Maleria Vaccine: বিশ্বে প্রথমবার শিশুদের জন্য ম্যালেরিয়া টিকা ছাড়পত্র বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্

বিশ্বে প্রথম শিশুদের জন্য ম্যালেরিয়া টিকার ছাড়পত্র দিল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এদিকে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তরফে জানানো হয়েছে, মূলত আফ্রিকা মহাদেশে শিশুদের মধ্যে অতিমারীর চেহারা নিয়েছে ম্যালেরিয়া। হু-র সমীক্ষা রিপোর্ট অনুযায়ী, আফ্রিকায় প্রতিবছর পাঁচ বছরের নীচে আড়াই লক্ষেরও বেশি শিশুর ম্যালেরিয়ায় মৃত্যু হয়।একদিকে যখন করোনা অতিমারী চলছে, তখন ম্যালেরিয়ার প্রাদুর্ভাব গোটা রাজ্যে। ধবার এক সোশ্যাল মিডিয়ায় লাইভ হওয়া এক ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে হু-এর মহাসচিব তেদ্রোস আধানম ঘেব্রেইসাস বলেন, “এটি একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত।

শিশুদের জন্য বহু প্রতীক্ষিত এই ম্যালেরিয়া ভ্যাকসিন আদতে বিজ্ঞান, শিশু স্বাস্থ্য এবং ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণের জন্য একটি যুগান্তকারী প্রমাণিত হবে। এদিকে হু এর আফ্রিকা মহাদেশের আঞ্চলিক অধিকর্তা মাৎসিদিশো মোয়েতি বলেন, বহু শতাব্দী ধরে ম্যালেরিয়া সাব-সাহারান আফ্রিকায় ত্রাস সৃষ্টি করেছে।

যার ফলে প্রচুর মানুষ কষ্ট পেয়েছেন। আমরা দীর্ঘদিন ধরে একটি কার্যকরী ম্যালেরিয়া ভ্যাকসিন আশা করেছিলাম এবং এখন প্রথমবারের মতো আমাদের কাছে এই ধরনের অনুমোদিত টিকা ব্যাপকভাবে ব্যবহারের জন্য এসেছে। 


Covid19: ইনজেকশন ছাড়াই এবার করোনা টিকা, জানুন কিভাবে

এবার ইনজেকশন ছাড়াই করোনা টিকা নেওয়া যাবে। ভাবছেন তো কীভাবে সম্ভব? চোখের পলক পড়বে না। তার মধ্যেই মিশে যাবে টিকা। একেবারে ত্বকের তৃতীয় স্তরে। টেরই পাবেন না টিকা গ্রাহক। সূচ ফোটাতে হবে না যে! জাইডাস ক্যাডিলার জাইকোভ ডি  আর তা দেওয়ার যন্ত্র ফার্মাজেট নিয়ে কৌতূহল চরমে।এমনিতেই তো অনেকের টিকা নিতে অনীহা। তারমধ্যে অনেকেই আবার ভয়ে দিতেই চায়না। এছাড়া খুদেরাও আছে. তাই নয়া মেশিনের দ্বারা এই টিকা সম্ভব। জাইডাস ক্যাডিলার ভ্যাকসিন জাইকোভ ডি দেশ তথা বাংলায় আপৎকালীন ব্যবহারের জন্য ছাড়পত্র পেয়েছে।

এটাই প্রথম ডিএনএ ভ্যাকসিন যা ছাড়পত্র পেল ভারতে। দেশের সমস্ত প্রাপ্তবয়স্কদের পাশাপাশি ১২ বছরের উপরের শিশুদের জন্যও এই ভ্যাকসিন ব্যবহার করা হবে।কোভ্যাক্সিন বা কোভিশিল্ডের সঙ্গে এই ভ্যাকসিনের বিস্তর ফারাক। ওই সব টিকার মতো দু’ডোজের নয়, জাইকোভ ডি তিন ডোজের। ২৮ দিন অন্তর তা দেওয়া হবে দু’হাতে।রাজ্যের ভ্যাকসিন ট্রায়াল ফ্যাসিলিটেটর স্নেহেন্দু কোনার জানিয়েছেন, পয়েন্ট এক মিলিলিটার করে দু’হাতেই দেওয়া হবে জাইকোভ ডি।

প্রথম ডোজ দেওয়ার পর ২৮ দিন অন্তর দ্বিতীয় ডোজ, দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার ২৮ দিন পর আবার তৃতীয় ডোজ। দু’হাতে ভ্যাকসিন? তবে টেরও পাবেন না টিকা গ্রাহক। সূচই নেই যেই ফার্মাজেট যন্ত্রে! সাঁড়াশির মতো দেখতে এ যন্ত্রে টিকার তরল ভরে নেওয়া হবে। এরপর হাতের চামড়ায় যন্ত্রের মুখ রেখে দু হাতলে চাপ মারলেই তীরবেগে তরল ঢুকে যাবে চামড়ার ভিতরে। 

ফের ভ্যাক্সিনে কালোবাজারি, বেধড়ক মারধোর যুবককে

পঞ্চাশ টাকার কুপনে মিলবে ভ্যাকসিন! টিকার কালোবাজারি করতে গিয়ে এবার হাতেনাতে ধরা পড়ল যুবক। তাঁকে রীতিমতো গণধোলাই দেওয়া হল। পুলিস গিয়ে কোনওমতে পরিস্থিতি সামাল দিল। অভিযুক্ত পলাতক। ঘটনাটি ঘটেছে পূর্ব বর্ধমানের কালনায়। এদিকে বর্ধমানের কালনায় যাঁরা টিকা নেওয়ার লাইনে দাঁড়াননি, তাঁদের গোপনে পঞ্চাশ টাকার বিনিময়ে কুপন দেওয়ার অভিযোগ উঠল।

কেউ গভীর রাত থেকে তো, কেউ আবার ভোর থেকে ভ্যাকসিনের জন্য লাইন দিয়েছিলেন শহরের পুরনো বাসস্ট্যান্ডের পিছনে! তাঁদেরই কয়েকজনের নজরে পড়ে, পঞ্চাশ টাকার বিনিময়ে কুপন বিলি করছেন অভিযুক্ত যুবক! এরপর ওই যুবককে ধরে বেধড়ক মারধর করতে শুরু করেন তাঁরা। খবর পেয়ে যখন পুলিস ঘটনাস্থলে পৌঁছয়, ততক্ষণে চম্পট দিয়েছে ওই যুবক। কীভাবে এমন ঘটনা ঘটল? মুখে কুলুপ এঁটেছেন কালনা পুরসভার আধিকারিকরা।

বুধবার থেকে ফের শহরে মিলবে না কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন,জানাল পুরসভা

চাহিদার তুলনায় জোগান কম। আগামী বুধবার থেকে কলকাতায় মিলবে না কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন। বিজ্ঞপ্তি দিয়ে জানাল কলকাতা পুরসভা। তবে কোভ্যাকসিন দেওয়া হবে। 

বিস্তারিত আসছে --


করোনার জ্ঞান নিয়েছে কি মানুষ ?

কোনও  সন্দেহ নেই গত বছর প্রথম ঢেউয়ের পর নভেম্বর থেকে দেশ তথা রাজ্যের মানুষ অনেকটাই গা ছাড়া ভাব এনে ফেলেছিলো । সামাজিক দূরত্ব থেকে আড্ডা ফিরে এসেছিলো ফের । এ বছর এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে ফের দ্বিতীয় ঢেউ এসেছিলো । যদিও টিকাকরনও চলেছিল কিন্তু এবারে মানুষ ভয় পেয়েছিলো । মে মাস থেকে কড়াকড়ি শুরু হয় । এবারে সতর্ক করা হয় তৃতীয় ঢেউয়ের ।

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশিকা দেওয়ার পর মানুষ একটু গুটিয়ে গিয়েছিলো কিন্তু লোকাল ট্রেন বন্ধ থেকে বাস চালু হওয়াতে প্রচন্ড ভিড় বাসে, মিনি বাসে এবং অটোতে । দূরত্ব বলে কিছুই নেই । এ ছাড়া শহর কোলকাতাতে বিভিন্ন বাজারে অসম্ভব ভিড় । লাইন পড়ছে টিকা নিতে । সংক্রমণ একদিকে যেমন কমেছে তেমনই তৃতীয় ঢেউয়ের আগমন ঘটেছে উত্তরপূর্ব ভারতে । বাংলার মানুষ সতর্ক তো ?


ফের ডেল্টার দাপট, সংক্রমণ বাড়ছে শিশুদের

করোনার নয়া প্রজাতি ডেল্টার দাপট বাড়ছে ক্রমশই। তবে গত কয়েক সপ্তাহে বদলেছে ছবিটা। এদিকে স্কুল খোলার মুখে শিশুদের মধ্যে বাড়ছে সংক্রমণ। এর জন্য ডেল্টা স্ট্রেনের দাপট এবং ১২ বছরের কমবয়সিদের টিকা না-পাওয়াকেই দায়ী করছেন বিশেষজ্ঞরা। যদিও ১২ বছরের কমবয়সিদের উপরে পরীক্ষা চালাচ্ছে মডার্না ও ফাইজ়ার। ফাইজ়ার জানিয়েছে, ৫ থেকে ১১ বছর বয়সিদের পরীক্ষার তথ্য মিলবে সেপ্টেম্বর নাগাদ। তার পরে হাতে আসবে ২ থেকে ৫ বছরের শিশুদের ফলাফল।

যারা আরও ছোট, অর্থাৎ ৬ মাস থেকে ২ বছর বয়সি শিশুদের উপরে পরীক্ষা-পর্বের তথ্য মিলবে অক্টোবর বা নভেম্বর নাগাদ। দ্য আমেরিকান অ্যকাডেমি অব পেডিয়াট্রিকস (আপ) জানিয়েছে, শুধুমাত্র ৮-১৫ জুলাইয়ের মধ্যে ২৩,৫৫০টি শিশুর দেহে নতুন করে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। যা জুনের শেষার্ধের পরিসংখ্যানের প্রায় দ্বিগুণ। যদিও আপের মতে, শিশুদের মধ্যে গুরুতর অসুস্থ হওয়ার হার খুবই কম। আমেরিকায় ১২ বছরের কমবয়সিদের টিকাকরণ এখনও শুরু হয়নি। সুতরাং এ বছরের মধ্যে শিশুদের টিকাকরণের সম্ভাবনা যে খুবই কম তা স্পষ্টত ।


শিশুদের উপর কোভোভ্যাক্স ট্রায়াল

Covovax,vaccine ,seruminstindia

শিশুদের উপর কোভোভ্যাক্স ট্রায়াল
Kovavax trial on children

শিশুদের টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য ড্রাগ কন্ট্রোলার অ্যান্ড ডেনারেল অব ইন্ডিয়া(ডিসিজিআই)-র কাছে আবেদন জানাতে চলেছে সেরাম ইনস্টিটিউট অব ইন্ডিয়া(এসআইআই)।

করোনার তৃতীয় ঢেউ-এ শিশুরা বেশি আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা। দেশে টিকাকরণ চললেও,এখনও ১৮ বছরের নীচে শুরু হয়নি টিকাকরণ। ফলে তাদের নিয়েই ভয় বেশি। তাই শিশুদের টিকা দেওয়ার উপরেই জোর দিচ্ছে স্বাস্থ্য দফতর।

আমেরিকার নোভাভ্যাক্স সংস্থার তৈরি শিশুদের কোভিড টিকা ‘কোভোভ্যাক্স’ প্রস্তুত করছে সেরাম। এখন দ্বিতীয় এবং তৃতীয় পর্বের ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের প্রস্তুতি নিচ্ছে ওই সংস্থা।

সংস্থা সূত্রে খবর, ১২ থেকে ১৭ বছর বয়সি ৯২০ জনের উপর এই ট্রায়াল চালানো হবে। তার পর ২ থেকে ১১ বছর বয়সিদের জন্য  ট্রায়াল চালানো হবে।
সেরামের সিইও জানিয়েছেন, আগামী মাস থেকে দেশের ১০টি জায়গায় এই ট্রায়াল চালানো হবে। তার জন্য ডিসিজিআই-এর অনুমোদন চাওয়া হয়েছে।


সেরাম ইনস্টিটিউট অফ ইন্ডিয়ার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে,  তাঁরা ড্রাগ কন্ট্রোলার অ্যান্ড জেনারেল অফ ইন্ডিয়ার কাছে ভারতে তৈরি আরও এক ভ্যাকসিন কোভোভ্যাক্সের পেডিয়াট্রিক জনসংখ্যার মধ্যে একটি ক্লিনিকাল ট্রায়াল পরিচালনার অনুরোধ করবে।

রূপান্তরকামীদের সঙ্গে ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিলেন মিমি

রূপান্তরকামীদের সঙ্গে করোনা টিকার প্রথম ডোজ নিলেন অভিনেত্রী-সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। মঙ্গলবার একটি ক্যাম্পে গিয়ে কোভিশিল্ড ভ্যাকসিন নেন তিনি। দিলেন সচেতনতার বার্তা।

এদিন নিজে তো ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ নিলেন-ই, তার পাশাপাশি দুঃস্থ এবং রূপান্তরকামীদের জন্যও ভ্যাকসিনেশনের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন মিমি।



ভ্যাকসিনের বন্টন নিয়ে মিমিকে প্রশ্ন করা হলে সংবাদ মাধ্যমকে জানালেন,রাজ্য সরকার সকলের দুয়ারেই ভ্যাকসিন পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছে।  পশ্চিমবঙ্গকে করোনামুক্ত রাজ্যে পরিণত করারও আপ্রাণ চেষ্টা করছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি প্রবীণ নাগরিকরদের টিকাকরণের জন্যও অভিনব উদ্যোগ নিয়েছেন মিমি।  
 
এর আগে ঘূর্ণিঝড় যশের তাণ্ডবে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় গিয়েছিলেন যাদবপুরের সাংসদ মিমি চক্রবর্তী। কেমন রয়েছেন ত্রাণ শিবিরে থাকা মানুষজন, কী তাঁদের সুবিধা ও অসুবিধা রয়েছে তা জানতে বারুইপুর পূর্ব বিধানসভা এলাকা পরিদর্শন করেছিলেন তিনি। 

৮১ দিন পর সংক্রমণ নামল ৬০ হাজারের নীচে

দেশে করোনার গ্রাফ নিম্নমূখী। ৮১ দিন পর সংক্রমণ নামল ৬০ হাজারের নীচে।

রবিবার সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৫৮ হাজার ৪১৯ জন। এই সময়ের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ১ হাজার ৫৭৬ জনের। এ পর্যন্ত সব মিলিয়ে দেশে মোট করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ কোটি ৯৮ লক্ষ ৮১ হাজার ৯৬৫ জন। আর মোট মৃত্যু হয়েছে ৩ লক্ষ ৮৬ হাজার ৭১৩ জনের। মৃতের হার ১.২৯ শতাংশ।

অন্যদিকে, গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৮৭ হাজার ৬১৯ জন রোগী। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে গিয়েছেন ২ কোটি ৮৭ লক্ষ ৬৬ হাজার ৯ জন রোগী। সুস্থতার হার ৯৬.২৭ শতাংশ। এছাড়া অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৭ লক্ষ ২৯ হাজার ২৪৩ জন। একদিনে কমেছে ৩০ হাজার ৭৭৬ জন।

দেশে এ পর্যন্ত মোট ২৭ কোটি ৬৬ লক্ষ ৯৩ হাজার ৫৭২ জনকে  টিকাকরণ করা হয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় টিকা পেয়েছেন ৩৮ লরক্ষ ১০ হাজার ৫৫৪ জন।

ভ্যাকসিন নিয়ে ম্যাগনেট ম্যান ,পর্দা ফাঁস করল বিজ্ঞান মঞ্চ

কলকাতাঃ বেশকিছুদিন ধরেই সোশ্যাল মিডিয়ায় উঠে আসছে, করোনা টিকা নেওয়ার ফলেই নাকি মানুষের শরীর চুম্বকে পরিণত হচ্ছে। কেউ কেউ আবার 'ম্যাগনেট ম্যান' নামে পরিচিত হয়েছেন। শরীরে একাধিক জায়গায় হালকা থেকে ভারী জিনিস চাপিয়ে দিচ্ছেন। খুচরো পয়সা, হাতা -খুন্তি এমনকি মোবাইল আটকে যাচ্ছে শরীরে। এই ভিডিও ভাইরাল হতেই মানুষের মধ্যে একটা আতঙ্ক তৈরী হচ্ছে।

এরপরই আসরে নামে বিজ্ঞান মঞ্চ। তাদের ভাষায় এটি আজগুবি। পশ্চিমবঙ্গ বিজ্ঞান মঞ্চের সহ সম্পাদক সৌরভ চক্রবর্তী সিএন ডিজিটাল কে জানালেন,বর্ষার সময় আবহাওয়ায় আপেক্ষিক আর্দ্রতা বেশি থাকায় শরীরে ঘাম বেশি হয় এবং সেই কারণেই এই সব জিনিসপত্র আটকে যাচ্ছে। আর শরীর ও ধাতব পদার্থগুলোর মধ্যে থাকা পৃষ্ঠটান সেই কাজে অল্প সাহায্য করছে। এর সাথে ভ্যাকসিন এর কোনো প্রভাব নেই। ম্যাগনেট ম্যানরা শুধুমাত্র বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছেন। এদের গ্রেফতার করা উচিত।

অন্যদিকে কাটোয়ার বাসিন্দা সমীর দাসও দাবি করেছিলেন, করোনা টিকা নেওয়ার পর তার শরীর চুম্বকে পরিণত হচ্ছে। তার বাড়িতে গিয়ে দেখাও যায় সেই চিত্র। কিন্তু তাঁর পিঠে অল্প পাউডার ঢেলে দিতেই পর্দা ফাঁস। পাউডার দেওয়ার পর দেখা গেল তার শরীরে আর কিছুই আটকাচ্ছে না।

বিজ্ঞান মঞ্চের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের নোডাল এজেন্সি প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরোও ট্যুইট করে জানিয়েছে, ভ্যাকসিন নিয়ে মানব চুম্বক হয়ে উঠছে বলে যে দাবি নেটমাধ্যমে ছড়িয়েছে, তা সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন।

ভ্যাকসিন না নিলে বন্ধ করে দেওয়া হবে মোবাইল

পাঞ্জাবঃ করোনাকালে টিকাদানে গতি আনতে চাইছে সরকার। কিছু মানুষ টিকা নেওয়ার ক্ষেত্রে অনীহা দেখাচ্ছে। তাদের জন্য এবার কড়া পদক্ষেপ নিল পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশ।


সূত্রের খবর, পাকিস্তানের অসংখ্য মানুষ টিকা নিতে আগ্রহী নন। তাদের বিশ্বাস টিকা নিলে বন্ধ্যাত্ব নেমে আসবে। কারও কারও মতে,টিকা নিলে দু’বছরের মধ্যে নিশ্চিত মৃত্যু। এসব মানুষকে টিকা নিতে বাধ্য করতে নতুন নিয়ম আনল সরকার। 


পাকিস্তানের পাঞ্জাব প্রদেশ কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করল, টিকা না নিলে ‘শাস্তি’ হিসেবে মোবাইল ফোনের সিম বন্ধ করে দেওয়া হবে।  এর আগে সিন্ধু প্রদেশ ঘোষণা করেছিল, সরকারি কর্মীরা টিকা নিতে অস্বীকার করলে জুলাই থেকে বন্ধ হবে বেতন।

COWIN থেকে ফাঁস ১৫ কোটি তথ্য

 বর্তমানে দেশের গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপ এই কোউইন। টিকাকরণের আগেই দেশের সমস্ত নাগরিক এই কোউইনে তাদের নিজেদের নাম নথিভুক্ত করছেন। এদিকে এই   অ্যাপ থেকেই ১৫ কোটি মানুষের তথ্য ফাঁস হয়েছে যাচ্ছে। যেখানে সাধারণ মানুষের মাথায় হাত।  বিক্রি ও হচ্ছে চড়া দামে। তবে এই খবর যে ভিত্তিহীন তা কেন্দ্রের সরকার জানান। যদিও গত বৃহস্পতিবার এই কোউইন থেকে তথ্য ফাঁস হয়েছে বলে খবর প্রকাশ হয়।

এরপর সোশ্যাল মিডিয়ায় এই নিয়ে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পরে।  যদিও কেন্দ্রের সরকার বারবার জানাচ্ছে, কোনও তথ্যই ফাঁস হয়নি।এই খবর ভুল। এই বিষয়টি তদন্ত করা হচ্ছে। এখনও পর্যন্ত এই  অ্যাপ কোনও হ্যাকারদের পাল্লায় যায়নি।সমস্ত তথ্যই রয়েছে নিরাপদে। এমনটাই আশ্বাস কেন্দ্রের।

নড়বড়ে যোগীরাজ্যে টীকাতেও লাস্টবয়

প্রশাসনিক দায়িত্বজ্ঞানহীনতায় এমনিতেই যোগী আদিত্যনাথ অন্য রাজ্য থেকে অনেকটাই পিছিয়ে বলে দাবি কংগ্রেসের | বাস্তবেও যোগীকে নিয়ে যা চর্চা তা পূর্বতন কোনও মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে হয় নি | এবারে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের দায় যোগীকেই দেওয়া হচ্ছে, উত্তরাখণ্ডের সাথে | এখন তাঁর নব্য সমস্যা টিকাকরণ |


জানা গিয়েছে, উত্তর প্রদেশের মতো বৃহত্তম রাজ্য টিকা করণে সবথেকে পিছিয়ে রয়েছে | আগামী বছর সেখানে ভোট, এটিকে অন্যতম ইস্যু করছে বিরোধী দলগুলি | প্রমাদ গুনে যোগীকে শুক্রবার দিল্লিতে ডেকে পাঠানো হয়েছে | পাশাপাশি যোগীর প্রশংসা করতে পথে নেমেছে গেরুয়া আইটি সেল | মোদি ও যোগীর প্রচারের জন্য হাজার হাজার ব্যানারে ভর্তি রাজ্যটি |


অন্যদিকে অবিলম্বে উত্তর প্রদেশের উপমুখ্যমন্ত্রী ঠিক করতে চান মোদি | তাঁর পছন্দ প্রাক্তন আমলা অরবিন্দ কুমার শর্মা | অরবিন্দ ব্রাহ্মণ ফলে উচ্চ বর্ণের ভোট টার্গেট মোদির | কিন্তু অরবিন্দকে একদমই পছন্দ নয় যোগীর | আপাতত তাঁর পছন্দ অপছন্দ বাদ দিয়ে নতুন স্ট্রাটেজি তৈরী হচ্ছে | টিকার বিষয়ে জোর দিতেই হবে যোগীকে | মাত্র ২.৫১ শতাংশ দুটি ডোজ নিতে পেরেছে সে রাজ্যে |  

আগস্টে ৪৪ কোটি ডোজ,নয়া ভ্যাকসিন নীতিতে জন্য স্বাস্থ্যমন্ত্রক

এবার চলতি বছরের  আগস্টে ৪৪ কোটি ভ্যাকসিন  ডোজ দেশে প্রস্তুত করা হবে ।এদিকে ডোজ তৈরি হলেই ডিসেম্বরের মধ্যেই রাজ্যে পৌঁছে যাবে ভ্যাকসিন। মঙ্গলবার এই ঘোষণা করল কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রক। গণটিকাকরণের জন্য ২৫ কোটি কোভিশিল্ডের ডোজ ও ১৯ কোটি কোভ্যাক্সিনের ডোজ অর্ডার করা হয়েছে। গতকাল জাতির  উদ্দেশ্যে প্রধামন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি জানান, ২১ জুন থেকে ১৮ বছরের ঊর্ধ্বে সকল নাগরিক বিনামূল্যে ভ্যাকসিন অপবে। অন্যদিকে রাজ্যগুলিকে আলাদা করে ভ্যাকসিন কিনতে হবে না।

কেন্দ্রই তা দেবে। এই ঘোষণার পর আজ অর্থমন্ত্রকের তরফে জানানো হয়, কেন্দ্রে নয়া ভ্যাকসিন নীতিতে প্রায় ৫০ কোটি টাকা খরচ হবে.তবে কেন্দ্র আরও দেশ ভ্যাকসিনের ওপর আস্থা রাখছে।

এবার দুয়ারে ভ্যাকসিন

রাজ্য সরকারের দুয়ারে রেশন অনুকরণে কেন্দ্র চালু করছে দুয়ারে ভ্যাকসিন। এতে সুবিধা পাবেন শুধুমাত্র প্রবীণ নাগরিক ও বিশেষভাবে সক্ষমরা।
কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে,যে কোন অঞ্চলে ৬০ বছরের ঊর্ধ্বে বা বিশেষভাবে সক্ষম ১০ জনের বেশী মানুষ থাকলে ওই অঞ্চলের নিকটবর্তী কমিউনিটি হল বা সরকারি জায়গায় ক্যাম্প করে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে। এছাড়া সরকারি-বেসরকারি হাসপাতাল, সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতাল পরিচালিত ভ্যাকসিন সেন্টারেও প্রবীণদের ভ্যাকসিন দেওয়ার ব্যবস্থা থাকবে।


এতদিন ভ্যাকসিনের খোঁজে প্রবীণরা বিভিন্ন সেন্টারে ঘুরে ঘুরে ক্লান্ত হয়ে টিকা না পেয়ে ফিরে আসতে হত। এবার তাদের হয়রানি কমাতে কেন্দ্রীয় সরকার চালু করছে দুয়ারে ভ্যাকসিন। এখনও পর্যন্ত ভারতে মোট ২১ কোটি ২০ লক্ষ ৬৬ হাজার ৬১৬ জনকে টিকা দেওয়া হয়েছে।