এখনই অসহ্য গরম থেকে রেহাই নেই রাজ্যবাসীর

দিন কয়েক আগে কালবৈশাখীর কারণে কলকাতা সহ রাজ্যের বিভিন্ন জেলায় সাময়িক স্বস্তি ফিরলেও আবার অসহ্য গরমে নাজেহাল রাজ্যবাসী। শহরের তাপমাত্রাও প্রায় চল্লিশ ছুঁই ছুঁই। কলকাতা সহ রাজ্যের মানুষ এখন চাতক অপেক্ষায়। তবে এক্ষেত্রে এখনই কোনও স্বস্তির খবর শোনাতে পারছে না আবহাওয়া দফতর। আপাতত বৃষ্টিপাতের কোনও সম্ভাবনা নেই। বেশ কয়েকটি জেলার তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রিতে পৌঁছতে পারে, জারি থাকবে তাপপ্রবাহ। 

হাওয়া অফিস সূত্রে খবর, মঙ্গলবার কলকাতার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৯ ডিগ্রি, যা স্বাভাবিকের চেয়ে ৪ ডিগ্রি বেশি এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৭.৫ ডিগ্রি, যা স্বাভাবিকের চেয়ে ২ ডিগ্রি বেশি। বাতাসে আপেক্ষিক আর্দ্রতার সর্বাধিক পরিমাণ ৮৯ শতাংশ এবং সর্বনিম্ন ২৭ শতাংশ। আরও বাড়বে তাপমাত্রার পারদ। আর্দ্রতার কারণে বাড়বে অস্বস্তিও। এখনই কালবৈশাখীর সম্ভাবনা না থাকলেও, মে মাসের প্রথম দিকে বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে বাঁকুড়া, বীরভূম, পশ্চিম মেদিনীপুর ও মুর্শিদাবাদে। অন্যদিকে ঝাড়গ্রাম, পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর, দক্ষিণ ২৪ পরগনায় রয়েছে তাপপ্রবাহের পূর্বাভাস। এবছর স্বভাবিক বর্ষা হওয়া নিয়ে খুশির কথা শুনিয়েছে আবহাওয়া দফতর।   

কলকাতায় চড়বে পারদ, সেইসঙ্গে অস্বস্তি

কলকাতায় এবার ক্রমাগত চড়বে তাপমাত্রার পারদ। জানাল আলিপুর হাওয়া অফিস। পড়শি রাজ্য ঝাড়খণ্ডে তাপপ্রবাহের সৃষ্টি হতে পারে এমনটাই আশঙ্কা করছেন আবহবিদরা। চলতি সপ্তাহের মাঝামাঝি বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূমে তাপমাত্রা ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি ছুঁয়ে ফেলার পূর্বাভাস রয়েছে। মঙ্গলবার অর্থাৎ আজ কলকাতায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি বেশি। সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ২৩.৬ ডিগ্রি, যা স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি বেশি। বাতাসে আপেক্ষিক আদ্রতার পরিমান সর্বাধিক ৯৩ শতাংশ। সৰ্বনিম্ন ৩৯ শতাংশ। তাপপ্রবাহের কারণে বাড়বে গরম. তাপমাত্রার পাশাপাশি অস্বস্তি বাড়াচ্ছে বাতাসের আপেক্ষিক আদ্রতা। যার জেরে নাজেহাল হয়ে পড়ছেন সাধারণ মানুষ।


আবহাওয়া দফতর সূত্রে খবর, আসানসোলে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৫.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বাঁকুড়ায় পারদ ছুঁয়েছে ৩৬.৩ ডিগ্রিতে, ব্যারাকপুরে তাপমাত্রা ছিল ৩৪.৪ ডিগ্রিতে, বর্ধমানের তাপমাত্রা ছুঁয়েছে ৩৭.৮ ডিগ্রিতে, ক্যানিংয়ে তাপমাত্রা ৩৪.৬ ডিগ্রি, কাঁথির পারদ ছিল ৩২.২ ডিগ্রিতে, কোচবিহারের তাপমাত্রা ৩০.১ ডিগ্রি, দার্জিলিঙের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা পৌঁছেছে ১৪ ডিগ্রিতে, ডায়মন্ডহারবারে পারদ পৌঁছেছে ৩৩ ডিগ্রিতে, দিঘায় তাপমাত্রা ছুঁয়েছে ৩১.৮ ডিগ্রি, দমদমের তাপমাত্রা ৩৪.৮ ডিগ্রি, হলদিয়ার তাপমাত্রা ৩১.৯ ডিগ্রি, জলপাইগুড়িতে পারদ ছুঁয়েছে ৩০.২ ডিগ্রি, কালিম্পঙে ২১.৫ ডিগ্রি, কৃষ্ণনগরের ৩৫ ডিগ্রি, মালদা ৩২.৩ ডিগ্রি, মেদিনীপুরে তাপমাত্রা ছুঁয়েছে ৩৪.৫ ডিগ্রিতে, পানাগড়ে ৩৪.৬ ডিগ্রি, পুরুলিয়ায় ৩৬.৪ ডিগ্রি, সল্টলেকে ৩৩.৯ ডিগ্রি, শিলিগুড়ির তাপমাত্রা ২৯.০ ডিগ্রি, শ্রীনিকেতনে ৩৩.৬ ডিগ্রি। গোটা মার্চ মাস জুড়েই চড়বে পারদ। এর জেরে রাজ্যবাসীকে পড়তে হবে আদ্রতাজনিত অস্বস্তির মুখে।

কলকাতায় এবার দাপুটে গরম

শহর কলকতায় আবারও দাপুটে গরম পড়তে চলেছে। দিল্লির মত পরিস্থিতি তৈরী হবে এবার কলকাতায়। দক্ষিণবঙ্গে গোটা মার্চ জুড়েই গরম থাকবে, এমনটাই জানালো আলিপুর আবহাওয়া দফতর। তাপমাত্রা বৃদ্ধি পেতে পারে ৪১ ডিগ্রি পর্যন্ত। চলতি সপ্তাহের মাঝামাঝি বাঁকুড়া, পুরুলিয়া, পশ্চিম মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, পশ্চিম বর্ধমান, বীরভূমে তাপমাত্রা ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি ছুঁয়ে ফেলার পূর্বাভাস রয়েছে। এখনই কোনো বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা নেই বলেই জানিয়েছে হওয়া অফিস।

সোমবার কলকাতায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২৫.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৩৪.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যা স্বাভাবিকের থেকে ২ ডিগ্রি বেশি। তাপমাত্রার জেরে অস্বাভাবিক অস্বস্তির মধ্যে পড়তে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। এই বছরে রেকর্ড গরম থাকবে। বর্তমান পরিস্থিতি খানিকটা তাই ইঙ্গিত দিচ্ছে। একদিকে দক্ষিণবঙ্গ যখন উত্তপ্ত তখন পশ্চিমি ঝঞ্ঝার কারণে উত্তরের পাহাড়ি এলাকায় হালকা বৃষ্টির সম্ভাবনা জানালো আলিপুর হাওয়া অফিস। উত্তরবঙ্গে দার্জিলিং,জলপাইগুড়ি,ও কালিম্পঙ জেলাগুলিতে বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা। অন্যদিকে চরম অস্বস্তি বাড়বে দক্ষিণবঙ্গে। ভোটের মধ্যেই এই তাপপ্রবাহের পূর্বাভাস চিন্তায় রাখছে নির্বাচন কমিশনকে।