০২ মার্চ, ২০২৪

SSKM: 'একজন দিনের পর দিন কীভাবে ভর্তি থাকতে পারে?' এসএসকেএমের কাছে রিপোর্ট চাইল কলকাতা হাইকোর্ট
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2024-01-04 15:23:19   Share:   

এবারে বড় ফ্যাসাদে এসএসকেএম। রাজ্যের সুপারস্পেশালিটি হাসপাতাল এসএসকেএম। বহুদিন ধরেই এই হাসপাতালে একে একে ভর্তি হয়েছে দুর্নীতিতে গ্রেফতার অভিযুক্তরা। আর সেখানেই মাসের পর মাস কেটে যাচ্ছে তাঁদের। ফলে এবারে এসএসকেএমে চিকিৎসাধীন প্রভাবশালীদের স্বাস্থ্য সংক্রান্ত রিপোর্ট হলফনামা দিয়ে জানাতে বলল কলকাতা হাইকোর্ট। এসএসকেএম হাসপাতাল নিয়ে জোড়া জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয়। আর সেই মামলার শুনানিতেই এসএসকেএম-এর ডিরেক্টরের কাছে রিপোর্ট তলব করল কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ।

নিয়োগ দুর্নীতি সংক্রান্ত একাধিক মামলায় হাইকোর্টে এসএসকেএমের ভূমিকায় প্রশ্ন তুলেছে ইডি। পরে এই এসএসকেএম হাসপাতাল নিয়ে জোড়া জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয় কলকাতা হাইকোর্টে। বিভিন্ন দুর্নীতিতে যুক্ত থাকা ব্যক্তিদের আশ্রয়স্থল হয়ে দাঁড়িয়েছে এসএসকেএম বলে অভিযোগ মামলায়। বৃহস্পতিবার এই মামলার শুনানিতে প্রশ্নের মুখে এসএসকেএম। তিনি প্রশ্ন করেন, 'একজন দিনের পর দিন কীভাবে ভর্তি থাকতে পারে?' এদিন প্রধান বিচারপতির মন্তব্য, 'বেড দখল করে রাখাটা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। অভিযোগ যদি সত্যি হয় তাহলে এটা সিরিয়াস কেস।'

'কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা যখনই কোনও প্রভাবশালী বা মন্ত্রীকে গ্রেফতার করে তখনই দেখা যায় সংশোধনাগার কর্তৃপক্ষ তাঁদের স্বাস্থ্যের অবনতির কথা বলে এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি করায়। তারা দিনের পর দিন বেড দখল করে রাখেন। সাধারণ মানুষ চিকিৎসা করাতে গেলে বেড পায় না,' এই অভিযোগ তুলে মামলা করেন সুস্মিতা সাহা নামে এক আইনজীবী।

এর পর এই মামলায় প্রধান বিচারপতি বলেন, 'সংশোধনাগারের নিজেদের একটি হাসপাতাল থাকে। যখন সেই হাসপাতাল চিকিৎসা করতে ব্যর্থ হয় তখনই তাকে সেই সংশোধনাগারের অধীনে কোন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু তার মানে এই নয়, সেই ব্যক্তিকে পাঁচ মাস ছয় মাস সেই হাসপাতালে ভর্তি করে রাখা হবে। তবে সেটা অবশ্য নির্ভর করবে চিকিৎসকদের উপরে। এক্ষেত্রে আদালত কি করবে? তবে আপনাদের অভিযোগ যুক্তিযুক্ত। দিনের পর দিন বেড দখল করা ঠিক নয়।' এরপরেই এই বিষয়ে এসএসকেএম হাসপাতালের ডিরেক্টরকে রিপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দেয় আদালত।  বর্তমানে কতজন ভর্তি রয়েছে হাসপাতালে, তাঁদের বর্তমান শারীরিক অবস্থা কেমন, আর কতদিন ভর্তি থাকবেন, তা হলফনামা আকারে জানানোর নির্দেশ প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চের। মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ২৪ জানুয়ারি।


Follow us on :