জুলাই মাসে রাজ্যগুলিকে ভ্যাকিন দেবে কেন্দ্র

বেশকিছুদিন আগেই কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে, জুলাই মাসের মাঝামাঝি সময় থেকে দিনে ১ কোটি মানুষকে ভ্যাকসিন দেওয়া হবে । সরকার কার্যত নিশ্চিত ছিল, জুলাইয়ের মাঝামাঝি দেশে সেই পরিমাণ টিকা উৎপাদনও হবে। বৃহস্পতিবার কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের ঘোষণায় একপ্রকার স্পষ্ট যে, চলতি মাসেও দৈনিক ১ কোটি টিকাকরণের টার্গেট পূরণ হচ্ছে না। তবে, টিকাকরণের গতি অনেকটা বাড়বে।

এদিকে জুলাই মাসে রাজ্য ও কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলগুলিতে প্রায় ১২ কোটি ভ্যাকসিনের ডোজ পাঠানো হবে। এই ১২ কোটির মধ্যে ১০ কোটি কোভিশিল্ড ও ২ কোটি ডোজ দেওয়া হবে কোভ্যাকসিনের। যদিও কেন্দ্রের তরফে এর আগেই বলা হয়েছে, ২১ জুন থেকে দেশজুড়ে বড়সড় টিকাকরণ কর্মসূচি পালন করা হবে। ইতিমধ্যে রাজ্যগুলিকে টিকা পাঠানো হয়েছে। শুরু হয়েছে টিকাকরণ কর্মসূচি। তবে পূরণ হচ্ছেনা টিকাকরণের টার্গেট।

রাজ্যে লোকাল ট্রেন চাইছে রাজ্য বিজেপি

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন , বাস চালু হলেও ভর্তি প্যাসেঞ্জের নেওয়া যাবে না এবং লোকাল ট্রেন একদমই এখন চলবে না | কারণ স্পষ্ট মুম্বাই সহ বিভিন্ন মেট্রো শহরে লোকাল ট্রেনের জনঘনত্বের কারণে করোনা প্রবল ভাবে বেড়ে গিয়েছিলো বিশেষ করে দ্বিতীয় ঢেউয়ের অন্যতম কারণ লোকাল ট্রেন কিন্তু ওই ট্রেন চালাতেই কেন্দ্রীয় রেলমন্ত্রী পীযুষ গোয়েলকে পত্র দিয়ে অনুরোধ জানালো রাজ্য বিজেপি |
বিজেপির পক্ষ থেকে বিগত বিধানসভায় পরাজিত প্রার্থী এবং বর্তমানে রাজ্যসভার সদস্য স্বপন দাশগুপ্ত, পীযুষ গোয়েলকে এই চিঠি দেন | বিজেপির পক্ষ থেকে জয়প্রকাশ মজুমদার জানান, সরকার মর্জিমাফিক ব্যবস্থা নিচ্ছে, বাস চলছে অথচ ট্রেন বন্ধ | দিলীপ ঘোষ জানান, গরিব মানুষ লোকাল ট্রেনের উপর নির্ভরশীল অথচ সেটাই বন্ধ | তৃণমূলের পক্ষ থেকে বলা হয়, নিয়মিত পেট্রো সামগ্রীর মূল্যবৃদ্ধিতে নাভিশ্বাস সাধারণ যাত্রীদের, এই সময়ে স্বপনবাবু , দিলীপবাবুদের নীতিবোধ কোথায় থাকে? ট্রেন চালু করার পর ফের সংক্রমণ বৃদ্ধি হলে তার দায়িত্ব বিজেপি নেবে তো ?

দিল্লি সহ একাধিক রাজ্যে কমছে আক্রান্তের সংখ্যা, পরিষেবায় মিলছে ছাড়

দেশে বেশকিছুদিন ধরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমছে। ধীরে ধীরে কমছে দৈনিক সংক্রমণ। ইতিমধ্যে বেশকিছু রাজ্যে পরিষেবায় ছাড় দেওয়া হচ্ছে। যার মধ্যে দিল্লি,উত্তরপ্রদেশ,বিহার, অরুণাচলপ্রদেশ,মিজোরাম এই সমস্ত রাজ্যগুলিতে পরিষেবায় ছাড়  দেওয়া হয়েছে। এদিকে দিল্লিতে ও বেশকিছু পরিষেবায় ছাড় মিলছে। জানালেন কেজরিওয়াল সরকার।
দিল্লিতে ৩১ মে থেকে ছাড়  দেওয়া  হয়েছে বেশ কিছু পরিষেবার। কারখানাগুলোর  ওপর রয়েছে ছাড়. যদিও আরও এক সপ্তাহ চলবে দিল্লিতে লকডাউন। তারমধ্যে চলবে আনলক প্রক্রিয়া। তবে ছাড় থাকবে বেশকিছু জিনিসের ওপর।
এদিকে উত্তরপ্রদেশে ও কন্টেইনমেন্ট জোনের বাইরে খোলা থাকবে দোকান। সকল ৭ টা  থেকে সন্ধ্যে ৭ টা  পর্যন্ত খোলা থাকবে দোকান। এছাড়া বাজার ও থাকবে খোলা। সবজি বিক্রি করা যাবে সেখানে। সাফ জানালেন সরকার। অন্যদিকে মহারাষ্ট্রে ও ১৫ দিনের জন্য লকডাউন জারি থাকলেও বেশ কিছু জিনিসের ওপর মিলেছে ছাড়।   অফিসে ২৫ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ করা যাবে। তবে লকডাউনের জেরে করোনা সংক্রমণ কমে যাওয়ায় দিল্লি সহ  আরও অন্যান্য রাজ্যগুলি ছাড় পেল বেশ  কিছু পরিষেবা।

জলযানের সংখ্যা বাড়াচ্ছে এহার রাজ্যের পরিবহন দপ্তর

করোনার জের লোকাল ট্রেন কম।এদিকে বাসও চলছে সংখ্যায়  কম।অফিস যেতে সমস্যায় যাত্রীরা।তাই এবার জলপথে যাত্রীরা যাতে করোনাবিধি মেনে কলকাতায় আসাযাওয়া করতে পারেন তাই গঙ্গার একাধিক ঘাট থেকে মাঝে মাঝে জলযান  চালাবে রাজ্যের পরিবহন দপ্তর। এমনটাই জানিয়ে দিলেন রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম । কোভিডবিধি মেনেই চলবে জলযান। গতবছর লক়ডাউন উঠে গেলে ও অনেক পরে চালু হয়েছে ট্রেন।যাত্রীরা এই জলযানে যাতায়াত ছিল যাত্রীদের। অন্যদিকে একাধিক নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে বলে জানাচ্ছেন দপ্তরের কর্তারা। একই সঙ্গে বর্ধমান, হুগলি, দুই ২৪ পরগনার একাধিক জায়গা থেকে কলকাতাগামী বাসও চালু করা হবে বলে জানা গিয়েছে। যাত্রীদের সুবিধার্থে বাড়ছে বাসের সংখ্যা ও।