Breaking News
Tapas Roy: তৃণমূল ছাড়লেন তাপস রায়, বরাহনগরের বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা বর্ষীয়ান নেতার      Resign: হঠাৎ অবসর বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের, 'রাজনীতি যোগ' জল্পনা তুঙ্গে      Sandeshkhali: সন্দেশখালিতে ফের ফ্য়াক্ট ফাইন্ডিং টিম, শুনবে মহিলা ও বাসিন্দাদের কষ্টের কথা      BJP: প্রথম দফায় ১৯৫ প্রার্থীর নাম ঘোষণা বিজেপির, বাংলার ২০ জনের নাম তালিকায়      Modi: 'রামমোহনের আত্মা সন্দেশখালির মহিলাদের দুর্দশায় কাঁদছে', আরামবাগ থেকে মমতাকে তোপ মোদীর      Suspend: গ্রেফতারির পরেই তৃণমূল থেকে ছয় বছরের জন্য সাসপেন্ড সন্দেশখালির 'বেতাজ বাদশা' শাহজাহান      Sandeshkhali: নিরাপদ সর্দারকে নিঃশর্তে জামিন দিয়ে রাজ্য পুলিসকে তিরস্কার বিচারপতির      Sheikh Shahjahan: ঘর ভাঙচুর, টাকা লুঠ! শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে নতুন এফআইআর সন্দেশখালি থানায়      Sandeshkhali: অজিত মাইতিকে তাড়া গ্রামবাসীদের, সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর অবশেষে আটক পুলিসের      Ajit Maity: উত্তপ্ত সন্দেশখালি! অজিত মাইতির গ্রেফতারির দাবিতে বিক্ষোভ মহিলাদের, বাঁচতে সিভিকের বাড়িতে আশ্রয়     

ED

Train : নরেন্দ্রপুরে ওভারহেডের তার ছিঁড়ে বিপত্তি, প্রায় দু'ঘন্টা ব্যাহত ট্রেন চলাচল

রবিবার ছুটির দিনেও ট্রেনের সমস্য়। নরেন্দ্রপুরে রেল স্টেশনের কাছে ওভারহেডের তার ছিঁড়ে বিপত্তি। ব্যাহত হয় শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখার ট্রেন চলাচল। এর ফলে ভোগান্তিতে পড়েন নিত্য়যাত্রীরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় রেলের উচ্চপদস্থ আধিকারিকরা। তড়িঘড়ি শুরু হয় ট্রেন মেরামতির কাজ।

জানা গিয়েছে, রবিবার সকালে ৮:৪৫ মিনিট নাগাদ শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখার নরেন্দ্রপুর স্টেশনে ওভারহেডের তার ছিঁড়ে যাওয়ায় বন্ধ হয়ে গিয়েছিল ট্রেন চলাচল। তারপর টাওয়ার ভ্য়ান এসে প্রায় ৪০ মিনিট ধরে চলে মেরামতির কাজ। তারপর আবার ১০ টা ৪৫ নাগাদ শুরু হয়ে ট্রেন চলাচল।


2 days ago
Ration Scam: রেশন দুর্নীতির দ্বিতীয় চার্জশিটে শঙ্কর আঢ্য ও তাঁর পরিবারের নাম

শিয়রে লোকসভা নির্বাচন। তাই নির্বাচনের পূর্বে একের পর দুর্নীতির জাল গোটাতে তৎপর কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা মহল। ইডির রেশন দুর্নীতির তদন্তে ইতিমধ্যেই গ্রেফতার হয়েছে একাধিক রাঘববোয়াল। ধৃত মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক ও বাকিবুর রহমানের বিরুদ্ধে চার্জশিটও জমা দিয়েছিল ইডি। সেই দুর্নীতির সূত্র ধরে সম্প্রতি পুলিসের জালে ধরা পড়েছে সন্দেশখালির প্রভাবশালী তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহান। আগামী সপ্তাহে রেশন দুর্নীতি মামলায় দ্বিতীয়বার চার্জশিট জমা দেওয়ার সিদ্ধান্ত ইনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের। বনগাঁর প্রাক্তন চেয়ারম্যান তথা ধৃত তৃণমূল নেতা শঙ্কর আঢ্য ও তাঁর বিভিন্ন ফরেক্স সংস্থার বিরুদ্ধেও একাধিক তথ্যের উল্লেখ চার্জশিটে রয়েছে বলে সূত্রের খবর। তবে শুধু শঙ্কর আঢ্য নয় তার পরিবারের আরও কয়েকজন এই দুর্নীতির নেপথ্যে রয়েছে বলে দাবি কেন্দ্রীয় গোয়েন্দামহলের। ফরেক্স ছাড়াও শঙ্করের পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের একাধিক কোম্পানির নামও থাকার সম্ভাবনা রয়েছে চার্জশিটে।

কিন্তু তদন্ত এখানেই শেষ নয়। দুর্নীতির রহস্যের পর্দাফাঁস করতে ইডির দ্বিতীয় চার্জশিটেও রেশন বন্টনে কারচুপিতে ধৃত মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের ভূমিকা সংক্রান্ত তথ্য থাকছে। মূলত রেশন দুর্নীতির টাকা বালু ওরফে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের হাত ঘুরে কিভাবে শঙ্কর আঢ্যের মাধ্যমে বিদেশে পাচার হয়েছে? এমনকি দুবাইতে যে সংস্থায় রেশন দুর্নীতির টাকা লগ্নি হয়েছে তারও স্পষ্ট উল্লেখ রয়েছে চার্জশিটে। সূত্রের খবর এর আগে শঙ্কর ও তার কোম্পানির মাধ্যমে লক্ষ লক্ষ টাকা দুবাইতে পাঠানোর তথ্য হাতে এসেছিল ইডির।  ভারতীয় মুদ্রায় প্রায় ৬৬ লক্ষেরও বেশি টাকা পাঠানো হয়েছিল শঙ্কর ওরফে ডাকু মারফত। এখন ইডির পেশ করা দ্বিতীয় চার্জশিটে রেশন বন্টন দুর্নীতির আর কোন কোন সত্য প্রকাশ পায় সেটাই দেখার।

3 days ago
ED: নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় ধৃত প্রসন্ন রায়-এর ইডি হেফাজত, স্বাস্থ্য পরীক্ষার পর সিজিওতে প্রসন্ন

শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিকাণ্ডে ফের কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের হাতে গ্রেফতার মিডলম্যান প্রসন্ন রায়। ৪ঠা মার্চ পর্যন্ত ইডি হেফাজতেই অভিযুক্ত। নিয়ম মোতাবেক শুক্রবারও বিধাননগর মহকুমা হাসপাতালে স্বাস্থ্যপরীক্ষার পর সিজিও নিয়ে আসা হল নিয়োগ দুর্নীতির অন্যতম অভিযুক্ত প্রসন্ন রায়কে। মূলত প্রথমে শিক্ষক নিয়োগে কারচুপির ঘটনায় মিডলম্যান হিসেবে সিবিআইয়ের হাতে গ্রেফতার হয়েছিলেন প্রসন্ন রায়। কিন্তু গতবছর সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জামিনে ছাড়া পেয়ে যান তিনি। যদিও তার বিপুল অঙ্কের সম্পত্তি দেখে সন্দেহ থেকেই গিয়েছিল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকদের। এমনকি অভিযোগ উঠে আসে যে সিবিআই-এর গ্রেফতারির পরও জেল হেফাজতে থাকাকালীন সম্পত্তি বিক্রির চেষ্টা করেছিলেন নিয়োগ দুর্নীতির এই মিডলম্যান। প্রসন্ন রায়ের এই বিপুল পরিমাণ সম্পত্তির উৎস কী? নিয়োগ দুর্নীতির কালো টাকাতেই বৈভব ফুলেফেঁপে উঠেছে প্রসন্ন রায়ের? টাকার যোগানটাই বা তাকে দিত কে? প্রসন্নকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে তারই তথ্য সন্ধানে  কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা।

প্রসঙ্গত, ১৮ জানুয়ারি প্রসন্ন রায়ের বাড়ি ও অফিসে তল্লাশি চালায় ইডি। প্রসন্ন রায়ের নিউটাউনের অফিস থেকে একাধিক নথি উদ্ধার করেছিল ইডি আধিকারিকরা। উদ্ধার হয় ৪০০-র বেশি দলিল, শতাধিক এটিএম ও ৭০টি প্যানকার্ড। তদন্তে দেখা গিয়েছে যে, দলিলগুলি উদ্ধার হয়েছে, তা ছিল প্রসন্ন রায়ের অফিসের বেতনভুক কর্মীদের নামে। মূলত ইডির হাতে উঠে আসে প্রসন্নর একাধিক সম্পত্তির নথি ও তথ্য প্রমাণ। প্রসন্ন রায়ের ১০০ কোটির বেশি সম্পত্তির হদিশ পায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। এই সব নথির উপর ভিত্তি করেই দ্বিতীয়বার গ্রেফতার হয়েছিলেন প্রসন্ন। বুধবার সেই নিয়োগ দুর্নীতি সংক্রান্ত মামলায় প্রসন্নর হয়ে আদালতে সওয়াল করেন আইনজীবী অনির্বাণ গুহঠাকুরতা।

কিন্তু আদালতে প্রসন্ন রায়ের জামিনের আবেদন করেননি আইনজীবী। বরং ইডির তরফে আদালতে প্রসন্ন রায়ের ২০০টি ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট এবং ১০০টি কোম্পানির তথ্য প্রমাণ পেশ করতে দেখা যায় এদিন। পাশাপাশি ইডির আইনজীবী ভাস্করপ্রসাদ বন্দ্যোপাধ্যায় জানান, মিডলম্যান প্রসন্নর ৯৭টি সম্পত্তির হদিশ এবং ৭০ কোটি টাকার হিসাব খতিয়ে দেখা হচ্ছে। বাদী-বিবাদী পক্ষের সওয়াল জবাবের ভিত্তিতে আপাতত ইডি হেফাজতেই প্রসন্ন। এখন  ইডির প্রশ্নবাণে অভিযুক্ত প্রসন্ন রায়ের কাছ থেকে নিয়োগ দুর্নীতি সংক্রান্ত আর কোন কোন তথ্যের সন্ধান মেলে সেটাই দেখার।

4 days ago


Raid: ভিনরাজ্যের প্রতারণা মামলায় শহরজুড়ে একযোগে তল্লাশি ইডি ও আয়করের

ফের শহরজুড়ে একাধিক জায়গায় তল্লাশি অভিযান ইডি এবং আয়কর দফতরের। জানা গিয়েছে, ভিনরাজ্যের প্রতারণা মামলার কারণেই এ রাজ্যের একাধিক জায়গায় অব্যাহত ইডির তল্লাশি অভিযান। বুধবার, সল্টলেকের  AE ৪৩০ ছাড়াও বিভিন্ন জায়গায় চলল ইডির তল্লাশি। ইডি সূত্রে খবর, অনলাইন অ্যাপের মাধ্যমে চলত প্রতারণা এবং এই  প্রতারণার কাজ পরিচালনা করা হতো   ছত্তিশগড় থেকে। একইসঙ্গে অভিযোগ  রয়েছে কর ফাঁকি দেওয়ার।

এছাড়াও সল্টলেক সেক্টর ফাইভের একটি বেসরকারি সংস্থাতেও চলল ইডির তল্লাশি অভিযান পর্ব।  GST কর তছরূপের অভিযোগে সৃজন কর্পোরেট পার্কের ১৬ তলায় অবস্থিত ওই বেসরকারি সংস্থায় তল্লাশি, এমনটাই ইডি সূত্রে খবর। পাশাপাশি, উত্তর ব্যারাকপুর পুরসভার এক নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বাশা এলাকায় এক বেসরকারি সংস্থার কর্মী সর্বানী ভগত-এর বাড়িতেও হানা দিল ইডি।  সর্বানীর স্বামী রাজু ভগত, পেশায় গাড়ির চালক। সল্টলেকের মতো একইভাবে উত্তর প্রদেশের একটি অনলাইন গেমিং  অ্যাপস -এর আর্থিক কেলেঙ্কারির তদন্ত করতেই  ED র এই অভিযান বলে জানা গিয়েছে। এই গেমিং অ্যাপস-এর ম্যানেজার হিসেবে নাম উঠে এসেছে সর্বাণী ভগতের।

এছাড়াও রিষড়ার ঘোড়ামারা  প্রভাসনগর এলাকায় ১৮ নং ওয়ার্ডে চলল আয়কর দফতরের তল্লাশি অভিযান। রিষড়ার একটি বহুজাতিক আবাসনে অনুজ পাণ্ডের ফ্ল্যাটে বুধবার সকাল থেকেই  শুরু হয় আয়কর দফতরের এই তল্লাশি অভিযান। সবমিলিয়ে আর্থিক কেলেঙ্কারির তদন্ত করতেই বুধবার শহরের একাধিক জায়গায় চলল ইডি এবং আয়কর দফতরের তল্লাশি অভিযান।

সবমিলিয়ে আর্থিক তছরুপ সহ ভিনরাজ্যে অনলাইন অ্যাপের মাধ্যমে প্রতারণার তদন্ত করতেই বুধবার শহরের একাধিক জায়গায় চলল ইডি এবং আয়কর দফতরের তল্লাশি অভিযান।  শিক্ষা থেকে নিয়োগ, GST ফাঁকি থেকে ভিন্রাজ্যের প্রতারণার যোগ, তাহলে কি বাংলা ধীরে ধীরে দুর্নীতির স্বর্গরাজ্য হয়ে উঠছে? এই প্রশ্ন যেমন উঠছে তেমনি  এখন এইতল্লাশি অভিযানের ফলে ইডি এবং আয়কর দফতরের হাতে আর কোন কোন নাম তালিকায় উঠে আসে, সেদিকেই তাকিয়ে বঙ্গের ওয়াকিবহাল মহল। 

6 days ago
Agitation: শুকনো কথায় ভিজবে না চিড়ে! নিয়োগ নোটিশের দাবিতে কুনালের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ চাকরি প্রার্থীদের

চাকরিপ্রার্থীদের কান্না আর হাহাকারের যেন কোনও শেষ নেই। প্রতিদিনই রাজপথে তাদের বিক্ষোভ জানান দেয় তাদের যন্ত্রণা। সরকার আমল দেয় না তাদের দাবির। চোখ বন্ধ করে থাকে। কেটে যায় বছরের পর বছর। মঙ্গলবারও কলকাতার রাজপথে দেখা গেল তারই প্রতিফলন। ২০২২ টেট উত্তীর্ণ চাকরিপ্রার্থীদের D.L.ED ঐক্যমঞ্চের তরফে হল APC ভবন অভিযান।  লোকসভা নির্বাচনের আগে ৫০ হাজার শূন্যপদে নিয়োগের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল সরকার। কিন্তু প্রতিশ্রুতিই সার। মেলেনি চাকরি। উল্টে প্রতিবারের মত দাবি জানাতে গেলে মিলেছে পুলিসের বাধা। করুণাময়ীর সামনে রীতিমতো শুরু হয় পুলিসের সঙ্গে ধাস্তাধস্তি। একপ্রকার টেনে হিঁচড়ে চাকরিপ্রার্থীদের তোলা হয় প্রিজন ভ্যনে।

মঙ্গলবার  সল্টলেকে বিক্ষোভের পর বুধবার চাকরিপ্রার্থীরা পৌঁছে যান কুনাল ঘোষের বাড়ি। তৃণমূল মুখপাত্র্রের বাড়ির সামনে বিক্ষোভ দেখান তারা। তাদের দাবি আর প্রতিশ্রুতি নয়। অবিলম্বে ভোটের আগে নোটিস বের করতে হবে। চাকরিপ্রার্থীরা কুণাল ঘোষের পিএ-এর সঙ্গে দেখা করেন। কিন্তু তিনি জানান বাড়িতে থাকলেও তাঁকে বিরক্ত করা যাবে না। চাকরিপ্রার্থীরা জানাচ্ছেন এই হতাশ পরিস্থিতিতে তারা যদি একটু কথা বলতে না পারেন তাহলে তার এই অবস্থায় তারা কার কাছে যাবেন। চাকরিপ্রার্থীদের কাছে গিয়ে ভোটের আগে চাকরি হওয়ার অনেক গালভরা প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন কুণাল ঘোষ। কিন্তু কোথায় নিয়োগ ? যিনি প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন তিনি আর দেখা দিচ্ছেন না। তবে কি অন্তঃসারশূন্য প্রতিশ্রুতিই বাংলার চাকরিপ্রার্থীদের প্রাপ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে ? যে প্রতিশ্রুতি রাখা যায় না তা কেন দেন কুণালবাবুরা ? জবাব চায় বাংলার চাকরিপ্রার্থীরা। 

6 days ago


Ration Scam: কালো টাকা সাদা করার কারবার! আদালতে পেশ ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ দাসকে

রেশনবন্টন দুর্নীতির তদন্তের গতি বাড়াতেই ধৃত শঙ্কর আঢ্যের কোম্পানির সূত্র ধরেই সামনে এসেছিল তার ম্যানেজার ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ দাসের নাম। আপাতত ইডি হেফাজতেই ঠাঁই হয়েছে ব্যবসায়ীর। মঙ্গলবার হেফাজত শেষে ফের আদালতে পেশ ধৃত বিশ্বজিৎ দাসকে।

সূত্রের খবর, দফায় দফায় জিজ্ঞাসাবাদে একাধিক অভিযোগ উঠে এসেছে ধৃত ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে। মূলত ইডি গোয়েন্দামহলের দাবি, তদন্তে অসহযোগিতা করছে বিশ্বজিৎ দাস। মানি এক্সচেঞ্জিং, আমদানি-রপ্তানি সহ সোনার গয়নার ব্যবসা রয়েছে বিশ্বজিতের। দুর্নীতির কালো টাকাও, ধৃত বিশ্বজিৎ দাসের মাধ্যমেই দুবাই সহ বিভিন্ন দেশের পাচার করা হত বলে ইডি সূত্রে খবর। কিন্তু তাঁর এই দুর্নীতির কারবারের সঙ্গে ধৃত মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের যোগাযোগ রয়েছে কি? ব্যবসায় কোনওভাবে কি মন্ত্রী টাকা লেনদেন করেছিলেন? ইডির প্রশ্ন কার্যত এড়িয়ে গিয়েছেন ব্যবসায়ী বিশ্বজিৎ দাস। এমনকি শেখ শাহজাহানের প্রসঙ্গ উঠলেও নীরব থাকতে দেখা গিয়েছে বিশ্বজিতকে।

প্রসঙ্গত, বিশ্বজিতের বাড়ি ও অফিসে তল্লাশি চালিয়ে ইডির আধিকারিকরা উদ্ধার করেছিলেন হাওয়ালা সংক্রান্ত বিপুল নথি। প্রমাণ মিলেছিল তারা নানাবিধ অসাধু কারবারের।২০১৬-২০১৭ এর মধ্যে দুবাইতে বিশ্বজিতের ৩টি কোম্পানির হদিসও পেয়েছিল ইডি। যাবতীয় প্রমাণ এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের হাতে আসার পরও বিশ্বজিৎ দাসের নিজেকে বার বার নির্দোষ দাবি করার মরিয়া চেষ্টা আদতে যে ধোপে টিকবে না তা সহজেই অনুমেয়। আগামীদিনে ইডির প্রশ্নবাণে ধৃত ব্যবসায়ীর কাছ থেকে রেশন দুর্নীতি সংক্রান্ত নতুন কোনও তথ্যের সন্ধান মেলে কিনা এখন সেটাই দেখার।

7 days ago
ED: দুর্নীতির 'মাধ্যম' শাহজাহান ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীর এক্সপোর্ট সংস্থা, সিজিওতে হাজিরা অরুণ সেনগুপ্তের

রেশন বন্টনে দুর্নীতির সূত্র ধরে একের পর এক রাঘব বোয়ালের নাম উঠে আসছে ইডির হাতে। সেই দুর্নীতির তদন্ত করতে গিয়ে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের নজরে আসে সন্দেশখালির বেতাজ বাদশাহ শাহজাহান। সময় যত এগিয়েছে ততই তার একের পর এক অপকর্ম প্রকাশ্যে এসেছে। ইডির স্ক্যানারে এসেছে শাহজাহান ঘনিষ্ঠ একাধিক ব্যবসায়ীও। তল্লাশি হয়েছিল শাহজাহানের ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীদের বাড়িতেও। ব্যবসায়ী অরুণ সেনগুপ্তের বিরাটির বাড়ি ও ফার্মেও হানা দেয় ইডি। খোঁজ মেলে ব্যবসায়ীর নিজস্ব এক্সপোর্ট সংস্থা ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানির। দুর্নীতির তদন্তের খাতিরে আজ, মঙ্গলবার ইডি দফতরে এলেন অরুণ সেনগুপ্ত। সূত্রের খবর, বেশ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ নথি বিশেষ করে মাছ বিক্রির বিল সহ ব্যাঙ্কের একাধিক নথি নিয়ে হাজিরা দেন তিনি। সোমবার তলব করা হলেও এদিন অরুণ তনয়া ও ব্যবসায়ীর আইনজীবী উপস্থিত হন ইডি দফতরে।

তদন্তে জানা গিয়েছিল, ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানির কর্ণধার অরুণ সেনগুপ্ত। এই কোম্পানি মূলত চিংড়ি রপ্তানির সঙ্গে জড়িত। ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানি মারফত বাইরের দেশে ব্যাবসায়ীর মাছ ব্যবসার মাধ্যমেই টাকা পাচার করা হত বলে সূত্রের খবর।অরুণ সেনগুপ্তের বাড়িতে ইডির তল্লাশিতে বিদেশে মাছ চালানোর কিছু বিল হাতে এসে পৌঁছলেও সম্পূর্ণ তথ্য প্রমাণ এখনও হাতে পায়নি তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা।

আপাতত শেখ শাহজাহানের সঙ্গে ওই ব্যবসায়ীর কবে থেকে সম্পর্ক? রেশন দুর্নীতির কালো টাকা কোনওভাবে এই ব্যবসায় ব্যবহার করা হয়েছে কিনা? সে বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করবেন ইডি আধিকারিকরা, এমনটাই সূত্রের খবর। সপ্তাহের শুরুতেই এবার রেশন দুর্নীতির এই রহস্য কোন দিকে মোড় নেই সেটাই দেখার।

7 days ago
ED: দুর্নীতির 'মাধ্যম' শাহজাহান ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীর এক্সপোর্ট সংস্থা, সিজিওতে তলব অরুণ ও তাঁর কন্যা

রেশন বন্টনে দুর্নীতির সূত্র ধরে একের পর এক রাঘব বোয়ালের নাম উঠে আসছে ইডির হাতে। সেই দুর্নীতির তদন্ত করতে গিয়ে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দাদের নজরে আসে সন্দেশখালির বেতাজ বাদশাহ শাহজাহান। সময় যত এগিয়েছে ততই তার একের পর এক অপকর্ম প্রকাশ্যে এসেছে। ইডির স্ক্যানারে এসেছে শাহজাহান ঘনিষ্ঠ একাধিক ব্যবসায়ীও। তল্লাশি হয়েছিল শাহজাহানের ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীদের বাড়িতেও। ব্যবসায়ী অরুণ সেনগুপ্তের বিরাটির বাড়ি ও ফার্মেও হানা দেয় ইডি। খোঁজ মেলে ব্যবসায়ীর নিজস্ব এক্সপোর্ট সংস্থা ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানির। দুর্নীতির তদন্তের খাতিরে সোমবার ব্যবসায়ী অরুণ সেনগুপ্তের সঙ্গে তার মেয়েকেও সিজিওতে তলব ইডির। কেন্দ্রীয় এজেন্সির নির্দেশ মোতাবেক সোমবার ইডির দফতরে হাজির অরুণ তনয়া ও ব্যবসায়ীর আইনজীবী। 

তদন্তে জানা গিয়েছিল, ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানির কর্ণধার অরুণ সেনগুপ্ত। এই কোম্পানি মূলত চিংড়ি রপ্তানির সঙ্গে জড়িত। ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানি মারফত বাইরের দেশে ব্যাবসায়ীর মাছ ব্যবসার মাধ্যমেই টাকা পাচার করা হত বলে সূত্রের খবর।অরুণ সেনগুপ্তের বাড়িতে ইডির তল্লাশিতে বিদেশে মাছ চালানোর কিছু বিল হাতে এসে পৌঁছলেও সম্পূর্ণ তথ্য প্রমাণ এখনও হাতে পায়নি তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা।

আপাতত শেখ শাহাজাহানের সঙ্গে ওই ব্যবসায়ীর কবে থেকে সম্পর্ক? রেশন দুর্নীতির কালো টাকা কোনওভাবে এই ব্যবসায় ব্যবহার করা হয়েছে কিনা? সে বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন ইডি আধিকারিকরা। সপ্তাহের শুরুতেই এবার রেশন দুর্নীতির এই রহস্য কোন দিকে মোড় নেই এখন সেটাই দেখার। 

a week ago


ED: শাহজাহান ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ী অরুণ সেনগুপ্তকে সিজিওতে তলব ইডির

রেশন বন্টন দুর্নীতির পর্দাফাঁস করতে ময়দানে তেড়েফুঁড়ে নেমেছে ইডি। একদিকে শাহজাহানের বিরুদ্ধে ক্ষোভের আগুনে জ্বলছে সন্দেশখালি, প্রতিদিন শাহজাহান ও তার শাগরেদদের একের পর এক দুষ্কর্ম প্রকাশ্যে এসেছে। রেশন বন্টন দুর্নীতির গতি বাড়াতে শহর তোলপাড় ইডির তল্লাশিতে। শুক্রবারই ফেরার শাহজাহানের বিরুদ্ধে নতুন করে মামলা রুজু করে কলকাতা ও শহরতলির ছয়টি জায়গায় তল্লাশি অভিযান চালিয়েছেন ইডি আধিকারিকরা। তল্লাশি হয়েছিল শাহজাহানের ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ীদের বাড়িতেও। শাহজাহানের অসাধু কারবারের তদন্তে নেমে যাদবপুরের বিজয়গড়ে ব্যবসায়ী অরূপ সোমের বাড়িতে পৌঁছে যান ইডি আধিকারিকরা। দুর্নীতির তল পেতে শাহজাহানের ঘনিষ্ঠ ব্যবসায়ী অরুণ সেনগুপ্তের বিরাটির বাড়িতে ও ফার্মে হানা দেয় ইডি। খোঁজ মেলে তার নিজস্ব এক্সপোর্ট কোম্পানিরও। সোমবার সেই ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানির ডিরেক্টর অরুণ সেনগুপ্তকে সিজিওতে হাজিরার নির্দেশ কেন্দ্রীয় এজেন্সির।

প্রসঙ্গত, অরুণ সেনগুপ্তের এই কোম্পানির সঙ্গে নাম জড়িয়েছে শাহজাহান সহ অন্যান্য ব্যবসায়ীরও। তদন্ত বলছে শেখ শাহাজাহানের থেকে মাছ কিনতেন অরুণবাবু। ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানি দিয়ে বাইরের দেশে এই মাছ ব্যবসার মাধ্যমেই টাকা পাচার করা হত। শুক্রবারের তল্লাশিতে বিদেশে মাছ চালানের কিছু বিল হাতে এসে পৌছলেও সম্পূর্ণ তথ্য প্রমাণ এখনও হাতে পায়নি তদন্তকারী সংস্থার আধিকারিকরা। আপাতত শেখ শাহাজাহানের সঙ্গে ওই ব্যবসায়ীর কবে থেকে সম্পর্ক? রেশন দুর্নীতির কালো টাকা কোনও ভাবে এই ব্যবসায় ব্যবহার করা হয়েছে কিনা? সে বিষয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন ইডি আধিকারিকরা। এবার ব্যাবসা সংক্রান্ত যাবতীয় নথি নিয়ে সোমবার সিজিওতে অরুণ সেনগপ্তের পৌছনোর পর এই দুর্নীতি কোন দিকে মোড় নেয় সেটাই দেখার।

a week ago
Deadbody: জঙ্গল থেকে উদ্ধার দুই নাবালিকার ঝুলন্ত মৃতদেহ, চাঞ্চল্য় চন্দ্রকোনায়

সাত সকালে জঙ্গল থেকে উদ্ধার হল দুই নাবালিকার ঝুলন্ত মৃতদেহ। ঘটনায় চাঞ্চল্য় ছড়িয়েছে পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা চন্দ্রকোনার ধামকুড়িয়ায়। জানা গিয়েছে, মৃত দুই নাবালিকার মধ্য়ে একজন স্থানীয় এলাকার বাসিন্দা। যার নাম সুমি মুরমু (১৮)। আর একজনের পরিচয় এখনও পর্যন্ত জানা যায়নি। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে চন্দ্রকোনা থানার পুলিস এসে মৃতদেহ দুটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তে পাঠিয়েছে। 

স্থানীয় সূত্রে খবর, এদিন সকালে জঙ্গলের পাশের রাস্তা দিয়ে হেঁটে যাওয়ার সময় নজরে আসে ওই দুই নাবালিকার মৃতদেহ। তারপরেই খবর দেওয়া হয় থানায়। মৃতদেহ দুটির চারপাশে ছড়িয়ে রয়েছে ভাঙ্গা মোবাইলের টুকরো, একটি ছুরি, চুড়িদারের একটি ওড়নার মধ্যে দুইজনে গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় ঝুলছে। 

ওই দুই নাবালিকাকে ঝুলতে দেখে স্থানীয়দের অনুমান তারা আত্মহত্য়া করেনি। তাদেরকে কেউ মেরে এভাবে ঝুলিয়ে দিয়েছে। কিন্তু কে বা কারা... কী কারণে এই ঘটনা ঘটিয়েছে তা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিস। 

2 weeks ago


Ed Raid: শাহজাহানের দুর্নীতির সাম্রাজ্যে ইডির হানা, কলকাতা সহ ৬ জায়গায় চলছে তল্লাশি

সন্দেশখালির নিখোঁজ তৃণমূল নেতা শেখ শাহজাহান মামলায় এবার জোর কদমে নেমেছে ইডি। শুক্রবার সকাল থেকেই 'শাহজাহান ঘনিষ্ট' ব্য়বসায়ীদের বাড়িতে তল্লাশি শুরু করেছেন ইডি আধিকারিকরা। শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে নতুন মামলা রুজু করে হাওড়া, কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগনা-সহ মোট ছয়টি জায়গায় তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। শেখ শাহজাহানের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত রয়েছে এমন বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর বাড়িতে চলছে তল্লাশি অভিযান।

যাদবপুরের বিজয়গড়ে ব্যবসায়ী অরূপ সোমের বাড়িতে চার ঘন্টা ধরে চলছে ইডির তল্লাশি অভিযান। ইডি সূত্রে খবর, ম্যাগনাম এক্সপোর্ট কোম্পানির সঙ্গে নাম জড়িয়ে রয়েছে শেখ শাহাজান ও একাধিক ব্যবসায়ীর। অরূপ সোমের ব্যবসার সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ ছিল শেখ শাহজাহানের। আর সেই সূত্র ধরেই আজ তল্লাশি অভিযান  চালাচ্ছেন ইডির আধিকারিকেরা। ইডির আধিকারিকেরা একদিকে যেভাবে ব্যবসায়ীর বাড়ির ভিতরে তল্লাশি চালাচ্ছেন, একই সঙ্গে তল্লাশি করা হয়েছে অরূপ সোমের বিলাসবহুল গাড়ি। গাড়ির ভেতরের অংশ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে খতিয়ে দেখেন ইডির আধিকারিক। ব্যবসায়িক কোনও নথি রয়েছে কিনা সেটাও দেখা হয় খতিয়ে।

এছাড়াও এদিন সকাল ৭টা নাগাদ তল্লাশি অভিযানে নামে ইডির দল। সেখান থেকে হাওড়া হালপাড়ার এক ব্য়বসায়ী পার্থ প্রতিম সেনগুপ্ত নামে তাঁর বাড়িতে হানা দিয়েছে ইডি। জমি সংক্রান্ত কেনা বেচায় চলছে তল্লাশি। বিরাটির ম্যাগনাম এক্সপোর্ট-এর মালিক অরুন সেনগুপ্তর বাড়িতেও চলছে ইডি তল্লশি। জিজ্ঞাসাবাদ চলছে ব্য়বসায়ীকে। ইডি সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই ব্য়বসায়ী মাছের ব্যবসা করেন। শেখ শাহজাহানের সঙ্গে ব্যবসায়িক সম্পর্ক কবে থেকে?
2 weeks ago
Bangla: আমি কোন কথা যে বলি! কোন পথে যে চলি!

'আমি কোন কথা যে বলি! কোন পথে যে চলি!' গানের লাইনটি ভীষণ ভাবে সার্থক এ ক্ষেত্রে, যেখানে বাংলা ভাষা প্রয়োগ নিয়ে বাঙালিরা কেত দেখানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু কেন? কারণ, জানেন সারাদিনে আমরা যা বলি তার মধ্যে কত শতাংশ বাংলা?

চায়ের কাপে বিস্কুট ডুবিয়ে খাওয়ার সময় হঠাৎ মাথায় আসলো যে এই চা চীনা শব্দ। আবার বিস্কুট ফরাসি শব্দ। বিস্কুটের সাথে থাকা চানাচুর হিন্দি। চায়ে যে চিনি ও পানি থাকে সেখানে চিনি চীনা অথচ পানি হিন্দি শব্দ। আবার চা ভর্তি পেয়ালাটা ফারসি কিন্তু কাপটা ইংরেজি শব্দ। এদিকে ইংরেজি শব্দটাই আবার পর্তুগিজ। চা চীনা হলেও কফি কিন্তু তুর্কি শব্দ। আবার কেক পাউরুটির কেক ইংরেজি, পাউরুটি পর্তুগীজ। 

একটু দামী খানাপিনায় যাই। আগেই বলে রাখি, খানাপিনা হিন্দী আর দাম গ্রীক। রেস্তোরাঁ বা ব্যুফেতে গিয়ে পিৎজা, বার্গার বা চকোলেট অর্ডার দেওয়ার সময় কখনও কি খেয়াল করেছেন, রেস্তোরা আর ব্যুফে দুইটাই ফরাসী ভাষার, সাথে পিৎজাও। পিৎজাতে দেওয়া মশলাটা আরবি।

মশলাতে দেওয়া মরিচটা ফারসি! বার্গার কিংবা চপ দুটোই আবার ইংরেজি। কিন্তু চকোলেট আবার মেক্সিকান শব্দ। অর্ডারটা ইংরেজি। যে মেন্যু থেকে অর্ডার করছেন সেটা আবার ফরাসী। ম্যানেজারকে নগদে টাকা দেওয়ার সময় মাথায় রাখবেন, নগদ আরবি, আর ম্যানেজার ইটালিয়ান। আর যদি দারোয়ান কে বকশিস দেন, দারোয়ান ও তার বকশিস দুটোই ফারসি। এবার চলুন বাজারে, সবজি ফলমূল কিনতে। বাজারটা ফারসি, সবজিও। যে রাস্তা দিয়ে চলছেন সেটাও ফারসি। ফলমূলে আনারস পর্তুগিজ, আতা কিংবা বাতাবিলেবুও। লিচুটা আবার চীনা, তরমুজটা ফারসি, লেবুটা তুর্কী। পেয়ারা-কামরাঙা দুইটাই পর্তুগীজ। পেয়ারার রঙ সবুজটা কিন্তু ফারসি। ওজন করে আসল দাম দেওয়ার সময় মাথায় রাখবেন ওজনটা আরবি, আসল শব্দটাও আসলে আরবি। তবে দাম কিন্তু গ্রীক, আগেই বলেছি।

ধর্মকর্মেও একই অবস্থা। মসজিদ আরবি দরগাহ/ঈদগাহ ফারসি। গীর্জা কিন্তু পর্তুগীজ, সাথে গীর্জার পাদ্রীও। যিশু নিজেই পর্তুগীজ। কেয়াং এদিকে বর্মিজ, সাথে প্যাগোডা শব্দটা জাপানি। আর, মন্দিরের ঠাকুর হলেন তুর্কী। আর কি বাকি আছে? ও হ্যাঁ। কর্মস্থল! অফিস আদালতে বাবা, স্কুল কলেজে কিন্ডারগার্ডেনে সন্তান। বাবা নিজে কিন্তু তুর্কী, যে অফিসে বসে আছেন সেটা ইংরেজি, তবে আদালত আরবি, আদালতের আইন ফারসি, তবে উকিল আরবি। ছেলে যে স্কুলে বা কলেজে পড়ে সেটা ইংরেজি, কিন্তু কিন্ডারগার্ডেন আবার জার্মান! স্কুলে পড়ানো বই কেতাব দুইটাই আরবি শব্দ। যে কাগজে এত পড়াশোনা সেটা ফারসি। তবে কলমটা আবার আরবি। রাবার পেনসিল কিন্তু আবার ইংরেজি! পুরো স্ট্যাটাস মনে না থাকলে অন্তত এটা মনে রাখবেন যে মন শব্দটা আরবি। শব্দের কেচ্ছা-কাহিনী এখানেই খতম। তবে কেচ্ছাটা আরবি, কাহিনীটা হিন্দি, উভয়ের খতমটা আরবিতে।  মাফ চাইলাম না বা সরি বললাম না, কারণ মাফটা আরবি আর সরিটা ইংরেজি।

(সোমনাথ পাঠকের পাতা থেকে)

2 weeks ago
Dev: ৮ ঘণ্টা পর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে দিল্লির ইডি দফতর থেকে বেরোলেন দেব...

প্রায় ৮ ঘণ্টা পর জিজ্ঞাসাবাদ শেষে দিল্লির ইডি দফতর থেকে বেরোলেন ঘাটালের তৃণমূল সাংসদ দীপক অধিকারী ওরফে দেব। বুধবার সকাল ১১টায় গরু পাচার মামলায় তলব করা হয়েছিল তাঁকে।

হাসিমুখেই রাজধানীর প্রবর্তন ভবন থেকে বেরোতে দেখা যায় দেবকে। সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, 'আমি হাসতে হাসতে গেছি, হাসতে হাসতে বেরোলাম। আমি একজন আইন মেনে চলা নাগরিক। যতবার ডাকবে ততবার আসবো। যত রকম ভাবে পারব সহযোগিতা করবো।' যদিও কোন মামলায় তিনি এদিন ইডির মুখোমুখি হলেন? সিএন-এর করা এই প্রশ্নের উত্তর তিনি এড়িয়ে গেলেন।

দিল্লিতে ইডির দফতরে ঢোকার আগেও তিনি বলেছিলেন, আমি কোনও চুরি করিনি, তাই ভয় পাইনা। ইডি যতবার তলব করবে ততবার আসব। তবে যদি শ্যুটিংয়ে বড় কিছু কাজ থাকে তাহলেই এই না আসার কথা জানাব। অর্থাৎ ইডির সঙ্গে সহযোগিতার বার্তা দিয়েছেন অভিনেতা দেব।

এর আগে ২০২২-এর ১৫ ফেব্রুয়ারি, গরুপাচার মামলায় দেবকে নিজাম প্যালেসে প্রায় পাঁচ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করে সিবিআই। কয়েক মাসের ব্যবধানে ২২ জুন এই মামলাতেই দেবকে দিল্লিতে জিজ্ঞাসাবাদ করে এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট। এর প্রায় দেড় বছর পর ফের দেবকে তলব করল তারা।

2 weeks ago


HC: জেলে ১ বছর ৭ মাস! পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বিচারপ্রক্রিয়া কবে শুরু হবে? ইডির কাছে রিপোর্ট তলব হাইকোর্টের

প্রায় এক বছর সাত মাস ধরে পার্থ চট্টোপাধ্যায় জেল হাজতে রয়েছেন। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতিতে তিনি অন্যতম অভিযুক্ত। এমন দাবি ইডি ও সিবিআই করে এসেছে বরাবর৷ এবার ইডির বিশেষ অধিকর্তার রিপোর্ট তলব করল কলকাতা হাইকোর্ট। বুধবার এই মামলার শুনানি ছিল বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষের বেঞ্চে। পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের জামিন মামলায় এই তলব বলে জানা গিয়েছে। কবে থেকে নিম্ন আদালতে বিচারপর্ব শুরু করা সম্ভব? সেই বিষয়ে রিপোর্টে আদালতকে জানাতে হবে। বুধবার এমনই গুরুত্বপূর্ণ নির্দেশ দিলেন বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষ।

এদিনের আদালতের প্রাথমিক পর্যবেক্ষণও অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ। বিচারপতি তীর্থঙ্কর ঘোষের মন্তব্য, অনির্দিষ্টকালের জন্য কাউকে হেফাজতে রাখা যায় না। এক বছর সাত মাস জেলে আছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। গুরুতর অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত চলছে। সেই কথা ঠিক আছে। কিন্তু আর কতদিন? ইডির আইনজীবী ও আধিকারিকের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন বিচারপতির।

প্রেসিডেন্সি জেলের পহেলা বাইশ বিশেষ সেলে আছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তাঁর বান্ধবী অর্পিতাও জেল হেফাজতে। একের পর এক তথ্য সামনে এসেছে তদন্ত মাধ্যমে। অর্পিতার দুটি ফ্ল্যাট মিলিয়ে প্রায় ৫০ কোটি টাকা পাওয়া গিয়েছিল। একের পর এক সম্পত্তির হদিশ মিলেছিল। তৃণমূলের সেই দোর্দণ্ডপ্রতাপ নেতা, দলের মহাসচিবের জায়গা হয়েছিল গারদের ওপাড়ে। দল তার সঙ্গে সম্পর্ক না রাখার মতোই। মন্ত্রিসভা থেকেও তাকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল। দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও সেভাবে এত দিনে পার্থ চট্টোপাধ্যায় সম্পর্কে কথা খরচ করেনি।

পার্থ চট্টোপাধ্যায় বেশ কয়েক মাস ধরে ধারাবাহিকভাবে জামিনের আবেদন করে এসেছেন। নিজে জামিনের সওয়াল করেছেন। তিনি কোথাও যাবেন না। বাড়িতেই থাকবেন। তিনি দীর্ঘ সময় ধরে অসুস্থ। এভাবে আর জেলবন্দি থাকতে পারছেন না। আদালতে বহু বার এমন কথা বলে কাতর আবেদন করেছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু কোনওবারই জামিন মেলেনি৷ ইডি ও সিবিআই বরাবর পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে প্রভাবশালী বলে আখ্যা দিয়েছেন। শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতির অন্যতম মুখ। এই দাবিও করা হয়েছে। জামিন বরাবর না মঞ্জুর হয়েছে আদালতে।

এবার আদালত এই বিষয়ে নিজেই প্রশ্ন করেছে৷ আগামী ২৭ ফেব্রুয়ারি পরবর্তী শুনানি। ওই দিন ইডিকে এই বিষয়ে বক্তব্য রাখতে হবে। তাহলে কি এবার শুরু হবে বিচারপ্রক্রিয়া?

2 weeks ago
Fraud: এটিএম থেকে টাকা তছরূপের অভিযোগ, ধৃত ২ অভিযুক্ত, উদ্ধার নগদ অর্থ

অভিনব কায়দায় এটিএম থেকে টাকা তছরূপের দায়ে ২ ব্যক্তিকে গ্রেফতার করল ঠাকুরপুকুর থানার পুলিস। জানা গিয়েছে, মঙ্গলবার রাতে বেহালার শিলপাড়ার ডায়মন্ড হারবার রোডের পাশে একটি ব্যাঙ্কের এটিএম থেকে টাকা তোলার জন্য দুই ব্যক্তি সেখানে ঢুকেছিল। তবে বেশ কিছুক্ষণ ধরে তারা সেখানে থাকায় সিসি ক্যামেরায় বিষয়টি ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের নজরে আসে।

ওই এটিএমে কোনও নিরাপত্তারক্ষী ছিল না। তড়িঘড়ি সেখানে অন্য ব্রাঞ্চ থেকে একজন নিরাপত্তারক্ষীকে পাঠানো হয়। নিরাপত্তারক্ষী পৌঁছে বাইরে থেকে এটিএম-এর শাটার নামিয়ে দেন। সেই সঙ্গে ঠাকুরপুকুর থানায় খবর দেওয়া হয়। পুলিস ঘটনাস্থলে এসে দুই ব্যক্তিকে হাতেনাতে পাকড়াও করে। পাশাপাশি, বেশকিছু নগদ অর্থও উদ্ধার করে পুলিস।

পুলিস সূত্রে খবর, ধৃতরা এটিএম-এর যে অংশ থেকে টাকা বের হয়, সেখানে একটি টেপ লাগিয়ে বাইরে অপেক্ষা করত। গ্রাহকরা সেখান থেকে টাকা তুলতে এলেই ওই টেপে টাকা আটকে যেত। পরে গ্রাহকরা বেরিয়ে যেতেই ওই টাকা হাতিয়ে নিত অভিযুক্তরা। পুলিসের অনুমান, এভাবেই বেশকিছু এটিএম থেকে টাকা হাতিয়েছে ধৃতরা। ধৃত দুজনই বিহারের বাসিন্দা বলে জানা গিয়েছে। বুধবার ধৃতদের আলিপুর আদালতে তোলা হয়। এই ঘটনার সঙ্গে আরও কয়েকজন যুক্ত থাকতে পারে বলে সন্দেহ পুলিসের। ঘটনার তদন্তে নেমেছে ঠাকুরপুকুর থানার পুলিস।

2 weeks ago