Breaking News
Abhishek Banerjee: বিজেপি নেত্রীকে নিয়ে ‘আপত্তিকর’ মন্তব্যের অভিযোগ, প্রশাসনিক পদক্ষেপের দাবি জাতীয় মহিলা কমিশনের      Convocation: যাদবপুরের পর এবার রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়, সমাবর্তনে স্থগিতাদেশ রাজভবনের      Sandeshkhali: স্ত্রীকে কাঁদতে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়লেন 'সন্দেশখালির বাঘ'...      High Court: নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় প্রায় ২৬ হাজার চাকরি বাতিল, সুদ সহ বেতন ফেরতের নির্দেশ হাইকোর্টের      Sandeshkhali: সন্দেশখালিতে জমি দখল তদন্তে সক্রিয় সিবিআই, বয়ান রেকর্ড অভিযোগকারীদের      CBI: শাহজাহান বাহিনীর বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ! তদন্তে সিবিআই      Vote: জীবিত অথচ ভোটার তালিকায় মৃত! ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত ধূপগুড়ির ১২ জন ভোটার      ED: মিলে গেল কালীঘাটের কাকুর কণ্ঠস্বর, শ্রীঘই হাইকোর্টে রিপোর্ট পেশ ইডির      Ram Navami: রামনবমীর আনন্দে মেতেছে অযোধ্যা, রামলালার কপালে প্রথম সূর্যতিলক      Train: দমদমে ২১ দিনের ট্রাফিক ব্লক, বাতিল একগুচ্ছ ট্রেন, প্রভাবিত কোন কোন রুট?     

Sandeshkhali

Sheikh Shahjahan: সন্দেশখালির ঘটনায় কড়া পদক্ষেপ, নবান্নের কাছে রিপোর্ট তলব রাজ্যপাল বোসের

সন্দেশখালি কাণ্ড নিয়ে রাজ্যের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছেন রাজ্যপাল সি ভি আনন্দ বোস। এখনও তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের খোঁজ পাওয়া যায়নি। এবার তা নিয়েও প্রশ্ন তুললেন রাজ্যপাল। ঘটনার পর অর্থাৎ শুক্রবার সন্দেশখালিতে ইডি আক্রান্ত হওয়ার বিষয়ে সরাসরি ক্ষোভ উগরে দিলেন তিনি।

একই সঙ্গে রাজ্য সরকারের উদ্দেশ্যে আরও দুই প্রশ্ন রাখলেন রাজ্যপাল। রবিবার সিআরপিএফের আইজি-র সঙ্গে বৈঠক করেন তিনি। সূত্রের খবর, দীর্ঘ বৈঠকে ঘটনার দিনের সম্পূর্ণ তথ্য নেন রাজ্যপাল। আর এই বৈঠকের পরই রাজভবনের তরফে একটি বার্তা দেওয়া হয়েছে। আর সেখানেই রাজ্য সরকারের উদ্দেশ্যে তিনটি প্রশ্ন রাখা হয়েছে। আর তা হল, রাজ্য সরকার রেশন দুর্নীতিতে কী পদক্ষেপ করেছে? শাহজাহান এখনও কেন গ্রেফতার হননি তাও জানতে চেয়েছেন রাজ্যপাল বোস। শাহজাহান শেখ বাংলাদেশ পালিয়ে যেতে পারে বলে শোনা যাচ্ছে। এই বিষয়ে সরকারের অবস্থান স্পষ্ট করতে বলা হয়েছে রাজভবনের তরফে।

পাশাপাশি রাজবনের তরফে জারি করা বিবৃতিতে ফের একবার রাজ্যের আইনশৃঙ্খলা নিয়ে সরকারকে আক্রমণ করা হয়েছে। একই সঙ্গে দায়বদ্ধতার বিষয়টি স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি ঘটনায় যে পুলিস আধিকারিক দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ তাঁদের শাস্তির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। জানা যাচ্ছে, শুধুমাত্র বার্তা দিয়েই শান্ত হয়নি রাজ্যপাল বোস। এই বিষয়ে সরকারের বক্তব্য জানতে রিপোর্টও চেয়ে পাঠিয়েছে রাজভবন।

উল্লেখ্য, শুক্রবার সন্দেশখালিতে তৃণমূল নেতা শাহজাহানের বাড়িতে হানা দিতে গিয়ে আক্রান্ত হন ইডি আধিকারিকরা। এমনকি মারধর করা হয় কেন্দ্রীয় বাহিনীর জওয়ানদেরও। ঘটনার পর থেকেই পলাতক সন্দেশখালির বেতাজ বাদশা। ঘটনার পরেই কড়া বার্তা দেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। আর এরপরেই রাজ্য পুলিসের ডিজি এবং মুখ্যসচিব- সরাষ্ট্রসচিবকে তলব করা হয়।

6 months ago
Sheikh Shahjahan: 'সন্দেশখালির বাঘ'-এর তিন-তিনটি বাড়ি! আর কত সম্পত্তি রয়েছে শাহজাহানের

তদন্ত করতে গিয়ে ইডির আধিকারিকদের মার, খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে সাংবাদিক, চিত্র সাংবাদিকদের জখম হতে হয়েছে শেখ শাহজাহানের অনুগামীদের হাতে। এবারে জেনে নিন এই 'বেতাজ বাদশা' শেখ শাহজাহানের অগাধ সম্পত্তির পরিমাণ।

শেখ শাহজাহান। নামটা শুক্রবার থেকে শিরোনামে এলেও, সরবেড়িয়া সন্দেশখালির এই বেতাজ বাদশা, তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের সম্পত্তি চোখ কপালে তুলে দেওয়ার মতোই। তদন্তের খাতিরে তার বাড়ির সামনে গিয়ে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকদের পাশাপাশি মার খেতে হয়েছিল সিএন-এর চিত্র সাংবাদিককেও। তারপরেও সিএন-এর নির্ভীক কভারেজে প্রকাশ্যে এসেছে শেখ শাহজাহানের অগাধ সম্পত্তি।

সন্দেশখালির দাপুটে শেখ শাহজাহান, যাকে আড়ালে আবডালে রাখতে প্রায় পুরো গ্রাম ছুটে আসে, সেই শেখ শাহজাহানের সাম্রাজ্য ঠিক কতটা? এবার তার সাম্রাজ্যের খোঁজ সিএনের কাছে। জানা যাচ্ছে, সরবেড়িয়া সন্দেশখালির বেতাজ বাদশা শেখ শাহজাহানের সন্দেশখালি এলাকায় রয়েছে তিনটি প্রাসাদ প্রমাণ বাড়ি। যার মধ্যে সাদা বাড়িটিতে থাকেন তাঁর আত্মীয়রা। নীল বাড়িতে থাকেন তাঁর ঘনিষ্ঠরা। সর্বোপরি, হলুদ বাড়িটিতে থাকেন বেতাজ বাদশা নিজেই। তিনটি বাড়িতেই আপাতত ঝুলছে তালা। বাড়ির ভিতরেও কারোর অস্তিত্ব পাওয়া যায়নি। বাড়ির পাশে বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে রয়েছে বাগান। বাড়ি থেকে বের হওয়ার জন্য রয়েছে একাধিক রাস্তা। শুধু তাই না, শেখ শাহজাহানের বড় বড় তিনটি বাড়ি ছাড়াও রয়েছে ওই পরিসরেই কিছু ছোট ছোট বাড়ি। যাতে তার কর্মীরা থাকত বলে জানা যাচ্ছে সূত্র মারফত। এছাড়াও শাহজাহান শেখের বিশাল ইট ভাটার হদিশ পাওয়া গিয়েছে। ধামাখালিতে ৪৫ বিঘা জমি নিয়ে দুটো ইট ভাটার মালিক শাহজাহান। যেখানে প্রতিদিন দেখা যেত সাজাহান শেখকে। ৩ বছর আগে বসিরহাটের অশোক রাহা কাছ থেকে এই ইট ভাটা কিনেছিলেন শাহজাহান।

শুধু তাই না, জানা যাচ্ছে, শেখ শাহজাহানের তোলাবাজি চালাতে যাতে কোনও সমস্যা না হয়, সেই জন্যেই তাঁকে জেলা পরিষদের টিকিট দিয়ে করা হয়েছিল কর্মাধ্যক্ষ। এবার প্রশ্ন জাগছে কার নির্দেশে এমন তোলাবাজ শাহজাহানকে প্রশাসনিক পদে অলংকৃত করল দল? তাহলে কি তার দুর্নীতিকে আরও এগিয়ে নিয়ে যেতেই দলের এমন সিদ্ধান্ত? শেখ শাহজাহানের অগাধ সম্পত্তির হদিশ পেয়ে এমন হাজারো প্রশ্ন ঘুরপাক খাচ্ছে রাজ্যবাসীর মনে।

6 months ago
Governor: সন্দেশখালি ঘটনা নিয়ে নবান্নের কাছে রিপোর্ট তলব উদ্বিগ্ন রাজ্যপাল বোসের

রাজ্যপাল সি ভি আনন্দ বোস সন্দেশখালির ঘটনা নিয়ে উদ্বিগ্ন। বৃহস্পতিবারই তিনি ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানিয়ে ভিডিও বার্তা দিয়েছিলেন। জানা গিয়েছে, এবার সন্দেশখালির গোটা ঘটনা নিয়ে নবান্নের তরফ থেকে রিপোর্ট তলব করেছেন রাজ্যপাল।

সন্দেশখালি সরগরম হয়ে আছে শুক্রবার সকাল থেকেই। তদন্ত করতে গিয়ে চূড়ান্ত হেনস্থা হতে হল ইডির আধিকারিকদের, সঙ্গে খবর সংগ্রহ করতে গিয়ে একই ঘটনা ঘটল সংবাদ মাধ্যমের কর্মীদের সঙ্গে। এই ঘটনার পর থেকেই উদ্বিগ্ন হয়ে আছেন রাজ্যপাল। ঘটনাজুড়ে ইডির তরফে বেশ কিছু পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে। পাশাপাশি, ঘটনা নিয়ে এবার নবান্নর কাছ থেকে রিপোর্ট তলব করলেন রাজ্যপাল সি ভি আনন্দ বোস। সূত্রের খবর, সন্দেশখালিতে হামলার এই গোটা ঘটনায় পুলিসের ভূমিকা কী- তাও রিপোর্টে জানতে চাওয়া হয়েছে রাজ্যপালের তরফ থেকে।

এরাজ্যের দুর্নীতির তদন্ত করতেই আদালতের নির্দেশে সন্দেশখালিতে তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে পৌঁছেছিলেন ইডির আধিকারিকরা। সেখানেই তাঁদের খেতে হয়েছে মার। রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান এমন ঘটনার প্রতিবাদে সরব তো হয়েছেনই, সঙ্গে তাঁর বৃহস্পতিবারের ভিডিও বার্তার পর তিনি রাজ্যের মুখ্যসচিবকেও তলব করেন। তবে দিন  গড়িয়ে গেলেও শনিবারেও কোনও সাড়া পাওয়া গেল না রাজ্যের তরফে। আর ঠিক এর পরেই সন্দেশখালির ঘটনায় উদ্বিগ্ন রাজ্যপাল রিপোর্ট তলব করলেন নবান্নের কাছে। এখন দেখার, নবান্ন কী রিপোর্ট দেয় রাজভবনে রাজ্যপালের কাছে।

6 months ago


ED: রেশন দুর্নীতির তদন্তে নেমে সন্দেশখালির পর বনগাঁয় আক্রান্তের শিকার ইডি আধিকারিকরা

রেশন দুর্নীতির রহস্যভেদ করতে সক্রিয় ইডি। শুক্রবার সকালে সন্দেশখালিতে হামলা হয়েছে ইডির উপর। তারপর ফের একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি হল। শুক্রবার মধ্য়রাতে বনগাঁয় শঙ্কর আঢ্য়কে গ্রেফতার করে নিয়ে যাওয়ার সময় বিক্ষোভের মুখোমুখি হতে হয় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকদের। ইডির গাড়িকে উদ্দেশ্য় করে ছোড়া হয় ইট, পাথর। ভাঙা হয় গাড়ির কাঁচ। এর ফলে কেন্দ্রীয় বাহিনী লাঠিচার্জ করে বলে অভিযোগ। 

প্রসঙ্গত, শুক্রবার সকালেই সন্দেশখালির দাপুটে তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে হানা দিতে গিয়ে হামলার মুখে পড়ে আক্রান্ত হন তিন ইডি আধিকারিক। শাহজাহানের অনুগামীরা বেধড়ক মারধর করেন ইডি আধিকারিকদের। সেখানে বাদ গেলেন না সিআরপিএফের জওয়ানরাও। মার খেতে হয় তাঁদেরও। এছাড়াও সাংবাদিকদের উপরেও চড়াও হওয়া, গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে শাহজাহানের অনুগামীদের বিরুদ্ধে। জানা গিয়েছে, জখম তিন ইডি আধিকারিক অঙ্কুর গুপ্তা, রাজকুমার রাম এবং সোমনাথ দত্তকে সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি। এই গোটা ঘটনা ঘিরে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। 

6 months ago
Suvendu Adhikari: সন্দেশখালির পুরো ঘটনার জন্য দায়ী মমতা, দাবি বিরোধী নেতা শুভেন্দু অধিকারীর

সন্দেশখালি আরেকটি শীতলকুচি হতে পারত। সেই ফাঁদই পেতেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। তবে তাঁর পাতা ফাঁদে পা দেয়নি সিআরপিএফ জওয়ানরা। তাঁদের ধন্যবাদ জানিয়ে শীতলকুচির কথা স্মরণ করিয়ে এক্স হ্যান্ডেলে পোস্ট শুভেন্দু অধিকারীর।

বরাবরই রাজ্যে ঘটা যেকোনও বিশৃঙ্খলতা সম্পর্কে মন্তব্য করেন, প্রয়োজন পড়লে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এবার সন্দেশখালির ঘটনা নিয়ে নিজের এক্স হ্যান্ডেলে কড়া পোস্ট শুভেন্দুর। পোস্টে শুভেন্দু ধন্যবাদ দিলেন সিআরপিএফ জওয়ানদের। বিঁধলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়কে। তাঁর পোস্টে মুখ্যমন্ত্রীকে ট্যাগ করে শুভেন্দু লেখেন, 'মুখ্যমন্ত্রীই দায়ী ইডি আধিকারিকদের উপর হামলার ঘটনায়।' তাঁর সংযোজন, 'সাংবিধানিক নিয়ম অক্ষুন্ন রাখা, সাংবিধানিক পরিকাঠামোকে সম্মান এবং বিচার বিভাগীয় নির্দেশাবলী মেনে চলার বদলে তিনি দাঙ্গাকে আরও সমর্থন করছেন। তাঁর পার্টির কর্মীদের গুন্ডারাজের দিকেই ঠেলে দিচ্ছেন। তৃণমূল কর্মীরা রাজনৈতিক কম, মৌলবাদে বেশি বিশ্বাসী' বলেও পোস্টে উল্লেখ করেন শুভেন্দু।

আর তারপরেই তিনি সিআরপিএফ জওয়ানদের ধন্যবাদ জানান। লেখেন, 'ওই পরিস্থিতিতেও গুলি না চালানোর জন্য সিআরপিএফ জওয়ানদের আমি ধন্যবাদ জানাই।' তাঁর সংযোজন, মমতা বন্দোপাধ্যায় এটাই চাইছিলেন, যদি ওই ভিড়ের মধ্যে কোনও একজনও মারা যেতেন, তাহলেই মুখ্যমন্ত্রী গোটা ঘটনার মনোযোগ দুর্নীতিবাজ ধরার থেকে সেই খুনের দিকে নিয়ে যেতে পারতেন। তবে তাঁর মতে, মমতা বন্দোপাধ্যায়ের পাতা সেই ফাঁদে পা না দেওয়ার জন্য তিনি ধন্যবাদ জানালেন সিআরপিএফ জওয়ানদের। সন্দেশখালিকে আরেকটা শীতলকুচিতে পরিণত না করার জন্য তিনি ধন্যবাদ জানালেন সিআরপিএফ জওয়ানদের। সঙ্গে একটি সভা থেকেও শুভেন্দু অধিকারী শুক্রবারে সন্দেশখালির গোটা হামলায় দায়ী মমতা- বলেন একথাই।

সন্দেশখালি নিয়ে এমনিতেই সরগরম হয়ে আছে রাজ্য রাজনীতি। তার মধ্যে পুরো ঘটনা মমতা বন্দোপাধ্যায়েরই পরিকল্পনা বলে এক্স হ্যান্ডেলের পোস্টে দাবি করলেন শুভেন্দু অধিকারী। এরপর এ নিয়ে রাজনৈতিক চর্চা কোথায় গিয়ে পৌঁছয়, সেটাই দেখার।

6 months ago


Governor: 'তদন্তকারী আধিকারিকরা ব্রেভ হার্ট', আক্রান্ত ইডি অফিসারদের হাসপাতালে দেখতে এসে বললেন রাজ্যপাল বোস

শুক্রবার সন্দেশখালিতে যে ঘটনা ঘটে, তা নিয়ে উত্তপ্ত রাজ্য-রাজনীতি। রেশন বণ্টন দুর্নীতির মামলায় শাসকদলের নেতা তথা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ঘনিষ্ঠ নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে হানা দিতেই গ্রামবাসীরা ইডি আধিকারিকদের ওপর চড়াও হয়। তিনজন আধিকারিকের মাথা ফাটিয়ে দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে। ফলে তাঁদের সঙ্গে সঙ্গে সল্টলেকের এক হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। এবারে সেখানেই দেখা করতে এলেন, রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস।

জানা গিয়েছে, রাজকুমার রাম নামে এক ইডি আধিকারিক গুরুতরভাবে জখম হয়েছেন।  ফলে আরও কয়েক দিন সল্টলেকের হাসপাতালে রাখা হতে পারে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট তাঁকে। তাঁকে এখন এইচডিইউতে ভর্তি রাখা হয়েছে। চিকিৎসকেরা পর্যবেক্ষণে রাখতে চান তাঁকে। এমনটাই জানা গিয়েছে হাসপাতাল সূত্রে। শুক্রবার সন্দেশখালিতে অভিযানে গিয়ে সব থেকে বেশি আঘাত লেগেছে রাজকুমারের। আক্রান্ত বাকি দুই ইডি আধিকারিকও ওই বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় হাসপাতালে তাঁদের দেখতেই এসেছেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস।

এর পর হাসপাতাল থেকে বেরিয়েই এদিনের ঘটনায় কড়া ভাষায় প্রতিক্রিয়া জানালেন রাজ্যপাল বোস। তিনি এদিন সংবাদমাধ্যমের সামনে এসে বলেন, 'এটা আমাদের প্রত্যেকের জন্য লজ্জার। যা হয়েছে, তাতে গণতন্ত্রকে চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে। বাংলা আক্রান্ত হয়েছে। গণতন্ত্র আক্রান্ত হয়েছে। কোনও মূল্যেই এটিকে বরদাস্ত করা যায় না। এই পচন আমরা থামাবই। দেশের সংবিধান আছে। আইন ব্যবস্থা আছে। এই ধরনের ঘটনা যাতে বাংলায় না চলে, তা নিশ্চিত করতে আমরা সবরকম পদক্ষেপ করব।' এর পর তদন্তকারী আধিকারিকদের 'ব্রেভ হার্ট' বলে উল্লেখ করে বলেন, 'তাঁরা আইন-শৃঙ্খলার জন্য সবকিছু ত্যাগ করতে প্রস্তুত। আমরা তাঁদের কাছে ঋণী। বাংলার মানুষকে বাঁচানোর জন্য, গণতন্ত্রকে বাঁচানোর জন্য, তাঁরা যে ত্যাগ করছেন, তা মনে থাকবে।'

6 months ago
Nabanna: দুর্নীতির তদন্ত করতে গিয়ে রক্তাক্ত ইডি আধিকারিকরা, হামলা জওয়ানদের ওপর! কী ব্যাখ্যা নবান্নর?

শুক্রবার সকাল থেকেই উত্তপ্ত সন্দেশখালির সরবেড়িয়া। তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে অভিযানে গিয়ে আক্রান্ত হয়েছেন ইডি আধিকারিকেরা। তিন ইডি আধিকারিকের মাথাও ফাটিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ। গোটা ঘটনা নিয়ে ইতিমধ্যেই তোলপাড় রাজ্য-রাজনীতি। ঘটনার তদন্তে ইতিমধ্যেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এবং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। এনআইএ তদন্তেরও দাবি জানিয়েছে বঙ্গ বিজেপি। এর মধ্যেই এই ঘটনা নিয়ে মুখ খুলল নবান্ন। নবান্নের দাবি, ইডি-র এই অভিযানের কথা জানতই না রাজ্য পুলিস। তবে হামলার ঘটনার কথা জানার ৩০ মিনিটের মধ্যেই ব্যবস্থা নেওয়া হয় রাজ্য প্রশাসনের তরফে।

নবান্ন থেকে জানানো হয়েছে, সন্দেশখালিতে ঘটনার পর ঘটনাস্থলে প্রথমে পৌঁছন এসডিপিও। এরপরে এসপি-কে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়। বর্তমানে এডিজি সাউথ বেঙ্গলও ঘটনাস্থলে রয়েছেন। ব্যারাকপুর থেকে অতিরিক্ত ফোর্স সঙ্গে গিয়েছে। সন্দেশখালির ঘটনা ঘটার ৩০ মিনিটের মধ্যে প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। এডিজি সাউথ বেঙ্গলকে গোটা ঘটনা মনিটারিং করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এছাড়াও পরে জানানো হয়েছে, পরিস্থিতি  নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। রাজ্য পুলিসের কাছে খবর আসার পরে আর কোনও ঘটনা বা কোনও হামলা ঘটেনি বলে জানিয়েছে নবান্ন।

6 months ago
Sheikh Shahjahan: বাম থেকে তৃণমূলে, তোলাবাজি থেকে মানব পাচার! কে এই 'বেতাজ বাদশা' শেখ শাহজাহান?

উত্তর ২৪ পরগনার জেলা পরিষদের মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ কর্মাধ্যক্ষ ও সন্দেশখালির ব্লক ১ এর সভাপতি শেখ শাহজাহানেরও যোগ রয়েছে রেশন বন্টন দুর্নীতির সঙ্গে। সেই যোগকে সামনে রেখেই শাহজাহানের বাড়ি হানা দেয় ইডি। কিন্তু নেতার অনুগামীর তাড়া খেয়ে একপ্রকার পালিয়ে প্রাণ বাঁচায় ইডির আধিকারিকরা। কে এই  শাহজাহান? যার দাপটে পিছু হঠল ইডিও। এলাকার এই বেতাজ বাদশাহের উথ্থান ঠিক কবে?

সময়টা বাম আমলের অন্তিমলগ্ন। উত্তর ২৪ পরগনায় বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী এলাকার দাপুটে ২ নেতা মজিদ মাস্টার ও বাবু মাস্টারের হাত ধরে জন্ম হল শেখ শাহজাহানের। সেই সময় হাওয়ায় ভাসতো শাহজাহানকে নিয়ে নানান কথা। শোনা যেত, সে নাকি বাংলার লোকই নয়। কিন্তু সেই অনুপ্রবেশকারী শাহজাহানই বামফ্রন্ট জমানার শেষ দিকে অত্যন্ত আস্থাভাজন হয়ে উঠেছিলেন স্থানীয় বিধায়ক অনন্ত রায়ের। বাম আমলে মূলত সন্দেশখালি এলাকায় তোলাবাজির মুখ্য ভূমিকা ছিল শাহজাহান শেখের। মেছোভেরি থেকে ইটভাটা এমনকি মাটি বেচাকেনাতেও তোলা দিতে হত ওই শাজাহানকে। এলাকায় কোনও ভেড়ি থেকে বিঘা প্রতি তোলা আদায়ের রেট চার্ট তৈরি হত তারই তত্ত্বাবধানে। সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে হল বঙ্গের পালা বদল। বাংলার মসনদে বসল নতুন শাসক তৃণমূল কংগ্রেস। বাম জমানার ছায়া সরল মাথার উপর থেকে। ভিত নড়বড়ে হতেই ২০১৬ সালে তৃণমূলে যোগদান শেখ শাহজাহানের। বসিরহাটের তৎকালীন তৃণমূল সাংসদ হাজী নুরুলের সঙ্গে বাড়ে শাহজাহানের ঘনিষ্ঠতা। সূত্রের খবর, হাজী নুরুলের হাত ধরে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের কাছে পৌঁছে যান শাহজাহান। মন্ত্রীর আনুকূল্যে মেলে দলের সাংগঠনিক পদ।

প্রতি বিঘায় তোলা তোলার ধরন বদলে গেল শাহজাহানের। শুরু হল শাহজাহান বাহিনীর কাঠা প্রতি তোলা আদায়ের কারবার। নিজের বাহিনী তৈরি করে সরবেরিয়ায় তোলাবাজির বেতাজ বাদশা হয়ে উঠল শাহজাহান শেখ। এমনকি এলাকার কোনও জলকর শাহজাহানের অনুমতি ছাড়া নিলাম হয় না বলেও দাবি এলাকাবাসীর একাংশের। এই নিলাম প্রক্রিয়া পরিচালনা করে এই শাহজাহানের লোকেরাই। ফলে কে কোন জমি, কত দিনের জন্য ইজারা পেল, তাও লেখা থাকে শাহজাহানের লোকজনের কাছেই।

তৃণমূলে যোগদান করার পর থেকেই রমরমিয়ে বাড়ল তার তোলবাজি তা বলাই বাহুল্য।অন্যদিকে বালুর ঘনিষ্ঠ হওয়ার সুবাদে স্থানীয় তৃণমূল বিধায়করা ও তার বিরুদ্ধে মুখ খোলার সাহস পেতনা। মাছের ভেড়ি থেকে শুরু করে ইঁট ভাটা, এমনকি, বাংলাদেশ থেকে চোরাপথে আসা জামাকাপড়ের কারবারও, এলাকায় সবই চলতে শুরু করল শাহজাহান শেখের অঙ্গুলিহেলনে৷ এমনকি মানব পাচারেও বেশ হাত পাকল শাহজাহানের। শোনা যায়, ২০১৯ এর লোকসভা ভোটে নুসরত জাহানকে সন্দেশখালিতে প্রার্থী করেছিল তৃণমূল। সংখ্যালঘু ভোট জোগাড় করে নুসরতকে জেতানোর নেপথ্যেও  বড় ভূমিকা ছিল তার। যে কাজের ভালই ইনাম আদায় করেন শাহজাহান। পঞ্চায়েত ভোটে তৃণমূল প্রার্থী করে শেখ শাহজাহানকে। জেলা পরিষদে জিতে কর্মাধ্যক্ষ হন তিনি।

বালু ওরফে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বর্তমানে রেশন বন্টন দুর্নীতিতে অভিযুক্ত। রয়েছেন শ্রীঘরে। তার দুর্নীতির বহর দেখে চক্ষু চড়কগাছ রাজ্যবাসীর। সেই বালুর ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতা তথা এলাকার বেতাজ বাদশাহ শাহজাহানের গড়ে ইডি ঢুকতেই মারমুখী জনতা বা বলা ভালো নেতার অনুগামীরা। তবে কি নেতার দেদার দুর্নীতি ঢাকতেই এই ব্যবস্থাপনা। কিন্তু কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা কিংবা সংবাদমাধ্যমকে সত্য উদ্ঘাটনে বাধা দিয়ে সত্যিই কি ধামা চাপা পড়বে কিছু? থাকছে প্রশ্ন। জবাব দেবে সময়।

6 months ago


CV Anand Bose: সন্দেশখালির ঘটনার দায় একমাত্র এ রাজ্যের সরকারের, দাবি রাজ্যপালের

সন্দেশখালির ঘটনায় এবারে রাজ্যের মুখ্য সচিব ও ডিজিকে তলব রাজ্যপালের। আর এই ঘটনার জন্য রাজ্য সরকারকেই দায়ী করছেন তিনি। সন্দেশখালির তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে রেশন বণ্টন দুর্নীতির তল্লাশি চালাতে গিয়ে মার খেতে হয় ইডির আধিকারিকদের। এই ঘটনা নিয়ে সকাল থেকেই উত্তপ্ত রাজ্য। এবার এক ভিডিও বার্তার মাধ্যমে ঘটনার তীব্র নিন্দার পাশাপাশি সরকারের প্রতিও ক্ষোভ উগরে দিলেন রাজ্যপাল। বার্তায় তিনি হুঁশিয়ারিও দিলেন, 'উপযুক্ত পদক্ষেপ না করলে ফল ভোগার জন্য যেন প্রস্তুত থাকে রাজ্য সরকার।'

শুক্রবার সন্দেশখালির ঘটনায় তীব্র ক্ষোভপ্রকাশ করেছেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। এর পরই দেখা গেল রাজ্যের মুখ্য সচিব ও ডিজিকে তলব করেছেন তিনি। আজই বিকেল ৪ টের মধ্যে রিপোর্ট তলব করেছেন তিনি, এমনটাই রাজভবন সূত্রে খবর। পাশাপাশি ভিডিও বার্তার মাধ্যমে ঘটনার তীব্র নিন্দা করেন বাংলার রাজ্যপাল।

শুক্রবার সকাল থেকেই সরগরম হয়ে আছে রাজ্য রাজনীতি। তদন্ত করতে গিয়ে মার খেয়ে আক্রান্ত হতে হচ্ছে ইডির আধিকারিকদের। হাত তোলা হচ্ছে সংবাদমাধ্যমের গায়ে। এবার এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েই এবং উপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলেই ভিডিও বার্তা দিলেন রাজ্যপাল সি ভি আনন্দ বোস। সন্দেশখালির ঘটনার দায় একমাত্র এ রাজ্যের সরকারের। সরকার তাঁর নূন্যতম কর্তব্য ভুলে গিয়েছে। এমনভাবেই রাজ্য সরকারকে তাঁর বার্তার মাধ্যমে বিঁধলেন রাজ্যপাল। বললেন, যেকোনও উপায় জনগণের সাংবিধানিক অধিকার রক্ষা করতে হবে। এমন বার্তায় সরব রাজ্যপাল।

শুক্রবার সকালেই বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের গলায় সন্দেশখালির ঘটনায় রাজ্যপালের হস্তক্ষেপের আবেদন শোনা গিয়েছিল। তার কিছুক্ষণের মধ্যেই রাজ্যপালের এই বার্তা প্রকাশ্যে এল। রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস গ্রাউন্ড জিরো রাজ্যপাল বলে বারবার চিহ্নিত হয়ে এসেছেন। এবারেও সন্দেশখালির ঘটনায় রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধানের এই বার্তাকে তাৎপর্যপূর্ণ  বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

6 months ago
Sandeshkhali: সন্দেশখালির ঘটনায় কড়া পদক্ষেপ! নবান্ন-রাজ্যপালের কাছে রিপোর্ট তলবের সম্ভাবনা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের

শুক্রবারের সন্দেশখালির ঘটনা সারা দেশে সাড়া ফেলে দিয়েছে। এদিনের ঘটনাটি সত্যিই নজিরবিহীন বলে মনে করছেন দেশবাসী। রাজ্যের শাসকদলের নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে ইডির হানা দিতে কীভাবে সরবেড়িয়া গ্রামবাসীদের রোষের মুখে পড়তে হয় ইডি আধিকারিকদের, তা নিয়ে এবারে অত্যন্ত কড়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে কেন্দ্র, এমনটাই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্রের খবর। রাজ্য সরকারের কাছে রিপোর্ট তলব করার সম্ভবনা রয়েছে।

শুক্রবার সাত সকালে তৃণমূল নেতা তথা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের ঘনিষ্ঠ শেখ শাহজাহানের বাড়িতে তল্লাশিতে গিয়ে ইডি আধিকারিকদের দুষ্কৃতী তাণ্ডবের মুখে পড়তে হয়। ইডি আধিকারিকদের মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এমনকি কেন্দ্রীয় জওয়ানদের উপরও হামলা চালানো হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এই ঘটনা নিয়ে সরব হয়েছে বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। জানা গিয়েছে, কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীর ফোনে কথা হয়েছে। ফোনে শাহকে গোটা ঘটনার বিবরণ দিয়েছেন তিনি। এর পরই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক সূত্রে খবর, ঘটনার সম্পূর্ণ বিবরণ, এই ঘটনার সঙ্গে কারা যুক্ত, স্থানীয় পুলিসের ভূমিকা এই সমস্ত বিষয়ে নবান্নর কাছে এবং রাজ্যপাল-এর কাছে রিপোর্ট তলব করতে চলেছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।

অন্যদিকে রাজ্যের বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী এই ঘটনায় সরব হয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, 'ভয়াবহ! পশ্চিমবঙ্গে আইনশৃঙ্খলা ব্যবস্থায় তীব্র অরাজকতা চলছে। তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে তল্লাশিতে গিয়ে ইডি আধিকারিকরা নৃশংস হামলার শিকার হয়েছে। আমার সন্দেহ দেশবিরোধী এই হামলাকারীদের মধ্যে রোহিঙ্গারাও ছিল। আমি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আমিত শাহ জি, রাজ্যপাল, ইডির ডিরেক্টর ও সিআরপিএফকে অনুরোধ করব, নৈরাজ্যের অবসান ঘটাতে ব্যাপারটি গুরুত্ব দিয়ে দেখুন। NIA-এরও বিষয়টি খতিয়ে দেখা উচিত।'

6 months ago


Justice Ganguly: 'যদি তদন্তকারীরা মার খান, তাহলে তদন্ত কীভাবে হবে?', সন্দেশখালি প্রসঙ্গে প্রশ্ন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের

রেশন দুর্নীতির তদন্তে শুক্রবার সাতসকালে সন্দেশখালিতে বালু ঘনিষ্ঠ নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে পৌঁছে যান ইডি আধিকারিকরা। কিন্তু সেখানে পৌঁছতেই রণক্ষেত্র হয়ে উঠল সন্দেশখালি। এবারে এই ঘটনা নিয়েই মুখ খুললেন কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। প্রশ্ন করেন, 'রাজ্যপাল কেন ঘোষণা করেছেন না যে এ রাজ্যে সাংবিধানিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়েছে?' তিনি আরও বলেন, 'যদি তদন্তকারীরা মার খান তাহলে তদন্ত কিভাবে হবে? সংবাদ মাধ্যমের গায়ে হাত, কোথায় দাঁড়িয়ে আমরা?'

রেশন দুর্নীতির তদন্তে উত্তর ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ কর্মাধ্যক্ষের শেখ শাহজাহানের বাড়িতে হানা দেয় কেন্দ্রীয় এজেন্সি। জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত তিনি। আর সেখানে ইডি-কে রুখতে তাঁদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে অনুগামীরা। প্রায় প্রাণভয়ে পালাতে শুরু করেন ইডি অফিসাররা। আর তখনই যাবতীয় রাগ উগরে দেওয়া হয় সংবাদমাধ্যমের কর্মীদের উপর। শুক্রবারের এই ঘটনার উল্লেখ বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের এজলাসে করেন আইনজীবী সুদীপ্ত দাশগুপ্ত।

এরপরই বিচারপতির মন্তব্য, 'এই ঘটনা আমার জানা ছিল না। যদি এই ধরনের ঘটনা ঘটে থাকে, তাহলে ইডি আধিকারিকরা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যপালের দৃষ্টি আকর্ষণ করতেই পারে। এখন কেমন আছেন সবাই (যারা মার খেয়েছেন ), ওখানকার প্রশাসন কী করছিল? কোন বিধানসভা? পুলিস কি সেখানে ছিল? রাজ্যপাল কেনও এর ব্যবস্থা নিচ্ছেন না? এই সময় রাজ্যপালের ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।' প্রশ্ন করেন, 'রাজ্যপাল কেনও এমার্জেন্সি অবস্থার ঘোষণা করছেন না? রাজ্যপাল কেন ঘোষনা করেছেন না যে এরাজ্যে সাংবিধানিক পরিকাঠামো ভেঙে পড়েছে? যদি তদন্তকারীরা মার খান, তাহলে তদন্ত কীভাবে হবে? সংবাদমাধ্যমের গায়ে হাত কোথায় দাঁড়িয়ে আমরা?'

6 months ago
Sandeshkhali: বালু ঘনিষ্ঠ শাহজাহানের বাড়িতে হানা দিতেই রক্ত ঝরল ইডি আধিকারিকদের! রিপোর্ট যাবে ইডির দিল্লি দফতরে

এ যেন একেবারে সিনেমার দৃশ্য! 'রেইড' সিনেমা তো নিশ্চয় দেখেছেন আপনারা! এবারে বাংলাতেও দেখা গেল একই ঘটনা। শাসকদলের নেতার বাড়িতে হানা দিতেই ঝাপিয়ে পড়ল স্থানীয়রা। বাঁশ, লাঠি, লোহার রড, হাতের সামনে যা পেয়েছে তা নিয়েই ইডি আধিকারিকদের ওপর হামলা করার অভিযোগ উঠছে। তিন ইডি আধিকারিকদের বাঁশ দিয়ে মেরে মাথা ফাটিয়ে দেওয়ারও অভিযোগ উঠেছে। বাদ গেলেন না সিআরপিএফের জওয়ানরাও। মার খেতে হল তাঁদেরও। এছাড়া সাংবাদিকদের ওপরেও চড়াও হওয়া, গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠছে। জানা গিয়েছে, জখম তিন ইডি আধিকারিক অঙ্কুর গুপ্তা, রাজকুমার রাম এবং সোমনাথ দত্তকে সল্টলেকের একটি বেসরকারি হাসপাতালে আনা হয়েছে। রাজকুমারের আঘাত সব থেকে গুরুতর। তাঁর শরীরে সাতটি সেলাই পড়েছে এবং সোমনাথ দত্ত-এর ৪ টি সেলাই পড়েছে। সিটি স্ক্যান করা হচ্ছে তিন জনের। বর্তমানে সন্দেশখালি ঘিরে রেখেছে রাজ্য পুলিস।

নতুন বছরের শুরুতেই পুরো সুপার অ্যাকশন মুডে ইডি আধিকারিকরা। শুক্রবার রেশন দুর্নীতির তদন্তে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে ফের সাঁড়াশি অভিযানে নেমেছেন তাঁরা। কিন্তু উত্তর ২৪ পরগনার সন্দেশখালিতে বালু ঘনিষ্ঠ শেখ শাহজাহানের বাড়িতে হানা দিতেই তুলকালাম কাণ্ড। তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহানের বাড়িতে ইডি হানা দিতেই বাড়ির সামনে তাঁর অনুগামীদের বিক্ষোভ। কেন না জানিয়ে ইডির হানা? প্রশ্ন তুলে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন তৃণমূল কর্মী সমর্থকরা। শুধু তাই নয়, ইডি আধিকারিকদের ওপর হামলা করার অভিযোগ উঠেছে তাঁদের বিরুদ্ধে। কেন্দ্রীয় বাহিনীর জনওয়ানদেরও ধাক্কা দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে স্থানীয়দের একাংশের বিরুদ্ধে। জনগণের প্রতিক্রিয়া দেখে ইডি আধিকারিকেরা ঘটনাস্থল থেকে বেরিয়ে যান। তবে এর পরেও থামেনি বিক্ষুব্ধ জনতা। টায়ারে আগুন ধরিয়ে রাস্তা অবরোধ করার অভিযোগও উঠেছে তৃণমূলের কয়েক জন কর্মী-সমর্থকের বিরুদ্ধে। বেশ কয়েকটি গাড়িতেও ভাঙচুর চালানো হয়েছে। পুরো এলাকা কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছে।

ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার তরফে স্থানীয় পুলিসকে বিষয়টি জানানো হয়েছে। থানায় এফআইআর করার প্রস্তুতি নিচ্ছে ইডি। আদালতেও জানানো হবে আজকের গোটা বিষয়। এছাড়াও সন্দেশখালির এই ঘটনার বিষয়ে কলকাতা অফিস থেকে ইডির দিল্লি হেড কোয়ার্টারকে জানানো হয়েছে। ইতিমধ্যেই দিল্লির সদর দফতরে পাঠানো হয়েছে আজকের রিপোর্টে।

6 months ago
Theft: একই রাতে পরপর দুটি বাড়িতে দুঃসাহসিক চুরি, তদন্তে পুলিস

রাতের অন্ধকারে পর পর দুটি বাড়িতে দুঃসাহসিক চুরি (theft)। গায়েব হয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকার সোনার গয়না ও নগদ টাকা। শুক্রবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে বসিরহাটের (Basirhat) সন্দেশখালি থানার সন্দেশখালি গ্রাম পঞ্চায়েতের পাখির মোড় এলাকায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আসে সন্দেশখালি থানার পুলিস। চুরির ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গোটা এলাকায়।

এলাকার বাসিন্দা বিশ্বনাথ মন্ডল জানিয়েছেন, শুক্রবার রাতে ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন‌ তিনি। এরপর শনিবার সকালে উঠে তাঁর স্ত্রী পুকুরের দিকে গেলে একটা ব্যাগ দেখতে পান। সেই ব্যাগে ছিল তাঁদের সমস্ত নথিপত্র। এরপর বাড়ি ফিরে দেখেন ঘরের বিভিন্ন জায়গায় লন্ডভন্ড অবস্থায় জিনিসপত্র পড়ে রয়েছে। তখনই তাঁরা বুঝতে পারেন তাঁদের বাড়িতে চুরি হয়েছে। 

দীপঙ্কর বর্মন ও বিশ্বনাথ মন্ডলের দুটি বাড়ি থেকে সোনার গয়না ও নগদ টাকা মিলে প্রায় ২ লক্ষ টাকার বেশি জিনিসপত্র নিয়ে চম্পট দেয় দুষ্কৃতীরা। চুরির ঘটনায় এলাকার মানুষ যথেষ্ট আতঙ্কিত হয়ে পড়ে। সন্দেশখালি থানার পুলিস ঘটনাস্থলে গিয়ে পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখে তদন্ত শুরু করেছে।


12 months ago


River: সন্দেশখালির রায়মঙ্গল নদী বাঁধে ১৫০ ফুট ধস, মোখা আতঙ্কের মধ‍্যেই নতুন বিপর্যয়

মোখা আতঙ্কের মধ‍্যেই নতুন বিপর্যয় সন্দেশখালিতে। সন্দেশখালিতে রায়মঙ্গল নদী বাঁধে ১৫০ ফুট ধস (Erosion)। সন্দেশখালি (Sandeshkhali) দু'নম্বর ব্লকের মণিপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের আতাপুর তালতলার রায়মঙ্গল নদী বাঁধের ঘটনা। ঘটনাস্থলে বিডিও (BDO) ও এনডিআরএফ (NDRF) আধিকারিকরা। নদী বাঁধে ধস নামায় আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে ঐ এলাকায়।  

সূত্রের খবর, এই এলাকায় মোকা যদি প্রভাব ফেলে পাশাপাশি নদীর জলোচ্ছ্বাস অতিরিক্ত হয় তাহলে বাঁধ ভাঙ্গার আশঙ্কাও রয়েছে। নদী বাঁধ ভাঙলে মণিপুর, কোরাকাটি, তালতলা, ধুচনেখালি সহ বেশ কয়েকটি গ্রাম প্লাবিত হওয়ার আশঙ্কাও রয়েছে। তাই ইতিমধ্যেই সন্দেশখালি দু'নম্বর ব্লকের বিডিও অর্ণব মুখার্জীর নির্দেশে মণিপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের তরফ থেকে রায়মঙ্গল নদী বাঁধে ধসের জায়গাটুকু মেরামতির কাজ চলছে। 

এই বিষয়ে সন্দেশখালি দু'নম্বর ব্লক ডেভেলপমেন্ট বিপর্যয় মোকাবিলা দলের আধিকারিক আবুল কাশেম জানান, ইতিমধ্যেই নদী বাঁধ পরিদর্শন করা শুরু হয়ে গিয়েছ। বেশ কয়েকটি নদী বাঁধ দুর্বল রয়েছে সেখানেও যাতে দ্রুত মেরামতি করা যায়, তার জন্য সব রকম চেষ্টাও চালানো হচ্ছে।

one year ago