হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ

নয়াদিল্লিঃ নয়াদিল্লির সেনা হাসপাতাল থেকে ছাড়া পেলেন  রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। 

বৃহস্পতিবার রাষ্ট্রপতি ভবনের তরফে জারি এক বিবৃতিতে জানানো হয়, ”আজ সকালে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দের ছানি অস্ত্রোপচার হয়েছে নয়াদিল্লির সেনা হাসপাতালে। অস্ত্রোপচারটি সফল হয়েছে। তাঁকে হাসপাতাল থেকে ছেড়েও দেওয়া হয়েছে।”

বিস্তারিত আসছে --


আফগানিস্তান নিয়ে কড়া সমালোচনার মুখে মার্কিন প্রেসিডেন্ট

কড়া সমালোচনা র মুখে মার্কিন প্রেসিডেন্ট। তালিবান সম্পর্কে কড়া বিবৃতি দিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। তবু গলছে না সে দেশের মানুষের মন। তালিবানের হাতে আফগানিস্তানের ক্ষমতা ও মার্কিন সেনা প্রত্যাহার -এর সন্ধিক্ষণে একটি সমীক্ষা চালায় national opinion poll।

সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, আফগানিস্তান থেকে যেভাবে এবং দ্রুত মার্কিন সেনা প্রত্যাহার করা হয়েছে তার তীব্র সমালোচনা করেছেন সে দেশের মানুষ। সেনা প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত -এর প্রেক্ষিতে সে দেশের ৪৩ শতাংশ মানুষ প্রেসিডেন্ট বাইডেন কে সমর্থন করেছেন। 


তবে দ্রুত সেনা প্রত্যাহার করার বিষয়ে বাইডেনকে সমর্থন করেননি সে দেশের ৫৩ শতাংশ নাগরিক। যা বাইডেন প্রশাসন- এর কাছে যথেষ্ট অস্বস্তির। সমালোচনায় মুখর সে দেশের কূটনীতিক থেকে তাত্ত্বিকরাও।

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ বব মেন এন্ডোজ জানিয়েছেন, ক্ষমতায় যে থাকুক, রিপাবলিকান বা ডেমোক্র্যাট গত ২০ বছর ধরে আফগানিস্তান নিয়ে শুধু ভুল সিদ্ধান্ত নিয়ে গেছে।  এমনকি আফগানিস্তানে মার্কিন সেনার উপস্থিতিতে হু হু করে বেড়েছে তালিবান। এখন যার খেসারত দিচ্ছে আফগানিস্তান। 


শারদ পাওয়ারকে রাষ্ট্রপতির টোপ?

দিল্লির আনাচে কানাচে গুঞ্জন তুঙ্গে । বিষয় শারদ পাওয়ার, তাঁকে নাকি রাষ্ট্রপতি হওয়ার আহ্বান দেওয়া হয়েছে । দিল্লির এই গুঞ্জন কি একেবারে উড়িয়ে দেবার মতো ? শারদ পাওয়ার এই মুহূর্তে অন্যতম প্রবীণ রাজনীতিবিদ । এক সময় সোনিয়া গান্ধীর বিরুদ্ধে গিয়ে কংগ্রেস ছেড়ে ন্যাশনালিস্ট কংগ্রেস পার্টি খোলেন । এনসিপি দল খুলেও কিন্তু ওই কংগ্রেসের সঙ্গেই গাঁটছড়া বেঁধে দীর্ঘদিন ক্ষমতায় থেকেছেন । মহারাষ্ট্র রাজনীতিতেও এই জোট অটুট ছিল আজও আছে । বর্তমানে মহারাষ্ট্রে যে সরকার চলেছে তা শিবসেনা, এনসিপি ও কংগ্রেস জোটের । তারপরেও তিনি কি মোদী সরকারের আহ্বানে রাষ্ট্রপতির পদে যেতে পারেন ?

গুঞ্জন কিন্তু সেই কোথায় বলছে । সম্প্রতি এই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দিল্লি যাওয়ার আগে জানা গিয়েছিলো তিনি দিল্লিতে যে কজনের সঙ্গে দেখা করবেন তার মধ্যে পাওয়ারও রয়েছেন । কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর সফরের কয়েকদিন আগে নরেন্দ্র মোদী এবং শারদ পাওয়ার একান্তে বৈঠক করেন । দীর্ঘ ৫০ মিনিট তাঁদের কথা হয় কিন্তু কি বিষয়ে কথা হয় তা জানা যায় নি । এবারে মুখ্যমন্ত্রীর দিল্লি সফরে এই বিষয়টি অনেকটাই নাকি পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে । জানা গিয়েছে মোদী পাওয়ারকে রাষ্ট্রপতি হওয়ার প্রস্তাব দেন । পাওয়ার কি উত্তর দিয়েছিলেন জানা যায় নি । তবে এবারে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, পাওয়ারের সাথে দেখা না করায় জল্পনা বেড়েছে । যদিও কলকাতায় ফেরার আগে মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, দেখা না হলেও ফোনে কথা হয়েছে । এখন দেখার বিষয় জল্পনা কতটা সত্যি !  


উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতি মহুয়া দাসকে শোকজ

ধর্ম বিতর্কে জের, মহুয়া দাসকে শোকজ রাজ্যের। কেন তিনি উচ্চমাধ্যমিকে সর্বোচ্চ নম্বর পাওয়া রুমানার ধর্ম উল্লেখ করেছেন, তার কৈফিয়ৎ তলব করেছে রাজ্য। এমনটাই  বিকাশ ভবন সূত্রে খবর। 


বিস্তারিত আসছে --

মাস্ক ছাড়াই এবার বাইক মিছিল

ব্রাজিল: মাস্ক ছাড়াই এবার বাইক মিছিল করল ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইরে বোলসোনারো। শনিবার বাইক মিছিল করতে গিয়ে চরম বিপাকের  মুখে পড়ল প্রেসিডেন্ট।এক দিকে যখন করোনা অতিমারি  চলছে। অন্যদিকে হুঁশ নেই ব্রাজিলের প্রেসিডেন্টের।শনিবার ব্রাজিলের সাওপাওলো শহরে মাস্ক না পরেই বাইক মিছিল করলেন।  করোনাবিধি না মানায়  প্রেসিডেন্ট ও তার সঙ্গীর বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠে এসেছে। আর তাই প্রেডিডেন্টকেই খোদ  জরিমানা করা হয়েছে।

এদিকে শনিবার বাইক মিছিল করলেও,তার মাথায় কিন্তু হেলমেট ছিল।  যদিও মুখে মাস্ক না থাকায় অভিযোগ ওঠে। এদিকে প্রেসিডেন্ট নিজে ক্ষুব্ধ হয়ে বলেন, যেখানে করোনা টিকা নেওয়া হয়েছে,তারপর মাস্ক পরা অবৈজ্ঞানিক। টিকা নেওয়া ব্যক্তিরা কখনোই সংক্রমণ ছড়াতে পারেনা। তবে করোনা অতিমারি থাকা সত্ত্বেও প্রেসিডেন্টের বিধিবিঙের কারণেই তার কাছে থেকে জরিমানা চাইল প্রশাসন।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আস্থাই তবে সায়নী

কলকাতা: তৃতীয়বারের জন্য বাংলায় ক্ষমতায় এসেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।এরপর শনিবার অর্থাৎ আজ তৃণমূলের একটি সাংগঠনিক বৈঠকের ডাক দেওয়া হয়. এবারে তৃণমূলের সাংগঠনিক স্তরে বড়সড় রদবদল হয়েছে। এতদিন তৃণমূলের যুব  সভাপতি হিসেবে ছিলেন অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এবার তৃণমূলের যুব সভানেত্রী হলেন সায়নী ঘোষ. ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠে আসছে কে এই সায়নী ঘোষ ? টলিউডের বেশকিছুটা সময়ে সায়নীকে দেখা গেছে অভিনয় করতে।
এছাড়া বেশকিছু  ওয়েবসিরিসে ও দেখা গেছে।এরপর হঠাৎই অভিনয় জগৎ থেকে তাকে সরাসরি  রাজননীতে  দেখা গেল।  চলতি বিধানসভা নির্বাচনের   আগেই সায়নী ঘোষ তৃণমূলে যোগদান করেছিলেন।এরপর তাকে আসানসোলের দক্ষিণের প্রার্থী হিসেবে মনোনীত করা হয়. যদিও ভোটার ফলাফলে তাকে হেরে যেতে হয়েছিল। এখানেই শেষ নয়.তিনি হেরে গেলেও তার কর্তব্য থেকে একচুলও সরেনি।আর এবারে সেই আস্থা রেখেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বড়সড় সিদ্ধান্ত নিল। তৃণমূলের নয়া যুব সভানেত্রী মুখ হিসেবে থাকবে সায়নী ঘোষ।   এখন দেখার এই নতুন পদে সায়নী কতটা খুশি।