Weather Update: পুজোর আগে রাজ্যে ফের ভারী বৃষ্টি!

পুজোর একসপ্তাহ বাকি। তারমধ্যেই হাওয়া অফিস জানিয়েছে, বৃষ্টির সম্ভাবনা রাজ্যজুড়ে। এছাড়াও উত্তরবঙ্গে ভারী বৃষ্টি চলবে। এর ফলে ধসের আশঙ্কা রয়েছে  পাহাড়ে। বাড়বে নদীর জলস্তর, নিচু এলাকা প্লাবনের আশঙ্কা রয়েছে তাই। অন্যদিকে, দক্ষিণবঙ্গে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। তবে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই। এদিকে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে জলপাইগুড়ি, দার্জিলিং, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ারে।

যদিও টানা বৃষ্টিতে জলমগ্ন পরিস্থিতি কলকাতার একাধিক জায়গায়।কলকাতায় আজ আংশিক মেঘলা আকাশ থাকবে। বজ্রবিদ্যুৎ সহ দু-এক পশলা হালকা বৃষ্টির সামান্য সম্ভাবনা রয়েছে। জলীয় বাষ্প বেশি থাকায় আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি বাড়বে। আজ দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকতে পারে ২৬.৬ ডিগ্রী সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪.৩ ডিগ্রি। বাতাসে জলীয় বাষ্পের সর্বাধিক পরিমাণ ৯৩ শতাংশ। বৃষ্টি চলেই যাচ্ছে, তাতে পুজোতে কতটা ভাসাবে এখন সেটাই দেখার। 

Weather Update: কয়েক ঘন্টায় দক্ষিণে ভারী বৃষ্টি, দুর্যোগের ভ্রুকুটি

 প্রবল বেগে অন্ধ্র ও ওড়িশা উপকূলে আছড়ে পড়েছে  ঘূর্ণিঝড় গুলাব । সরাসরি না হলেও পশ্চিমবঙ্গে এর পরোক্ষ প্রভাব পড়বে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, গুলাবের  ফলে গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গে  দুর্যোগের ভ্রুকুটি। বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা প্রবল।তিমধ্যেই সব রাজ্য সরকারি কর্মীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে ৫ অক্টোবর পর্যন্ত। ঘূর্ণিঝড় "গুলাব"  ও জোড়া নিম্নচাপের জেরে রেড অ্যালার্ট জারি হয়েছে কলকাতা সহ দক্ষিনবঙ্গের বেশ কয়েকটি জেলায়। গুলাবের জেরে দুর্যোগের আশঙ্কায়, কাঁচা বাড়িতে যারা থাকেন নিরাপদ জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। প্রতিটি জেলা প্রশাসনকে। বুলবুল; আমফান বা ইয়াস-এর ক্ষেত্রে সঠিক প্ল্যান অনুযায়ী কাজ করায় ক্ষয়ক্ষতি অনেকটাই আটকানো গিয়েছে। এবার‌ও সেটাই করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার  হালকা ও মাঝারি দু-এক পশলা বৃষ্টি হবে দক্ষিণবঙ্গের সব জেলায়। দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও পূর্ব মেদিনীপুরে ভারী বৃষ্টি হবে মঙ্গলবার দক্ষিণবঙ্গে দফায় দফায় বৃষ্টি হবে। ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হতে পারে দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর জেলায়। ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস কলকাতা, উত্তর ২৪ পরগনা, পশ্চিম মেদিনীপুর, পূর্ব ও পশ্চিম বর্ধমান, হাওড়া, হুগলি, ঝাড়গ্রাম, বাঁকুড়া ও পুরুলিয়াতে।

৫০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বইতে পারে উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, কলকাতা, ঝাড়গ্রাম, হাওড়া, হুগলি, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুরে।বুধবার দু-এক পশলা বৃষ্টির পূর্বাভাস দক্ষিণবঙ্গে। বৃষ্টি চললেও বৃষ্টির পরিমাণ কমবে। পশ্চিম বর্ধমান, বাঁকুড়া, পুরুলিয়া ও ঝাড়গ্রামে দু-এক পশলা ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস। উত্তরবঙ্গে আপাতত ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা নেই।

Lakshmi Vandar: আদৌ কি পরের বছর মিলবে লক্ষীর ভান্ডারের টাকা!

রাজ্যে ইতিমধ্যে লক্ষীর ভান্ডারের আবেদন চলছে। বহু মানুষ কিন্তু আবেদন ও করেছে। যদিও সেপ্টেম্বর থেকে এই ছ’মাসে লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পে প্রদেয় অর্থ সংগ্রহে বেগ পেতে হবে না, বুঝেছে রাজ্য সরকার। কিন্তু পরের অর্থবর্ষ থেকে ওই প্রকল্পের বিপুল খরচ কী ভাবে চলবে, তা নিয়ে এখন থেকেই প্রশাসনিক স্তরে ভাবনাচিন্তা শুরু হয়েছে বলে নবান্ন সূত্রের খবর। এদিকে গত বাজেটে সরকার জানিয়েছিল, লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্প চালিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য অর্থের সংস্থান করাই আছে। রাজস্ব আদায় বা কেন্দ্রীয় করের ভাগ কাঙ্ক্ষিত হারে না-এলে অর্থের বিকল্প উৎসের সন্ধান করতে হতে পারে বলে মনে করছেন অভিজ্ঞ আধিকারিকদের অনেকে।

এই প্রকল্পে মূলত সাধারণ শ্রেণীভুক্ত গৃহবধূরা পাবেন মাসে ৫০০টাকা। এছাড়া তফসিলি মহিলারা পাবেন ১০০০ টাকা। চলতি আর্থিক বছরের বাজেটের পরে সরকার জানিয়েছিল, লক্ষ্মীর ভান্ডার প্রকল্পে ১০ হাজার কোটি টাকা ধরা আছে। প্রশাসনের অন্দরের সাম্প্রতিক খবর, সেই অর্থের পরিমাণ বাড়িয়ে ১৭ হাজার কোটি টাকা ধরে রাখা হচ্ছে। অর্থ দফতরের এক কর্তা বলেন, ‘‘বাজেটে লক্ষ্মীর ভান্ডারের টাকা ধরে রাখায় এই অর্থবর্ষে সমস্যা হওয়ার কথা নয়। রাজস্ব সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা পূরণ হলে বা তার কাছাকাছি থাকলে এবং কেন্দ্রীয় করের বরাদ্দ ঠিকমতো পেলে পরেও তেমন সমস্যা হবে না।

তবে এগুলি কাঙ্ক্ষিত হারে না-পেলে কী ভাবে ঘাটতি মেটানো যায়, তা ভেবে দেখতে হবে।” অর্থ দফতরের অন্য এক কর্তার বক্তব্য, সব ক্ষেত্রকে সমান গুরুত্ব দিয়েই অর্থনীতি পরিচালনার লক্ষ্য রয়েছে। বড় প্রেক্ষাপটে ভাবনাচিন্তা শুরু করার পরিস্থিতি এখনও আসেনি।তবে কি পরের বছর এই লক্ষীর ভান্ডারের টাকা আদৌ কি পাওয়া যাবে, প্রশ্ন একটাই।

Covid Update: রাজ্যে করোনা সংক্রমণে চিন্তা বাড়াচ্ছে,মৃত্যু ১০ জনের

পরপর তিনদিন রাজ্যের দৈনিক সংক্রমণ সাড়ে সাতশোর বেশি। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৭৫১ জন। কমেছে মৃত্যু। একদিনে করোনার বলি ১০ জন। সুস্থতার হার ৯৮.২৮ শতাংশ। যা আশার আলো জোগাচ্ছে রাজ্যবাসীকে। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে করোনা  আক্রান্তদের মধ্যে ১২৫ জন কলকাতার  । অর্থাৎ দৈনিক সংক্রমণের নিরিখে এদিনও প্রথম ওই জেলা। আগের দিনের তুলনায় খানিকটা বেড়েছে সংক্রমণ। দ্বিতীয় স্থানে উত্তর ২৪ পরগনার । একদিনে আক্রান্ত সেখানকার ১২৪ জন। অর্থাৎ ওই জেলায় নিম্নমুখী কোভিড গ্রাফ।

দৈনিক সংক্রমণে ফের তৃতীয় স্থানে দার্জিলিং। একদিনে সেখানকার ৬০ জনের শরীরে থাবা বসিয়েছে মারণ ভাইরাস। চতুর্থ স্থানে দক্ষিণ ২৪ পরগনা। সেখানে একদিনে সংক্রমিত ৫৯ জন। এছাড়াও গত ২৪ ঘণ্টায় কম বেশি রাজ্যের বাকি সব জেলা থেকেই নতুন আক্রান্তের হদিশ মিলেছে।একদিনে করোনা প্রাণ কেড়েছে রাজ্যের ১০ জনের।

দৈনিক মৃত্যুর নিরিখে প্রথম স্থানে নদিয়া। একদিনে করোনার বলি সেখানকার ৪ জন। স্বাভাবিকভাবেই চিন্তা বাড়িয়েছে ওই জেলার বাসিন্দাদের। এখনও পর্যন্ত রাজ্যে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৮, ৫৭৭ জন। একদিনে করোনাকে পরাস্ত করে ঘরে ফিরেছেন ৭৫৭ জন।এখনও পর্যন্ত রাজ্যে মোট করোনাজয়ীর সংখ্যা ১৫,৩০,১৪৪। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থতার হার ৯৮.২৮ শতাংশ। বর্তমানে রাজ্যে সেফ হোমের সংখ্যা ২০০। 


Weather Today: শরতের মেঘে ফের বৃষ্টির সম্ভাবনা!

রবিবারের আকাশ হালকা মেঘাচ্ছন্ন থাকলেও, এদিন রোদের দেখা মিলেছে। কলকাতা সহ সংলগ্ন এলাকায় রোদ- মেঘের খেলা চলেছে ভোর থেকেই। যদিও এদিন শহরে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। কলকাতার কিছু এলাকায় এদিন বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টির পূর্বাভাসও রয়েছে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, এদিন কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩২ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি থাকার কথা। তবে কলকাতায় খুব বেশি বৃষ্টি না হলে ও ভাসবে জেলা।

আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, এদিন দক্ষিণ ২৪ পরগনার বেশ কিছু জায়গা, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুরে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। উত্তর ২৪ পরগনা, হাওড়া, বাঁকুড়া, পূর্ব বর্ধমান, হুগলি এবং পুরুলিয়াতেও ভারী বৃষ্টি হতে পার। তবে দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং দুই মেদিনীপুরে খেল দেখাবে আবহাওয়া। সেখানে ঝোড়ো হাওয়ার দাপট দেখা যাবে।

আসলে বর্তমানে বঙ্গোপসাগরের উপর নিম্নচাপ সৃষ্টি হয়েছে।  শুক্রবার থেকেই বৃষ্টি শুরু হয়েছিল দিল্লি সহ সংলগ্ন অঞ্চলে। শনিবার বৃষ্টিপাতের তীব্রতা বাড়তে দেখা গিয়েছে। যার জেরে দিল্লি বিমানবন্দরে এক হাঁটু জল জমে যাওয়ার চিত্র প্রকাশ্যে এসেছে। এদিকে রাজস্থান এবং গুজরাটের পূর্বাংশেও ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। হাওয়া অফিস জানিয়েছে, ওই অঞ্চলে ঘূর্ণাবর্ত সৃষ্টি হয়েছে। যার জেরে আগামী তিনদিন ওই রাজ্যে প্রবল বৃষ্টিপাত হতে পারে।

Weather Update: ফের দাপুটে বৃষ্টি!

বেশকয়েকদিন চলছে জোর বৃষ্টি। রাজ্যে ফের ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনার কথা জানাল আলিপুর আবহাওয়া দফতর। আগামী কয়েক ঘণ্টার মধ্যে সুন্দরবন, দক্ষিণ ২৪ পরগণায় মাঝারি বৃষ্টিপাতের সতর্কতাও জারি হয়েছে। বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বেশি থাকায় অস্বস্তিকর গরমে হাঁসফাস অবস্থাও জারি থাকবে দক্ষিণবঙ্গে। যদিও দক্ষিণবঙ্গে ফের বাড়বে বৃষ্টি।

রবিবার থেকে বাড়বে এই বৃষ্টি।এর কারণ বঙ্গোপসাগরের উত্তর ও মধ্যভাগে নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে। এই নিম্নচাপ আরও গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে বলে জানান হয়েছে।রবিবার রাত থেকেই ভারী বৃষ্টি শুরু হওয়ার ইঙ্গিত। পূর্ব মেদিনীপুর, পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রামে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে।

সোমবার থেকে রাজ্যজুড়েই বৃষ্টি আরও বাড়বে বলেই জানান হয়েছে। শনিবার থেকেই কলকাতার আকাশ মেঘলা থাকবে। আজ দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩৪.৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে ৩ ডিগ্রি বেশি। দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ২৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ থাকবে সর্বাধিক ৯৩ শতাংশ, ন্যূনতম ৫৭ শতাংশ।এদিকে দিন-ভর বৃষ্টিতে নাজেহাল সাধার মানুষ। তবে এখনই বৃষ্টি কমে যাওয়ার সেরকম সম্ভাবনা নেই।


ফের নিম্নচাপের ভ্রূকুটি

নিম্নচাপের জেরে গোটা সপ্তাহজুড়েই রাজ্যে রয়েছে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা। এদিকে, সপ্তাহের শেষে উত্তর এবং মধ্য বঙ্গোপসাগরে আরও একটি নিম্নচাপ তৈরি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে, যা ক্রমশ পশ্চিমবঙ্গ এবং ওড়িশা উপকূলের দিকে এগোবে। এর জেরে সপ্তাহের শেষেও বজ্রবিদ্যুৎ-সহ মাঝারি বৃষ্টিপাত হয়ে পারে দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে। এদিকে, আজ বৃহস্পতিবার কলকাতায় বাড়তে পারে আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি।

বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া নিম্নচাপের দরুন মঙ্গলবার থেকে উত্তর এবং দক্ষিণ দুই বঙ্গের জেলাগুলিতেই বিক্ষিপ্তভাবে বৃষ্টিপাত চলছে। আগামী ৪৮ ঘণ্টা এই নিম্নচাপ ক্রমশ উত্তর পশ্চিম এবং পশ্চিম দিকে অগ্রসর হবে। এদিকে বঙ্গোপসাগরের মারাঠাওয়াড়ার কাছে একটি ঘূর্ণাবর্ত তৈরি হয়েছে।

হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, সপ্তাহের শেষে অর্থাৎ রবিবার বৃষ্টিপাত হতে পারে ঝাড়গ্রাম, পূর্ব এবং পশ্চিম মেদিনীপুরে। আলিপুর আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, রবিবার উপকূলবর্তী অঞ্চলের জেলাগুলিতে ঝড়-বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে। তবে বৃষ্টি হলেও বাড়বে গরম ভাব জানালো আলিপুর হাওয়া অফিস।

Weather Today: দক্ষিণে বাড়বে গরম,উত্তরে ভারী বৃষ্টি

বৃষ্টির থেকে রক্ষা পাচ্ছে না উত্তরবঙ্গ। রবিবারও কোচবিহার, জলপাইগুড়িতে আগামী ১-২ ঘণ্টার মধ্যে বজ্রবিদ্যুৎ-সহ ঝেঁপে বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। দক্ষিণ বঙ্গে আজ সারাদিনই আদ্রতাজনিত অস্বস্তি বজায় থাকবে৷ তবে সোম, মঙ্গলবার ভারী বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে রাজ্যজুড়েই। সোমবার উত্তর বঙ্গোপসাগরে নিম্নচাপ তৈরির সম্ভাবনার কথা জানিয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর৷

এর জেরে দক্ষিণবঙ্গজুড়ে সোম ও মঙ্গলবার বৃষ্টি হতে পারে। মঙ্গলবার থেকে উত্তরবঙ্গেও বাড়বে বৃষ্টি। উপকূলবর্তী এলাকায় এর প্রভাব বেশি থাকবে৷ তাই মৎসজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। হাওয়া অফিস জানিয়েছে, নিম্নচাপের প্রভাবে ভারি বৃষ্টি হবে উপকূলের তিন জেলা উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, পূর্ব মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম মেদিনীপুর, হাওড়া, হুগলি এবং নদীয়াতে।

আজ কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩৪ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে, যা স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি বেশি এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশেপাশে।তবে এখনই বৃষ্টি থেকে রেহাই নেই।

STF: নাকশিপাড়ায় এসটিএফের হানা, ফের উদ্ধার সিমসহ একাধিক যন্ত্র

শুক্রবার হঠাৎই গভীর রাতে নাকাশি পাড়া এলাকার একটি বাড়িতে হানা দেন এসটিএফ। সেখানে থেকে উদ্ধার করা হয়  ২ টি সিমবক্স, ৬টি রাউটার। মিলেছে প্রচুর চার্জার, কেবল, মোডেম-সহ নানা অত্যাধুনিক যন্ত্রাংশ। সূত্রের খবর অনুযায়ী, ধৃত বাংলাদেশী নাগরিক মামুনকে জেরা করেছিল পুলিশ। তার বয়ানের উপর ভিত্তি করেই নদিয়ার এই বাড়িটির হদিশ পায় পুলিশ।

তবে সেখানে এতগুলি সিমবক্স এল কোথা থেকে, কী কাজে তা ব্যবহার করা হচ্ছিল, বিষয়টি এখনও স্পষ্ট নয়। এদিকে বিমানবন্দর থানায়  একটি অভিযোগ দায়ের হয়েছে ৩ জনের বিরুদ্ধে। কোথা থেকে এই সিমবক্স এবং উচ্চপ্রযুক্তির এসব যন্ত্রপাতি হাতে পেলে, সেসব নিয়ে তাদের কী পরিকল্পনা ছিল, সেসব খতিয়ে দেখতে চান স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্সের আধিকারিকরা।

সিমবক্স  কাণ্ডের জাল ছড়িয়েছে সীমান্ত লাগোয়া জেলার প্রান্তিক এলাকাতেও। সেই জালের হদিশ পেতেই এবার নদিয়ার নাকাশিপাড়া এলাকায় অভিযান চালাল রাজ্য পুলিশের স্পেশ্যাল টাস্ক ফোর্স বা এসটিএফ (STF)। সেখানে এক ব্যক্তির বাড়ি থেকে সিমবক্স-সহ একাধিক অত্যাধুনিক যন্ত্র উদ্ধার হয়েছে বলে খবর।

Weather Today: চলবে রোদ- বৃষ্টির খেলা !

এখনই বৃষ্টির হাত থেকে  রেহাই মিলছে না। সারা সপ্তাহজুড়েই হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হবে গোটা রাজ্যে। তবে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা প্রায় নেই। কোনও কোনও অংশে বজ্রপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এমনটাই আলিপুর হাওয়া অফিস জানিয়েছে। যদিও রাজ্যজুড়ে বৃষ্টি হলেও চরম অস্বস্তি ভাব থেকেই যাচ্ছে। গরমে নাজেহাল আমজনতা।  একইসঙ্গে শহরে চলবে মেঘ-রোদের খেলা।

বাতাসে জলীয় বাষ্পের পরিমাণ বাড়ায় আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি বজায় থাকবে বলেও জানিয়েছে হাওয়া অফিস।মঙ্গলবার সকাল থেকেই কলকাতার আকাশে চলছে মেঘ-রোদের খেলা। দু'এক পশলা বৃষ্টিরও পূর্বাভাস রয়েছে শহরে। বজায় থাকবে আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি। এদিন কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩২.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৭.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

যা স্বাভাবিকের থেকে এক ডিগ্রি বেশি। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ ৯৪ শতাংশ। ওডিশা ও ঝাড়খণ্ড থেকে নিম্নচাপ ক্রমশ সরে এসেছে মধ্য ভারতের দিকে। এই মুহূর্তে সেটি অবস্থান করছে ছত্তিশগড় সংলগ্ন এলাকায়। কোটা থেকে ভোপাল হয়ে ছত্তিশগড় পর্যন্ত নিম্নচাপ অক্ষরেখা বিস্তৃত হয়েছে। মৌসুমী অক্ষরেখা বিশাখাপত্তনম হয়ে পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর পৌঁছেছে। এর প্রভাবে আগামী কয়েকদিন বৃষ্টি বাড়বে মধ্য ও দক্ষিণ ভারতে। আগামী তিন-চার দিনের মধ্যেই এই নিম্নচাপ তার খেল দেখাতে শুরু করবে বলে অনুমান।তবে এখনই বৃষ্টি থেকে মুক্তি নেই ।


Weather Today : রাজ্যজুড়ে বৃষ্টির পূর্ভাবাস !

বেশকয়েকদিন রাজ্যে বৃষ্টি চলছে। অনেকটাই কমেছে বৃষ্টির দাপট। উত্তর ও দক্ষিণবঙ্গে কমবে বৃষ্টি ৷ তবে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টির সম্ভাবনা রয়েছে রাজ্যজুড়েই। মাঝে-মধ্যেই আকাশ কালো করে বৃষ্টি নামার সম্ভাবনা রয়েছে৷ গত কয়েকদিন ধরেই কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের জেলাগুলিতে বিক্ষিপ্ত বৃষ্টি চলছে।তবে সপ্তাহের শুরুতে আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি বাড়বে বলেই জানান হয়েছে।

কলকাতা সহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় এদিন বজ্রবিদ্যুৎ-সহ বৃষ্টির পূর্বাভাস রয়েছে। জেলাগুলিতে বৃষ্টি হলেও আর্দ্রতাজনিত অস্বস্তি কমবে না বলেই জানান হয়েছে আলিপুর আবহাওয়া দফতরের তরফে। রবিবার পর্যন্ত উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে ভারী বৃষ্টি চলছিল। আপাতত সে সম্ভাবনা নেই৷

আজ কলকাতা ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় দিনের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা থাকবে ৩২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দিনের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা থাকবে ২৭ ডিগ্রি। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার পরিমাণ সর্বাধিক ৯৫ শতাংশ, ন্যূনতম ৭৫ শতাংশ। গত ২৪ ঘণ্টায় বৃষ্টিপাত হয়েছে ৩.৪ মিলিমিটার। তবে বৃষ্টি হলেও কমছেনা গরম । যদিও  আগামী কয়েকদিন চলবে এই বৃষ্টি। 

Corona Update: রাজ্যে সংক্রমণ ফের কমল,চিন্তা বাড়াচ্ছে কলকাতা

বেশকয়েকদিন রাজ্যে সংক্রমণের হার বেশি ছিল। এদিকে পজিটিভ আক্রান্তের সংখ্যাটাও বাড়ে। শনিবার স্বাস্থ্য দফতরের  রিপোর্ট অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৬৬১ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭ জনের। এর মধ্যে সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৬৮৮ জন। এদিকে সংক্রমণের হার বা পজিটিভিটি হার কমে দাঁড়িয়েছে ১.৬১ শতাংশ। সুস্থতার হার দাঁড়িয়েছে ৯৮.২২ শতাংশ।সংক্রমণের নিরিখে রাজ্যের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে কলকাতা (১০৯)। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে  উত্তর ২৪ পরগনা (৭৮)। তৃতীয় স্থানে রয়েছে দার্জিলিং (৫২)। চিন্তা বাড়িয়েছে হুগলি, হাওড়াও। এদিন রাজ্যের মোট সংক্রমিতের সংখ্যা দাঁড়াল ১৫ লক্ষ ৪৬ হাজার ৮৯৮ জন। এর মধ্যে চিকিৎসাধীন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৯ হাজার ১০৯ জন। পুজোর মধ্যেই তৃতীয় ঢেউয়ের সম্ভাবনা। তা নিয়ে আগেভাগেই সতর্ক করা হচ্ছে। আজ ফের কলকতায় সংক্রমণ খানিকটা বেড়েছে। ইতিমধ্যে কেন্দ্র রাজ্যকে  চিঠি পাঠিয়েছে। বিধিনিষেধে সতর্ক করা হচ্ছে। তবে সাধারণ মানুষের মধ্যে যেহারে মাস্ক না পড়ার অনীহা বেড়েছে,তাতে কিন্তু সংক্রমণ ছড়ানোর আরও বেশি প্রবণতা বেড়েই চলেছে বলাবাহুল্য।

ফের রাজ্যে নিম্নমুখী সংক্রমণ ও মৃত্যু

করোনা বিধিনিষেধের জেরে রাজ্যে ফের কমল সংক্রমণ। এদিকে ধীরে ধীরে কমছে মৃত্যু। গত ২৪ ঘণ্টায় নিম্নমুখী সংক্রমণ ও মৃত্যু। একদিনে পশ্চিমবঙ্গে  নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৭৩৯ জন। একদিনে করোনার বলি ৮ জন। সুস্থতার হার ৯৮.১৫ শতাংশ। শুক্রবার স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে নতুন করে করোনা  আক্রান্তদের মধ্যে ৮৯ জন উত্তর ২৪ পরগনার। অর্থাৎ দৈনিক সংক্রমণের নিরিখে ফের প্রথম স্থানে ওই জেলা। দ্বিতীয় স্থানে ফের কলকাতা। 

এদিকে একদিনে সংক্রমিত সেখানকার ৮৮ জন। এছাড়াও গত ২৪ ঘণ্টায় কম বেশি রাজ্যের বাকি সব জেলা থেকেই নতুন আক্রান্তের হদিশ মিলেছে। একদিনে পজিটিভিটি রেট ১.৬৩ শতাংশ। ফলে রাজ্যে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৫,৩৭,১৮৫। একদিনে করোনায় রাজ্যে প্রাণ গেছে ৮ জনের।এখনও পর্যন্ত রাজ্যে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৮, ২৭৬ জন। যদি ও করোনা বিধিনিষেধের সময়সীমা বেড়ে আগামী ৩০ আগস্ট করা হয়েছে। তবে চলবেনা লোকাল ট্রেন। এছাড়া অন্যান্য পরিষেবার ক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া হয়েছে। তবে বিধিনিষেধের জের সংক্রমণে বলা যায় অনেকটা শিথিল।

রাজ্য সরকারের কোভিড বিধিনিষেধ বাড়লো

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছিলেন ৩১ জুলাই অবধি লকডাউন না থাকলেও কড়া বিধিনিষেধ থাকবে । এই সময়সীমাতে কি কি খোলা থাকবে কি থাকবে না তাও বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী । বৃহস্পতিবার এই বিধিনিষেধের দিন বাড়িয়ে দেওয়া হলো । আগামী ১৫ অগাস্ট অবধি জারি থাকবে এই নিষেধ । কয়েকদিন ধরেই সামান্য সামান্য করে সংক্রমণ বাড়ছিল । বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিলেন, তৃতীয় ঢেউয়ের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে । মুখ্যমন্ত্রীর কাছে খবর ছিল যে উত্তরপূর্ব ভারত থেকে তৃতীয় ঢেউয়ের আগমন হতে পারে । আজ সি এন কে টেলিফোন যোগে বিশিষ্ট চিকিস্যক সুকুমার মুখোপাধ্যায় জানালেন, ফের বাড়ছে সংক্রমণ ফলে সতর্কতা প্রয়োজন । এবারে কিন্তু ফের রাত ৯টা থেকে সকাল ৫টা অবধি কেউ বাড়ির বাইরে প্রয়োজন না হলে বেরোতে পারবে না । তবে প্রশাসন থেকে জানানো হয়েছে এই কারফিউ সময়ে নাকা চেকিং চলবে ।

মাধ্যমিকের ফলপ্রকাশ, ১০০ শতাংশ পাশের হার

আজ বিকল্প মূল্যায়ন পদ্ধতির উপর ভিত্তি করে প্রকাশিত হল ২০২১এর মাধ্যমিক পরীক্ষার ফলাফল। ব্যাতিক্রমী পরিস্থিতিতে চলতি বছর পাশের হার ১০০ শতাংশ, যা একেবারেই নজিরবিহীন। ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীদের পাশের হার বেশি। সকাল ৯টায় সাংবাদিক বৈঠক করে ফলাফল ঘোষণা করেছেন মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সভাপতি কল্যাণময় গঙ্গোপাধ্যায়। দশটা থেকে ওয়েবসাইট ও অ্যাপের মাধ্যমে ফল জানতে পারবে ছাত্রছাত্রীরা।চলতি বছর মোট পরীক্ষার্থী – ১০,৭৯,৭৪৯। ছাত্রদের তুলনায় ছাত্রীদের সংখ্যা বেশি। পাশ করেছে সকলেই, অর্থাৎ পাশের হার ১০০ শতাংশ। গতবছর তা ছিল ৮৬.৩৪ শতাংশ। করোনা আবহে এ বছর বাতিল করতে হয়েছে পরীক্ষা। করোনা আবহে এবছর কোনও মেধাতালিকা প্রকাশ হবেনা। সকাল ১০ টা থেকে ওয়েবসাইটে ফলাফল জানা যাবে। দেখে নেওয়া যাক:

www.wbbse.wb.gov.in
https://wbresults.nic.in
www.exametic.com