Breaking News
Abhishek Banerjee: বিজেপি নেত্রীকে নিয়ে ‘আপত্তিকর’ মন্তব্যের অভিযোগ, প্রশাসনিক পদক্ষেপের দাবি জাতীয় মহিলা কমিশনের      Convocation: যাদবপুরের পর এবার রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়, সমাবর্তনে স্থগিতাদেশ রাজভবনের      Sandeshkhali: স্ত্রীকে কাঁদতে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়লেন 'সন্দেশখালির বাঘ'...      High Court: নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় প্রায় ২৬ হাজার চাকরি বাতিল, সুদ সহ বেতন ফেরতের নির্দেশ হাইকোর্টের      Sandeshkhali: সন্দেশখালিতে জমি দখল তদন্তে সক্রিয় সিবিআই, বয়ান রেকর্ড অভিযোগকারীদের      CBI: শাহজাহান বাহিনীর বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ! তদন্তে সিবিআই      Vote: জীবিত অথচ ভোটার তালিকায় মৃত! ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত ধূপগুড়ির ১২ জন ভোটার      ED: মিলে গেল কালীঘাটের কাকুর কণ্ঠস্বর, শ্রীঘই হাইকোর্টে রিপোর্ট পেশ ইডির      Ram Navami: রামনবমীর আনন্দে মেতেছে অযোধ্যা, রামলালার কপালে প্রথম সূর্যতিলক      Train: দমদমে ২১ দিনের ট্রাফিক ব্লক, বাতিল একগুচ্ছ ট্রেন, প্রভাবিত কোন কোন রুট?     

Hardik

Hardik: হার্দিককে ১৫ কোটির প্রস্তাব! তবে কি গুজরাত ছেড়ে মুম্বইয়ে হার্দিক!

চ্যাম্পিয়ন ক্যাপ্টেন হার্দিক পান্ডিয়াকে কী ছেড়ে দিচ্ছে গুজরাত ? একটি ক্রিকেট পোর্টালে খবর গুঞ্জন। ডিসেম্বর মাসে ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগের মিনি অকশন হতে চলেছে। তার আগে, ওই ক্রিকেট পোর্টালের খবর, গুজরাত ছেড়ে ফের নাকি মুম্বইয়ে ফিরতে চলেছেন হার্দিক। ভারতীয় এই ক্রিকেটারকে বিশাল টাকা অফার করছে মুম্বই।

ওই ক্রিকেট পোর্টালের খবর, হার্দিকের কাছে ইতিমধ্যেই নাকি ১৫ কোটি টাকার প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে তাঁর বেতন-সহ বাকি সুবিধা। ওই ক্রিকেট পোর্টালের খবরকে এখনও পর্যন্ত অস্বীকার করেনি গুজরাত।

উল্লেখ্য পায়ের চোটের কারণে, ঘরের মাঠে বিশ্বকাপের মাঝপথেই ছিটকে গিয়েছিলেন হার্দিক। তিনি ধীরে ধীরে সুস্থ হচ্ছে। কারণ, ডিসেম্বরের গোড়াতেই দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে ভারত। টিম ইন্ডিয়াকে নেতৃত্ব দেবেন হার্দিক।

7 months ago
Hardik: 'এবার কাপটা দেশে রাখার সময় হয়েছে, জয় হিন্দ,' ফাইনালের আগে মর্মস্পর্শী বার্তা হার্দিকের

বিশ্বকাপে তিনিই ছিলেন ক্যাপ্টেন রোহিত শর্মার ডেপুটি। তাঁকে ঘিরে অনেক স্বপ্ন দেখেছিলেন কোটি কোটি অনুরাগী৷ কিন্তু বিধি বাম হার্দিক পান্ডিয়ার। বাংলাদেশ ম্যাচে চোট পেয়ে বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গিয়েছেন তিনি৷ কিন্তু তাতে কী! মনেপ্রাণে দলের সঙ্গেই আছেন হার্দিক। জাতীয় দলের জার্সি গায়ে ফাইনালের আগে তিনি মর্মস্পর্শী বার্তা দিলেন টিমমেটদের।

ভিডিও বার্তায় হার্দিক বলেছেন, "এই দলকে নিয়ে আমি খুব গর্বিত। এখনও পর্যন্ত আমরা যা খেলেছি তা আমাদের বহুদিনের কঠিন পরিশ্রমের ফসল। বিশ্বকাপ জেতা থেকে মাত্র এক কদম দূরে আমরা। ছোটবেলা থেকে এই স্বপ্নই আমরা দেখেছি। দেশের ১৪০ কোটি মানুষ এই স্বপ্ন দেখছেন। তাঁরা সবাই আমাদের পাশে রয়েছেন।"

হার্দিক জানিয়েছেন, তিনি সব সময় দলের সঙ্গে আছেন। মানসিকভাবে সারাক্ষণ পাশে আছেন সতীর্থদের। টিমমেটদের প্রতি তাঁর বার্তা, "রবিবার নিজেদের সেরাটা দাও। তা হলেই আমরা সফল হব। এ বার সময় হয়েছে কাপটা দেশে রাখার। জয় হিন্দ।"

7 months ago
Hardik: ইডেনে নামার আগে বড় ধাক্কা, বিশ্বকাপ থেকে পুরোপুরি ছিটকে গেলেন হার্দিক

বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে গেলেন হার্দিক পান্ডিয়া। পুনেতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচে গোড়ালিতে চোট পান। তখনই মাঠ ছাড়তে হয় তাঁকে। সেমিফাইনালের আগে টিমে ফেরার কোনও সম্ভাবনা ছিল না তাঁর। জানা গিয়েছে, তাঁর চোট বিশ্বকাপের মধ্যে ঠিক হবে না। তাই পরিবর্ত ক্রিকেটারের আবেদন করে বিসিসিআই। আইসিসি জানিয়েছে, হার্দিকের পরিবর্তে ভারতীয় দলে যোগ দেবেন প্রাসিদ কৃষ্ণা।

বিশ্বকাপের আগে অস্ট্রেলিয়া সিরিজে শেষবার মাঠে নেমেছিলেন প্রাসিদ কৃষ্ণা। বিশ্বকাপে টানা ৭টি ম্যাচ জয়ের নেপথ্যে ভারতের বোলিং আক্রমণ যে কোনও দলের ঈর্ষার কারণ। মহম্মদ শামি, জসপ্রীত বুমরা ও মহম্মদ সিরাজের পেস আক্রমণে ভেঙে পড়ছে বিপক্ষের ব্যাটিং লাইন আপ। প্রাসিদ কৃষ্ণা এলে সেই শক্তি আরও বাড়বে টিমের।  

8 months ago


Hardik: চোট সরিয়ে কি বিশ্বকাপে ফিরবে হার্দিক! জানালেন অধিনায়ক রোহিত

বৃহস্পতিবার শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে ম্যাচ। কিন্তু, এবারও দলে ফেরা সম্ভব হল না হার্দিক পাণ্ডিয়ার। ৫ নভেম্বর দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধেও তিনি অনিশ্চিত। আদৌ কি বিশ্বকাপের একটি ম্যাচেও আর দেখা যাবে হার্দিককে ? বৃহস্পতিবার ম্যাচের আগে হার্দিককে নিয়ে বড় আপডেট দিলেন রোহিত শর্মা।

কী জানালেন ভারতীয় অধিনায়ক ? রোহিত জানিয়েছেন, হার্দিক ধীরে ধীরে সুস্থ হচ্ছেন। খুব তাড়াতাড়ি উন্নতি করছেন। খুব শীঘ্রই তাঁকে আবার মাঠে দেখা যাবে। তবে, কবে, সেই বিষয়ে এখনও নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারেননি হিটম্যান।

রোহিতের কথায়, "হার্দিকের উন্নতি হচ্ছে ভালই। এটাকে ঠিক রিহ্যাব বলা চলে না। তবে যে পরিস্থিতির মধ্যে দিয়ে হার্দিক যাচ্ছে,যে ভাবে উন্নতি করছে তাতে আমরা খুশি। কিন্তু এটা এমন ধরনের চোট যেখানে আমাদের প্রতি দিন নজর রাখতে হবে। হার্দিক কতটা সুস্থ, কত শতাংশ ফিট হয়েছে সেটা নজর করতে হবে। তবে এটা বলতে পারি, হার্দিকের উন্নতি যে ভাবে এগোচ্ছে তাতে খুব শিগগিরই আমরা ওকে মাঠে দেখতে পাব।'

হার্দিক পান্ডিয়ার অনুপস্থিতিতে প্রয়োজনে তিন স্পিনার এবং দুই ফাস্ট বোলারকেও খেলাতে পারে ভারতীয় দল। এই বিষয়ে রোহিত বলেন, ' হার্দিকের অনুপস্থিতিতে আমি আমার সব বিকল্প খোলা রেখেছি। পরিস্থিতি যদি দাবি করে, আমরা অবশ্যই তিনজন স্পিনার নেব। আমাদের বোলাররা পরিস্থিতির সুবিধা নিতে জানে।’

8 months ago
Hardik: সুস্থ হলেও বিশ্বকাপ চলাকালীন দলে ফিরতে পারবে হার্দিক! কি জানাল বোর্ড

সুস্থ হলেও মনে হয় না, সেমিফাইনালে ভারতীয় দলের সঙ্গে যোগ দিতে পারবেন হার্দিক পান্ডিয়া। এমনটাই দাবি ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের এক কর্তার। জাতীয় এক সংবাদমাধ্যমকে তিনি জানিয়েছেন, জাতীয় ক্রিকেট অ্যাকাডেমির নেটে হালকা নকিং শুরু করেছেন ভারতের সহ-অধিনায়ক। প্রাথমিক ভাবে খবরে প্রকাশ, বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে ফের মাঠে নামবেন হার্দিক। সেই খবরকে অবশ্য উড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।

বোর্ডের ওই কর্তা জানিয়েছেন, হার্দিককে নিয়ে কোনও তাড়াহুড়ো চায়না বিসিসিআই। ক্রিকেটারকে পুরোপুরি সুস্থ করেই মাঠে নামানো হবে। তবে, এটা ঠিক হার্দিক আগের থেকে অনেকটাই সুস্থ। হয়তো সেমিফাইনালের আগে আরও সুস্থ হয়ে উঠবেন। কিন্তু মাঠে নামবেন, এমনটা গ্যারান্টি দিতে পারেননি ওই বোর্ড কর্তা।

বিশ্বকাপের ম্যাচে পুণায় বাংলাদেশের বিরুদ্ধে নিজের বলে ফিল্ডিং করতে গিয়ে চোট পেয়েছিলেন ভারতের সহ-অধিনায়ক। তাঁর লিগামেন্ট ছিঁড়েছে বলেই বোর্ডের দাবি। গ্রুপের শেষ ম্যাচে বেঙ্গালুরুতে ভারতীয় ড্রেসিংরুমে দেখা যেতে পারে হার্দিককে। 

8 months ago


WC2023: হার্দিক কি বিশ্বকাপের বাইরে?

প্রসূন গুপ্তঃ একেবারে অন্দরের খবর যে বাংলাদেশ ম্যাচে পায়ে চোট পেয়ে মাঠের বাইরে চলে যান হার্দিক পাণ্ড্য। বিশ্বকাপে ভারতের পক্ষে এটি মোটেই সুবিধার বিষয় নয়। এখনও পর্যন্ত ভারতের মাটিতে বিশ্বকাপের যে খেলা হয়েছে নিঃসন্দেহে বলা যেতে পারে যে টিম ইন্ডিয়াই সেরা। ৫টি ম্যাচের প্রতিটিতে জিতেছে ভারত এবং দাপটের সঙ্গে। কখনওই সমস্ত উইকেট হারায়নি তারা। এক নিউজিল্যান্ডের সঙ্গে ৪৮ ওভার অবধি খেলা গড়িয়েছিল। ভারতের পরেই নিউজিল্যান্ডের অবস্থান। এবারে দুটি কঠিন দল অপেক্ষা করছে, ইংল্যান্ড ও দক্ষিণ আফ্রিকা। ঠিক এই সময়ে হার্দিকের প্রয়োজন ছিল দলে, কিন্তু জানা যাচ্ছে তাঁর পায়ের চোট অনেকটাই। সারতে অন্তত দিন কুড়ি সময় ন্যূনতম লাগা উচিত বলেই সূত্রের খবর।

যে কোনও দল কতটা শক্তিশালী তা নির্ণয় হয় দলে কতজন অলরাউন্ডার আছে তার উপরে। ১৯৮৩-তে ভারতীয় দল তেমন আহামরি ছিল না কিন্তু দলে নিয়মিত ৬জন অলরাউন্ডার ছিল। ২০১১ তে যুবরাজ সিং সহ বেশ কয়েকজন ব্যাটার বল করতে পারতেন। এবারের ভারতীয় দলে সঠিক অলরাউন্ডার রয়েছেন হার্দিক পাণ্ড্য ও জাদেজা। এর মধ্যে হার্দিক যদি মাঠের বাইরে থাকেন তবে তাঁর জায়গা নেবে কে?  ৫জন বোলার কি যথেষ্ট? কোনও একজন ফ্লপ করলে ষষ্ঠ বোলার কোথায়? শার্দুল ঠাকুর অনেকটা দলের বোঝা। ব্যাট পরীক্ষিত নয়, বোলিং খুব কাজের নয় কাজেই হার্দিকের জায়গা নেবে কে। হার্দিক চোট পাওয়াতে দুটি পরিবর্তন করতে হয়েছিল কিউইদের সঙ্গে। মহম্মদ শামি এবং সূর্যকুমার যাদব। এবারে শামি অসাধারণ বল করতে ম্যাচ উৎরে গিয়েছিলো কিন্তু এরপর নকআউট পর্যায়ে ষষ্ঠ বোলার তো দরকার। ভারতীয় বোর্ড আরও অপেক্ষা করতে চাইছে। যদি আগামী সপ্তাহে ঠিক না হয় তবে হয়তো খেলোয়াড় বদল হতে পারে। কিন্তু কে হবেন সেই খেলোয়াড়? জানা যায়নি।

8 months ago
WC2023: দুর্দান্ত ভারত কিন্তু ভাবনায় হার্দিক

চিরঞ্জিত চক্রবর্তী (বিধায়ক/অভিনেতা): ক্রিকেট ফুটবল আমার জীবনের চলার পথে অন্যতম সাথী। এক সময়ে ছেলেবেলায় দক্ষিণ কলকাতার বিভিন্ন প্রান্তে খেলেওছি। খেলা দেখা আমার একটা নেশা। বিশ্বকাপ ফুটবল হোক বা ক্রিকেট, দেখতে তো হবেই। পুজোর সময়ে আমার কেন্দ্রে যাওয়া আসা থাকবে কিন্তু তারই ফাঁকে আজকের অধিনায়ক মোবাইলে খেলায় চোখ রেখেছি। আমার কাছে সব ম্যাচই প্রাধান্য পায়। আমি আগের লিখনিতে লিখেছিলাম যে, দুরন্ত ফর্মে রয়েছে ভারতীয় ক্রিকেট দল। আমাদের প্রথম চার ব্যাটার অর্থাৎ রোহিত, গিল, কোহলি এবং রাহুল প্রায় প্রতিদিনই ভালো ব্যাট করে দিচ্ছে কিন্তু তার আগে বোলিংয়ে বুমরা, সিরাজ এবং জাড্ডু ও কুলদীপ এতটাই ভালো বল করছে যে ব্যাটারদের টেনশন নিতে হচ্ছে না। আমি একটা ব্যাপার দেখে অবাক হচ্ছি, চারটি ম্যাচেই উল্টোদিকের দল শুরুটা বেশ ভালো করেও শেষ পর্যন্ত হঠাৎ খেলা থেকে হারিয়ে যাচ্ছে। বৃহস্পতিবারও বাংলাদেশের একই ব্যাপার। দিব্বি শুরু করেছিল লিটন দাস। ৯০ রান উঠে যাওয়ার পরে মনে হচ্ছিলো বাংলাদেশ আজ হয়তো ৩০০ পার করবে কিন্তু হঠাৎ গুটিয়ে গেলো। জাড্ডু বা জাদেজা যেমন ফিল্ডিং করেছে তেমনিই বোলিং কিন্তু ম্যাচের সেরা হলো সেঞ্চুরি করা কোহলি। ভারত ফের ৭ উইকেটে জিতলো। এখন এটা একটা অভ্যাসে দাঁড়িয়ে গিয়েছে।

ভারতের এখন যা দলগত অবস্থা, আমি বলবো সর্বকালের সেরা একদিবসীয় দল। ওপেনিংয়ে রোহিত নিয়মিত ভালো রান পাচ্ছে কিন্তু ওঁর একটাই সমস্যা, ছক্কা হাঁকাতে চায়। মারবে না কেন? মারার জন্যই তো স্বল্প ওভারের ক্রিকেট কিন্তু একেবারে অনসাইড হিটার। একটা সিক্সারের পর ফের পরের বলেও ওই চেষ্টা। কালকে আউটও হলো ওই ভাবেই। ও অধিনায়ক এটা ভুলে গেলে চলবে কেন? আমি বরং বলবো টপ ফর্মে খেলছে বিরাট কোহলি। জীবনের অন্যতম সেরা ফর্মে আছে। ফের বলতেই হয় সচিনের অভাব পেতে দিচ্ছে না বিরাট। অসাধারণ খেলা। কি ধৈর্য কি পরিশ্রম। মাঠ কামড়ানো স্ট্রোক। কিন্তু আমার চিন্তা হার্দিক প্যান্ডিয়াকে নিয়ে। কাল পায়ের গোড়ালিতে ছোট পেয়ে গেলো। দেখুন চ্যাম্পিয়ন হতে গেলে মিডলে এমন একজন খেলোয়াড় দরকার যে ব্যাট করবে আবার বলটিও করবে। অর্থাৎ অলরাউন্ডার। দেখবেন অলরাউন্ডারদের জন্যই ভারত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে দুবার। ১৯৮৩-তে কপিল, মহিন্দার, ২০১১-তে যুবরাজ সিং। এবারে সেই কাজটিও করা দরকার এবং এক্সপার্ট হচ্ছে হার্দিক। আমি মনে করি শার্দুল ঠাকুর মোটেই সেই কাজটি করতে পারবে না। শ্রেয়স কিন্তু ভালো খেলছে না, আবার সে বোলারও নয়। সুতরাং হার্দিক ফিরে আসুক। (অনুলিখনঃ প্রসূন গুপ্ত)

8 months ago
Hardik: পায়ে চোট, রবিবার নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে অনিশ্চিত হার্দিক

রবিবার বিশ্বকাপে ভারতের সামনে নিউজিল্যান্ড। পয়েন্টের নিরিখে এখন দুই দলই এক বিন্দুতে। ধর্মশালায় এই ম্যাচে মুখোমুখি হবে দুই দেশ। তার আগে হার্দিকের গোড়ালির চোট পরীক্ষা করতে ক্রিকেটারকে নিয়ে যাওয়া হল বেঙ্গালুরুতে। সেখানে এক ব্রিটিশ চিকিৎসক দেখবেন হার্দিককে। ফলে রবিবারের ম্যাচে অনিশ্চিত ভারতের সহ-অধিনায়ক।

পুণেতে ম্যাচ জয়ের পরেই রোহিত শর্মা জানিয়েছিলেন, হার্দিকের চোট খুব একটা গুরুতর নয়। তবে তাঁকে কিছুদিন পর্যবেক্ষণে রাখা হবে। রোহিতের ইঙ্গিতেই ছিল নিউ জিল্যান্ড ম্যাচে হার্দিককে পাওয়া যাচ্ছে না। ফলে ধর্মশালায় তাঁর বদলে দলে ঢুকতে পারেন সূর্য কুমার যাদব বা ইশান কিষাণ।

ইতিমধ্যেই বোর্ডের এক কর্তা জানিয়েছেন, ধর্মশালা নয়, হার্দিক দলের সঙ্গে যোগ দেবেন লখনউয়ে। ২৯ তারিখ বিশ্বকাপের ম্যাচে ভারতের প্রতিপক্ষ ইংল্যান্ড। সম্ভবত ওই ম্যাচ থেকে ফের মাঠে ফিরতে পারেন এই অলরাউন্ডার। পুণের ম্যাচে নিজের বলে ফিল্ডিং করতে গিয়ে গোড়ালিতে চোট পান হার্দিক। 

8 months ago


Hardik: ক্যারাবিয়ানদের বিরুদ্ধে পঞ্চম টি-টোয়েন্টি হারের দায় নিজের কাঁধেই নিলেন হার্দিক

ওয়েস্ট ইন্ডি‌জের বিরুদ্ধে পঞ্চম টি-টোয়েন্টি ম্যাচে হারের দায় নিজের ঘাড়েই নিলেন হার্দিক পাণ্ডিয়া। তাঁর কথায়, হার-জিত একটা প্রক্রিয়ার অঙ্গ। সেটা থেকে শেখাই আসল। ভুল থেকেই শিক্ষা নিতে হবে। সেই শিক্ষা নিয়েই তাঁরা আরও শক্তিশালী হয়ে ফিরবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। উল্লেখ্য, রবিবারের ম্যাচে ব্যাটিং ও বোলিং দুই দিক থেকেই ব্যর্থ ভারত। ৮ উইকেট বাকি থাকতেই সিরিজ জিতে যায় ওয়েস্ট ইন্ডিজ।  

ম্যাচের হার্দিক সংবাদমাধ্যমকে ভারতের হারের কারণ ব্যাখ্যা করেছেন। মূলত, ব্যাটিংকেই দায়ী করেছেন তিনি। তাঁর ব্যর্থতার কথাই উল্লেখ করেছেন। হার্দিক বলেন, "প্রথম দশ ওভারের পরেই আমরা পিছিয়ে পড়েছিলাম। বিশেষত আমি ব্যাট করতে আসার সময়। আমি আসার পর রানের গতি কমে যায়। যেভাবে চেয়েছিলাম সেভাবে খেলতে পারিনি। যার মাশুল দিতে হল।'

হার্দিক আরও বলেন,'আমি মনে করি নিজেদের পরীক্ষার মধ্যে ফেলা উচিত। এই ধরনের ম্যাচগুলোয় করা ভুল থেকেই শিক্ষা নিতে হবে আমাদের।' একইসঙ্গে তিনি এদিন তরুণ ক্রিকেটারদের প্রশংসাও করেন।

উল্লেখ্য, চতুর্থ ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে দাপটের সঙ্গে খেলে সিরিজে সমতা এনেছিল ভারত। কিন্তু, রবিবার নির্ণায়ক ম্যাচে হার মানতে হল হার্দিকদের। ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে সিরিজ না জিতেই ফিরতে হচ্ছে ভারতকে।

10 months ago
Final: হার্দিকের প্রসংশায় গাভাসকর, আইপিএল ফাইনালের আগে কে এগিয়ে!

আইপিএল (IPL) ফাইনালের আগে হার্দিককে (Hardik) প্রশংসায় ভরিয়ে দিলেন সুনীল গাভাসকর (Sunil Gavaskar)। চোট থেকে ফিরেই আইপিএলের নতুন টিম গুজরাত টাইটান্সকে চ্যাম্পিয়ন করেছেন। গত এক বছরে টিম ইন্ডিয়ার গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হয়ে উঠেছে। ধোনি ও রোহিতের পর টানা দুবার আইপিএল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার নজির গড়তে পারেন। তাই হার্দিকের মধ্যে ধোনির ছায়া দেখছেন গাভাসকর।

গাভাসকরের মতে, যারা ধোনির কেরিয়ার দেখেছেন, তারা জানেন। টস করার সময় হাসিমুখে থাকেন। মাঠে নামলেই পরিবেশই যেন বদলে যেন। স্টার স্পোর্টসের একটি সাক্ষাৎকারে গাভাসকর জানিয়েছেন, হার্দিকও ধোনির মতো সেই বিষয়টি তাড়াতাড়ি শিখে নিয়েছেন। গতবছর প্রথম বার নতুন দলকে নেতৃত্ব দিতে এসেছিলেন। কী প্রত্যাশা থাকতে পারে। কিন্তু গতবছর থেকে টিমে যে শান্ত পরিবেশ তৈরি করেছেন, তার সম্পূর্ণ কৃতিত্ব হার্দিকের। 

টানা দুবার গুজরাত টাইটান্সকে ফাইনালে তুলেছেন। এবার হার্দিকদের প্রতিপক্ষ ধোনিব্রিগেড। গতবার রাজস্থানকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল গুজরাত। এবার চেন্নাইয়ের বিরুদ্ধে কাজটা সহজ হবে না।

one year ago


IPL: হেরেও শীর্ষে গুজরাত, দৌড়ে রয়েছে মুম্বইও, আইপিলের সমীকরণ কোথায় দাঁড়িয়ে

মুম্বইয়ের (MI) বিজয় রথ দৌড়েই চলেছে, তাঁরা যে প্লে অফার লড়াইয়ে ভীষণ ভাবে ঢুকে পড়েছে সেটা পরিষ্কার। বৃহস্পতিবার মুম্বই ২৭ রানে হারিয়েছে গুজরাতকে (GT)। ১২ ম্যাচ খেলে রোহিত শর্মাদের পয়েন্ট ১৪। গুজরাতের কাছে হেরেও আইপিএলের পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে হার্দিক পাণ্ড্যরা (Hardik Pandya)। ১২ ম্যাচে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে গুজরাত। বাকি ২ ম্যাচের একটি জিতলেই প্লে অফ নিশ্চিত গুজরাতের। ১২ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে রয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস। বাকি ২ ম্যাচের একটি জিতলেই প্লে অফে পৌঁছে যাওয়ার কথা সিএসকে-র।

গুজরাত টাইটান্সকে (MI vs GT) ২৭ রানে হারিয়ে আইপিএলে প্লে অফে ওঠার দৌড়ে ভালমতোই রইল মুম্বই ইন্ডিয়ান্স। ১২ ম্যাচ খেলে রোহিত শর্মাদের পয়েন্ট ১৪। পয়েন্ট টেবিলে তিন নম্বরে উঠে এসেছে পাঁচবারের চ্যাম্পিয়নরা। ১২ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে চার নম্বরে রাজস্থান রয়্যালস। বাকি ২ ম্যাচ জিতলেই প্লে অফে পৌঁছে যাবেন সঞ্জু স্যামসনরা। অন্তত দশ ম্যাচ খেলে ফেলেছে প্রত্যেকটি দল, অথচ দশ দলের কেউই প্লে অফের দৌড় থেকে ছিটকে যায়নি, কারও প্লে অফের টিকিট নিশ্চিত হয়ে যায়নি, আইপিএলের (IPL) ইতিহাসে কখনও এ জিনিস হয়েছে?

পয়েন্ট টেবিলে ১২ ম্যাচ খেলে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে গতবারের চ্যাম্পিয়ন গুজরাত টাইটান্স। তবে হার্দিক পাণ্ড্যরা এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে প্লে অফের যোগ্যতা পায়নি। বাকি ২ ম্যাচের একটিতে জিতলেই প্লে অফ নিশ্চিত। এমনকী, ২ ম্যাচ হেরে গেলেও প্লে অফে পৌঁছে যেতে পারেন তাঁরা। ১২ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে দুই নম্বরে রয়েছে চেন্নাই সুপার কিংস। বাকি দুই ম্যাচের একটি জিতলেই প্লে অফে পৌঁছে যাবেন মহেন্দ্র সিংহ ধোনিরা। ১২ ম্যাচে ১৪ পয়েন্ট সহ তিন নম্বরে উঠে এল মুম্বই। ১১ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট লখনউ সুপার জায়ান্টসের। তারা রয়েছে পাঁচ নম্বরে। বাকি তিন ম্যাচের ৩টি জিতলেই প্লে অফ নিশ্চিত। ২টি জিতলেও ভাল সুযোগ থাকবে।

তিন দল রয়েছে ১০ পয়েন্টে। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই প্লে অফে ওঠার। ১১ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালোরের। তারা রয়েছে ছয় নম্বরে। শেষ দুটি ম্যাচই হেরেছেন বিরাট কোহলিরা। বাকি তিন ম্যাচ জিততেই হবে তাঁদের। ১২ ম্যাচে ১০ পয়েন্টে রয়েছে কলকাতা নাইট রাইডার্স। সাতে রয়েছে কেকেআর। শেষ ২ ম্যাচের দুটি জিতলে প্লে অফের দরজা খুলতে পারে নাইটদের সামনে। তবে রান রেট ভাল রাখতে হবে। তার জন্য বড় ব্যবধানে জয় চাই। পাশাপাশি তাকিয়ে থাকতে হবে অন্য দলের ফলের ওপর। ১১ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে আট নম্বরে পাঞ্জাব কিংস। নেট রান রেটে পিছিয়ে থাকায় পয়েন্ট সমান হলেও আরসিবি ও কেকেআরের চেয়ে পিছিয়ে পাঞ্জাব।

one year ago
IPL: ঋদ্ধি, শুভমনের ঝোড়ো ব্যাটিং, লখনউকে ৫৬ রানে হারালেন হার্দিক পাণ্ড্যরা

ঋদ্ধিমান সাহা ও শুভমন গিলের দাপটে ঘরের মাঠে লখনউ সুপার জায়ান্টসকে ৫৬ রানে হারালেন হার্দিক পাণ্ড্যরা। ঋদ্ধি ও শুভমন দু’জনে মিলে ১৭৫ রান করেছেন। গোটা লখনউ দল করেছে ১৭১ রান। টসে জিতে প্রথমে গুজরাতকে ব্যাট করতে পাঠান ক্রুণাল। ব্যাটে ঝড় তোলেন শিলিগুড়ির ঋদ্ধি। পেসার, স্পিনার কাউকে রেয়াত করলেন না ঋদ্ধি। পাওয়ার প্লে-র সুবিধা কাজে লাগান তিনি। পঞ্চম ওভারের প্রথম বলে যশ ঠাকুরকে লং রানের উপর দিয়ে ছক্কা মেরে অর্ধশতরান করেন ঋদ্ধি। আবেশ খানকে স্কোয়্যার লেগ অঞ্চলে ছক্কা মারতে গিয়ে ৪৩ বলে ৮১ করে আউট হন ঋদ্ধি। তিনি মারেন ১০টি চার ও চারটি ছক্কা। অর্থাৎ, ৮১ রানের মধ্যে ৬৪ রান এসেছে বাউন্ডারিতে।

ঋদ্ধি যতক্ষণ মারছিলেন ততক্ষণ ধরে খেলছিলেন শুভমন। কিন্তু ঋদ্ধি ফেরার পরে আক্রমণাত্মক শট খেলা শুরু করলেন তিনি। বাকি সময়টা শুভমন শো। হার্দিক, মিলাররা তাঁকে সাহায্য করলেন। এ বারের আইপিএলে ভাল ছন্দে রয়েছেন শুভমন। সেটাই আরও এক বার দেখা গেল। ২৯ বলে অর্ধশতরান করেন তিনি। ঋদ্ধির মতো শুভমনেরও শতরান করার সুযোগ ছিল। শেষ ওভারের প্রথম দুই বলের পরে সেই আশা আরও বেড়ে যায়। কিন্তু শেষ দুই বলে স্ট্রাইক পাননি শুভমন। তার ফলে ৯৪ রানে অপরাজিত থেকে গেলেন তিনি। দল করল ২২৭ রান।

রান তাড়া করতে নেমে শুরুটা ভাল করেছিলেন লখনউয়ের দুই ওপেনার কাইল মেয়ার্স ও কুইন্টন ডি’কক। প্রথম থেকেই আক্রমণাত্মক ছিলেন তাঁরা। মেয়ার্স এ বারের আইপিএলে ছন্দেই ছিলেন। ডি’ককও প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমে হাত খোলা শুরু করেন। মাত্র ৪ ওভারে দলের রান ৫০ পেরিয়ে যায়। পাওয়ার প্লে-তে ৭৮ রান করেন তাঁরা। দেখে মনে হচ্ছিল, টান টান খেলা হতে চলেছে। কিন্তু ৩২ বলে ৪৮ রান করে রশিদ খানের দুরন্ত ক্যাচে আউট হন মেয়ার্স। সেখানেই খেলার ছবি বদলে যায়। ডি’কক নিজের অর্ধশতরান করলেও বাকিরা কেউ রান পাননি। দীপক হুডা, মার্কাস স্টোইনিস, নিকোলাস পুরানরা অল্প রানে আউট হয়ে যান। ৪১ বলে ৭০ রান করে ডি’কক আউট হয়ে গেলে লখনউয়ের জয়ের সব আশা শেষ হয়ে যায়। বল হাতে ২৯ রান দিয়ে ৪ উইকেট নিলেন গুজরাতের মোহিত শর্মা।

one year ago
GT: মধুর বদলা টাইটান্সদের, হার্দিক-ঋদ্ধির ছন্দে রাজস্থানকে হারালো গুজরাত

ঘরের মাঠে রাজস্থান রয়্যালসের (RR) কাছে হেরেছিল গুজরাত টাইটান্স (GT)। গত মরসুমে ফাইনাল মিলিয়ে তিন বার মুখোমুখি হয়েছিল হার্দিক পান্ডিয়ার (Hardik Pandya) নেতৃত্বাধীন গুজরাত টাইটান্স ও রাজস্থান রয়্যালস। তিন বারই জিতেছিলেন হার্দিকরা। গত বার রানার্স হয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছিল সঞ্জুদের। এ বারও দুর্দান্ত ছন্দে দু-দল। ঘরের মাঠে দুর্দান্ত পরিস্থিতিতে ছিল টাইটান্স। সেখান থেকে অভাবনীয় জয়।

৯ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে জিতল গুজরাত টাইটান্স। তাও আবার ৩৭ বল বাকি থাকতেই। এতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখলেন হার্দিক নিজেও। উইকেট নিলেন, দুর্দান্ত একটা ক্যাচ এবং অবশ্যই ব্যাট হাতে ১৫ বলে ৩৯ রানের বিধ্বংসী ইনিংস।

টস জিতে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন রাজস্থান রয়্যালস অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসন। শুরুর ধাক্কা দেন হার্দিক পান্ডিয়া। জস বাটলারকে ফেরান তিনি। জশ লিটলের বোলিংয়ে হার্দিকের দুর্দান্ত ক্যাচে ফেরেন প্রতিপক্ষ অধিনায়ক সঞ্জু স্যামসন। সবচেয়ে হতাশার আউট যশস্বীর। গত ম্যাচে শতরান করেছিলেন। এই ম্যাচে অধিনায়কের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝিতে ফেরেন যশস্বী। মাঝের ওভারে রশিদ খান এবং নুর আহমেদের আফগান স্পিন জুটির দাপট। রশিদ ৪ ওভারে মাত্র ১৪ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন। নুর আহমেদ নিয়েছেন ২ উইকেট। ২০ ওভারও ব্যাট করতে পারেনি রাজস্থান। ১১৮ রানেই অলআউট। যা ৩৭ বল বাকি থাকতেই তুলে নিল টাইটান্স। ইমপ্যাক্ট প্লেয়ার হিসেবে নামা শুভমন গিল ৩৫ বলে ৩৬ রানে ফেরেন। ঋদ্ধিমান সাহা ৩৪ বলে ৪১ রানে অপরাজিত থাকেন। হার্দিক অপরাজিত ১৫ বলে ৩৯ রানে।

one year ago


Hardik: গোটা দল ব্যর্থ হলেও লখনউয়ের বিরুদ্ধে হার্দিক একাই রানমুখী

লখনউয়ের (LSG) বিরুদ্ধে আবার ব্যাটিং ব্যর্থতার শিকার গুজরাত টাইটান্স (GT)। লখনউয়ে খেলতে নেমে বড় রান করতে পারল না তারা। হার্দিক পাণ্ড্যের (Hardik Pandya) অর্ধশতরান না থাকলে তাদের স্কোর একশোও পেরোত কি না সন্দেহ। ঋদ্ধিমান সাহা এবং হার্দিক বাদে কোনও ব্যাটারই দাঁড়াতে পারলেন না। শেষ পর্যন্ত লখনউয়ের বিরুদ্ধে আগে ব্যাট করে ১৩৫-৬ তুলল গুজরাত।

লখনউয়ের বিরুদ্ধে শুরুতেই ধাক্কা খায় গুজরাত। দ্বিতীয় ওভারেই ফিরে যান দলের সবচেয়ে ছন্দে থাকা ক্রিকেটার শুভমন গিল। তাঁকে শূন্য রানে ফেরান ক্রুণাল পাণ্ড্য। সেখান থেকে দলের হাল ধরেন অধিনায়ক হার্দিক পাণ্ড্য এবং ঋদ্ধিমান সাহা। দু’জনে মিলে গুজরাতের রান তুলতে থাকেন।

কিন্তু লখনউয়ের পিচ খুবই ধীর গতির ছিল। যে কারণে বল ব্যাটে আসছিল দেরিতে। ফলে দ্রুত গতিতে রান তুলতে সমস্যা হচ্ছিল ঋদ্ধি এবং হার্দিকের। ঋদ্ধি তবু একটু বোলারদের উপর আক্রমণ করার চেষ্টা করছিলেন। তবু খুব বেশি আগ্রাসী ব্যাটিং দেখা যায়নি। মরসুমের প্রথম অর্ধশতরান হয়ে যেতে পারত ঋদ্ধির। অল্পের জন্য তা হয়নি। ৩৭ বলে ৪৭ রান করে ফেরেন। অফস্টাম্পের বাইরে লোপ্পা বল ফেলেছিলেন ক্রুণাল। ঋদ্ধি ছয় মারতে গিয়েছিলেন। কিন্তু শটে জোর ছিল না। লং অনে সহজ ক্যাচ নেন দীপক হুডা।

ঋদ্ধি যাওয়ার পরের ওভারেই অভিনব মনোহরকে হারায় গুজরাত। বড় রান করতে পারেননি বিজয় শঙ্করও (১০)। এই অবস্থায় দলের রান তোলার ভার নিজের কাঁধেই তুলে নেন হার্দিক। শেষের দিকের ওভারগুলিতে মারতে দেখা যায় তাঁকে। রবি বিষ্ণোইয়ের ১৮তম ওভারে ওঠে ১৯ রান। শেষ ওভারের প্রথম বলেই মার্কাস স্টোয়নিসকে ছয় মারেন হার্দিক। তবে দ্বিতীয় বলেই আউট হয়ে যান।


one year ago
IPL: গুজরাত বনাম রাজস্থান ম্যাচ ছুঁতে পারলো না প্রত্যাশা! পরাজয় হার্দিকদের

গত বছর আইপিএলের সেরা দুই দলের লড়াই প্রত্যাশিত মানে পৌঁছল না। রবিবার আমদাবাদের নরেন্দ্র মোদী স্টেডিয়ামে রাজস্থান রয়্যালস জয় পেলেও মন ভরল না ক্রিকেটপ্রেমীদের। প্রথমে ব্যাট করে হার্দিক পাণ্ড্যর গুজরাত তোলে ৭ উইকেটে ১৭৭ রান। জবাবে ৪ বল বাকি থাকতে সঞ্জু স্যামসনের রাজস্থান রয়্যালস করল ৭ উইকেটে ১৭৯। সঞ্জু এবং শিমরন হেটমেয়ারের দাপটে গত বারের চ্যাম্পিয়নদের হারাল গত বারের রানার্সরা।

হার্দিকের দলের ব্যাটাররা কেউ তেমন বড় রান করতে না পারলেও, প্রায় সকলেই কিছু না কিছু অবদান রাখলেন। দলগত প্রচেষ্টায় ঘরের মাঠে লড়াই করার মতো রান তোলে গুজরাত। যদিও রাজস্থানকে হারানোর জন্য সেই রান যথেষ্ট ছিল না। রবিবার রান পেলেন না ঋদ্ধিমান সাহা (৪)। প্রথম ওভারেই বাঙালি উইকেটরক্ষক-ব্যাটার আউট হলেও তার প্রভাব পড়ল না গুজরাত ইনিংসে। অন্য ওপেনার শুভমন গিল করলেন ৪৫ রান। তাঁর ৩৪ বলের ইনিংসে রয়েছে ৪টি চার এবং ১টি ছয়। তিন নম্বরে নামা সাই সুদর্শনের ব্যাট থেকে এল ১৯ বলে ২০ রান। বড় রান পেলেন না গুজরাত অধিনায়কও। ৩টি চার এবং ১টি ছয়ের সাহায্যে হার্দিক করলেন ১৯ বলে ২৮ রান। অভিনব মনোহরের অবদান ১৩ বলে ২৭। ৩টি ছক্কা এল তাঁর ব্যাট থেকে।

গুজরাতকে লড়াই করার মতো জায়গায় পৌঁছে দিল ডেভিড মিলারের লড়াকু ইনিংস। পাঁচ নম্বরে নেমে ৩০ বলে ৪৬ রান করলেন মিলার। ৩টি চার এবং ২টি ছক্কা মারলেন দক্ষিণ আফ্রিকার ব্যাটার। ইনিংসের শেষ ওভারে ২ উইকেট হারানোয় প্রত্যাশিত রান তুলতে পারল না গুজরাত। শেষ পর্যন্ত হার্দিকরা তুললেন ৭ উইকেটে ১৭৭ রান।

রাজস্থানের সফলতম বোলার সন্দীপ শর্মা। তিনি ২৫ রান দিয়ে ২ উইকেট নিলেন। ১টি করে উইকেট নিলেন ট্রেন্ট বোল্ট, অ্যাডাম জ়াম্পা এবং যুজবেন্দ্র চহাল। ৪ ওভারে ৩৭ রান দিয়েও উইকেট পেলেন না রবিচন্দ্রন অশ্বিন।

জয়ের জন্য ১৭৮ রানের লক্ষ্য নিয়ে ব্যাট করতে নামা রাজস্থানের ব্যাটাররাও প্রত্যাশা অনুযায়ী খেলতে পারলেন না। দ্বিতীয় ওভার থেকেই উইকেট হারাতে শুরু করেন সঞ্জুরা। নতুন বল হাতে অনবদ্য পারফর্ম করলেন মহম্মদ শামি।

one year ago