রাজ্য সরকারের কোভিড বিধিনিষেধ বাড়লো

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নির্দেশ দিয়েছিলেন ৩১ জুলাই অবধি লকডাউন না থাকলেও কড়া বিধিনিষেধ থাকবে । এই সময়সীমাতে কি কি খোলা থাকবে কি থাকবে না তাও বলেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী । বৃহস্পতিবার এই বিধিনিষেধের দিন বাড়িয়ে দেওয়া হলো । আগামী ১৫ অগাস্ট অবধি জারি থাকবে এই নিষেধ । কয়েকদিন ধরেই সামান্য সামান্য করে সংক্রমণ বাড়ছিল । বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছিলেন, তৃতীয় ঢেউয়ের সম্ভাবনা দেখা যাচ্ছে । মুখ্যমন্ত্রীর কাছে খবর ছিল যে উত্তরপূর্ব ভারত থেকে তৃতীয় ঢেউয়ের আগমন হতে পারে । আজ সি এন কে টেলিফোন যোগে বিশিষ্ট চিকিস্যক সুকুমার মুখোপাধ্যায় জানালেন, ফের বাড়ছে সংক্রমণ ফলে সতর্কতা প্রয়োজন । এবারে কিন্তু ফের রাত ৯টা থেকে সকাল ৫টা অবধি কেউ বাড়ির বাইরে প্রয়োজন না হলে বেরোতে পারবে না । তবে প্রশাসন থেকে জানানো হয়েছে এই কারফিউ সময়ে নাকা চেকিং চলবে ।

রাজ্যে বাড়ল বিধিনিষেধের মেয়াদ

করোনা সংক্রমণ রুখতে রাজ্যে আরো বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়ল। আগামী ১৬ জুন থেকে ১ জুলাই পর্যন্ত করা বিধিনিষেধ বহাল থাকবে। তবে বেশকিছু জিনিসের ওপর চার দেওয়া হোয়েওছে। সোমবার নবান্নের বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্ধোপাধ্যের উপস্থিতিতে মুখ্যসচিব এইচ কে দ্বিবেদী  ঘোষণা করেন। সেখানে জানানো হয়, বাজার খোলার ক্ষেত্রে সময়সীমা বাড়ানো হল। সকাল ৭ টা থেকে ১১ টা পর্যন্ত বাজার খোলা থাকবে। এছাড়া  অন্যান্য দোকানগুলি ১১ টা থেকে ৬ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

এছাড়া ৫০ শতাংশ কর্মী নিয়ে খোলা থাকবে রেস্তোরাঁ , হোটেল ও শপিং মল. এছাড়া বেসরকারি অফিসে ২৫ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ হবে।অফিস খোলা থাকবে সকাল ১০ টা থেকে বিকেল ৪ তে পর্যন্ত। এছাড়া সরকারি অফিসের ক্ষেত্রেও ২৫ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ হবে. এদিকে যান চলাচলের ক্ষেত্রে করা নিষেদ।স্টাফ স্পেশাল ট্রেন চলবে।তবে লোকাল ট্রেন,বাস ও মেট্রো বন্ধ থাকবে। এছাড়া মলে ৩০ শতাংশ ক্রেতা প্রবেশ করতে পারবেন। এছাড়া প্রাতঃভ্রমণকারীদের ক্ষেত্রে টিকা আবশ্যক। যদিও সংক্রমণ বাড়তেই কার্যত এই বিধিনিষেধের কথা এর আগেই বলা হয়েছে। এরপর ধীরে ধীরে সংক্রমমন কমছে। সেই কথা ভেবেই বাড়ানো হল মেয়াদ।