Breaking News
HC: জেলে ১ বছর ৭ মাস! পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বিচারপ্রক্রিয়া কবে শুরু হবে? ইডির কাছে রিপোর্ট তলব হাইকোর্টের      Sandeshkhali: ''দাদা আমাদের বাঁচান...'', সন্দেশখালির মহিলাদের আর্তি শুনলেন শুভেন্দু      Sandeshkhali: 'মুখ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ করা উচিত', ক্ষোভ প্রকাশ জাতীয় মহিলা কমিশনের চেয়ারপার্সনের      Weather: বিদায়ের পথে শীত! বাড়বে তাপমাত্রা, বৃষ্টির পূর্বাভাস দক্ষিণবঙ্গে      Sandeshkhali: শিবু হাজরার গ্রেফতারিতে মিষ্টি বিলি, আদালতে পেশ, কবে গ্রেফতার সন্দেশখালির 'মাস্টারমাইন্ড'?      Arrest: সন্দেশখালিকাণ্ডে ন্যাজট থেকে গ্রেফতার শিবু হাজরা      Trafficking: ১০ মাস লড়াইয়ের পর মাদক মামলা থেকে মুক্তি বিজেপি নেত্রী পামেলার      Mimi: রাজনীতি আমার জন্য় নয়, মুখ্যমন্ত্রীর কাছে গিয়ে সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা মিমির!      Dev: রাজনীতিতে ফিরতেই ফের দেবকে দিল্লিতে ডাক ইডির      Suvendu: সুকান্ত অসুস্থ থাকলেও, সন্দেশখালি কাণ্ডে আন্দোলনের ঝাঁঝ বাড়াতে মাঠে শুভেন্দু     

Governer

Governer: অশান্তি রোখার গুরু দায়িত্ব কি তাঁর, কলকাতার রাস্তায় রাজ্যপাল! খেলেন ছাতু

'আমি রাজ্যপালকে এই প্রথম দেখলাম রাস্তায় ছাতু খেতে।' রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোসকে দেখে নিজের বন্ধুকে এমনই বলে উঠলেন স্থানীয় এক তরুণী। সকাল ১১ টা নাগাদ পোস্তায় গিয়েছিলেন জোড়াসাঁকোর বাসিন্দা মুন্নি সেনগুপ্ত। সঙ্গে ছিলেন তাঁর বন্ধু শুভশ্রী দত্ত। দু'জনের এই আলোচনা যেন গোটা রাজ্যের মুখে। হিংসা-অশান্তি নিয়ে কড়া বার্তা দিয়েছিলেন আগেই। এবার হনুমান জয়ন্তীতে (Hanuman Jayanti) কলকাতার (Kolkata) রাস্তায় নেমে, রাজ্যপাল (Governer) স্বয়ং সরজমিনে ঘুরে দেখলেন বিভিন্ন এলাকা। খেলেন ছাতুও। রাজ্যপালের এই পরিদর্শনকে বেনজির বলছেন রাজ্যবাসী-সহ রাজনৈতিক মহলও।

আগেই বলেছিলেন, 'সংবিধান মেনে কাজ করা হবে।' সাধারণ মানুষকে নিরাপত্তা দিতে হবে। সূত্রের খবর, কলকাতা-সহ রাজ্যের আইনশৃঙ্খলার অবনতি নিয়ে রীতিমত উদ্বিগ্ন ছিলেন তিনি, মঙ্গলবার তিনি হিংসার মুখে আহত ব্যক্তিকে দেখতে যান এসএসকেম হাসপাতালে। তাঁর সঙ্গে কথাও বলেন। আজ অর্থাৎ বৃহস্পতিবার হনুমান জয়ন্তীতে হিংসা রোখা যেন তাঁর গুরুদায়িত্ব সেটা তিনি বুঝিয়ে দিলেন আবারও। বৃহস্পতিবার সকালে নিজের পায়ে কলকাতার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখেন তিনি, দেখলেন আধা সামরিক বাহিনীর টহলদারি। তিনি সকালে লেকটাউনে পুজো দিলেন, এরপর কলকাতার একবালপুর এলাকা ঘুরে দেখেন। কথা বলেন স্থানীয়দের সঙ্গে। ওখান থেকে পৌঁছে যান পোস্তাতেও।

স্থানীয় দোকান থেকে খান ছাতুও। সবশেষে রাজ্যবাসীর উদ্দেশ্যে সম্প্রতির বার্তাও দেন। সম্প্রতি রামনবমীর মিছিলে দুষ্কৃতী হামলা নিয়ে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে রাজ্যের বেশ কিছু এলাকা। হাওড়া,হুগলি, উত্তর দিনাজপুরের কিছু এলাকায় ১৪৪ ধারা জারি করে, পরিস্থিতি সামাল দিতে হয়। বুধবার দিনই হাইকোর্টের নির্দেশে স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল হনুমান জয়ন্তীতে আধাসেনা দিয়ে পরিস্থিতি মোকাবিলা করার কথা।

সম্প্রতি রামনবমীর মিছিল ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে হুগলির রিষড়া এলাকা, হিংসা ছড়িয়ে পড়ে রেললাইনেও। হাওড়ার ঘটনার পর রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস পুলিসকে সতর্ক হওয়ার কথা বলেন। তারপরেই দুই ধাপে অশান্তি-হিংসা ছড়িয়ে পরে রিষড়ায়। খবর পেয়ে উত্তরবঙ্গ সফর বাতিল করে কলকাতায় ফিরে আসেন রাজ্যপাল। সেদিনই রিষড়ায় যান, ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন তিনি এবং রিষড়ায় সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথাও বলেন। সাধারণ মানুষকে আশ্বাস দেন যে, হিংসা বরদাস্ত করা হবে না। হিংসাকারীকে শাস্তি দেওয়া হবে। ওখানে তিনি পুলিসকেও কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।

11 months ago
Governer: 'দুষ্কৃতী দমন করতে হবে, হিংসা বরদাস্ত নয়', রিষড়া-কাণ্ডে কড়া বার্তা রাজ্যপালের

রিষড়ার (Rishra) এই তাণ্ডব কাহিনী মাথায় রেখে, দার্জিলিং অর্থাৎ উত্তরবঙ্গ (North Bengal) সফরের মাঝপথেই, সফরের গতিমুখ পরিবর্তন করেন রাজ্যপাল (Governer) সিভি আন্দন্দ বোস। রিষড়াকাণ্ডের জেরে মঙ্গলবার সকালেই উত্তরবঙ্গ সফর মাঝপথে ছেড়েই কলকাতায় ফিরে এলেন রাজ্যপাল সিভি আনন্দ বোস। সূত্রের খবর, বুধবার উত্তরবঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে যোগ দেওয়ার কথা ছিল তাঁর। মঙ্গলবার সকালে বাগডোগরা থেকে বিমানে কলকাতায় ফিরলেন তিনি। এছাড়া মঙ্গলবার তিনি রিষড়াতে পৌঁছে ঘটনাস্থল ঘুরে দেখেন। এছাড়া ভারপ্রাপ্ত পুলিস আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলেন এবং তাঁদেরকে কড়া বার্তা দেন, যে কোনওরকম উপায়ে হিংসা ছড়ানো বন্ধ করতে হবে। দুষ্কৃতীদের কঠোর হাতে দমন করতে হবে।

বুধবার উত্তরবঙ্গ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তনে যোগ দিয়ে বৃহস্পতিবার কলকাতায় ফেরার কথা ছিল তাঁর। সমাবর্তন অনুষ্ঠান ছাড়াও উত্তরবঙ্গে জি-২০ সামিট উপলক্ষে যে কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হচ্ছে, তাতেও যোগ দিতে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু রিষড়াকাণ্ডের জেরে সেই সমস্ত কর্মসূচি বাতিল করে তড়িঘড়ি কলকাতায় ফিরলেন আনন্দ বোস। রামনবমীর দিন শিবপুরের ঘটনার পর কড়া বিবৃতি জারি করেছিলেন রাজ্যপাল। সূত্রের খবর, রিষড়া নিয়ে নিয়মিত খবর নিচ্ছেন তিনি। যদিও সোমবার রাতে রিষড়ার পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। সূত্রের খবর, সেই খবর পেয়েই তড়িঘড়ি রাজ্যপাল তাঁর সফরসূচি বদল করেন। কলকাতায় ফিরে তিনি বলেন, 'আমাদেরকে একজোট হয়ে কাজ করতে হবে, হিংসাকে কখনও বরদাস্ত করা হবে না।'

11 months ago
Death: প্রয়াত বাংলার প্রাক্তন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠী, শোকপ্রকাশ মুখ্যমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রীর

রবিবার সকালে উত্তরপ্রদেশের (Uttar Pradesh) প্রয়াগরাজে শেষনিঃশ্বাস ত্যাগ (Death) করলেন বর্ষীয়ান বিজেপি নেতা ও পশ্চিমবঙ্গের প্রাক্তন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্রিপাঠি (Keshari Nath Tripathi)। প্রয়াণকালে বয়স ছিল ৮৮ বছর। শ্বাসকষ্টজনিত রোগে ভুগছিলেন বহুদিন ধরে। ত্রিপাঠিজি পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল পদে আসীন ছিলেন ২০১৪ সাল থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত।

উল্লেখ্য, প্রায় এক মাস তিনি গভীর অসুস্থতায় ভুগছিলেন। গত ডিসেম্বরের ৮ তারিখ তিনি স্নানাগারে পড়ে গিয়ে হাত ভাঙেন। ডিসেম্বরের ৩০ তারিখ তাঁকে আহার ক্ষমতা ও প্রস্রাবের পরিমাণ হ্রাস সহ দুর্বলতা ও আনুষঙ্গিক জটিলতার চিকিৎসার জন্য বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করানো হয়। সপ্তাহখানেক চিকিৎসার পর তাঁকে বাড়িতে নিয়ে আসা হয়।

কেশরীনাথ ত্রিপাঠি রাজ্যপাল হিসেবে কর্তব্য পালন করেছিলেন বিহার, মিজোরাম ও মেঘালয়ে। দায়িত্বভার পালন করেছেন উত্তরপ্রদেশের বিধানসভার স্পিকার ও বিহারের মন্ত্রী হিসেবেও। তাঁর লেখা সংকলনগুলি হল 'মাননুকৃতি', 'আয়ুপঙ্খ' ইত্যাদি। এছাড়াও গ্রন্থ হিসেবে লিখেছেন সঞ্চয়িতা-কেশরীনাথ ত্রিপাঠি।

তাঁর এই কৃর্তিগুলির মধ্য দিয়ে চিরকাল সকলের মনে রয়ে যাবেন। মুখ্যমন্ত্রী প্রাক্তন রাজ্যপাল কেশরীনাথ ত্র্রিপাঠির প্রয়াণে গভীর শোক প্রকাশ করে লিখেছেন 'তাঁর প্রয়াণে রাজনৈতিক জগতের অপূরনীয় ক্ষতি হল।' প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীও ট্যুইট এর মাধ্যমে শোকজ্ঞাপন করেছেন।

one year ago