ করেছে বিজেপি নেতৃত্ব। সঙ্গে পুলিস (police) প্রশাসনকে সক্রিয় হওয়ার আহ্বানও জানানো হয়েছে। যদিও এই অভিযোগ সত্যি হলে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে ব্লক তৃণমূল নেতৃত্ব।

এই প্রসঙ্গে উত্তর মালদহ জেলা বিজেপির সাংগঠনিক সম্পাদক রূপেশ আগরওয়াল বলেন, "ছত্রক গ্রামে নাচের আসর বসেছে। ছোট ছোট জামাকাপড় পড়ে মেয়েরা নাচছে। সেখানে ছাত্ররা পর্যন্ত গিয়েছে। জুয়া খেলা হচ্ছে। সম্পূর্ণটাই তৃণমূলের মদতে। জুয়া থেকে টাকা তুলছে তৃণমূল। পুলিসের উচিত তৃণমূলের কোনও কর্মসূচি হলেই নজর রাখা।"

তবে অন্যদিকে হরিশ্চন্দ্রপুর ২ নম্বর ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি তোবারক হোসেন চৌধুরী বলেন, "এই অভিযোগ যদি সত্যি প্রমাণিত হয়, তাহলে দল থেকে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।"

যদিও রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে এই ধরনের চটুল নাচের আসর বসানোর অভিযোগ এই প্রথম নয়। এর আগেও বহুবার রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে এই ধরনের ছবি উঠে এসেছে। এমনকি স্বল্পবাসনা নর্তকিদের সঙ্গে মঞ্চে কোমর দোলাতে দেখা গিয়েছে শাসকদলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতাদের। যা নিয়ে বারবার তীব্র সমালোচনা করেছে বিরোধীরা।

2 years ago
Uttar Pradesh: সাড়ে ৫ বছরে দাঙ্গা-অপরাধমুক্ত উত্তর প্রদেশ, বিজনৌরে দাবি আদিত্যনাথের

দাঙ্গামুক্ত উত্তরপ্রদেশ (Uttar Pradesh)। সমাজকল্যাণ প্রকল্পের সুবিধা রাজ্যের যোগ্যতম ব্যক্তিরা পেয়েছেন। বাণিজ্য-বান্ধব রাজ্য হিসেবে বিনিয়োগকারীদের পছন্দের জায়গা হয়ে উঠছে ইউপি। শনিবার বিজনৌরে একটি সভা থেকে এমনই দাবি করলেন উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী (Chief Minister) যোগী আদিত্যনাথ (Yogi Adityanath)।

এদিন, বিজনৌরে ২৬৭ কোটি টাকার একটি নতুন প্রকল্প (Project) শুরু করেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানেই তিনি বলেন, 'গত সাড়ে পাঁচ বছরে কোনও দাঙ্গা হয়নি। রাজ্যে বিপুল বিনিয়োগ হচ্ছে এবং কর্মসংস্থানের সুযোগ তৈরি হচ্ছে। এখন উত্তরপ্রদেশে হাইওয়ে ও এক্সপ্রেসওয়ে তৈরি হচ্ছে। উত্তরপ্রদেশ সম্পূর্ণ দাঙ্গা এবং অপরাধমুক্ত হয়ে গিয়েছে। সরকার উত্তরপ্রদেশে ব্যবসায়ী ও উদ্যোগপতিদের নিরাপত্তা লঙ্ঘন হতে দেবে না।'

উল্লেখ্য, সাড়ে পাঁচ বছর আগে যোগী আদিত্যনাথ যখন বিজেপি শাসিত রাজ্য উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী হন, তখন অনেকেই মনে করেছিলেন,  যোগী শাসনে দাঙ্গা-হাঙ্গামা প্রতিদিনকার ঘটনা হয়ে দাঁড়াবে। কিন্তু যোগীর মুখ্যমন্ত্রিত্বের সাড়ে পাঁচ বছর পর নাকি পুরোপুরি অন্য ছবি দেখা যাচ্ছে। যোগীর এই দাবি যদি সত্যি হয়, তাহলে নিঃসন্দেহে তা বড় সাফল্য।

2 years ago