শসা খাওয়া ভালো, বেশিতে বিপদ

কথায় আছে শসা স্বাস্থ্যের পক্ষে ভালো। কিন্তু সেই শসা আবার হজমে বিপত্তি। শসা হচ্ছে, একটি লো ক্যালরিযুক্ত একটি ফল। শসার মধ্যে জলের পরিমাণ অনেক। ১০০ গ্রাম শসাতে জলের পরিমাণ ৯৪.৯ গ্রাম এবং ক্যালরি ২২। এছাড়াও শসা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট জাতীয় ফল। এতে কিছু পরিমাণ ভিটামিন,মিনারেলস এবং আঁশ থাকে। কিন্তু শসাও মানুষের শরীরের জন্য ক্ষতিকর হয়ে যায়। অনেকেই মনে করে শুধুমাত্র শশা ওয়েট কমানো যায়। এই ধারনা সঠিক নয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, শসা হজম হতে সময় লাগে।

তাই রাতে ঘুমোতে যাওয়ার অন্তত ৩-৪ ঘণ্টা আগে শসা খান।স্বাস্থ্য সচেতন যাঁরা, তাঁরা প্রতিদিন খাবারের তালিকায় শসা রাখেন। শসা খেতে ভালো ও স্বাস্থ্যের পক্ষেও ভালো কাজ করে। কিন্তু এটি বেশি পরিমাণে খেলে এবং ঠিক সময়ে না খেলে শরীরে নানা প্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে। এদিকে অতিরিক্ত শসা খেলে আপনার পুষ্টি উপাদানের ঘাটতি দেখা দিতে পারে। অনেকেই এই লকডাউনে বাড়িতে থাকায়,শরীরে মেদ জমতে থাকে। তারজন্য কেউ কেউ ভাবছে মেদ কমাতে খাওয়া যাক শসা. খেতে পারেন,তবে সেটা অতিমাত্রায় নয়। যদিও বলা হয় ওজন কমানোর জন্য খাওয়া ভালো। কিন্তু আদতে তা নয় । অতিমাত্রায় খেলে তা শরীরে ঘটতি দেখা দিতে পারে। তাই শসা খান,কিন্তু অতিরিক্ত নয়।

করোনায় আমের সুফল

গ্রীষ্মের ফল হিসেবে আম সবার কাছেই প্রিয়। ফলের রাজা আম  কে না খেতে চায়. সুস্বাদু আর স্বাস্থ্যগুণে ভরা এই ফলের। তবে মনে রাখবেন আম সকলের খাওয়া উচিত। শুধু স্বাদ হিসেবে নয়,পুষ্টি বাড়াতে। এবার জেনে নেওয়া যার এর ঠিক কি কি গুন আছে।  প্রথমেই বলা যায়, আম খেলে ত্বকের উজ্জ্বলতা বাড়ে। ত্বকের সমস্যা থেকে আপনি মুক্তি পাবেন। এছাড়া থাকবেনা কোনও ব্রণর সমস্যা। এর আরও একটা গুরুত্বপূর্ণ দিক আছে,আন্টিঅক্সিডেন্ট অনেকটা।ক্যানসার থেকে মুক্তি পেতে আম খাওয়াও শরীরের পক্ষ অত্যন্ত ভালো।

এছাড়া আরও একটা দিক উঠে আসে, আম খেলে শরীরের ওজন কমবে আপনার। এছাড়া আজকাল কাজের চাপে  কিংবা অন্যান্য দুশ্চিন্তা থাকলে কিংবা এখন কম বেশি প্রত্যেকেই আমরা সোশ্যাল মিডিয়ায় একটিভ থাকি।যার জেরে ঘুম কিছুটা কম হয়। সেক্ষেত্রে আপনি অবশ্যই  খেতে পারেন আম। প্রতিনিয়ত রাতে যদি আপনি খাবারের সাথে আম খান তাহলে ভালো ঘুম নিশ্চিত। এছাড়া ভিটামিন এ আমের উপাদান। ফলে দৃষ্টিশক্তি ভালো রাখতে আপনি খেতে পারেন আম।  হজমশক্তি ভালো রাখতে আম খাওয়া আরও একটা ভালো দিক।  এছাড়া মহিলাদের ক্ষেত্রে ডায়েটের জন্য আমি খাওয়া উপকারী। যদিও করোনা অতিমারির সময় এখন আপনি চাইলে প্রতিদিন আম খেতেই পারেন । সুস্বাদুর  পাশাপাশি ভিটামিন দরকার। তাই ফলের রাজা হিসেবে আম খেতেই পারেন।