Breaking News
BJP: প্রথম দফায় ১৯৫ প্রার্থীর নাম ঘোষণা বিজেপির, বাংলার ২০ জনের নাম তালিকায়      Modi: 'রামমোহনের আত্মা সন্দেশখালির মহিলাদের দুর্দশায় কাঁদছে', আরামবাগ থেকে মমতাকে তোপ মোদীর      Suspend: গ্রেফতারির পরেই তৃণমূল থেকে ছয় বছরের জন্য সাসপেন্ড সন্দেশখালির 'বেতাজ বাদশা' শাহজাহান      Sandeshkhali: নিরাপদ সর্দারকে নিঃশর্তে জামিন দিয়ে রাজ্য পুলিসকে তিরস্কার বিচারপতির      Sheikh Shahjahan: ঘর ভাঙচুর, টাকা লুঠ! শেখ শাহজাহানের বিরুদ্ধে নতুন এফআইআর সন্দেশখালি থানায়      Sandeshkhali: অজিত মাইতিকে তাড়া গ্রামবাসীদের, সাড়ে ৪ ঘণ্টা পর অবশেষে আটক পুলিসের      Ajit Maity: উত্তপ্ত সন্দেশখালি! অজিত মাইতির গ্রেফতারির দাবিতে বিক্ষোভ মহিলাদের, বাঁচতে সিভিকের বাড়িতে আশ্রয়      Sandeshkhali: সন্দেশখালি ঢুকতে বাধা, ভোজেরহাটেই দিল্লির ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং টিমকে আটকাল পুলিস      Sandeshkhali: একই যাত্রায় পৃথক ফল! ১৪৪ যুক্ত এলাকায় নির্বিঘ্নে ঘুরছেন পার্থ-সুজিত, বাধাপ্রাপ্ত মীনাক্ষী      Sandeshkhali: ভোটের আগে উত্তপ্ত সন্দেশখালি, বিশেষ নজর নির্বাচন কমিশনের     

DengueInKolkata

Dengue: চিকিৎসাকেন্দ্রই পরিণত ডেঙ্গির আঁতুড়ঘরে! পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে হাসপাতাল পরিদর্শনে অতীন ঘোষ

চলতি বছরে বর্ষার শুরু থেকেই রাজ্যে উর্ধ্বমুখী ডেঙ্গির (Dengue) গ্রাফ। ফিরে এসেছে গত বছরে ডেঙ্গির সেই ভয়াবহতা। পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যুর হারও। পুরসভা, স্বাস্থ্য দফতরের তরফে একাধিক গাইডলাইন, বিজ্ঞপ্তি, সতর্কবার্তা প্রচারের পরও রাজ্যে বেলাগাম ডেঙ্গির সংক্রমণ। এমনকি খোদ চিকিৎসাকেন্দ্রই পরিণত হয়েছে ডেঙ্গির আঁতুড়ঘরে। একদিনেই রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে ডেঙ্গিতে মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার পর্যন্ত কলকাতা ও সল্টলেকে দু'জন, আসানসোলে তিন জন এবং খড়্গপুর ও ঘাটালে একজন মারা গিয়েছেন। ফলে ডেঙ্গির মৃত্যু সংখ্যা নিয়ে উদ্বেগে রাজ্য সরকার। অন্যদিকে শুক্রবার হাসপাতাল পরিদর্শনে এসে হতবাক ডেপুটি মেয়র (Deputy Mayor) অতীন ঘোষও (Atin Ghosh)। কড়া বার্তা দিলেন পুরকর্মীদের।

শহর কলকাতার বুকে মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের আনাচে কানাচে জমে রয়েছে আবর্জনা। নেই হাসপাতাল চত্বরের পর্যাপ্ত রক্ষণাবেক্ষণ। জমা জলে জন্ম নিচ্ছে ডেঙ্গি মশা। কার্যত হাসপাতালের অন্দরের বেহাল দশায় ডেঙ্গি আতঙ্কে তটস্থ রোগী থেকে রোগীর পরিবার। আবার আর জি কর হাসপাতালের চিত্রটাও অনেকটা তাই। আর জি কর হাসপাতালের সামনের ওপেন ড্রেনে জমে রয়েছে জল। ড্রেনের ফাঁকা অংশ নোংরা আবর্জনায় ভর্তি। হাসপাতালের জরুরি বিভাগের সামনেও পড়ে রয়েছে নোংরা আবর্জনা। যা পরিষ্কার করা হয়নি।

ডেপুটি মেয়রের তরফে হাসপাতালের পরিস্থিতি বদলের আশ্বাস মিললেও বাস্তবে তা কতটা কার্যকর হবে, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে সাধারণ মানুষের মনে। প্রশ্ন উঠছে, কলকাতার একাধিক হাসপাতালেও ডেঙ্গির পরিবেশ বহাল রয়েছে। যাদবপুরের কেপিসি হাসপাতাল ডেঙ্গির জন্য অনুকূল। তাই ডেপুটি মেয়র অতীন ঘোষ যখন বিভিন্ন হাসপাতাল পরিদর্শন করছেন, তাহলে শহরের অন্যান্য হাসপাতালগুলোর এই পরিস্থিতি বদলাবে কবে?

5 months ago