Breaking News
ED: মিলে গেল কালীঘাটের কাকুর কণ্ঠস্বর, শ্রীঘই হাইকোর্টে রিপোর্ট পেশ ইডির      Ram Navami: রামনবমীর আনন্দে মেতেছে অযোধ্যা, রামলালার কপালে প্রথম সূর্যতিলক      Train: দমদমে ২১ দিনের ট্রাফিক ব্লক, বাতিল একগুচ্ছ ট্রেন, প্রভাবিত কোন কোন রুট?      Sarabjit Singh: ভারতীয় বন্দি সরবজিৎ সিং-এর হত্যাকারী সরফরাজকে গুলি করে খুন লাহোরে      BJP: ইস্তেহার প্রকাশ বিজেপির, 'এক দেশ এবং এক ভোট' লাগু করার প্রতিশ্রুতি      Fire: দমদমে ঝুপড়িতে বিধ্বংসী অগ্নিকাণ্ড, ঘটনাস্থলে দমকলের একাধিক ইঞ্জিন      Bengaluru Blast: বেঙ্গালুরু ক্যাফে বিস্ফোরণকাণ্ডে কাঁথি থেকে দুই সন্দেহভাজনকে গ্রেফতার করল এনআইএ      Sheikh Shahjahan: 'সিবিআই হলে ভালই হবে', হঠাৎ ভোলবদল শেখ শাহজাহানের      CBI: সন্দেশখালিকাণ্ডে সিবিআই তদন্তের নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের...      NIA: ভূপতিনগর বিস্ফোরণকাণ্ডে এবার কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ NIA     

NCPCR

NCPCR: কালিয়াগঞ্জকাণ্ডে রাজ্য ও কেন্দ্র কমিশন তরজা গড়াল হাইকোর্টে

কালিয়াগঞ্জের নাবালিকা যৌন নিগ্রহ ও খুনের অভিযোগের ঘটনায় (Kaliaganj) কে থাকবে, জাতীয় শিশু অধিকার কমিশন (NCPCR) না রাজ্য কমিশন (WBCPCR) সেই তরজা গড়াল হাইকোর্টে। মঙ্গলবার বিচারপতি রাজশেখর মান্থার এজলাসে শুনানিতে কালিয়াগঞ্জের ঘটনায় রাজ্য শিশু অধিকার কমিশন যুক্ত হতে চায় বলে আবেদন করে। রাজ্য ও জাতীয় শিশু সুরক্ষা কমিশনের গন্ডগোল বাংলায় নতুন নয়। সম্প্রতি তিলজলা, গাজোলে তেমন ছবিই দেখা গেছে। একে অপরকে আক্রমণ করতে গিয়ে ঝামেলায় জড়িয়ে পড়েছিলেন দুই কমিশনের প্রতিনিধিরা।

মঙ্গলবার সেই বচসা হাইকোর্টে এসে পড়ল। বিচারপতি রাজশেখর মান্থার এজলাসে এদিন জাতীয় শিশু সুরক্ষা কমিশন দাবি করে, খুন হওয়া মেয়েটির মায়ের আবেদন পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে কমিশনের চেয়ারম্যান প্রিয়ঙ্ক কানুনগো নিজে তদন্ত করেছেন। এদিকে রাজ্যের তরফেও একই দাবি করা হয়েছে। রাজ্য সরকারের পক্ষের আইনজীবীর দাবি, ‘২১ এপ্রিল এসপি ও ডিএমকে চিঠি দেয় রাজ্য কমিশন। পরের দিনই ঘটনাস্থলে যায় দল। আমাদের কারওর সঙ্গে কোনও বিরোধ নেই। কেন্দ্রীয় কমিশনকে সহযোগিতা করতে পারে রাজ্য কমিশন।’ কালিয়াগঞ্জের ঘটনার তদন্তের অগ্রগতি নিয়ে রাজ্যকে প্রশ্ন করেন বিচারপতি। পাশাপাশি, রাজ্য পুলিসের তরফে যে দেহ পুড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল সেই ঘটনায় কেউ গ্রেফতার হয়েছে কি, জানতে চায় হাইকোর্ট। রাজ্যের তরফে জানানো হয়, ইট, পাথর লাঠি নিয়ে প্রায় দু’শো লোক টায়ার জ্বালিয়ে দেহ আটকে রেখেছিল। সেখান থেকে পুলিশ দেহ উদ্ধার করে। সেই ঘটনার এফআইআরে ১৭ জনের নাম রয়েছে। তিনজন গ্রেফতারও হয়েছে।

জাতীয় শিশু সুরক্ষা অধিকার কমিশন এদিন আদালতে জানায়, তারা পরিবার ও প্রশাসনের সঙ্গে কথা বলেছে। কমিশন পুলিসের তরফে ঘটনা নিয়ন্ত্রণে ত্রুটি পেয়েছে। সেই নিয়ে রিপোর্ট দেওয়া হবে। শুনানি শেষে বিচারপতি রাজশেখর মান্থা রাজ্য শিশু সুরক্ষা অধিকার কমিশনকে এই মামলার সঙ্গে যুক্ত করার নির্দেশ দেন। আগামী ৮ মে পুলিশ ও জাতীয় কমিশন তাদের তদন্তের রিপোর্ট জমা দিতে হবে আদালতে। মামলার পরবর্তী শুনানি ওইদিনই।

12 months ago
Court: কালিয়াগঞ্জ-কাণ্ডে জনস্বার্থ মামলা দায়েরের অনুমতি হাইকোর্টের

কেন্দ্রীয় শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারপার্সন প্রিয়াঙ্ক কানুনগো, গতকাল অর্থাৎ রবিবারই কালিয়াগঞ্জের শিশু নিগ্রহের ঘটনায় তদন্তকারী অফিসার ও মৃতার ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসককে ডেকে পাঠান। সেইমতো সোমবার সকালবেলা প্রিয়াঙ্ক কানুনগোর সঙ্গে দেখা করতে সার্কিট হাউসে এলেন তদন্তকারী অফিসার, ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক এবং ওই এলাকার এসডিও। তাঁদের সঙ্গে বৈঠকের পর প্রিয়ঙ্ক কিছুটা ক্ষুব্ধ হয়ে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, পুলিস বৈঠকে এসেছেন কিন্তু ওই মামলার কোনও রিপোর্ট তাঁরা আনেনি। 

এছাড়া পুলিস জানেন না এই মামলায় কে অভিযোগ করেছেন। এই ঘটনার রীতিমতো ক্ষুব্ধ কেন্দ্রীয় শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান প্রিয়াঙ্ক কানুনগো। বারবার কেন্দ্রের কমিশনের সঙ্গে বিতর্কে জড়িয়েছে রাজ্য শিশু রক্ষা কমিশন। সোমবার প্রিয়াঙ্ক বলেন, 'প্রয়োজনে এই ঘটনার এনআইএ তদন্ত আবেদন করব।' এছাড়া প্রিয়াঙ্ক অভিযুক্তদের সঙ্গে বাংলাদেশের যোগ থাকার কথা সন্দেহ করছেন। সে বিষয়ে তিনি জানান প্রয়োজনে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাকে দিয়ে এ ঘটনা তদন্ত করার আবেদন জানানো হবে। এছাড়া এ ঘটনায় চিকিৎসকের বিরুদ্ধে প্রিয়ঙ্ক বলেন, 'চিকিৎসকের সঙ্গে পরিবারের বক্তব্যের ফারাক আছে।'

পাশাপাশি কালিয়াগঞ্জে শিশু নিগ্রহের ঘটনায় হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা দায়ের। সেই মামলা দায়ের করার অনুমতি দিল আদালত। ওই পরিবারকে ১ কোটি টাকা জরিমানা দেওয়ার পাশাপাশি এ ঘটনায় সিবিআই তদন্তের দাবি জানানো হয়েছে।

12 months ago
NCPCR: রাজ্যে পরপর শিশু নিগ্রহের ঘটনায় প্রকাশ্যে কেন্দ্র-রাজ্য শিশু সুরক্ষা কমিশনের দ্বন্দ্ব

কালিয়াগঞ্জের (Kaliaganj) শিশু নিগ্রহ ও মৃত্যুর ঘটনায়, ফের প্রকাশ্যে রাজ্য এবং কেন্দ্র শিশু সুরক্ষা কমিশনের দ্বন্দ্ব (NCPCR)। রবিবার কালিয়াগঞ্জে মৃতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন কেন্দ্রীয় শিশু সুরক্ষা কমিশন। পরিবারের সঙ্গে কথা বলেন কেন্দ্রীয় শিশু সুরক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান প্রিয়াঙ্ক কানুনগো (Priyank Kanungo)। যার পরে কেন্দ্রের কমিশনকে কটাক্ষ করতে শুরু করেছে রাজ্য শিশু সুরক্ষা কমিশন।

সূত্রের খবর, কালিয়াগঞ্জে নিগৃহীতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে শনিবারই রাজ্যে হয়েছিলেন কেন্দ্রীয় সুরক্ষা কমিশন। রাজ্যের পরপর তিলজলা, গাজলের শিশু নিগ্রহের পর, ফের কালিয়াগঞ্জে শিশু নিগ্রহের ঘটনাকে কেন্দ্র করে কেন্দ্র ও রাজ্যের সংঘাত চরমে।

রবিবার ওই মৃতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করে বেরিয়ে, প্রিয়াঙ্ক কানুনগো বলেন, 'এ রাজ্যে বারবার এমন ঘটনা ঘটছে, পশ্চিমবঙ্গে নারী ও শিশুদের সুরক্ষা নেই। এ বিষয়ে প্রশাসনকে বাড়তি সতর্ক থাকা উচিত।' এরপরই রাজ্য শিশু সুরক্ষা কমিশন এনসিপিসিআরকে কটাক্ষ করে টুইট করেন, 'উনি যা করছেন সেটা অত্যন্ত লজ্জাজনক। উনি কোনও কিছু না জেনেই পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন।' কেন্দ্রের এই কমিশনকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি তৃণমূল মুখপাত্র কুনাল ঘোষও।

12 months ago


NCPCR: রাজ্যে পৌঁছল জাতীয় শিশু সুরক্ষা কমিশন, কালিয়াগঞ্জে বিক্ষোভ অব্যাহত

একদিকে যখন রাজ্যে এসে পৌঁছল এনসিপিসিআরের (NCPCR) দল, অন্যদিকে তখন দোষীদের (Accused) শাস্তির দাবিতে উত্তপ্ত কালিয়াগঞ্জ (Kaliaganj)। শুক্রবারের পর শনিবারও লাগাতার উত্তপ্ত হয়ে উঠল কালিয়াগঞ্জ। শনিবার বিকেলে নাবালিকার পরিবারের সঙ্গে দেখা করার জন্য এবং ঘটনাস্থল পরিদর্শনের জন্য কোচবিহার বাগডোগরা বিমানবন্দরে এসে পৌছয় এনসিপিসিআরের একটি দল। যেখানে উপস্থিত রয়েছেন প্রিয়াঙ্ক কানুনগো। পাশাপাশি অভিযুক্তদের শাস্তির দাবিতে উত্তর দিনাজপুর জেলা পুলিস সুপারের অফিসে ধরনায় বসেছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার।

লাগাতার কিশোরী নিগ্রহের ঘটনায় শুক্রবারের পর শনিবারও উত্তপ্ত হয়ে উঠল কালিয়াগঞ্জ এলাকা। শনিবার বিকেলে অবরোধ-বিক্ষোভ শুরু করেন স্থানীয়রা। তারপর তাদেরকে হটাতে বিশাল পুলিসবাহিনী এসে পৌঁছয়। কালিয়াগঞ্জে নাবালিকা খুনের ঘটনায় যৌন নিগ্রহের যোগ আছে, এই জানার পরেই উত্তপ্ত হয়ে ওঠে কালিয়াগঞ্জ। শুক্রবার উত্তপ্ত হওয়ার পর তাদেরকে লাঠিচার্জ এবং কাঁদানে গ্যাস ছুড়ে ছত্রভঙ্গ করে। এছাড়া স্থানীয়দের তরফ দোষীদের শাস্তির দাবিতে জ্বালিয়ে দেওয়া হয় আশেপাশের দোকানপাট। শুরু হয় পথ অবরোধ। যার পরে শনিবারও রীতিমতো লাঠিচার্জ করে পুলিস বিক্ষোভ মিছিল হঠাতে শুরু করে।

12 months ago
Sukanta: কালিয়াগঞ্জ-কাণ্ডে শাস্তির দাবিতে এসপি অফিসে ধরণায় সুকান্ত, রাজ্যে আসছে শিশু সুরক্ষা কমিশন

কিছুদিনের ফারাকেই ফের রাজ্যে আসতে চলেছে এনসিপিসিআরের (NCPCR)। আজ অর্থাৎ শুক্রবার রাজ্যে আসতে পারে এনসিপিসিআরের একটি দল। সূত্রের খবর, সম্প্রতি মালদহ এবং তিলজলার শিশু নিগ্রহের (Minor) ঘটনায় রাজ্য এসেছিলেন এনসিপিসিআর সদস্যরা এবং এনসিপিসিআর সভাপতি প্রিয়াঙ্ক কানুনগো (Priyank Knungo)। যার পরে রাজ্য-কেন্দ্র দ্বন্দ্ব চরমে উঠেছে। প্রিয়াঙ্ক কানুনগো অবশ্য রাজ্য পুলিসের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে, আদালতকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতে অনুরোধ করেছেন।

আজ অর্থাৎ শনিবার কালিয়াগঞ্জের কিশোরী নিগ্রহের ঘটনায় ফের রাজ্যে আসতে চলেছেন প্রিয়াঙ্ক কানুনগো। শনিবার তিনি বলেন, 'রাজ্যের আইন শৃঙ্খলা বিঘ্নিত, পশ্চিমবঙ্গে শিশু নিগ্রহের ঘটনা দিনের পর দিন বেড়ে চলেছে।'

পাশাপাশি, মৃতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করে এসে, তিনি উত্তর দিনাজপুর পুলিশ সুপারের অফিসের ধরণায় বসেন। শনিবার দুপুর থেকেই কালিয়াগঞ্জের ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি সুকান্ত মজুমদার। কালিয়াগঞ্জ পৌঁছে তিনি মৃতার পরিবারের সঙ্গে দেখা করেন এবং বেশ কিছুক্ষণ কথা বলেন। এরপর তিনি মৃতার পরিবারকে আশ্বস্ত করেন ও সঠিক বিচার পাইয়ে দেওয়ারও প্রতিশ্রুতি দেন। পাশাপাশি সুকান্ত মজুমদার এদিন রাজ্য পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন এবং বলেন, 'রাজ্যে এরকম সন্ত্রাস বেড়ে চলেছে, আইনশৃঙ্খলার অবনতি ঘটছে।' এছাড়া তিনি অভিযুক্তদের কঠোর শাস্তির দাবি জানান।

12 months ago


Notice:তিলজলা-কাণ্ডে ডিজিকে চিঠি শিশু সুরক্ষা কমিশনের, ভাঙড় খুনে নতুন তথ্য

তিলজলায় (Tiljala Murder) শিশু খুনের ঘটনায় রাজ্য পুলিসের ডিজিকে (DG) চিঠি দিল জাতীয় শিশু সুরক্ষা কমিশন (Ncpcr)। সূত্রের খবর, ডিজির কাছে এই খুনের সমন্ধে তথ্য চেয়ে পাঠানো হয়েছে। গোটা ঘটনায় প্রথম থেকেই নজর রাখছিলো জাতীয় শিশু সুরক্ষা কমিশন। টুইট করে এই ঘটনা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেন কমিশনের চেয়ারম্যান। যদিও ঘটনার দিন রাতেই মূল অভিযুক্ত আলোক কুমার সাউকে গ্রেফতার করে পুলিস। তাঁকে জেরা করে খুনের কারণ তদন্ত করছে জানিয়েছে পুলিস।  

তিলজলায় শিশু খুনের তদন্তে নেমে পুলিস প্রথম দিকে জানিয়েছিল, 'অভিযুক্ত, এক তান্ত্রিক তত্ত্ব খাড়া করছেন।' যদিও সেটা ভিত্তিহীন বলেই দাবি করেছিল কলকাতা পুলিসের গোয়েন্দা শাখা। মঙ্গলবার পুলিসের তরফে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হয়েছে ওই অভিযুক্তর দাবি ভিত্তিহীন। খুনের পিছনে অন্য কারণ আছে, সেটা তদন্ত করে দেখছে পুলিস। পুলিস জানিয়েছে, তিলজলার ঘটনা নিয়ে সোমবারের হওয়া তান্ডবে মোট ২০ জনকে গ্রেফতার করে পুলিস। মঙ্গলবার তাঁদের আদালতে তোলা হলে, বিচারক তাঁদের ৩ দিন অর্থাৎ পয়লা এপ্রিল অবধি পুলিসি হেফাজতের নির্দেশ দেয়।  

পাশাপাশি মঙ্গলবার সকালে ১৬ বছরের নাবালিকা খুনের ঘটনায়, লেদার কমপ্লেক্স থানা ওই নাবালিকার মোবাইল ফোন উদ্ধার হয়েছে। পুলিস জানিয়েছে, ওই নাবালিকার একটি প্রেমিক ছিল, এ ঘটনার পর ওই গোটা পরিবার নিখোঁজ। তাদের খোঁজে তল্লাশি চলছে বলে জানিয়েছে পুলিস। মঙ্গলবার মেয়েটির পরিবারের তরফে জানানো হয়েছে, শনিবার সন্ধ্যায় মেয়েটির মায়ের ফোনে একটি ফোন আসে। নাবালিকার মা জানান, 'ওই ফোনে ওর গলা চাপা লাগছিলো, এরপরেই আমরা থানায় জানাই।' মঙ্গলবার এ ঘটনার তদন্তের পর পুলিস জানিয়েছে, 'নৃশংসভাবে হত্যার পর, ওই নাবালিকার দেহাংশ কেটে ফেলা হয়েছিল।'  

one year ago