০২ মার্চ, ২০২৪

Fake Certificate: ডাক্তারি নিয়োগ প্রক্রিয়ার 'ফেক শংসাপত্র', সিবিআই তদন্তের নির্দেশ
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2024-01-24 16:41:30   Share:   

ডাক্তারি পরীক্ষায় রিজার্ভ পরীক্ষার্থীদের নিয়োগের ক্ষেত্রে ভুয়ো শংসাপত্র। রাজ্যজুড়ে বিভিন্ন দুর্নীতির আবহেই ডাক্তারি পরীক্ষায় এমবিবিএস-এর রেজিস্ট্রেশনের ক্ষেত্রে ভুয়ো জাতিগত শংসাপত্র জমা দিয়ে নিয়োগের অভিযোগে আদালতে মামলা রুজু হয়েছিল। এই ঘটনাতেই এবার সিবিআই তদন্তের নির্দেশ কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের।

প্রসঙ্গত, এর আগেও ১৪ জন চিকিৎসকের নিয়োগ বাতিল করেছিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। কিন্তু তারপরে আবারও মিলেছে জাতিগত ভুয়ো শংসাপত্র জমা দিয়ে নিয়োগের তথ্য প্রমাণ। আর তারপরেই ঘটনায় সিবিআই তদন্তের নির্দেশ দিলেন বিচারপতি।

এদিন এই মামলার শুনানি চলাকালীন বিচারপতির মন্তব্য, রাজ্য বিষয়গুলিকে আড়াল করার চেষ্টা করছে। শেখ শাহজাহানের প্রসঙ্গ উত্থাপন করে বিচারপতির মন্তব্য, আপনারা শেখ শাহজাহানকে গ্রেফতার করতে পেরেছেন কি? আর তাই এই ধরনের ঘটনার ক্ষেত্রে আমার রাজ্যের ওপর ভরসা নেই বলেই জানান বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

আর এরপরেই, কারা এই ভুয়ো শংসাপত্র ইস্যু করেছে, এর নেপথ্যে কোনও আর্থিক লেনদেন আছে কি না, তা অবিলম্বে সিবিআইকে খুঁজে বের করার নির্দেশ দিলেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়।

এরই সঙ্গে রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল এর উদ্দেশ্যে বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়ের মন্তব্য, সব তথ্য সিবিআই কে হস্তান্তর করতে হবে। এমনকি শেখ শাহজাহানকে পুলিসের গ্রেফতার করতে না পারা। কেন্দ্রীয় সংস্থার গায়ে হাত তোলার ঘটনা নিয়ে রাজ্যের ওপর যে তাঁর কোনও ভরসা নেই, তা বলেও  ভর্ৎসনা জানান রাজ্যের প্রতি। সঙ্গে জানান, আর্থিক দুর্নীতি হলে সেটাও সামনে আসা প্রয়োজন।

প্রসঙ্গত, এর আগেও মেডিক্যাল নিট-এ ভুয়ো জাতিগত শংসাপত্র দেখিয়ে নিয়োগের ঘটনায় সিবিআই তদন্তের ইঙ্গিত দিয়েছিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। এডুকেশন বোর্ডের ডিরেক্টরকে ডেকে পাঠিয়ে বিচারপতির প্রশ্ন করেছিলেন, অভিযোগ ভিত্তিহীন হতেই পারে, কিন্তু সেই অভিযোগের ভিত্তিতে কেন তদন্ত করেনি বোর্ড? সেদিনই সব পক্ষের বর্ণনা শুনে বিচারপতি মন্তব্য করেছিলেন, আদালত মনে করলে স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে সিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেবে। তাঁর সেই ইঙ্গিতেই বুধবার সিলমোহর দিলেন বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়। এবার মেডিক্যাল নিট-এ ভুয়ো জাতিগত শংসাপত্র দেখিয়ে নিয়োগের ঘটনার তদন্তের দায়ভার উঠল সিবিআইয়ের হাতে।

যদিও সিঙ্গল বেঞ্চের সেই নির্দেশে এবার স্থগিতাদেশ দিলেন বিচারপতি সৌমেন সেনের ডিভিশন বেঞ্চ। বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায় এই মামলায় সিবিআইয়ের তদন্তের নির্দেশ দিয়ে সিবিআই আধিকারিককে এজলাসে ডেকে পাঠানোর পর, সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে এদিনই বিচারপতি সৌমেন সেনের ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন করেন রাজ্যের অ্যাডভোকেট জেনারেল। তাঁর অভিযোগ, সিঙ্গল বেঞ্চ তাঁর কোনও কথাই শোনেনি। তারপরেই, সিঙ্গল বেঞ্চের ওই নির্দেশের ওপর স্থগিতাদেশ দেয় বিচারপতি সৌমেন সেনের ডিভিশন বেঞ্চ। যদিও, যেহেতু রাজ্য ডিভিশন বেঞ্চের এই নির্দেশের কোনও অর্ডার কপি বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায়ের বেঞ্চে পেশ করতে পারেনি, তাই পূর্ব রায়মাফিক বিচারপতি গঙ্গোপাধ্যায় সিবিআইয়ের হাতে যাবতীয় নথি তুলে দিলেন। মামলার পরবর্তী শুনানি ২৫ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে দশটায়। এরপর আদালতের রায় মামলা কোন দিকে মোড় নেয়, এখন সেটাই দেখার।


Follow us on :