Breaking News
Modi: 'রামমোহনের আত্মা সন্দেশখালির মহিলাদের দুর্দশায় কাঁদছে', আরামবাগ থেকে মমতাকে তোপ মোদীর      Suspend: গ্রেফতারির পরেই তৃণমূল থেকে ছয় বছরের জন্য সাসপেন্ড সন্দেশখালির 'বেতাজ বাদশা' শাহজাহান      Sandeshkhali: নিরাপদ সর্দারকে নিঃশর্তে জামিন দিয়ে রাজ্য পুলিসকে তিরস্কার বিচারপতির      Sheikh Shahjahan: ঘর ভাঙচুর, টাকা লুঠ! শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে নতুন এফআইআর সন্দেশখালি থানায়      Sandeshkhali: অজিত মাইতিকে তাড়া গ্রামবাসীদের, সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর অবশেষে আটক পুলিসের      Ajit Maity: উত্তপ্ত সন্দেশখালি! অজিত মাইতির গ্রেফতারির দাবিতে বিক্ষোভ মহিলাদের, বাঁচতে সিভিকের বাড়িতে আশ্রয়      Sandeshkhali: সন্দেশখালি ঢুকতে বাধা, ভোজেরহাটেই দিল্লির ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিমকে আটকাল পুলিস      Sandeshkhali: একই যাত্রায় পৃথক ফল! ১৪৪ যুক্ত এলাকায় নির্বিঘ্নে ঘুরছেন পার্থ-সুজিত, বাধাপ্রাপ্ত মীনাক্ষী      Sandeshkhali: ভোটের আগে উত্তপ্ত সন্দেশখালি, বিশেষ নজর নির্বাচন কমিশনের      Sukanta Majumdar: সন্দেশখালি থানার সামনে অবস্থান, 'গ্রেফতার' সুকান্ত মজুমদার...     

ISTerrorist

Terrorist: কলকাতা পুলিসের এসটিএফ-র জালে আরও এক আইএস জঙ্গি, মধ্যপ্রদেশে ধৃত আব্দুল

আইএস জঙ্গি (IS Terrorist) কাণ্ডে ফের কলকাতা পুলিসের এসটিএফ-এর (Kolkata Police STF) জলে আরও এক সন্দেহভাজন গ্রেফতার। সন্দেহভাজন ওই ব্যক্তির নাম আব্দুল রাকিব কুরেশি। সোমবার সন্ধ্যায় মধ্যপ্রদেশের (Madhya Pradesh) খান্ডোয়া থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে ওই ব্যক্তিকে। ধৃতকে ট্রানজিট রিমান্ডে কলকাতায় আনার কাজ শুরু হয়েছে। ধৃতর কাছ থেকে উদ্ধার হয়েছে একটি মোবাইল ফোন, একটি পেনড্রাইভ এবং অন্যান্য অপরাধমূলক প্রবন্ধ। সম্প্রতি হাওড়া থেকে ধৃত দুই সন্দেহভাজন জঙ্গিকে জেরা করেই আব্দুলের খোঁজ পেয়েছে কলকাতা পুলিসের এসটিএফ। 

জানা গিয়েছে, কিছুদিন আগে সৈয়দ এবং সাদ্দাম নামে দুই আইএস জঙ্গিকে গ্রেফতার করেছিল কলকাতা পুলিসের এসটিএফ। সোমবার ফের এক সন্দেহভাজন ব্যক্তিকে মধ্যপ্রদেশের খান্ডোয়া থেকে গ্রেফতার করেছে কলকাতা পুলিসের এসটিএফ।

পুলিস সূত্রে খবর, সৈয়দ এবং সাদ্দামের সঙ্গে এই আব্দুল রাকিব কুরেশির একটা প্রত্য়ক্ষ যোগাযোগ ছিল। এমনকি তদন্তে সৈয়দ এবং সাদ্দামকে জিজ্ঞাসাবাদ করেই ধৃতর খোঁজে ভিনরাজ্য়ে গিয়েছিল এসটিএফ। যার ফলে মধ্যপ্রদেশ থেকে ধৃতকে গ্রেফতার করা সম্ভব হয়েছে। 

এমনকি তদন্তে পুলিস আধিকারিকরা জানতে পারেন, এই সৈয়দ এবং সাদ্দামের কাজ ছিল মডিউল তৈরি করা। তারা বেশকিছু ভুয়ো কোম্পানি তৈরি করেছিল এবং যথারীতিভাবে তাতে লোকজন নিয়োগ করত। এমনকি পুলিসের সন্দেহ এড়াতে কাজের নাম করে তাদের বাইরে পাঠানো হত, যাতে তদন্তকারী পুলিস আধিকারিকরা বুঝতে না পারে যে বাইরে পাঠনোর নাম করে তাদের আইএস জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছে। এদিকে মঙ্গলবার আব্দুল রাকিব কুরেশিকে কোর্টে পেশ করা হবে। এমনকি পরে এই সৈয়দ এবং সাদ্দামের সঙ্গে এই আব্দুল রাকিব কুরেশীকে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।

কী ধরনের নাশকতার ছক কষছিলেন এই তিন সন্দেহভাজন জঙ্গি, সেটা জানতেই মুখোমুখি জেরা করবে এসটিএফ।

one year ago