Breaking News
Abhishek Banerjee: বিজেপি নেত্রীকে নিয়ে ‘আপত্তিকর’ মন্তব্যের অভিযোগ, প্রশাসনিক পদক্ষেপের দাবি জাতীয় মহিলা কমিশনের      Convocation: যাদবপুরের পর এবার রাষ্ট্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়, সমাবর্তনে স্থগিতাদেশ রাজভবনের      Sandeshkhali: স্ত্রীকে কাঁদতে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়লেন 'সন্দেশখালির বাঘ'...      High Court: নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় প্রায় ২৬ হাজার চাকরি বাতিল, সুদ সহ বেতন ফেরতের নির্দেশ হাইকোর্টের      Sandeshkhali: সন্দেশখালিতে জমি দখল তদন্তে সক্রিয় সিবিআই, বয়ান রেকর্ড অভিযোগকারীদের      CBI: শাহজাহান বাহিনীর বিরুদ্ধে জমি দখলের অভিযোগ! তদন্তে সিবিআই      Vote: জীবিত অথচ ভোটার তালিকায় মৃত! ভোটাধিকার থেকে বঞ্চিত ধূপগুড়ির ১২ জন ভোটার      ED: মিলে গেল কালীঘাটের কাকুর কণ্ঠস্বর, শ্রীঘই হাইকোর্টে রিপোর্ট পেশ ইডির      Ram Navami: রামনবমীর আনন্দে মেতেছে অযোধ্যা, রামলালার কপালে প্রথম সূর্যতিলক      Train: দমদমে ২১ দিনের ট্রাফিক ব্লক, বাতিল একগুচ্ছ ট্রেন, প্রভাবিত কোন কোন রুট?     

Amdanga

Bomb Recovry: বাঁশবন থেকে উদ্ধার ড্রামভর্তি তাজা বোমা, আতঙ্ক এলাকায়, তদন্তে আমডাঙা থানার পুলিস

বাঁশবাগান থেকে উদ্ধার তিন ড্রাম তাজা বোমা। শনিবার সকালে আমডাঙা সোনাডাঙ্গা থেকে বোমাগুলি উদ্ধার করেছে আমডাঙা থানার পুলিস। তারপর বোমাগুলিকে নিষ্ক্রিয় করার জন্য খবর দেওয়া হয় বম্ব স্কোয়াডকে। বোমা উদ্ধারের ঘটনায় রীতিমত আতঙ্ক ছড়িয়েছে গোটা এলাকায়। 

জানা গিয়েছে, এদিন সকালে মাঠের কাজে গিয়ে এক ব্যক্তি প্রথমে দেখতে পান বাঁশ বাগানের মধ্যে রাখা রয়েছে হলুদ রঙের তিনটি ড্রাম। এরপর সন্দেহের জেরে ড্রামগুলির কাছে গিয়ে তিনি ড্রামের মুখ খুলতে দেখতে পান তিনটি ড্রামের মধ্য়ে রয়েছে তাজা তাজা বোমা। যদিও পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে আমডাঙ্গা থানার পুলিস গিয়ে ড্রামগুলিকে ঘিরে রেখেছে। তবে কে বা কারা কী উদ্দেশ্যে ওই ড্রাম ভর্তি বোমা গুলি রেখেছিল তা নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে আমডাঙা থানার পুলিস। 

5 months ago
Amdanga: ফের উত্তপ্ত আমডাঙা, এবার গুলি প্রাক্তন তৃণমূল কর্মীকে!

বসিরহাটের পর আমডাঙা। একই দিনে ভিন্ন দুই জায়গাতে চলল গুলি। প্রায় মাসখানেক আগে দুষ্কৃতীদের বোমার আঘাতে মৃত্যু হয়েছিল আমডাঙায় তৃণমূলের পঞ্চায়েত প্রধান রূপচাঁদ মণ্ডলের। সেই ঘটনার স্মৃতি এখনও টাটকা। এর মধ্য়েই ফের দুষ্কৃতীদের দৌরাত্ম্য আমডাঙায়। রবিবার গভীর রাতে শেখ ফরিদ হাসান নামে এক প্রাক্তন তৃণমূল কর্মী তথা জমি ব্যবসায়ীর গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। তবে তিনি বাড়ির ভেতরে ঢুকে যাওয়ায় কোনক্রমে প্রাণে বেঁচে যান। গাড়ির ভিতর থেকে গুলির একটি খোলও উদ্ধার হয়েছে বলে দাবি ব্যবসায়ীর। গোটা ঘটনাটি খতিয়ে দেখছে পুলিস। 

সম্প্রতি জয়নগরের দোলুইখাকি গ্রামে দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন হন তৃণমূল পঞ্চায়েত সদস্য সাইফুদ্দিন লস্কর। তারপর গতমাসে দুষ্কৃতীদের বোমার আঘাতে প্রাণ হারিয়েছিলেন আমডাঙার পঞ্চায়েত প্রধান রূপচাঁদ মণ্ডল। রাজ্যজুড়ে একের পর এক এ ধরনের ঘটনা ঘটলেও কোনো হেলদোল নেই প্রশাসনের। 

বিরোধীদের দাবি, তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এবং জমি কেনাবেচা নিয়ে বিবাদের জেরেই এই ধরনের ঘটনাগুলো ঘটছে। এর ফলে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন সাধারণ মানুষ। রাজ্যের নাগরিকদের নিরাপত্তা দেওয়া কি পুলিস প্রশাসনের কাজ নয় ? পুলিস কি তার দায় অস্বীকার করতে পারে ?  প্রশ্ন ওয়াকিবহাল মহলের। 

7 months ago
Amdanga: আমডাঙায় তৃণমূল নেতা খুনের ১৪ দিনের মাথায় গ্রেফতার মূল অভিযুক্ত সহ ৪

আমডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল প্রধান রূপচাঁদ মণ্ডল খুনের ১৪ দিনের মাথায় গ্রেফতার অন্যতম অভিযুক্ত। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, মাটিয়া থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাকে। মূল অভিযুক্তের পাশাপাশি আরও ৪ জনকে গ্রেফতার এদিন গ্রেফতার করেছে পুলিস। মোট ধৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ৬। চার ধৃতদের নাম আলি আকবর মণ্ডল, কাজি আনোয়ার হোসেন, শামসুদ্দিন মণ্ডল ও গিয়াসউদ্দিন মণ্ডল। প্রত্যেকেরই বাড়ি আমডাঙা গ্রাম পঞ্চায়েতের সোনাডাঙা এলাকায়। শুক্রবার তাদের আদালতে পাঠায় আমডাঙা থানার পুলিস।

ঘটনাটি ঘটেছে ১৭ নভেম্বর। এদিন সন্ধ্যায় কামদেবপুর বাজার এলাকায় রূপচাঁদ মণ্ডলকে লক্ষ্য করে বোমা ছোড়ে অভিযুক্তরা। বোমার আঘাতে রূপচাঁদের ডান হাত উড়ে যায়। এ ঘটনা টের পেতেই তাঁকে উদ্ধার করে বারাসতের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই ওইদিন রাতেই মৃত্যু হয় রূপচাঁদের। এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়ায় এলাকায়। চার জনের বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতার হয় আনোয়ার হোসেন নামে একজন। তার বেশ কয়েকদিন পর গ্রেফতার করা হয় আরেক অভিযুক্তকে। তবে অধরা ছিল অন্যতম অভিযুক্ত আলি আকবর মণ্ডল-সহ বেশ কয়েকজন।

অবশেষে গ্রেফতার করা হল অন্যতম অভিযুক্ত আলি আকবর মণ্ডল-সহ ৪ জনকে। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, আলি আকবর মণ্ডলই নাকি বোমা ছুঁড়েছিল রূপচাঁদ মণ্ডলকে লক্ষ্য করে। এই ঘটনার সঙ্গে আরও কেউ জড়িত ছিল কি না, তা খতিয়ে দেখছে পুলিস।

7 months ago


Amdanga: ক্ষমতা প্রদর্শনের লড়াইতেই কি বলি আমডাঙার প্রধান? সিএন-র অন্তর্তদন্তে চাঞ্চল্যকর তথ্য

কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল প্রথম থেকেই। আমডাঙার প্রধান খুনের তদন্ত এগোলে বোধহয় তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের তথ্যেও শিলমোহর পড়ার পালা। তবে তার আগে সিএন-র অন্তর্তদন্তে উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য। শুধু দলের রেষারেষি নয়, এ যে একেবারে এলাকার দখলের লড়াই। কার দম কত? কার জোর কত? কার দখলে যাবে জমি? ক্ষমতা প্রদর্শনের লড়াইতেই কি বলি আমডাঙার প্রধান?

দুষ্কৃতী-বোমাবাজিতে উত্তর ২৪ পরগনার আমডাঙার প্রধান রূপচাঁদ মণ্ডলের খুনে প্রাইম সাসপেক্টের তালিকায় তৃণমূল নেতা তৈয়ব হোসেন। তদন্তের শুরুতেই খাঁড়া হয় তৃণমূলী গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের তত্ত্ব। কিন্তু খুনের মোটিভ কী হতে পারে? সেই কেঁচো খুঁড়তে গিয়েই বেরিয়ে এল কেউটে। উত্তর ২৪ পরগনার বোদাই অঞ্চল, এই এলাকায় প্রভাব তৃণমূল নেতা তৈয়ব হোসেনের। অভিযোগ, তৈয়বকে টপকে বোদাইতেও জমি দখল, বাগান বাড়ির দখল, দালালি শুরু করেছিলেন রূপচাঁদ। গণ্ডগোলের মূলে থাকতে পারে দত্তপুকুরের ১০ বিঘা জমির ওপর অবকাশ বাগানবাড়ি।

কাকের বাসায় কোকিলের মতো জুড়ে বসেন রূপচাঁদ। শুধু অবকাশ বাগান বাড়ি নয়, নীলগঞ্জ-দত্তপুকুর রোডে সন্তোষপুরে সরকারি জমি দখল করে নাকি একটি হোটেল ও কার সার্ভিস সেন্টার তৈরি করেছিলেন আমডাঙার প্রধান।

মাকড়সার জালের মতো তৈয়বের এলাকায় প্রভাব বিস্তার করেন রূপচাঁদ। অভিযোগ, সরকারি জমি দখল করে রূপচাঁদের হোটেল তৈরিতে আপত্তি জানিয়েছিলেন তৈয়ব। কসমস গ্রীন সিটি নামে একটি প্রোজেক্টেও প্রভাব খাটান রূপচাঁদ। বোদাইতে জমি কেনা-বেচার লড়াইয়ে দিনের পর দিন তৈয়ব-রূপচাঁদের সম্পর্ক তিক্ত হতে শুরু করে।

তৈয়বের বোদাইয়ে কেন রূপচাঁদের প্রভাব খাটবে? বিবাদ তুঙ্গে যাওয়ার পর আমডাঙায় বৈঠকও হয়। সেই বৈঠকে তৈয়বের ছেলে ও ভাইয়েরা রূপচাঁদকে মারধর করে বলে অভিযোগ।

পুরনো শত্রুতার জেরেই কি প্রধান খুন? দখলদারির লড়াইটা বাড়তে বাড়তে কতদূর বেড়েছিল? খুনের মূলে বখরার লড়াই? মানুষ মারার মতো প্রতিশোধ স্পৃহা কী জন্মেছিল?

7 months ago
Amdanga: ভর সন্ধ্যায় বোমা মেরে খুন তৃণমূলের প্রধানকে, কাঠগড়ায় তৃণমূলই

জয়নগরের পর এবার আমডাঙ্গা। তৃণমূল প্রধানকে বোমা মেরে খুনের অভিযোগ উঠল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আমডাঙ্গা কামদেবপুর এলাকার ঘটনা। পুলিশ জানিয়েছে, আমডাঙার ওই মৃত পঞ্চায়েত প্রধানের নাম রূপচাঁদ মন্ডল। পুলিশ জানিয়েছে, তদন্তে নেমে এখনও অবধি একজন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করা হয়েছে, পাশাপাশি আরও দুজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ চালানো হচ্ছে। এ ঘটনায় এখনও অবধি মৃত ওই প্রধানের পরিবারের তরফে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দের দিকেই অভিযোগ তোলা হয়েছে।

সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কামদেবপুর বাজার এলাকায় রূপচাঁদ মণ্ডলকে লক্ষ্য করে বোমা ছোড়ে দুষ্কৃতীরা। বোমার আঘাতে রূপচাদের দেন হাত উড়ে যায়। এ ঘটনা টের পেতেই তাঁকে উদ্ধার করে বারাসতের একটি বেসরকারি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই বৃহস্পতিবার রাতেই মৃত্যু হয় রূপচাঁদের। ঘটনার তদন্তে নেমে পুলিশ এক ব্যক্তিকে গ্রেফতার করে। বারাসত পুলিশ জেলা সুপার ভাস্কর মুখোপাধ্যায় জানিয়েছেন, যে ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে তার নাম আনোয়ার হোসেন। কয়েকদিন আগেই জমি কেনাবেচা নিয়ে তৈয়বের সঙ্গে ঝামেলা হয় রূপচাদের। পাশাপাশি আটক তৈয়ব হোসেন ও সাদ্দাম হোসেন। পুলিশ আরও জানিয়েছে, তৈয়ব হোসেনের দুই ছেলে আনোয়ার ও সাদ্দাম। সম্প্রতি জমি কেনাবেচা নিয়ে তৈয়বের সঙ্গে গন্ডগোল রূপচাঁদ মণ্ডলের। যদিও আমডাঙার বিধায়ক রফিকুর রহমান জানিয়েছেন, তৈয়ব অঞ্চলের তৃণমূল নেতা। কিন্তু এই ঘটনায় তৈয়বের নাম আসলেও, সেটা রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নেই। এখানে রাজনৈতিক কোনো গোষ্ঠী নেই। রূপচাঁদের এর সঙ্গে তৈয়বের কোনো ঝামেলা থাকলে অন্য কোনো কারণে হতে পারে। সেটা ব্যাক্তিগত হতে পারে।

এ ঘটনায় রূপচাদের পরিবার ও স্থানীয়দের তরফে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের দিকেই অভিযোগ তুলেছে। স্থানীয়দের অভিযোগ, যারা খুন করেছে তারা শাসক দলের কর্মী। উনি প্রধান হওয়ায় অনেকে মেনে নিতে পারেন নি। ওদিকে, বেসরকারি হাসপাতাল থেকে পঞ্চায়েত প্রধান রূপচাঁদ মন্ডলের মৃতদেহ বারাসাত মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্তের জন্য নিয়ে যাওয়া হয়েছে।

7 months ago


Amdanga: জয়নগরের পর এবার আমডাঙা! তৃণমূল পঞ্চায়েত প্রধানের উপর বোমা বর্ষণ

জয়নগরের পর এবার আমডাঙা। তৃণমূল পঞ্চায়েত প্রধানের উপর বোমা বর্ষণ। গুরুতর অবস্থায়  তাঁকে নারায়ণা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। এই ঘটনায় আহত  হয়েছেন তাঁর কিছু সঙ্গীও। আমডাঙা থানার পুলিস জানিয়েছে, আহত ওই পঞ্চায়েত প্রধানের নাম রূপচাঁদ মণ্ডল। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় স্থানীয় কান্দেপপুর বাজারে দলীয় কাজে এসেছিলেন তিনি। সেখানেই তাঁকে দুষ্কৃতীরা বোমা মারে বলে অভিযোগ। এই ঘটনায় রীতিমতো চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে এলাকায়। এ বিষয়ে আমডাঙার বিধায়ক রফিকুর রহমান সিএন-কে জানিয়েছেন, ঘটনার পূর্ণ তদন্ত করে দোষীদের শাস্তির দাবি জানাচ্ছেন। ইতিমধ্যে আমডাঙা থানার পুলিস ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

7 months ago
Robbery: পুজোর আগে ফের সোনার দোকানে বড়সড় ডাকাতি, ঘটনায় চাঞ্চল্য় আমডাঙায়

ফের সোনার দোকানে ডাকাতি। দোকানের শাটার ভেঙে সোনা-গয়না চুরি করে চম্পট দেয় এক দুষ্কৃতীর দল। মঙ্গলবার এই ঘটনাটি ঘটেছে আমডাঙার দারিয়াপুর এলাকায়। পুজোর আগে এই ডাকাতির ঘটনায় ব্যাপক বিপদের মুখে পড়লেন সোনা ব্য়বসায়ী।

পুলিস সূত্রে খবর, মঙ্গলবার ভোরবেলায় সাত জনের একটি ডাকাতের দল সোনার দোকানের শাটার ভেঙে ডাকাতি করছিল। সেই সময় সোনার দোকানের আলো জ্বলছিল। আলো দেখে দুই সিভিক ভলেন্টিয়ার দোকানের দিকে এগিয়ে গেলেই তাঁদেরকে ধরে বেধড়ক মারধর শুরু করে ওই ডাকাতের দল। তাঁদের মাথায় বন্দুক পর্যন্ত ঠেকায় বলে অভিযোগ। পরবর্তীতে সিভিক ভলেন্টিয়ারদের হাত-পা বেঁধে পাশের একটি জায়গায় ফেলে দিয়ে লুটপাট করে চম্পট দেয় ডাকাতের দল।

এরপর দোকানের কর্মচারীরা এসে দেখে দোকানে শাটার অর্ধেক ভাঙা। ভিতরের সব জিনসপত্র ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে। সমস্ত সোনা, গহনা কিছু নেই। এমনকি  ক্যামেরা ভেঙে হার্ডডিস্ক পর্যন্ত নিয়ে চম্পট দেয় ওই দুষ্কৃতীর দল। এরপর খবর দেওয়া হয় পুলিসকে। এই বিষয়ে স্থানীয়দের দাবি ৫০ থেকে ৬০ বছরের পুরনো এই দারিয়াপুর বাজার। এই প্রথম এমন চুরির ঘটনা ঘটেছে। প্রশাসন যথাযথ ব্যবস্থা না নিলে পরবর্তীতে আরও বিপদের মুখে পড়তে হবে ব্য়বসায়ীদের।


8 months ago
Amdanga: বিজেপি প্রার্থীর বাড়ি লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টি ও বোমাবাজি, অভিযোগ শাসক দলের বিরুদ্ধে

বিজেপি প্রার্থীর (BJP Candidates) বাড়ি লক্ষ্য করে ইটবৃষ্টি ও বোমাবাজির (Bomb) অভিযোগ উঠলো শাসক দলের (TMC) বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে আমডাঙা (Amdanga) থানার অন্তর্গত আদহাটা পঞ্চায়েত এলাকার ৩৭ নম্বর বুথে। এই ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় আমডাঙা থানার পুলিস (Police)। যদিও এই বিষয়ে ওই বিজেপি প্রার্থী থানায় কোনও লিখিত অভিযোগ দায়ের করেননি। শাসক দলের বিরুদ্ধে ওঠা এই অভিযোগ সম্পূর্ণ অস্বীকার করেছেন শাসক দলের কর্মীরা। তবে এই ঘটনাকে ঘিরে বেশ আতঙ্ক ছড়িয়েছে এলাকায়।

সূ্ত্রের খবর, ওই বিজেপি প্রর্থীর নাম পঙ্কজ মজুমদার। তিনি আমডাঙার আদহাটা পঞ্চায়েত এলাকার ৩৭ নম্বর বুথের বিজেপি প্রার্থী। ওই বিজেপি প্রার্থী জানান, বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে তাঁর বাড়িতে কিছু তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা হামলা চালায়। প্রার্থীর বাড়ি লক্ষ্য করে ইট ও বোমাও ছোঁড়া হয়, এমনটাই জানান তিনি। এই বিষয়ে তিনি আরও দাবি করেন, 'আদহাটা গ্রামের ৩৭ নম্বর বুথে বিজেপির জেতার প্রবল সম্ভবনা রয়েছে। আর তাই ভেবে তৃণমূলের পায়ের তলার মাটি সরে গিয়েছে, তাই রাতের অন্ধকারে বাড়িতে ইট বোমাবাজি করে ভয় দেখানোর চেষ্টা চালাচ্ছে।'

12 months ago


Amdanga: আমডাঙায় দুস্কৃতীর ছোড়া গুলিতে গুলিবিদ্ধ তৃণমূল কর্মী

আমডাঙায় (Amdanga) দুস্কৃতীর ছোড়া গুলিতে (Shooting) গুলিবিদ্ধ তৃণমূল (Tmc) কর্মী। মঙ্গলবার সকালে আমডাঙ্গা থানার আওয়ালসিদ্ধি এলাকার ঘটনা। এ ঘটনায় এখনও ৪ জন অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে বলে জানিয়েছে পুলিস।

পুলিস আরও জানিয়েছে, লটারির দোকান নিয়ে গণ্ডগোল, আর তার জেরেই আমডাঙায় গুলি বলে প্রাথমিক তদন্তে দাবি পুলিসের। আওয়ালসিদ্ধি চৌমাথায় তৃণমূল কর্মী আব্দুল জসিমকে লক্ষ্য করে পরপর তিন রাউন্ড গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। পরপর দুটি গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হলেও একটি গুলি তৃণমূল কর্মী আব্দুল জসিমেরে ডান পায়ে লাগে। স্থানীয়রা গুলিবিদ্ধ অবস্থায় জসিমকে আমডাঙ্গা গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে আসে। প্রাথমিক চিকিৎসার পর জসিমকে বারাসত হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

one year ago
Amdanga: আমডাঙায় ব্যবসায়ীর ছেলেকে দুষ্কৃতীর মারধর, স্থানীয় থানার আইসি-র ইন্ধন দেখছে তৃণমূল বিধায়ক

বিস্ফোরক মন্তব্য আমডাঙার (Amdanga) বিধায়ক রফিকুর রহমানের (Rafiqur Rahman)। সোমবার দারিয়াপুর হাট মালিকের ছেলেকে মারধরের ঘটনায় প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে আমডাঙা থানার আইসি (IC) বিরুদ্ধে অভিযোগ করলেন আমডাঙার বিধায়ক। তবে এই ঘটনায় রাকিবুল হক (ডালিম) নামে এক হিরোইন ব্যবসায়ীকে গ্রেফতার করে আমডাঙা থানার পুলিস। কিন্তু আসল ঘটনা কী?

আমডাঙা থানার হাবরা (Habra) নৈহাটি রোডের উপর দারিয়াপুর এলাকার হাটের মালিকের ছেলেকে দুষ্কৃতীদের মারধরের ঘটনার প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে কার্যত আমডাঙা থানার আইসির বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ করলেন বিধায়ক। তিনি বলেন, "এই পরিস্থিতি তৈরি করেছেন আমডাঙা থানার আইসি অঞ্জন দত্ত। যে গাঁজার ব্যবসায়ী পিস্তলের বাট দিয়েছে মেরেছেন, তার কাকাকে তিন চারদিন আগে আইসি সন্ধেবেলা ধরে এবং রফা করে রাতে ছেড়ে দেন। যেদিন এটা হয়েছে সেদিন আমি অ্যাডিশনাল এসপিকে মেসেজ করেছিলাম গোটা বিষয়টা জানিয়ে। এক্ষুণি অপসারণ চাই।" 

প্রশাসনিক নিষ্ক্রিয়তার অভিযোগ করেছিল সাধারণ মানুষ, সেই প্রশ্নের উত্তরে বিধায়ক জানান, প্রশাসন নিষ্ক্রিয়তার পয়সা পায়। তিনি সাধারণ মানুষের জন্য দাবি করেন, এই আইসি যদি আমডাঙায় থাকে তাহলে আমডাঙায় শান্তি ফিরবে না। শুধু নেশাই নয়, তিনি আরও দাবি করেন, আমডাঙা থানার আইসি ইন্ধনে চলছে আমডাঙা কলেজের পাশে লোটোর ব্যবসা। স্বাভাবিকভাবে বিধায়কের এই বক্তব্যের পরেই চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে গোটা আমডাঙা জুড়ে। এখন দেখার বিধায়কের এই বক্তব্যের পরে কী ব্যবস্থা নেয় পুলিস-প্রশাসন।

2 years ago