Breaking News
Resign: বিচারপতির পদ থেকে ইস্তফা অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের, তবে এবার কি রাজনীতির ময়দানে?      Tapas Roy: তৃণমূল ছাড়লেন তাপস রায়, বরাহনগরের বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা বর্ষীয়ান নেতার      Resign: হঠাৎ অবসর বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের, 'রাজনীতি যোগ' জল্পনা তুঙ্গে      Sandeshkhali: সন্দেশখালিতে ফের ফ্য়াক্ট ফাইন্ডিং টিম, শুনবে মহিলা ও বাসিন্দাদের কষ্টের কথা      BJP: প্রথম দফায় ১৯৫ প্রার্থীর নাম ঘোষণা বিজেপির, বাংলার ২০ জনের নাম তালিকায়      Modi: 'রামমোহনের আত্মা সন্দেশখালির মহিলাদের দুর্দশায় কাঁদছে', আরামবাগ থেকে মমতাকে তোপ মোদীর      Suspend: গ্রেফতারির পরেই তৃণমূল থেকে ছয় বছরের জন্য সাসপেন্ড সন্দেশখালির 'বেতাজ বাদশা' শাহজাহান      Sandeshkhali: নিরাপদ সর্দারকে নিঃশর্তে জামিন দিয়ে রাজ্য পুলিসকে তিরস্কার বিচারপতির      Sheikh Shahjahan: ঘর ভাঙচুর, টাকা লুঠ! শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে নতুন এফআইআর সন্দেশখালি থানায়      Sandeshkhali: অজিত মাইতিকে তাড়া গ্রামবাসীদের, সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর অবশেষে আটক পুলিসের     

Kalighat

TMC: পঞ্চায়েত ভোটে নির্দল প্রার্থী নিধনে আরও কঠোর তৃণমূল

পঞ্চায়েত ভোটে (Panchayet Election) নির্দল প্রার্থী নিধনে আরও কঠোর হল তৃণমূল (TMC)। অর্থাৎ তৃণমূল থেকে টিকিট না পেয়ে যারা দাঁড়িয়েছেন নির্দল হিসেবে, এবং অন্যান্য যারা নির্দল হয়ে জিতে তৃণমূলে ফিরতে চাইবেন তাঁদের জন্য তৃণমূলের রাস্তা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিলো তৃণমূল। সূত্রের খবর, আজ অর্থাৎ শনিবার কালীঘাটে (Kalighat) পঞ্চায়েতের ভোটের কৌশলী আলোচনায় এমনিই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে খবর।

সূত্রের খবর, ওই বৈঠকেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে শাসক দলের তরফে। নির্দল হয়ে পঞ্চায়েতে জিতলেও তাঁদের দলে ফেরানো হবে না বলেও এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। উল্টে তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া শাস্তির পথেই হাঁটবে তৃণমূল কংগ্রেস।

রাজনৈতিক মহলে দাবি, গত পুরসভার ভোটেও এই একই ফর্মূলা নিয়েই মাঠে নেমেছিল তৃণমূল কংগ্রেস। এবং তাতে সফলও হয়েছিল শাসক দল। এবার পঞ্চায়েত ভোটেও সেই একই পথে হাঁটল তারা। রাজ্য নির্বাচন কমিশনের রিপোর্ট অনুযায়ী, রাজ্যে ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত ভোটে শেষ বেলায় মোট আসনের প্রায় ১২ হাজার মনোনয়ন বেশি জমা দিয়েছে রাজ্যের শাসক দল। রাজনৈতিক মহলের দাবি, প্রতিটি জেলায় ভোট যাতে ভাগ না হয়ে যায়, সেই কারণেই নির্দল প্রার্থী আগাম মনোনয়ন প্রত্যাহারের অনুরোধ করা হয়েছে। মোট নির্দল প্রার্থী ১৬,২৯৩ জন।

এদিকে, মনোনয়ন পরীক্ষার প্রথম দিনেও বেশ কিছু জায়গা থেকে গ্রাম পঞ্চায়েত এবং পঞ্চায়েত সমিতিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় তৃণমূলের জয়ের খবর পাওয়া গিয়েছে। বিশেষ করে দক্ষিণ ২৪ পরগনা ফলতা, বাঁকুড়া এবং হাওড়া থেকে তৃণমূলের কার্যত জয়ের খবর মিলেছে।

9 months ago
Sujay: ‘কালীঘাটের কাকু’ কুন্তল ঘোষের কাছ থেকে মোটা টাকা নিয়েছেন, বিস্ফোরক দাবি ইডির

সুজয়কৃষ্ণকে নিয়ে আদালতে বিস্ফোরক দাবি ইডির (ED)। সূত্রের খবর, নিয়োগ দুর্নীতিকাণ্ডে ধৃত সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র ওরফে ‘কালীঘাটের কাকু’ কুন্তল ঘোষের কাছ থেকে মোটা টাকা নিয়েছেন। সেই টাকার পরিমাণ ছিল ৭০ লক্ষ টাকা। সুজয় শুধু একাই টাকা নেননি, তিনি রাজ্যের প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কেও টাকা দিতে বলেছিলেন।

আদালতে ইডির তরফে দাবি করা হয়, গত ১ ফেব্রুয়ারি এবং ২ ফেব্রুয়ারি আর্থিক তছরুপ নিয়ন্ত্রক আইনের ৫০ নম্বর ধারা অনুসারে কুন্তলের যে বয়ান নথিবদ্ধ করা হয়, তাতে তিনি জানান, ২০১৪ সালের টেট প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনার জন্য তিনি ‘কালীঘাটের কাকু’র সঙ্গে যোগাযোগ করেন। কয়েক জন চাকরিপ্রার্থীকে বেআইনি ভাবে টেট পাশ করিয়ে শিক্ষক হিসাবে নিয়োগ করাতে চেয়েছিলেন কুন্তল। সুজয় তখন কুন্তলকে আশ্বস্ত করে বলেছিলেন, পার্থের সঙ্গে কথা বললেই তাঁর কাজ হয়ে যাবে। এই সময়ে কুন্তল ৭০ লক্ষ টাকা দেন সুজয়কে। সুজয়ের কথাতেই তিনি পার্থকে দেন আরও ১০ লক্ষ টাকা। যদিও ইডি জানিয়েছে, ৩০ মে ‘কালীঘাটের কাকু’ তাদের প্রশ্নের মুখে এই লেনদেনের বিষয়টি অস্বীকার করেন।

তদন্তকারী সংস্থা সূত্রে খবর, নিয়োগ দুর্নীতিকাণ্ডে অপর ধৃত তাপস মণ্ডলও ‘কালীঘাটের কাকু’র সঙ্গে বেআইনি নিয়োগ সংক্রান্ত যোগাযোগের কথা ইডিকে জানিয়েছিলেন। গত বছর নভেম্বরে তাপসের বয়ান অনুযায়ী, ৩২৩ জন টেট প্রার্থীর তালিকা সুজয়কে পাঠানো হয়েছিল। তাঁর কাছ থেকে সেই তালিকা পাঠানো হয় প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদের তৎকালীন সভাপতি মানিক ভট্টাচার্যের কাছে। ইডি আদালতে এ-ও জানিয়েছে যে, সুজয় তাঁর বয়ানে দাবি করেছেন, তিনি মানিককে ২০২১ সালের আগে চিনতেন না। মানিকের সঙ্গে তাঁর কোনও রকম যোগাযোগ আগে ছিল না। কিন্তু তদন্তে ইডির হাতে আসা তথ্য অন্য কথা বলছে। মানিকের হোয়াটস্‌অ্যাপ কথোপকথন ঘেঁটে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা দেখেছেন, তাঁর সঙ্গে সুজয়ের যোগাযোগ রয়েছে অন্তত ২০১৮ সাল থেকে। ওই সময় থেকেই মানিককে বহু টেট প্রার্থীর নথি সুজয় পাঠিয়েছিলেন। পাঠানো হয়েছিল মার্কশিট এবং অ্যাডমিট কার্ডও। অর্থাৎ, সুজয় তথ্য গোপন করতে চাইছেন, সত্যি কথা বলছেন না, দাবি ইডির।

9 months ago
TMC: চোখ, কান, গলা গ্রেফতার, এবার মাথাও গ্রেফতার হোক দাবি বিরোধীদের

মণি ভট্টাচার্যঃ আপাতত কালীঘাটের কাকুর ঠিকানা বেহালা (Behala) ফকির পাড়া নয়। আগামী ১৪ দিনের জন্য কাকু অর্থাৎ সুজয় কৃষ্ণ ভদ্রের ঠিকানা ইডির (ED) হেফাজত। শিক্ষায় নিয়োগ দুর্নীতি কাণ্ডে অভিষেক-কুন্তলের একটা পৃথক মামলায় সিবিআই অস্বস্তিতে রয়েছেন অভিষেক। এবার কালীঘাটের কাকুর গ্রেফতারি। এতে কি কোনও ভাবে অস্বস্তি বাড়াবে যুবরাজ অর্থাৎ অভিষেকের। যদিও এ ঘটনায় বিজেপি সহ বাদবাকি বিরোধী দল গুলি কাকুকে কান স্বরূপ অভিষেককে মাথা হিসেবেই দাবি করছেন। তাঁদের মত কানে টান পড়ছে, এবার মাথার পালা। যদিও এসব তথ্য উড়িয়ে তৃণমূলের দাবি 'নবজোয়ার'কে ঢাকতেই এই চক্রান্ত।

প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার সকালে ইডির দফতরে হাজিরা দিতে যাওয়ার সময় যথেষ্ট আত্মবিশ্বাসী ছিলেন সুজয় কৃষ্ণ ভদ্র ওরফে কালীঘাটের কাকু। দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের পর তাঁকে গ্রেফতার করা হয়। ইডি সূত্রে খবর, অভিযুক্ত এই কাকু তাঁর ফোন থেকে নিয়োগ দুর্নীতি সম্পর্কিত সমস্ত চ্যাট তদন্তের গতি বুঝে উড়িয়ে ফেলতেই চেয়েছিলেন। কিন্তু আগেই তাঁর মোবাইল গুলি বাজেয়াপ্ত করে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। সেই মোবাইলের তথ্য নিয়ে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করা করে সমস্ত কথা তিনি অস্বীকার করেন। এই বিষয়ে উত্তর দিতে চান নি। এছাড়া ইডির সূত্রে থেকে পাওয়া তথ্য অনুযায়ী নাম উঠেছে কাকুর ৩ টি কোম্পানির নাম। যার মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ হল লিপ্স এন্ড বাউন্স। অভিষেকের এই কোম্পানির সিইও ছিলেন কাকু। সে সঙ্গেই এই কোম্পানির জয়েন্ট ডিরেক্টর ছিলেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায়ের পরিবার। অভিযোগ এই কোম্পানি থেকে নিয়োগ দুর্নীতির কালো টাকা সাদা করা হয়েছে।

যদিও কালীঘাটের কাকু বা কুন্তল এই প্রসঙ্গে অভিষেকের মুখে কিন্তু অন্য সুর। অভিষেক জানিয়েছেন তিনি কুন্তলকে চেনেনই না। চেনেন না কাকুকেও। সূত্রের খবর, কালীঘাটের কাকু এবং কুন্তল দুজনেই নিয়োগ দুর্নীতির টাকা লেনদেনে যুক্ত বলে দাবি ইডির। অভিযোগ কুন্তলকে পরীক্ষার্থীর অ্যাডমিট কার্ড দিতেন কাকু। কুন্তল ওই তথ্য দিতেন মানিককে। ওই চাকরি বিক্রির টাকা পৌঁছে যেত পার্থ, মানিক ও কাকুর কাছে। গ্রেফতার হওয়ার পর বহিষ্কৃত তৃণমূল নেতা কুন্তলের মুখে শোনা গিয়েছিল এই কালীঘাটের কাকুর নাম। এখন প্রশ্ন হচ্ছে এই ঘটনায় কিভাবে জড়িয়ে গেল অভিষেক বন্দোপাধ্যায়।

পূর্বেই নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় কুন্তলের চিঠি প্রসঙ্গে সিবিআই দফতরে হাজিরা দিয়েছেন তৃণমূলের সেকেন্ড ইন কমান্ড অভিষেক বন্দোপাধ্যায়। জেরা শেষে বেরিয়ে এসে বিজেপি ও কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাকে তোপ দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু এবার পরিস্থিতি কিছুটা উল্টো। বিজেপির আইনজীবী তরুণ জ্যোতি তিওয়ারির মতে, 'কালীঘাটের কাকু অভিষেকের যুবা দলের সংঘটক। এই কুন্তল, শান্তনু, এদেরকে বাছাই করে তুলে আনা। আর ওই কোম্পানির মাধ্যমে এই দুর্নীতির কালো  টাকা সাদা করা হত। আর ভাগ পৌঁছে যেত অভিষেকের কাছেও।' একই দাবি বাম নেতা শতরুপ ঘোষের। শতরুপের দাবি, 'কালীঘাটের কাকু নিয়োগ দুর্নীতির অন্যতম হোতা। মাথা কে সেটা সবাই জানে। তদন্ত ঠিক চললে এর পরে কালীঘাটের ভাইপো, তারপর কালীঘাটের পিসি সব গারদে যাবে।'

যদিও এমন দাবি মানতে নারাজ তৃণমূল কংগ্রেস। তৃণমূলের পক্ষে কুনাল ঘোষের দাবি, অভিষেকের নবজোয়ারে পরিকল্পিতভাবে হামলা আর এই হামলার দায় চাপতেই এই চক্রান্ত করেছে বিজেপি। পাশাপাশি 'নবজোয়ার' প্রকল্পকে ভয় পেয়েছে বিজেপি। কালীঘাটের কাকুর সঙ্গে দলের বা অভিষেকের তেমন কোনও সম্পর্ক নেই। তাও স্পষ্ট করেন তিনি।

9 months ago


Kaku: কাজে এলো না জারিজুরি, ১৪ দিনের ইডি হেফাজত কালীঘাটের কাকুর

কাজে এলো না কোনো জারি-জুরি। কালীঘাটের (Kalighat) কাকু অর্থাৎ সুজয় কৃষ্ণ ভদ্রকে (Sujoy Krishna Bhadra) ১৪ দিনের ইডি (ED) হেফাজতের নির্দেশ দিল আদালত। যদিও বুধবার তাঁর আইনজীবী অসুস্থতার দোহাই দিয়ে জামিন চেয়েছেন। সেই জামিন মঞ্জুর করেন নি বিচারক।

ওদিকে মঙ্গলবার রাত থেকে কিছু খাচ্ছেন না কালীঘাটের কাকু ওরফে সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র। অসুস্থ হয়ে পড়ার আশঙ্কা রয়েছে তাঁর। বুধবার ব্যাঙ্কশাল আদালতে এমনই দাবি করল ইডি। ইডি আইনজীবীর দাবি, ইডির প্রশ্ন এড়ানোর জন্যই না খাওয়ার কৌশল নিচ্ছেন সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র। তিনি চাইছেন, তিনি যেন অসুস্থ হয়ে পড়েন। সুজয়কৃষ্ণ ভদ্রকে ১৪ দিনের জেল হেফাজতের আবেদন জানিয়েছে ইডি।

জানা গিয়েছে, অনশন শুরু করেছেন সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র। তিনি নিজে এদিন আদালতে দাঁড়িয়ে বলেছেন, "আমি হাঙ্গার স্ট্রাইক (অনশন) করব।" এদিকে, সুজয়ের আইনজীবীর অভিযোগ, তাঁর স্ত্রীকে গ্রেফতারির কথা জানানো হয়নি । অন্যদিকে, সুজয়কৃষ্ণের আইনজীবী মক্কেল ও তাঁর স্ত্রীর অসুস্থতার নথি আদালতে পেশ করে সুজয়কৃষ্ণের জামিনের আবেদন করেছেন

9 months ago
Summon: শনিতে দীর্ঘ জিজ্ঞাসাবাদের পর এবার মঙ্গলে কালিঘাটের কাকুকে তলব ইডির

কালীঘাটের (KalighatKaku) কাকুকে কি আষ্টেপৃষ্টে বেঁধে ফেলতে চাইছে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা। সম্প্রতি কালীঘাটের কাকুকে বাড়িতে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে ইডি (ED)। শনিবার দীর্ঘ সময় ধরে বেহালায় তাঁর একাধিক ঠিকানায় তল্লাশি অভিযান চালিয়েছিল কেন্দ্রীয় সংস্থা এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি)। সে দিন কয়েক দফা জিজ্ঞাসাবাদও করা হয়েছিল তাঁকে। এ বার সেই সুজয়কৃষ্ণ ভদ্র (Sujay Krishna Bhadra) ওরফে ‘কালীঘাটের কাকু’কে আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হল। ইডি সূত্রের খবর, আগামী মঙ্গলবার (৩০ মে) ইডির দফতরে তাঁকে ডেকে পাঠানো হয়েছে।

তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের দফতরের প্রাক্তন কর্মী সুজয়কৃষ্ণের পাশাপাশি গত শনিবার তৃণমূলের দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা পরিষদের সদস্য জ্ঞানানন্দ সামন্তের বিবিরবহাটের বাড়িতেও তল্লাশি চালিয়েছিল ইডি। তাঁকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তলব করা হয়েছে। সেই সঙ্গে রাহুল বেরা নামে এক সিভিক ভলান্টিয়ারকেও তলব করা হয়েছে বলে ইডি সূত্রের খবর। গত শনিবার বেহালার ফফিরপাড়া রোডে তল্লাশি অভিযানের সময় সুজয়ের মোবাইল ফোন বাজেয়াপ্ত করা হয়েছিল। ইডি সূত্রের খবর, সেই মোবাইল থেকে উদ্ধার হওয়া কিছু ‘তথ্য’ সম্পর্কে জিজ্ঞাসাবাদ করা হতে পারে তাঁকে।

9 months ago


Baisakh: শুভ পয়লায় চড়া রোদ উপেক্ষা করে দক্ষিণেশ্বর-বেলুড় মঠে মানুষের ঢল

আজ পয়লা বৈশাখ (Poila Baisakh)। নতুন বছরের আগমনে আনন্দ-উচ্ছ্বাসে মেতে উঠেছে বাংলা। নববর্ষ মানেই হালখাতা-মিষ্টিমুখ। তবে বছরের প্রথম দিনটা সবাই চায় দেব-দেবী প্রণাম করে শুরু করতে। স্বাভাবিকভাবেই রাজ্যের একাধিক ধর্মস্থানে মানুষে পৌঁছে গিয়েছেন পুজো দিতে। অন্যদিকে রাজ্যজুড়ে তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রির উপরে। তবে এই গরমকে উপেক্ষা করেই রাজ্যের বিভিন্ন ধর্মীয় স্থানে পুন্যার্থীদের ভিড় উপচে পড়ছে। গরমে হাঁসফাঁস অবস্থা, তবুও ভক্তদের ভক্তিতে নেই কোনও ভাটা। কলকাতার কালীঘাট, দক্ষিণেশ্বর, বেলুড়মঠ থেকে শুরু করে আশেপাশের জেলার বিভিন্ন মন্দিরগুলোতে মানুষের ঢল নজরকাড়া।


করোনা মহামারী পেরিয়ে পুরনো ছন্দে ফিরে এসেছে সাধারণ মানুষ। ফলে একাধিক ধর্মীয় স্থানে বাড়তে শুরু করে ভিড়। সকাল থেকে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে মন্দিরে পুজো দিতে এসেছেন বহু মানুষ। ভক্তদের কাউকে দেখা গিয়েছে হালখাতা নিয়ে মন্দিরে পুজো দিতে, কাউকে দেখা গিয়েছে নববর্ষ উপলক্ষে পুজো দিতে। তীব্র দাবদাহের মধ্যেই কলকাতার দক্ষিণেশ্বরে দেখা গিয়েছে মানুষের দীর্ঘ লাইন। সেই লাইন মন্দির চত্বর পেরিয়ে বালি ব্রিজ অবধি উঠে এসেছিল। রোদ উপেক্ষা করে ছাতা নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে মানুষকে। এমনই ভিড় দেখা গিয়েছে মহিষাদল রাজবাড়িতেও। সেখানে দর্শনার্থীদের বলতে শোনা গিয়েছে, তাঁরা নিজেদের মনস্কামনা পূরণ করতে ও বর্ষের প্রথম দিনে আশীর্বাদ নিতে সেখানকার কূলদেবতার পুজো দিচ্ছেন। আবার বেলুড়মঠ, বীরভূমের তারাপীঠ, কংকালীতলা এসব মন্দিরেও একই দৃশ্য দেখতে পাওয়া গিয়েছে। সাধারণ মানুষদের সঙ্গে কথা বলে জানা গিয়েছে, গরম পড়লেও তাঁরা নববর্ষের শুভদিনে কষ্ট করে হলেও পুজো দেবেন।


11 months ago
KALIGHAT: সিবিআই হাজিরা এড়ালেন 'কালীঘাটে'র কাকু, নথি-সহ গেলেন উকিল

হাজিরা এড়ালেন কালীঘাটের (Kalighat) কাকু, কিন্তু সিবিআইয়ের (Cbi) চেয়ে পাঠানো নথি আইনজীবী মারফত পাঠালেন নিজাম প্যালেসে (Nizam palace)। কয়েকদিন আগেই তাঁকে ডেকে পাঠানো হয়েছিল সিবিআইয়ের তরফে। আজ অর্থাৎ সোমবার তাঁকে সম্পত্তির নথি-সহ দেখা করতে বলা হয়েছিল বলেই সূত্রের খবর, কিন্তু সুজয় ভদ্র ওরফে কালীঘাটের কাকু, তিনি আজকে হাজিরা দিতে এলেন না। তার সমস্ত নথি তার আইনজীবী মারফত নিজাম প্যালেসের সিবিআই দফতর পাঠালেন। আইনজীবী নাজমুল আলম সরকার ১০টা বেজে ৩৩ মিনিটে নিজাম প্যালেসের সিবিআই দফতরে এলেন।

সূত্রের খবর, গোপাল দলপতি এবং তাপস মণ্ডলের মুখে উঠে আসে এই ‘কাকুর’ কথা। তিনি বেহালার সুজয় কৃষ্ণ ভদ্র। তিনিই সংবাদমাধ্যমের সামনে জানিয়েছিলেন তাঁর বসের নাম অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার ফের সিবিআই অফিসে যাওয়ার কথা প্রসঙ্গে তিনি সংবাদ মাধ্যমকে জানিয়েছেন, 'সিবিআই ডাকেনি। শুধুমাত্র নথি চেয়েছে। তাই প্রতিনিধি যাচ্ছেন তা জমা দিতে।' 


12 months ago
BJP:'টিএমসির কালীঘাট বৈঠক মানুষের কাছে অর্থহীন', খোঁচা বিজেপির, মন্তব্য বীরভুম নিয়েও

পঞ্চায়েত ভোটের আগে তৃণমূল কংগ্রেসের (TMC) সাংগঠনিক পর্যালোচনা বৈঠক কালীঘাটে (Kalighat Meet)। দলের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ডাকে হওয়া এই বৈঠকে একাধিক সাম্প্রতিক ইস্যু নিয়ে আলোচনা হয়েছে। সাংগঠনিক স্তরে একাধিক রদবদল ঘোষণা হয়েছে এই বৈঠকে। শাসক দলের এই উদ্যোগকে আবার কটাক্ষের সুরে বিঁধেছে বিজেপি (BJP)। দলের মুখপাত্র শমীক ভট্টাচার্য জানান, 'বাংলার বর্তমান সামাজিক অবস্থায় তৃণমূল কংগ্রেসের বৈঠক, তৃণমূল কংগ্রেসের পর্যবেক্ষক, মুখ্যমন্ত্রীর তিন দিন করে জেলা পরিদর্শন, এগুলো মানুষের কাছে কার্যত অর্থহীন।'

তাঁর খোঁচা, 'রাজ্যের পরিস্থিতি কী, আইনশৃঙ্খলা কোথায় দাঁড়িয়ে, সরকার পরিচালনা করতে গিয়ে তৃণমূল রাজ্যকে কোথায় নিয়ে গিয়েছে? এসব প্রশ্নের উত্তর মানুষ জানে। আর সেভাবে কারও উৎসাহ নেই। সেখানে আমরা অন্য দলের সংগঠন নিয়ে কেন ভাববো।'

শুক্রবার বীরভূমের সাংগঠনিক দায়িত্বে খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা। এদিন ঘোষণা করেছে শাসক দল। এই সাংগঠনিক রদবদলকেও খোঁচা দিয়েছে পদ্ম শিবির। বিজেপি নেতা শমীক ভট্টাচার্য বলেন, 'বীরভূমের প্রাকৃতিক সম্পদ লুট নিয়ে তৃণমূল তৃণমূলে গোষ্ঠী সংঘর্ষ, খুন। সব নেতা সেখানেই গিয়ে, তাঁদের কোনও কেরামতি চলেনি। অবশেষে মুখ্যমন্ত্রী দায়িত্ব নেওয়ার ঘোষণার পরেও, কেষ্টকে বীর ঘোষণা করে দেওয়ার পরেও, বীরভূম সফরের পরেও তৃণমূল নেতাদের এক ছাতার তলায় আনতে পারেননি। ভবিষ্যতেও পারবে না। কারণ ওখানে কোনও রাজনৈতিক দলের মতো তৃণমূল চলে না।'

12 months ago


Mamata: কালীঘাটে শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে মমতা, নজরে পঞ্চায়েত ভোট

শুক্রবার রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে এক বিশেষ বৈঠকে বসছেন। উপস্থিত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে দলের সমস্ত বিধায়ক, সংসদ সহ জেলার উচ্চ নেতৃত্বকে। উত্তর দিনাজপুরের করিম চৌধুরী ছাড়া বাকি সমস্ত নেতাই উপস্থিত থাকবেন বলে সমাচার। এখন প্রশ্ন হলো কী বিষয়ে এই জরুরি তলব।

অনেক বিষয়েই আলোচনা থাকতে পারে। কিন্তু মূল আলোচ্য বিষয় হতে পারে আসন্ন পঞ্চায়েত ভোট। গত পঞ্চায়েত ভোট তৃণমূলের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ ছিল বিরোধীদের। তাদের বক্তব্য ছিল বহু অঞ্চলে বিরোধীরা মনোনয়ন দিতে পারে নি। এ ছাড়া নির্বাচনে সন্ত্রাসের অভিযোগও ছিল বিস্তর। কার্যক্ষেত্রে দেখা গিয়েছিল তৃণমূল সিংহভাগ আসন দখল করা ছাড়াও সমস্ত জেলায় ক্ষমতায় এসেছিলো। অবশ্য এরপরই ছিল লোকসভা নির্বাচন, যেখানে উঠে আসা বিজেপি ১৮টি আসন দখল করেছিল। তৃণমূল ক্ষমতায় আসার পর এটাই ছিল তাদের নৈতিক পরাজয়। কিন্তু আবার ২০২১-এর বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল ভোট পেয়ে সঙ্গে ২১৩টি আসন নিয়ে ফের ক্ষমতায় আসে তারা।

এবারের পঞ্চায়েতের আগে স্ট্রাটেজি ঠিক করা দরকার বলেই মনে করেন তৃণমূলের প্রধানরা। সাম্প্রতিক শিক্ষা ক্ষেত্রে অনৈতিক বাতাবরণে সংকট সৃষ্টি হয়েছে দলের। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে জেলে গিয়েছেন প্রাক্তন মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় সহ বহু নেতা। রাজ্যে সক্রিয় সিবিআই, ইডি ইত্যাদি কেন্দ্রীয় এজেন্সি এতেও বদনাম হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের। এ ছাড়া মূল যে বিষয়টি মমতাকে ভাবাছে তা সম্প্রতি হয়ে যাওয়া সাগরদিঘির নির্বাচনে তৃণমূলের পরাজয়। সংখ্যালঘু অঞ্চলে তৃণমূলের দিক থেকে সংখ্যালঘু ভোট সরে যাওয়াতে চিন্তিত মমতা।

আজকের আলোচনায় উঠে আসবে এই বিষয়গুলি বলেই ধারণা। অনেকেই ভাবছেন হয়তো বিভিন্ন জেলা নেতৃত্বে বদল আসতে পারে কিন্তু আমাদের ধারণা ভোটের এক মাস এ রকম কোনও কঠিন সিদ্ধান্ত নাও নিতে পারেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বরং তিনি হয়তো বিশেষ দায়িত্ব দিতে পারেন কাউকে কাউকে। তবে মনে হয় ফের মমতা নিজেই নিজের হাতে মূল দায়িত্ব রাখবেন এবং তিনিই হবেন মূল চালিকা শক্তি।

12 months ago
TMC: দুর্নীতির বিরুদ্ধে টিএমসির জিরো টলারেন্স! শুক্রবার ডাকা মমতার বৈঠকে আর কী

শুক্রবার কালীঘাটে (Kalighat Meeting) দলের একাধিক শীর্ষ নেতা ও সাংগঠনিক নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠকে বসছেন তৃণমূল কংগ্রেসের (TMC) সভানেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পঞ্চায়েত নির্বাচনের আবহের মধ্যেই এই বৈঠক রাজনৈতিক মহলের কাছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশেষ করে সাগরদিঘী উপনির্বাচনে পরাজয়-সহ দুর্নীতি-কাণ্ডে দলের একাধিক নেতার নাম জড়ানো। রাজ্য রাজনীতির সঙ্গে জুড়ে থাকা এই ইস্যুতে আলোচনার পাশাপাশি ২০২৪ লোকসভা ভোটের আগে জাতীয় রাজনীতির প্রেক্ষাপটে বিজেপি বিরোধিতায় তৃণমূলের ভূমিকা স্থির করে দিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) নেতৃত্বে এই বৈঠক।

সম্ভাব্য কীকী বিষয় উঠে আসতে পারে বৈঠকে?

১) সাগরদিঘী উপনির্বাচনের হার পর্যালোচনা শুরু হয়েছে। তার প্রেক্ষিতে অতিরিক্ত আত্মবিশ্বাস দলের ক্ষতি করছে বলেই মনে করা হচ্ছে। তাই লাগাতার মানুষের কাছে পরিষেবা ও রাজনৈতিকভাবে তৃণমূল কংগ্রেস দল রয়েছে তা বোঝানোর কথা বলা হবে।

২) সংখ্যালঘু এলাকায় ভোটের ফল খারাপ হওয়া নিয়ে রাজনৈতিক মহলে জোর চর্চা। এটা দেখার জন্য ইতিমধ্যেই একাধিক দলের সংখ্যালঘু মুখকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আগামীকাল পঞ্চায়েতের কাজেও একাধিক সংখ্যালঘু নেতাকে সামনের সারিতে দেখা যেতে পারে।

৩) পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে কড়া হচ্ছে দল। প্রার্থী বাছাইয়ে দলের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত তা জানিয়ে দেওয়া হবে আরও একবার। পুরনো কারা ভোটে লড়ার সুযোগ পাবেন সেক্ষেত্রে মাপকাঠি হবে তাদের পারফরম্যান্স। গত ভোটে ও ওই পঞ্চায়েতের কাজে।

৪) পঞ্চায়েত ভোটে দল কোনও অশান্তি মেনে নেবে না৷ অতীত থেকে শিক্ষা নিয়ে প্রশাসন যে এবার কঠোর ভূমিকা পালন করবে তা আরও একবার মনে করিয়ে দেওয়া হবে।

৫) দুর্নীতি প্রশ্নে দলের অবস্থান জিরো টলারেন্স। যে বা যারা এই কাজে যুক্ত থাকবেন দল তাঁদের পাশে থাকবে না। 

৬) দিদির সুরক্ষা কবচ কর্মসূচি থেকে মানুষের চাহিদা কী তা জেনেছে দল। একইসঙ্গে কোথায় কোথায় সমস্যা তাও জেনেছে দল। এই অবস্থায় সেই কাজ শেষ করতে এখন থেকেই ঝাঁপাবে দল। দলের কেউ তাতে বাধা দিলে কড়া শাস্তির নিদান। 

৭) এছাড়া একাধিক প্রচারমূলক কর্মসূচির বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে।

৮) জাতীয় রাজনীতির প্রেক্ষাপটে বিজেপি বিরোধিতায় সরব হবে তৃণমূল। তবে সংসদের ভিতরে ও বাইরে সাধারণ মানুষের অসুবিধাকে তুলে ধরতে চায় শাসক দল। 

৯) কংগ্রেস নিয়ে ছুৎমার্গ না থাকলেও, সাগরদিঘির 'অশুভ' জোটকে প্রচারে রাখতে চায় বাংলার শাসক দল। সেক্ষেত্রে নিজ নিজ শক্তিশালী জায়গায় ফর্মূলায় জোর।

১০) গোয়া, ত্রিপুরা, মেঘালয়ের মতো রাজ্যে ভালো ফল না হলেও সংগঠনের কাজ থেকে পিছিয়ে আসবে না তৃণমূল কংগ্রেস।

সর্বোপরি পঞ্চায়েত ভোটকে অ্যাসিড টেস্ট ধরে নিয়ে লাগাতার মানুষের সমস্যাকে ইস্যু করে রাস্তায় নামার প্রস্তুতি নেওয়া হতে পারে এই বৈঠক থেকে।, এমনটাই ঘাসফুল সূত্রে খবর।

12 months ago


Summon: সিবিআই হাজিরা 'কালীঘাটের কাকু'র! দাবি, 'যুক্ত থাকলে গ্রেফতার হতাম'

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সমন আর বুধের বেলায় নিজাম প্যালেসে হাজির সুজয় ভদ্র। এই সুজয় ভদ্র নিয়োগ দুর্নীতি-কাণ্ডে (education Scam) অন্যতম চর্চিত চরিত্র 'কালীঘাটের কাকু' (Kalighat Kaku)। তাঁর নাম উঠে আসে গ্রেফতার হওয়া তাপস মণ্ডল এবং কেন্দ্রীয় সংস্থার র‍্যাডারে থাকা গোপাল দলপতির মন্তব্যে। এবার সেই কালীঘাটের কাকুকে সিবিআই (CBI) তিন ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে। বুধবার বেলা ১১টা নাগাদ দুই আইনজীবীকে নিয়ে নিজাম প্যালেসে আসেন সুজয় ভদ্র। ভিতরে ঢোকার আগে সংবাদমাধ্যমকে সুজয়বাবু জানান, 'কাল (পড়ুন মঙ্গলবার) সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা নাগাদ বাড়িতে ছোট একটা কাগজে লিখে নোটিস পাঠায় সিবিআই। তাতে কী লেখা আমি বুঝিনি। স্ত্রীয়ের শরীর খারাপের মধ্যেই আজ চলে এসেছি। নয়তো বলবে তদন্তে অসহযোগিতা করছি।'

এরপর নিয়োগ-কাণ্ডে সুজয় ভদ্রের ভূমিকা খতিয়ে দেখতে তাঁকে ৩ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে জিজ্ঞাসাবাদ করে সিবিআই। বেলা দুটোর পর বেড়িয়ে কালীঘাটের কাকু ওরফে সুজয় ভদ্র জানান, 'আমার থেকে কোনও নথি চায়নি, দ্বিতীয়বার আমাকে ডাকেনি। যদি নিয়োগ-কাণ্ডে যুক্ত হতাম তাহলে গ্রেফতার হতাম। আমি টাকা নিয়েছি কিনা তদন্তকারীদের বলেছি, সংবাদমাধ্যমকে আর কিছু বলবো না। তদন্ত চলছে, তদন্তকারীদের থেকে জানুন। রাজনৈতিক যোগে কুন্তল-তাপসকে চিনি।' এদিন সংবাদমাধ্যম তাঁকে একঝাঁক প্রশ্ন ছুড়ে দিলে কার্যত মেজাজ হারান সুজয় ভদ্র। তাঁর জবাব, 'আপনারা দয়া করে তদন্তকারীদের ভূমিকা নেবেন না।' সমন প্রসঙ্গে তিনি জানান, 'আমার স্ত্রীয়ের হাত পুড়ে যাওয়ায় সমনে সই করতে পারেননি। তাই কাগজে লিখে দিয়ে গিয়েছিল।'

এদিকে, নিয়োগ দুর্নীতি-কাণ্ডে চলতি সপ্তাহের মধ্যেই কুন্তল ঘোষের স্ত্রী জয়শ্রী ঘোষকে তলব করেছিল ইডি। কিন্তু বুধবারই ইডি দফতরে এসে পৌঁছন জয়শ্রী দেবী। জানা গিয়েছে, লিখিতভাবে কুন্তলের স্ত্রীয়ের বয়ান রেকর্ড করা হচ্ছে। চলছে ভিডিওগ্রাফিও। ব্যাঙ্কের যাবতীয় নথি-সহ তাঁকে ডেকে পাঠানো হয়। জয়শ্রী দেবীর সঙ্গে কুন্তলের জয়েন্ট অ্যাকাউন্টের হদিশ পেয়েছে কেন্দ্রীয় সংস্থা। নিয়োগ-কাণ্ডে আদৌ কুন্তলের স্ত্রী কিছু জানেন কিনা খতিয়ে দেখবে ইডি। এমনকি, জয়েন্ট অ্যাকাউন্টে গচ্ছিত অর্থের সূত্র জানতেও জয়শ্রী দেবীকে জিজ্ঞাসাবাদ করছে কেন্দ্রীয় সংস্থা বলেই সূত্রের খবর। তবে বুধবার সকালে ইডি দফতরে ঢোকার মুখে সংবাদ মাধ্যমের প্রশ্ন এড়িয়ে যান কুন্তলের স্ত্রী।


অপরদিকে, বুধবার দিল্লির ইডি দফতরে অনুব্রত কন্যা সুকন্যা মণ্ডলের হাজিরার কথা ছিল। কিন্তু 'শারীরিক অসুস্থতার' কারণে এদিন সেই হাজিরা এড়ান সুকন্যা মণ্ডল। কারণ জানিয়ে কেন্দ্রীয় সংস্থাকে মেইল করেছেন অনুব্রত-কন্যা বলে সূত্রের খবর। জানা গিয়েছে, শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে সময় চেয়ে ইডিকে চিঠি দেন সুকন্যা।

12 months ago
Primary: নিয়োগের দাবিতে উচ্চ প্রাথমিক চাকরিপ্রার্থীদের বিক্ষোভের আঁচ পৌঁছল কালীঘাটে

নিয়োগের দাবিতে চাকরিপ্রার্থীদের (Job Aspirants) বিক্ষোভে রাজপথে হুলুস্থুলু যেন এখন দৈনন্দিন হয়ে গিয়েছে। এবার বঞ্চিত আপার প্রাইমারি চাকরিপ্রার্থীদের বিক্ষোভের আঁচ এসে পৌঁছয় মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনের (CM Residence) ঢিল ছোঁড়া দূরত্বে। এবার চাকরিপ্রার্থী-পুলিস ধস্তাধস্তিতে রণক্ষেত্র কালীঘাট (Kalighat) চত্বর। বুধবার দুপুরে মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনের অদূরে বিক্ষোভ শুরু করেন উচ্চ প্রাথমিকের চাকরিপ্রার্থীরা। তাদের অভিযোগ, '২০১৫ সালে পরীক্ষা দিয়েও ইন্টারভিউয়ের জন্য ডাক পাননি তাঁরা।' দ্রুত নিয়োগপ্রক্রিয়া শুরুর দাবিতে বিক্ষোভ শুরু। সেখানেও পুলিস (Kolkata Police) গিয়ে তাঁদের সেখান থেকে সরিয়ে দেয়। এদিনও যেন খানিকটা রবীন্দ্র সদন এক্সাইড মোড় এবং ক্যামাক স্ট্রিটের ঘটনার প্রতিফলন। বুধবারও টেনে-হিঁচড়ে চাকরিপ্রার্থীদের ভ্যানে তোলার অভিযোগ উঠেছে। এমনকি রাস্তার ধারে থাকা ফাঁকা বাসে তুলে তাদের আটক করা হয়েছে বলে অভিযোগ।

জানা গিয়েছে, মুখ্যমন্ত্রীর বাসভবনের অদূরে ওই বিক্ষোভ পরিকল্পিতই। বুধবার সকাল থেকে কালীঘাট মেট্রো স্টেশনের ১ নম্বর গেটের বাইরে জমায়েত শুরু করেন বিক্ষোভকারীরা। কিন্তু সেখানে পুলিস থাকায় স্টেশনের অন্য গেট দিয়ে বেরিয়ে কালীঘাট মন্দিরের কাছে পৌঁছে যান তাঁরা। তারপর নিয়োগের দাবিতে হাতে প্ল্যাকার্ড নিয়ে রাস্তাতেই বসে পড়েন। পুলিসের সঙ্গে ধস্তাধস্তিতে অসুস্থ হয়ে পড়েন অনেক চাকরিপ্রার্থী। পূর্ণ সিনেমা হলের সামনে বসে পড়ে বিক্ষোভ দেখান তাঁরা। ধর্মতলায় যেভাবে তাঁরা শান্তিপূর্ণ অবস্থান করছেন, একইভাবে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে গিয়ে দাবি জানাতে চান। মাতঙ্গিনীর পাদদেশ থেকে আজ কালীঘাট পর্যন্ত এসেছি। এরপরেও চাকরির নিয়োগ না পেলে আগুন জ্বলবে। ২০১১ থেকে এখনও পর্যন্ত আপার প্রাইমারিতে কনো নিয়োগ হয়নি। এই অভিযোগ তোলেন অনেক চাকরিপ্রার্থী।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গিয়েছে, শুধু কালীঘাট নয়, মেট্রো স্টেশন থেকে বিক্ষোভকারীরা বিভিন্ন দলে ভাগ হয়ে পড়েন। এক যায় হাজরা মোড়ের দিকে। অন্য একটি দল যায় ভবানীপুর থানার দিকে। কিন্তু সব জায়গা থেকেই পুলিস তাঁদের বলপূর্বক সরিয়ে দেয়। চাকরিপ্রার্থীদের অভিযোগ, সাদা খাতা জমা দিয়েও অনেকে চাকরি পেয়েছেন। কিন্তু তাঁরা এত বছর আগে পরীক্ষা দিয়েও চাকরি পাননি!

বিক্ষুব্ধ চাকরিপ্রার্থীদের প্রশ্ন, 'কোন অধিকারে তাঁদের আট বছর নষ্ট করা হয়েছে? কেনই বা তাঁদের তাড়াতাড়ি চাকরি দেওয়ার ব্যবস্থা হচ্ছে না? আট বছর ফিরিয়ে দিতে হবে, চাকরি দিতেই হবে। বিক্ষোভকারীদের রাস্তা থেকে সরাতে ঘটনাস্থলে পুলিস পৌঁছয়। এক চাকরিপ্রার্থী জানান, তাঁদের আটক করে টেনে-হিঁচড়ে প্রিজ়ন ভ্যানে উঠিয়েছে পুলিস।

one year ago
Folk: কালীঘাট পট কিনেছিলেন বিশ্বখ্যাত চিত্রশিল্পী পিকাসো, জানুন বাংলার পট শিল্পের ইতিহাস

সৌমেন সুর: লোকশিল্পের একটি অতি প্রাচীন মাধ্যম পট। অভিধানে পট শব্দের অর্থ চিত্র। বৌদ্ধ ভিক্ষুরা বুদ্ধদেবের জীবনী ও পূর্বজন্ম সংক্রান্ত জাতকের গল্প নিয়ে তৈরি করা পট প্রদর্শন করতেন। কখনও কাপড়ের উপর কাদা মাটি কখনও বা গোবর মিশ্রিত প্রলেপের সঙ্গে আঠা মিশিয়ে জমিন তৈরি করে পট আঁকা হতো। ওই পট নিয়ে শিল্পী নিজের সঙ্গীত পরিবেশন করতেন। ষোড়শ শতকে চৈতন্য দেবের বাণী প্রচারের জন্যও পট ব্যবহার হতো। ওই শতকের কবি মুকুন্দরামের কাব্যে পটের উল্লেখ আছে।

কয়েকটি প্যানেলে ক্যানভাসকে ব্যবহার করে পটুয়ারা কোনও কাহিনী ফুটিয়ে তুলতেন।  কাহিনীগুলো বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই পৌরাণিক অথবা লোকগাঁথা ভিত্তিক। আমাদের দেশে মূলত বেদে সম্প্রদায়ের লোকেরা গ্রামে গ্রামে ঘুরে গানের সুরে এসব পট কাহিনী বর্ণনা করতেন। এসব গানই পটের গান হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে। বিভিন্ন সামাজিক বা ধর্মীয় অনুষ্ঠানে বাংলার মানুষের কাছে বিনোদনের অন্যতম উপাদান ছিল এই পটের গান।

উনিশ শতকে বাংলায় প্রসিদ্ধি পেলো কালীঘাট পট। প্রাচ্য এবং পাশ্চাত্যের চিত্রশৈলী মিশিয়ে এই পট তৈরি হতো এবং এতে প্রধানত হিন্দু দেবদেবীর ছবি চিত্রিত হতো। সে সময়ে এই পট শিল্প অত্যন্ত জনপ্রিয়তা পেয়েছিল। এক আনা মূল্যের বিনিময়ে মানুষ এই পট কেনার জন্য ভিড় জমাতো। প্যারিসেও কালীঘাট পট বিক্রি হয়েছিল, স্বয়ং পিকাসো এই পট কিনেছিলেন। এই চিত্রশৈলীর প্রভাবও তাঁর কর্মধারায় লক্ষ্য করা যায়। নিঃসন্দেহে কালীঘাট পটচিত্র দেশে এবং বিদেশে সমাদর পেয়েছিল, একথা বলাই বাহুল্য।

one year ago


Court: রূপান্তরকামীদের পুজো অনুদান পায়নি, মমতার বাড়ির সামনে ধর্নায় বসতে গিয়ে আটক বহু

রাজ্যের প্রায় ৪১ হাজার দুর্গাপুজো (Durga Puja) কমিটি রাজ্য সরকারের থেকে অনুদান (Puja Donation) পেয়েছে। কিন্তু ব্রাত্য রূপান্তরকামীদের (Transgender Puja) দুর্গাপুজো। তাই বঞ্চনার অভিযোগ তুলে মুখ্যমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণে গিয়ে আটক রূপান্তরকামী সংগঠনের একাধিক সদস্য। কালীঘাট থানা (kalighat PS) তাঁদের আটক করলেও কিছুক্ষণ পর ছেড়ে দিয়েছে। কিন্তু থানার বিরুদ্ধে হেনস্থার অভিযোগ তুলেছেন রূপান্তরকামীরা। চুলের মুঠি ধরে তাঁদের অনেককে মারা হয়েছে। এই অভিযোগে সরব রূপান্তরকামীরা। কিন্তু এই অভিযোগের পাল্টা কোনও প্রতিক্রিয়া দেয়নি লালবাজার।\

জানা গিয়েছে, এই দুর্গাপুজো গত বছর রাজ্য সরকারের তরফ থেকে অনুদান পেয়েছিল। এবার কেন পেলেন না? সেই বঞ্চনার অভিযোগ জানাতে মুখ্যমন্ত্রীর বাড়ির সামনে বিক্ষোভ শুরুর আগেই রূপান্তরকামীদের আটক করে পুলিস। জানা গিয়েছে, বহু বছর ধরে দক্ষিণ কলকাতায় দুর্গা পুজো আয়োজন করছে রূপান্তরকামীদের একটি সংগঠন। কিন্তু ২০২১-র পুজোয় সরকারি অনুদানের তালিকায় তাঁদের সংগঠনের নাম ছিল। কিন্তু এবার বঞ্চিত তাঁরা।

এদিকে, এই পুজোয় যারা সরকারি অনুদান পেয়েছে, তাদের শুক্রবারের মধ্যে অডিট রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ। মূলত ৬০ হাজার টাকা কোন খাতে, কীভাবে খরচ হয়েছে? সেই হিসেব চেয়ে পাঠানো হয়েছে।

one year ago
Tapsee Pannu: ছবি প্রচারে কলকাতায় এসে কালীঘাটে পুজো তাপসী পান্নুর

দোবারা ছবির প্রচারে কলকাতায় অভিনেত্রী তাপসী পান্নু (Actress Tapsee Pannu)। শুক্রবার কালীঘাট মন্দিরে (Kalighat Temple) গিয়ে পুজো দিয়েছেন তিনি। তাঁর 'শাবাশ মিতু' ছবি ওটিটি প্ল্যাটফর্মে মুক্তি পেয়েছে। মিশ্র প্রতিক্রিয়া দর্শকমহলে। এদিকে, এই মুহূর্তে বয়কট ঝড়ে বেজায় বিপাকে সদ্যমুক্তি প্রাপ্ত লাল সিং চাড্ডা এবং রক্ষাবন্ধন। এই বয়কট ট্রেন্ডেরও বিরোধিতায় সরব বরাবরের ঠোঁটকাটা তাপসী। একইভাবে কলকাতায় (Kolkata Visit) এসেও ছবির কনটেন্ট প্রসঙ্গে সরব হলেন এই অভিনেত্রী।

বিনোদন বা এন্টারটেইনমেন্ট প্রসঙ্গে তাপসী পান্নু এবং বিদ্যা বালনের অবস্থান এক। এদিন সংবাদ মাধ্যমের করা প্রশ্নের জবাব শুনে তেমনটাই বলছেন সিনে সমালোচকরা। তাপসী বলেন, 'আমি তো স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা খুলিনি। আমরা তো ছবি বানিয়েছি, মানুষকে বিনোদন দেওয়ার জন্য। প্রতি ছবিতেই সমাজের উদ্দেশ্যে কোনও না কোনও বার্তা দিতেই হবে, তা জরুরি নয়। তবে হ্যাঁ এই ছবি দেখতে হলে মাথা খাটাতে হবে৷'

সম্প্রতি নিজেকে 'প্রাউড আউট সাইডার্স' তকমা দিয়েছেন পান্নু। বলিউডি কোনও পার্টি কিংবা জনপ্রিয় চ্যাট শোয়ে দেখা যায় না এই অভিনেত্রীকে। এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, 'কফি উইথ করণে তিনি ডাক পান না। কারণ তিনি করণ জোহর ঘনিষ্ঠ নয়।' এমনকি স্বেচ্ছায় বলিউডি পার্টি থেকে নিজেকে দূরে রাখেন তাপসী। যেহেতু তিনি বলিউডে 'বহিরাগত', সেই অভিনেত্রীর ভালোই উপভোগ করেন তিনি। কলকাতায় ছবির প্রচারে এভাবেও অকপট জবাব দিয়েছেন তাপসী।

2 years ago