ইদের জন্য সাময়িক তুলে নেওয়া হল লকডাউন, সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা

ঢাকাঃ ইদের জন্য সাময়িক তুলে নেওয়া হল লকডাউন। ফলে সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কা বাংলাদেশে।
সূত্রের খবর, আজ বৃহস্পতিবার থেকে বিধি নিষেধ তুলে নেওয়া হল। সারা দেশে শপিংমল,দোকান খোলার অনুমতি দিয়েছে সরকার। এই শিথিলতা বজায় থাকবে ২৩ জুলাই পর্যন্ত। তারপর ফের লকডাউন ঘোষণা করা হবে।
বিস্তারিত আসছে -

বং গাই লকডাউন সং

লকডাউন পরিস্থিতি প্রত্যেকের কেমন যাচ্ছে। সেই অবস্থা বোঝাতে এবার ইউটিউব জনপ্রিয়  'দ্য বং গাই' কিরণ দত্তের নয়া গান । ইতিমধ্যে নেট দুনিয়ায় তার গান বলা যায় ঝড় তুলেছে। ঘরের গ্রিলে মাথা কুড়ে, কিম্ভূত সেজে একী করছেন কিরণ দত্ত। সোমবার সকাল সকাল নেটপাড়া উত্তাল বাংলার ইউটিউব কিং দ্য বং গাই-এর নয়া পোস্টে। লকডাউনের মধ্যে সারাদিন ঘুমোনো, গান শোনা, রান্না-বান্না করা, এদিক-ওদিক উঁকি মারা, নেটফ্লিক্স,প্রাইম, ডালগোনা কফি এই নিয়ে তো প্রথম পর্যায়ের লকডাউন কেটেই গেল। পরিবারের সঙ্গে থাকা,প্রেমিক -প্রেমিকার  সাথে দেখা না করা, কলেজের আড্ডা, এই সমস্ত কিছুই তো একবছর ধরে বন্ধ। তাই এবার টুকরো টুকরো স্মৃতি নিয়েই মজার ছলে ইউটিউবার জনপ্রিয় 'দ্য বং গাই 'কিরণ দত্ত মজার ছলে গান বাঁধলেন। আর সেই গান ইতিমধ্যে নেটদুনিয়ায় উত্তাল অবস্থায়। যদিও তাঁর এই গান নেটাগরিকরাও পছন্দ করছেন।

অফিস খোলা, যাবে কিসে?

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন লকডাউন নয় কিন্তু কড়া বিধিনিষেধ চলবে ৩০ জুন অবধি কিন্তু তারই মাঝে ছাড় ছিল জরুরি পরিসেবকদের ক্ষেত্রে | কিন্তু সপ্তাহের প্রথমে ফের একবার প্রশ্ন উঠেছে, অফিস খোলা কিন্তু যাবো কি করে ? বাস সার্ভিস নেই, মেট্রো আজ থেকে ৪০টি করে চালানোর কথা ছিল কিন্তু জানা যাচ্ছে তাতে উঠতেই পারছে না আম জনতা | দূরবর্তী প্রান্তের যাত্রী লোকাল ট্রেন পাচ্ছে বটে কিন্তু সময়সীমা নির্দিষ্ট | অফিস যাত্রীদের বক্তব্য নিয়মিত ওলা উবেরে বেতনের টাকা শেষ হয়ে যাচ্ছে | কিছু অটো চলছে বটে কিন্তু গলাকাটা দর হাঁকড়াচ্ছে | মানুষ অসহায় | 


পর্যটকদের জন্য বন্ধ গোয়া

করোনা অতিমারিতে গোটা দেশ বিধ্বস্ত । এদিকে গোয়ায় করোনাবিধিতে শিথিলতা আনলেও বেশকিছু ক্ষেত্রে কড়া বার্তা গোয়া প্রশাসনের। যতদিন না রাজ্যের প্রত্যেক নাগরিক করোনার প্রথম ডোজ নিচ্ছেন, ততদিন গোয়া পর্যটকদের জন্য বন্ধই থাকবে। বৃহস্পতিবার এমনটাই জানিয়েছেন গোয়ার মুখ্যমন্ত্রী প্রমোদ সাওয়ান্ত।

আর এই টিকাকরণ শেষ করতে ৩০ জুলাইয়ের সময়সীমা ধার্য করা হয়েছে গোয়া সরকারের পক্ষ থেকে।এদিকে এপ্রিল-মে মাস থেকে দ্বিতীয় ওয়েভ শুরু হতেই সংক্রমণ বেড়েছে। গোয়াতেও বেড়েছিল সংক্রমণ।আগের থেকে এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক। কিন্তু পর্যটকদের আসতে নিষেধ গোয়া প্রশাসনের।  



পাথুরে জীবন

করোনা অতিমারিতে গোটা দেশ বিধ্বংসী অবস্থায়।তারমধ্যে লোকডাউন থাকার দরুন অনেকেই আজ কর্মহারা। তবে কেউ কেউ আবার জীবিকা পরিবর্তন করেছে এই লোকডাউনে। অন্ন জোগাতে এবার শুধু পুরুষরাই নয়,মহিলারা কাজ করতে এগিয়ে আসছে। দুর্গাপুরে সকাল থেকেই চলছে পাথর ভাঙার কাজ যদিও ইস্পাত তৈরির পর যে পাথর পরে থাকে সেগুলোই ভেঙে তামা,ব্রোঞ্জ,লোহা বাজারে বিক্রি করে।  কিন্তু দরিদ্রের অভাবের সংসারে তাঁরা এই কাজ করে কতই  বা টাকা পাচ্ছেন। প্রতিদিন সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অক্লান্ত পরিশ্রম করার পর মোটে  নাকি ১৫০ টাকা টাকা তাঁরা পাচ্ছে .যা দিয়ে তাদের এই সংসার চলছে। দুর্গাপুরেই নয়,আরও অন্যান্য জায়গায় এই কাজ করা  হয়। 

যেমন গোপালনগর,অন্ডাল এই জায়গাগুলিতেও কাজের তাগিদে মানুষ প্রতিনিয়ত ঘুরে  ঘুরে বেড়ায়। তবে বেশ কিছু মহিলারা  পাথর ভাঙার পাশাপাশি, বোল্ডারের কাজ করছে। ট্রলারে ডাস্ট বোঝাই করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তবে পারিশ্রমিক হিসেবে পাচ্ছে ১২০ টাকা। এদিকে কাঁকসার পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য রমেন্দ্রনাথ মন্ডল জানান,' রাজ্য সরকার সবসময় পাশে আছে।  যারা প্রকৃত দারিদ্রসীমার নিচে তারা এইকাজ করে তাদের সংসার চালাচ্ছে। তাছাড়া সরকার একাধিক প্রকল্প নিয়ে  হাজির গ্রামে। তবে লকডাউনে বহু মানুষ তো কাজ হারিয়েছে। যারা ধনী তাদের হয়তো জীবন-যাপন স্বাভাবিক। কিন্তু মধ্যবিত্ত  দরিদ্র মানুষদের ক্ষেত্রে প্রতিদিন চিন্তা একটা থেকেই যায় কিভাবে এই পরিস্থিতিতে চলবে তাঁদের। অনেকে আবার তাদের জীবিকা বদলে নিতে হচ্ছে এই পরিস্থিতে বলা যায়। 

তামিলনাড়ুতে বাড়ল লকডাউনের মেয়াদ

তামিলনাড়ুতে বাড়ল আরও একসপ্তাহের লকডাউন। আগামী ১৪ জুন পর্যন্ত লকডাউনের  মেয়াদ বাড়ল। এদিকে কিছুক্ষেত্রে থাকবে ছাড় জানালেন,মুখ্যমন্ত্রী এমকে স্ট্যালিন। তামিলনাড়ু সরকারের তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, ভিতরের বেশকিছু খুচরো দোকানগুলিকে ছাড় দেওয়া হবে।  ফুল,ফল, মাছ মাংসের দোকান সকাল ৬ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। এছাড়া ৩০ শতাংশ কর্মী নিয়ে খোলা থাকবে সরকারি অফিস। এছাড়া বেসরকারি অফিস খোলার কথা বলা হয়েছে। এছাড়া বেশকিছু দোকানপাটের ওপর মিলেছে ছাড়।  প্রতিনিয়ত বাড়ছে সংক্রমণ।আর এই সংক্রমণ রুখতেই তামিলনাড়ুর সরকরের এই সিদ্ধান্ত।


সোমবার থেকে মহারাষ্ট্রে লডাউনের বিধিনিষিধে ছাড়

মুম্বই: সোমবার থেকে মহারাষ্ট্রে লকডাউনের বিধিনিষিধে এবার ছাড় দেওয়া হল। শনিবার জানালেন,উদ্ধব ঠাকরে। মহারাষ্ট্রের যেসমস্ত জেলায় সংক্রমণ কম সেখানেই বিধিনিষেধ তোলা হবে।  এছাড়া ৫ দফা পরিকল্পনার মাধ্যমে তোলা হবে লকডাউন। এদিকে যেসমস্ত জেলায় সংক্রমণের হার ৫ শতাংশের নিচে ও  হাসপাতালে ভর্তির সংখ্যায় কিছুটা কম । সেক্ষেত্রে বিধিনিষেধ তুলে দেওয়া হচ্ছে জেলাগুলিতে। যদিও প্রথম দফায় খোলা হবে এই লকডাউন। খোলা থাকবে রেস্তোরাঁ,শপিং মল,গণ পরিবহন, জিম ,সরকারি ও বেসরকারি অফিস থাকবে খোলা। এরপর সংক্রমণ বেশি হলে ধাপে ধাপে খোলা হবে.দ্বিতীয় পর্যায়ে ও বেশ কিছু খোলার অনুমতি দেওয়া হবে. তবে জেলাগুলিতে কোনওভাবে  জমায়েত করা যাবেনা। বিধিনিষেধ মেনেই চলতে হবে।  নাহলে ১৪৪ ধারা জারি করা হবে।  কিছুদিন আগেও সংক্রমণের হার বাড়তে মহারাষ্ট্রের  অবস্থা ভয়ঙ্কর ছিল। তবে লকডাউনে জেরে সংক্রমণ কম হওয়ায় এবার ৫ দফা পরিকল্পনামাফিক লকডাউন তোলার প্রস্তুতি শুরু মহারাষ্ট্রে।

মহারাষ্ট্রে শুরু আনলক পর্ব, বন্ধ থাকবে ট্রেন পরিষেবা

মহারাষ্ট্র: করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে মহারাষ্ট্রের পরিস্থিতি ছিল ভয়ংকর। প্রতিনিয়ত সেখানে বেড়েছে  সংক্রমণের সংখ্যা।  তবে লকডাউনের জেরে ধীরে ধীরে কমেছে সংখ্যাটা। ইতিমধ্যে পাঁচটি স্তরে শুরু হচ্ছে আনলক পর্ব। বৃহস্পতিবার ঘোষণা করলেন  মহারাষ্ট্রের সরকার। অন্যদিকে মহারাষ্ট্রে একটি তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। যেখানে সংক্রমণের হার, হাসপাতালে বেডের সংখ্যা, অক্সিজেনের যোগান এগুলি আওতায় থাকবে। তবে যে জায়গাগুলিতে সংক্রমণের হার কমেছে সেটি প্রথমস্থানের তালিকায় থাকবে।

এদিকে বুধবারের সমীক্ষা অনুযায়ী, ৮০ শতাংশ সংক্রমণের হার কমেছে. যদিও জেলাভিত্তিক যেখানে সংক্রমণের হার কম থাকবে সেখানে তুলে দেওয়া হবে লকডাউন। তবে আনলক পর্ব শুরু হলেও ট্রেন পরিষেবা থাকবে বন্ধ।

মৃত্যু লকডাউনে, গুরুগ্রাম থেকে বিহারে সাইকেলে ফিরিয়ে আনা সেই কিশোরীর বাবার

লকডাউনে এবার মৃত্যু হল গুরুগ্রাম থেকে বিহারে ফিরিয়ে নিয়ে আসা সেই সাইকেল কিশোরীর বাবার। গতবছর লকডাউনে ১২০০ কিমি সাইকেল চালিয়ে ১৪ বছরের  কিশোরী বাড়ি ফিরিয়ে নিয়ে আসে। এরপর তার বাবা দীর্ঘদিন অসুস্থ ছিলেন।যদিও তার এই সাহসিকতাকে সবাই কুর্নিশ জানিয়েছে। ১৪ বছরের ওই কিশোরীর নাম জ্যোতি কুমারী। লডাউনে তার বাবা অসুস্থ হয়ে পরে। এরপর ওই কিশোরী নিজে সাহস করেই খানিকটা তার বাবাকে গুরুগ্রাম থেকে ফিরিয়ে নিয়ে আসে বিহারে। তার বাবা গুরুগ্রামে রিকশা চালাতেন। কিন্তু অসুস্থতার জেরে তার  বাবাকে বিহারে ফিরিয়ে নিয়ে আসে ।এবছর ফের ওই কিশোরীর বাবা অসুস্থ হন। তবে শেষ রক্ষা পেলনা। সম্প্রতি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হল ওই কিশোরীর বাবার। তবে সাহসিকতার সাথে এই কিশোরীর বাবাকে ফিরিয়ে নিয়ে আসর ঘটনা সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছিল বলা যায়।

দিল্লি সহ একাধিক রাজ্যে কমছে আক্রান্তের সংখ্যা, পরিষেবায় মিলছে ছাড়

দেশে বেশকিছুদিন ধরে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমছে। ধীরে ধীরে কমছে দৈনিক সংক্রমণ। ইতিমধ্যে বেশকিছু রাজ্যে পরিষেবায় ছাড় দেওয়া হচ্ছে। যার মধ্যে দিল্লি,উত্তরপ্রদেশ,বিহার, অরুণাচলপ্রদেশ,মিজোরাম এই সমস্ত রাজ্যগুলিতে পরিষেবায় ছাড়  দেওয়া হয়েছে। এদিকে দিল্লিতে ও বেশকিছু পরিষেবায় ছাড় মিলছে। জানালেন কেজরিওয়াল সরকার।
দিল্লিতে ৩১ মে থেকে ছাড়  দেওয়া  হয়েছে বেশ কিছু পরিষেবার। কারখানাগুলোর  ওপর রয়েছে ছাড়. যদিও আরও এক সপ্তাহ চলবে দিল্লিতে লকডাউন। তারমধ্যে চলবে আনলক প্রক্রিয়া। তবে ছাড় থাকবে বেশকিছু জিনিসের ওপর।
এদিকে উত্তরপ্রদেশে ও কন্টেইনমেন্ট জোনের বাইরে খোলা থাকবে দোকান। সকল ৭ টা  থেকে সন্ধ্যে ৭ টা  পর্যন্ত খোলা থাকবে দোকান। এছাড়া বাজার ও থাকবে খোলা। সবজি বিক্রি করা যাবে সেখানে। সাফ জানালেন সরকার। অন্যদিকে মহারাষ্ট্রে ও ১৫ দিনের জন্য লকডাউন জারি থাকলেও বেশ কিছু জিনিসের ওপর মিলেছে ছাড়।   অফিসে ২৫ শতাংশ কর্মী নিয়ে কাজ করা যাবে। তবে লকডাউনের জেরে করোনা সংক্রমণ কমে যাওয়ায় দিল্লি সহ  আরও অন্যান্য রাজ্যগুলি ছাড় পেল বেশ  কিছু পরিষেবা।

সংক্রমণ রুখতে বাংলাদেশে ফের বাড়বে লকডাউন

করোনা সংক্রমণ রুখতে বাংলাদেশে ফের বাড়বে লকডাউন। যদিও চলতি সপ্তাহে রবিবার  লকডাউনের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার কথা। কিন্তু সোমবার থেকে ফের বাড়বে লকডাউনের মেয়াদ । আরও একসপ্তাহ চলবে। সূত্রের খবর অনুযায়ী, বাড়বে এই লকডাউন। বাংলাদেশে ২ মাসের  মাথায় চলছে এই লকডাউন।  বাংলাদেশে চলছেনা  গণ পরিবহন। তবে বাস, ট্রাম,বেশ কিছু সংখ্যক চলছে। খাবারের দোকান গুলি খোলা। ব্যাংক ও জরুরি পরিষেবাগুলি খোলা রয়েছে। তবে একসপ্তাহ লকডাউন থাকলে কি কি বন্ধ হতে চলেছে তা জানা যায়নি। বাংলাদেশে লকডাউন থাকা  সত্ত্বেও কমছেনা সংক্রমণ। এদিকে টিকাকরণ চলছেনা ঠিকঠাক। তাই সংক্রমণ রুখতে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে ।

ফের লকডাউনের মেয়াদ বাড়ল কেরলে

লকডাউনের মেয়াদ বাড়ল ফের কেরলে। করোনা সংক্রমণের হার কমাতেই রাজ্য সরকারের এমন সিদ্ধান্ত। আগমনী ৯ জুন পর্যন্ত চলবে কেরলে  লকডাউন। এদিকে শনিবার স্বাস্থ্য আধিকারিকের সঙ্গে বৈঠক করেন  কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনরাই বিজয়ন। এরপর লকডাউন  ঘোষণা করেন কেরলের সরকার। দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়াতে ৮ মে থেকে ১৬ মে পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এরপর মেয়াদ  বাড়িয়ে ৩০জুন পর্যন্ত করা  হয়।  এদিকে রবিবার মেয়াদ শেষ হওয়ার আগেই লডাউনের দিন বাড়ানো হল।  যদিও শুক্রবার নতুন করে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২২ হাজারের বেশি। যার জেরে সংক্রমণ ঠেকাতেই সরকারের এই সিদ্ধান্ত।
                                    

করোনায় ভাড়া বাড়ছে অন্তর্দেশীয় বিমানের

করোনা আবহে গোটা দেশ জর্জরিত। এরই মধ্যে এবার মহার্ঘ হল অন্তর্দেশীয় বিমান পরিষেবা। করোনা অতিমারীতে গোটা দেশ বিধ্বস্ত। এদিকে বিমান পরিষেবার ভাড়া বাড়ানোর কথা জানালো কেন্দ্রীয় সরকার। যদিও আগামী ১ জুন থেকে নতুন ভাড়া কার্যকর করা হবে.বিমানের সর্বনিম্ন ভাড়া  ১৩ থেকে বাড়িয়ে ১৬ শতাংশ করা হচ্ছে। যার ফলে জুন থেকে ৪০ মিনিট পর্যন্ত উড়ানের ক্ষেত্রে যাত্রীদের কমপক্ষে ২৬০০ টাকা ভাড়া গুণতে হবে। যা আগে ছিল ২৩০০ টাকা। গতবছর করোনা আবহে গোটা দেশ যখন স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিলো। যেখানে সবচেয়ে বেশি ক্ষতি মুখে পড়েছিল বিমান পরিষেবাগুলি। যদিও আনলক পর্যায়ে ধীরে ধীরে পরিষেবা স্বাভাবিক হয়।  বিমান পরিষেবান এরমধ্যে আবার সীমিত থাকায় যাত্রী সংখ্যা কমে যাচ্ছে। তাই এই পরিস্থিতিতে বিমান সংস্থাগুলির পাশে দাঁড়াতে ভাড়া বাড়ানোর দাবি জানালেন  কেন্দ্র।        

বিমান পরিষেবায় বাড়ল নিষেধাজ্ঞা, নয়া নির্দেশিকা কেন্দ্রের

দেশে দ্বিতীয় করোনার ঢেউ আছড়ে পড়েছে। আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বিমান পরিষেবার ওপর নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ বৃদ্ধি করল কেন্দ্র। শুক্রবার ডায়রেক্টরেট জেনারেল অফ সিভিল অ্যাভিয়েশন বিবৃতি জারি করে জানিয়েছেন, জুনের ৩০ তারিখ পর্যন্ত আন্তর্জাতিক যাত্রীবাহী বিমান পরিষেবা বন্ধ থাকবে। তবে বিদেশের সঙ্গে পণ্যবাহী বিমান পরিষেবা এই নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবে।এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১ লক্ষ ৮৬ হাজার ৩৬৪ জন. একদিনে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৩৬৬০ জন. সংক্রমণ কমাতেই কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্ত।

সোমাবার থেকে আনলক পর্ব,জানালেন কেজরিয়াল

সোমবার থেকে দিল্লিতে শুরু আনলক পর্ব।শুক্রবার জানলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিয়াল। যদি ও করোনাবিধি মানতে কমেছে অনেখনি সংক্রমণ। তিনি এও জানালেন,  বিগত কয়েকদিন যাবৎ রাজধানীতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা কমছে। সংক্রমণ হারও ৫ শতাংশের নীচে। লকডাউন করাতেই  করোনার  দ্বিতীয় ঝড় আটকানো সম্ভব হয়েছে। এও জানিয়েছিলেন, দ্বিতীয় ঢেউয়ের শুরুতে যেভাবে অক্সিজেন-সহ চিকিৎসার বিভিন্ন সরঞ্জামের জন্য হাহাকার দেখা গিয়েছিল, তা এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। সোমবার থেকেই শিল্পাঞ্চলের উৎপাদন কেন্দ্রগুলিতে কাজ শুরু করা যাবে।এমনটাই জানালেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী।