Breaking News
Train: দমদমে ২১ দিনের ট্রাফিক ব্লক, বাতিল একগুচ্ছ ট্রেন, প্রভাবিত কোন কোন রুট?      Sarabjit Singh: ভারতীয় বন্দি সরবজিৎ সিং-এর হত্যাকারী সরফরাজকে গুলি করে খুন লাহোরে      BJP: ইস্তেহার প্রকাশ বিজেপির, 'এক দেশ এবং এক ভোট' লাগু করার প্রতিশ্রুতি      Fire: দমদমে ঝুপড়িতে বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ড, ঘটনাস্থলে দমকলের একাধিক ইঞ্জিন      Bengaluru Blast: বেঙ্গালুরু ক্যাফে বিস্ফোরণকাণ্ডে কাঁথি থেকে দুই সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করল এনআইএ      Sheikh Shahjahan: 'সিবিআই হলে ভালই হবে', হঠাৎ ভোলবদল শেখ শাহজাহানের      CBI: সন্দেশখালিকাণ্ডে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের...      NIA: ভূপতিনগর বিস্ফোরণকাণ্ডে এবার কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ NIA      ED: অবশেষে ইডির স্ক্যানারে চন্দ্রনাথের 'মোবাইল-হিস্ট্রি', খুলতে পারে নিয়োগ দুর্নীতি রহস্যের জট      PM Modi: তৃণমূল মানেই দুর্নীতি-লুট! ভোট প্রচারে সন্দেশখালির পর ভূপতিনগর নিয়ে সরব মোদী     

bengalimovie

Sharmila Tagore: ১৪ বছর বনবাস কাটিয়ে সিনেমায় ফিরছেন শর্মিলা ঠাকুর

অনিরুদ্ধ রায়চৌধুরী পরিচালিত 'অন্তহীন' ছবিতে শেষ দেখা গিয়েছিল শর্মিলা ঠাকুরকে। তারপর আর কোনও বাংলা ছবিতেই দেখা যায়নি তাঁকে। একেবারে অন্তরালে চলে গিয়েছিলেন। এমন কিংবদন্তি, গ্ল্যামারাস অভিনেত্রীকে সিনেমার পর্দায় দেখতে না পেয়ে ভক্তরা মনে করেছেন তাঁর কথা। খুশির খবর, আবারও সিনেমায় ফিরছেন শর্মিলা (Sharmila Thakur)। তাও ১৪ বছরের 'বনবাস' কাটিয়ে। এই খবর নিয়ে জল্পনার কিছু নেই। শহর কলকাতার এক হোটেলে সাংবাদিক বৈঠকে উপস্থিত হয়ে অভিনেত্রী নিজে একথা জানিয়েছেন।

বৈঠকে শর্মিলা ঠাকুর তো ছিলেনই, উপস্থিত ছিলেন ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত। প্রসঙ্গত, তিনি এই ছবিতে অভিনয় করবেন, একইসঙ্গে সিনেমাটি সহ প্রযোজনাও করবেন। ছবিতে অন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় অভিনয় করবেন ইন্দ্রনীল সেনগুপ্ত। মূলত মা মেয়ের সম্পর্ককে কেন্দ্র করেই এই সিনেমা। তবে সিনেমা সম্পর্কে খুব বেশি কিছু জানাননি তাঁরা। সাংবাদিকরা প্রশ্ন করলে তারকাদের দিক থেকে উত্তর এসেছে, 'পরিচালক এই বিষয়ে কিছু বলতে বারণ করেছেন।'

সিনেমাটি পরিচালনা করবেন, পরিচালক সুমন ঘোষ। যদিও তিনি সাংবাদিক সম্মেলনে ছিলেন না। লাদাখে মিঠুন চক্রবর্তী অভিনীত সিনেমা 'কাবুলিওয়ালা'-এর শ্যুটিংয়ে ব্যস্ত। এই সিনেমার জন্য আপাতত রেইকি শুরু হয়েছে। জানা গিয়েছে, ডিসেম্বর মাসে, শর্মিলা ঠাকুরের জন্মদিনেই শুরু হবে সিনেমার শ্যুটিং।

8 months ago
Devi Chowdhurani: বিশ্বব্যাপী মুক্তি পাবে দেবী চৌধুরানী? কী বলছেন সিনেমার পরিচালক?

বাংলা সিনেমা জগৎ ইদানিং পিরিয়ড ড্রামার দিকে ঝুঁকছে। পরিচালক শুভ্রজিৎ মিত্র (Subhrajit Mitra) বেশ কিছুদিন আগেই ঘোষণা করেছেন, বঙ্কিমচন্দ্র চন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের উপন্যাস অবলম্বনে তৈরী হবে তাঁর পরবর্তী সিনেমা 'দেবী চৌধুরানী' (Devi Chowdhurani)। খবর আরও ছিল, মূল চরিত্রে দেখা যাবে শ্রাবন্তী চট্টোপাধ্যায় এবং প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে। গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা যাওয়ার কথা সব্যসাচী চক্রবর্তী, অর্জুন চক্রবর্তী, বিবৃতি চট্টোপাধ্যায় বং দর্শনা বণিককে। তবে খবর শোনা গিয়েছিল অতটুকুই। এরপর সিনেমার প্রগতি নিয়ে অন্ধকারেই ছিলেন দর্শক। 

সম্প্রতি পরিচালককে এই নিয়ে প্রশ্ন করে হলে তিনি জানান, 'সিনেমার প্রি প্রোডাকশনের কাজ চলছে এখন। এটি বৃহত্তর মাপের পিরিয়ড ড্রামা তাই যথার্থ পরিকল্পনা এবং রিসার্চ প্রয়োজন। কোনও পরিচিত জায়গায় এই সিনেমার শ্যুটিং হবে না।' পরিচালক আরও বলেছেন, ইতিমধ্যেই দেবী চৌধুরানী সারা ভারতে মুক্তির জন্য প্রস্তব পেয়েছেন তিনি। এই নিয়ে নাকি ভাবনা চিন্তাও করছেন।পরিচালকের মতে, দেবী চৌধুরানী বাংলা সিনেমা জগতের উদাহরণ হতে চলেছে।

8 months ago
Madan Mitra: বড় পর্দায় হরনাথের ছবিতে মদন মিত্র, 'ওহ লাভলি'

রাজনৈতিক নেতৃত্ব ছাড়াও মদন মিত্রর (Madan Mitra) 'কালারফুল' দিক সকলেরই চেনা। তিনি এমন এক ব্যক্তিত্ব, যিনি সাদা পাঞ্জাবি-সাদা পাজামার রাজনীতিতে আবদ্ধ রাখতে চাননি নিজেকে। বরং রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় থাকার পাশাপাশি, বিনোদন জগতেও তাঁকে মাঝেমধ্যেই দেখা যায়। ইতিমধ্যেই তাঁর দু তিনটি মিউজিক ভিডিও মুক্তি পেয়েছে সামাজিক মাধ্যমে। এতদিন তাঁকে বড় পর্দায় বক্তব্য দিতে দেখা গিয়েছিল। এবার দেখা যাবে অভিনয় করতে।

ঠিকই শুনেছেন। মদন মিত্র এবার ডেবিউ করতে চলেছেন অভিনয় জগতে। সিনেমার নামে উঠে এসেছে তাঁর বিখ্যাত সংলাপ, 'ওহ লাভলি'। পরিচালকও নতুন নন। সাথী, নাটের গুরু, শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদের মতো জনপ্রিয় ছবির পরিচালক হরনাথ চক্রবর্তী। এই সিনেমা একেবারে 'ফ্যামিলি ড্রামা'। সিনেমায় দেখা যাবে খরাজ মুখোপাধ্যায়, লাবনী সরকারের মতো অভিনেতা-অভিনেত্রীদের।

তবে সিনেমার কেন্দ্রীয় চরিত্রে দেখা যাবে নবাগত অভিনেতা ঋক চট্টোপাধ্যায়কে। তিনি আবার জনপ্রিয় অভিনেত্রী দেবযানী চট্টোপাধ্যায়ের পুত্র। তাঁর বিপরীতে দেখা যাবে রাজনন্দিনী পালকে। প্রভাবশালী পরিবারের ছেলে সন্তু (ঋক চট্টোপাধ্যায়)। গ্রাম থেকে পালিয়ে শহরে গিয়ে সে প্রেমে পড়বে নিধির (রাজনন্দিনী পাল)। সেখান থেকেই মোর নেবে গল্প।

পরিচালক হরনাথ চক্রবর্তী এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছিলেন, মদন মিত্রর অভিনয় তিনি খুবই খুশি। লাবনী সরকার, খরাজ মুখোপাধ্যায়ের মতো অভিনেতাদের সঙ্গে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে অভিনয় করেছেন মদন। ছবিতে তাঁর চরিত্রের গুরুত্ব অনেকটা।

9 months ago


Dabaru: শুরু হল দাবাড়ুর শ্যুটিং, সামাজিক মাধ্যমে বিশেষ ঘোষণা শিবপ্রসাদের

বাংলা সিনেমা একেবারে জমজমাট। আন্তর্জাতিক দাবা দিবসে শুরু হয়ে গিয়েছে আরও এক আসন্ন বাংলা সিনেমার শ্যুটিং। প্রযোজক শিবপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় (Shiboprosad Mukherjee) আগেই ঘোষণা করেছিলেন, তাঁদের পরের সিনেমা 'দাবাড়ু' (Dabaru)। সেই সিনেমার শ্যুটিংয়ের কাজ শুরু হল বৃহস্পতিবার থেকে। দাবা খেলার গ্র্যান্ডমাস্টার সূর্য শেখর গাঙ্গুলির জীবনী কেন্দ্র করেই তৈরী হয়েছে সিনেমার চিত্রনাট্য। এই সিনেমার প্রত্যেকটি ঘুটি সন্তর্পণে সাজাতে তৈরী হয়ে গিয়েছেন পরিচালক পথিকৃৎ বসু।

ছবির চিত্রনাট্য লিখেছেন অর্পণ গুপ্ত। পর্দার 'পোস্ত'-কে মনে আছে? সেই ছোট্ট অর্ঘ্য বসু এখন ক্লাস নাইন। কিশোর অভিনেতা সূর্য শেখর চক্রবর্তীর ছোটবেলার চরিত্রে দেখা যাবে তাকে। অন্য দুটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা যাবে অভিনেতা চিরঞ্জিত চক্রবর্তী এবং অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্তকে। দাবাড়ুর মায়ের ভূমিকায় অভিনয় করবেন ঋতুপর্ণা। অন্যদিকে চিরঞ্জিতকে দেখা যাবে দাবাড়ুর শিক্ষকের চরিত্রে। পর্দায় তিনিই দাবাড়ুকে দাবা খেলার কৌশল শেখাবেন।

সিনেমায় আরও অনেক কচিকাচাকে দেখা যাবে। ইতিমধ্যেই তাদের প্রশিক্ষণ শুরু হবে। সিনেমার চিত্রগ্রহণ করবেন মধুরা পালিত। সব ঠিকঠাক থাকলে, চলতি বছরের শেষের দিকেই দেখা যাবে 'দাবাড়ু'। ছবির প্রযোজক শিবপ্রসাদ এবং নন্দিতা আগেই জানিয়েছিলেন, তাঁদের অনেকদিনের ইচ্ছে ছিল খেলা-কেন্দ্রিক কোনও সিনেমা বানাবেন। 'দাবাড়ু' তাঁদের সেই স্বপ্নই পূরণ করছে।


9 months ago
Cinema: আট বছর পর সুসংবাদ নিয়ে এলো 'ওপেন টি বায়োস্কোপ'

অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায় (Anindya Chattopadhyay) পরিচালিত ওপেন টি বায়োস্কোপ (Open Tee Bioscope) সময়ের দলিল। মুক্তি পেয়েছিল ২০১৫ সালে। সেই থেকে উত্তরণ এক ঝাঁক নতুন তারকার। ঋদ্ধি সেন, ঋতব্রত মুখোপাধ্যায়, সুরঙ্গনা বন্দ্যোপাধ্যায় যে লম্বা রেসের ঘোড়া, সেই কদর বোধহয় অনিন্দ্য বুঝেছিলেন। উত্তর কলকাতার গলিতে বেড়ে ওঠা মধ্যবিত্ত বন্ধুত্বর গল্প। বয়ঃসন্ধিতে মন নাড়া দিয়ে ওঠা নির্ভেজাল প্রেমের গল্প নিপুণ হাতে বুনেছিলেন অনিন্দ্য। তাই তো ওপেন টি বায়োস্কোপ অনেকে মনে যত্নে সাজিয়ে রেখেছেন।

সিনেমার অন্যতম অভিনেতা ঋদ্ধি এবং সুরঙ্গনার বন্ধুত্ব শুরু হয়েছিল 'ওপেন টি বায়োস্কোপের' সেট থেকেই। রিল লাইফের প্রেম রিয়েল লাইফেও গড়িয়েছে। ঋদ্ধি একাধিকবার বলেছেন, ওই সিনেমাই তাঁদের সম্পর্কের, তাঁদের কেরিয়ারের অন্যতম বুনিয়াদ। এবার সেই সিনেমা নিয়েই নতুন খবর শোনালেন তারকারা। টেলিভিশনের পর্দায় সিনেমাটি দেখা গেলেও এতদিন কোনও ওটিটি প্ল্যাটফর্মে দেখা যেত না। এবার ওটিটি-প্রেমীদের জন্য সুখবর।

View this post on Instagram

A post shared by Riddhi Sen (@riddhi_sen_)

সিনেমার কলাকুশলীরা জানিয়েছেন ওপেন টি বায়োস্কোপ দেখা যাবে ওটিটির পর্দায়। শনিবার অর্থাৎ ৩ মে থেকে সিনেমাটি দেখা যাচ্ছে ওটিটিতে। আবারও সিনেমার নস্টালজিয়ায় ভাসতে চলেছে দর্শকেরা। আরও একবার দর্শকেরা ফিরে যাবেন ছোটবেলায়। আবারও বন্ধুদের বলবেন, 'বন্ধু চল, বলটা দে।' বন্ধুর টিমে বন্ধুর পাশে থাকার আশ্বাস দেবেন আবারও দর্শকেরা।

11 months ago


Cinema: বনফুলের গল্প নিয়ে কমলেশ্বরের নতুন সিনেমা 'একটু সরে বসুন'

বাংলা সাহিত্যের অন্যতম জাদুকর 'বনফুল' অর্থাৎ বলাইচাঁদ মুখোপাধ্যায়ের গল্প অবলম্বনে পরিচালক কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় (Kamaleshwar Mukhopadhyay) তাঁর পরের ছবি তৈরী করছেন। সিনেমার নাম, 'একটু সরে বসুন'। মুখ্য চরিত্র গুড্ডুর ভূমিকায় দেখা যাবে অভিনেতা ঋত্বিক চক্রবর্তীকে (Ritwick Chakraborty)। এছাড়াও বাদবাকি চরিত্রে দেখা যাবে, অভিনেত্রী পাওলি দাম, ঈশা সাহা এবং পায়েল সরকারকে। বনফুলের গল্পকে বর্তমান সময়ের পটভূমিকায় ফেলে কমেডির মোড়কে তৈরী হয়েছে সিনেমার চিত্রনাট্য।

সিনেমার কেন্দ্রীয় চরিত্র গুড্ডু সংস্কৃত নিয়ে স্নাতকত্তর পাশ করেও বেকার। পাড়া প্রতিবেশীর গঞ্জনা শুনে তিতিবিরক্ত হয়ে সে কলকাতায় দাদা-বৌদির বাড়িতে আশ্রয় নেয়। গুড্ডুর পিছু পিছু কলকাতায় আসে পিউ। এই পিউ এবং গুড্ডুর প্রেম জমছিল মফস্বলে থাকতে। পিউর কলকাতায় আসার কারণ গুড্ডুর উপর নজর রাখা। এদিকে কলকাতায় এসে মফস্বলের ছেলে শহুরে জটিলতায় জড়িয়ে পড়ে। মোহময়ী চাকরি এজেন্টের ইশারায় তাঁর জীবন হয়ে ওঠে ঘটনাবহুল। অন্যদিকে মফস্বলের প্রেম, সব মিলিয়ে নতুন কিছু রান্না করতে চলেছেন কমলেশ্বর।

গুড্ডু এবং পিউ ছাড়াও এই সিনেমায় ফটকেদা, নতুন ভাই, রোকেয়া, মহিমা, জোগেন চরিত্রগুলি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় থাকবে। বর্তমানে শহরের নানা জায়গায় সিনেমার শ্যুটিং চলছে। যদিও এখনও পর্যন্ত সিনেমার মুক্তির দিন নিয়ে কোনও তথ্য জানা যায়নি। তবে ছবি নিয়ে বেশ উৎসাহী দর্শক।

11 months ago
Tollywood: বাংলা ছবি তার চরিত্র হারিয়েছে কি? জানুন বিশ্লেষণে

প্রসূন গুপ্ত:  সম্প্রতি একটি বাংলা সিনেমা (Bengali Film) নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে ছিল।  অবশ্য ছবির বিষয়ে আপত্তি নয় বরং বিজেপির মিঠুন ও তৃণমূলের দেবকে নিয়ে। জনমত বলে ওই ছবি প্রজাপতি (Prajapati) দেখে বেশ ভালোই লাগলো। একেবারেই পিতা-পুত্রের সম্পর্কের টানাপোড়েন এবং মায়ের বিয়োগের পর পুত্র ব্যস্ত বাবার এক বান্ধবী জোগাড় করতে ইত্যাদি।

ইদানিং বাংলা ছবি এই সমস্ত বিষয় নিয়েই হচ্ছে। আজ থেকে ৫০ বছর আগে ছিল বাংলা ছবি স্বর্নযুগ। সত্যজিৎ রায় থেকে উত্তমকুমার (Satyajit Ray to Uttam Kumar)। ছবি হতো মূলত কোনও সাহিত্যিকের উপন্যাস থেকে যে কারণে ওই যুগে সিনেমাকে মানুষ 'বই' বলতো।

এরপর ৯০-এর দশকে ছবি পাল্টিয়ে গেলো। একেবারে ৯০ বললে ভুল হবে, উত্তমের মৃত্যুর পর থেকে বাংলা ছবি ধীরে ধীরে হিন্দির মতো নাচগান-সহ মারধর ইত্যাদিতে তৈরি হয়েছে। মধ্যে কিছুটা পিছিয়ে গেলেও এই ছবি যার নায়ক ছিলেন চিরঞ্জিত, প্রসেনজিৎ বা তাপস পালরা। উপন্যাস বিদায় নিলো।

গ্রামগঞ্জের মানুষ এই ছবিতেই অভ্যস্থ হয়ে পড়লো। এরপর এলো ফেলুদা বা ব্যোমকেশ নিয়ে ছবি। এই ছবিতে সাসপেন্স বা কিছু গুলিগোলার দৃশ্যও থাকতো। দর্শক এও গ্রহণ করেছিল শহর এবং গ্রামে। কিন্তু ধীরে ধীরে ছবি মার্ খেতে শুরু করলে কলকাতা-সহ দেশের সিনেমা হাউসগুলি উঠেই গেলো ধীরে ধীরে। হল না থাকার ফলে মফস্সল বা গ্রাম সিনেমা থেকে আলাদা হয়ে গেলো।

আজকের সিনেমা বাংলায় হলেও আমূল পরিবর্তিত হয়েছে। হিন্দি ছবিতে কে নায়ক কে ভিলেন সেসব পথ শেষ হয়েছে। এখন একেবারেই সেরা টেকনিক-সহ হলিউডধর্মী অভিনয় এবং ছবি তৈরী হচ্ছে। কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে ছবি হচ্ছে এবং রিলিজ করছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তের মাল্টিপ্লেক্সে। টিকিটের মূল্যের কোনও ঠিক ঠিকানা নেই। বেসরকারি বিমানের মতো অবস্থা বুঝে মূল্য নির্ধারণ টাকাও উঠে আসছে দেদার।

বাংলা ছবি নিজের দিক পরিবর্তন করে কখনও প্রেম বা প্রেমের ভাঙন অথবা পরকীয়া প্রেম অনেকটা যেন রবি ঠাকুরের নষ্টনীড় বা শেষের কবিতার রিমেক। গ্রাম বা মফস্সলের কথা ভাবে না কেউই কারণ হল নেই। ফলে বাংলা ছবিকেও নির্ভর করতে হয় শহরের দর্শকের উপর এবং হল মালিকের মর্জির উপর। হল মালিক যদি দেখে পাঠান সারাদিন চালালে কোটি টাকা উঠবে তবে কেন তারা প্রজাপতি বা কাবেরী অন্তর্ধান দেখাবে?

one year ago