০৫ মার্চ, ২০২৪

Ration Scam: রেশন দুর্নীতিতে নয়া তথ্য, ভুয়ো রেশন দোকানের হদিশ
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2024-01-29 18:50:40   Share:   

রেশন বণ্টন দুর্নীতির শেকড় খুঁজতে গিয়ে প্রায়শই নিত্য নতুন তথ্য উঠে আসছে ইডির তদন্তে। ইতিমধ্যেই এই রেশন দুর্নীতিতে ইডির হাতে একে একে গ্রেফতার হয়েছেন ব্যবসায়ী বাকিবুর রহমান, মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক এবং বনগাঁর প্রাক্তন চেয়ারম্যান শঙ্কর আঢ্য। এবার ইডি তদন্তে উঠে এলো নয়া তথ্য। জানা গিয়েছে, অধিকাংশ রেশন দোকানেই  রেশন ডিলার এবং মালিকদের থেকে প্রায়শই  মাসে ৪ হাজার করে টাকা নেওয়া হতো। যে টাকা ঘুরপথে চলে যেত মন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয়র ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে। ইডি তদন্তে পাওয়া গিয়েছে, বহু ভুয়ো রেশন দোকানের হদিশ। এই ভুয়ো রেশন দোকানগুলোকে ব্যবহার করেই  সেখান থেকে প্রায়  ৩০০ কোটির বেশি টাকা তোলা হয়েছে যা বর্তমানে ২০ হাজার কোটি ছাড়িয়েছে। ইতিমধ্যেই এইসব তথ্য আদালতেও জানিয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডি।

রেশন দুর্নীতির জাল গোটাতে গিয়ে রীতিমত হাঁপিয়ে যাচ্ছেন ইডির আধিকারিকরা কিন্তু দুর্নীতির তল খুঁজে পাওয়া এখনও যায়নি। এতো কোটি কোটি টাকার দুর্নীতি যে এক দুজন লোকের কম্ম নয় তা বলাই বাহুল্য।  তাহলে এই দুর্নীতির পেছনে শাসকদলের আর কোন কোন প্রভাবশালীর হাত রয়েছে? এই বিপুল দুর্নীতির শেষ কোথায়? রাজ্যের এই দুর্নীতির দায় আসলে কার? জবাব চাইছে বাংলার ওয়াকিবহাল মহল।


Follow us on :