দেশে লাফিয়ে বাড়ছে দৈনিক মৃত্যু, চিন্তা বাড়ছে শিশুদের সংক্রমণে

তৃতীয় ঢেউয়ের আগেই উদ্বেগ বাড়িয়েই তুলছে দেশের করোনা পরিসংখ্য়ান। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের সাম্প্রতিকতম রিপোর্ট অনুযায়ী, দৈনিক সংক্রমণ সামান্য কমলেও মৃত্যু বাড়ল লাফিয়ে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনার বলি ৫৮৫জন।  বৃহস্পতিবার তা ছিল পাঁচশোর কাছাকাছি। আর একদিনের সংক্রমিত হয়েছেন ৪০ হাজার ১২০ জন। বৃহস্পতিবার এই সংখ্যা ছিল ৪১ হাজারেরও বেশি।

কমেছে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা। এই মুহূর্তে তা ৩ লাখ ৮৫ হাজার ২২৭। চিন্তা আরও বাড়াচ্ছে কর্ণাটকে শিশুদের মধ্যে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হার। কর্ণাটকে গত ১০ দিনে ৫৪৩ জন কমবয়সী মহামারীতে আক্রান্ত হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। শুক্রবার  স্বাস্থ্যমন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, এই মুহূর্তে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ২১ লক্ষ ১৭ হাজার ৮২৬ জন। সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩ কোটি ১৩ লক্ষ ২ হাজার ৩৪৫ জন। এই হার বেশ আশাব্যঞ্জক বলেই মনে করছে স্বাস্থ্যমহল। আর করোনার বলি মোট ৪ লক্ষ ৩০ হাজার ২৫৪। তবে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুর হার বেশ খানিকটা বাড়ল, তা স্পষ্টত. তৃতীয় ঢেউ আসার আগেই যেভাবে বাড়ছে মৃত্যু,তাতে আতঙ্ক বাড়ছে বলা যায়.এদিকে শিশুদের সংক্রমণ বাড়ছে। এই মুহূর্তে কর্নাটকে শিশুরা বেশি সংক্রমণ হচ্ছে। এতে ক্রমশই কিন্তু চিন্তা বাড়ছে। এইভাবে সংক্রমনন বাড়তে উদ্বেগ বাড়াচ্ছে বেশখানিকটা।


সাতসকালে বিদ্যাসাগর সেতুতে দুর্ঘটনা, মৃত বাইক চালক

কলকাতাঃ সাতসকালে দ্বিতীয় হুগলি সেতুর উপর দুর্ঘটনা। বাসের ধাক্কায় পিষ্ট হয়ে মৃত্যু হল এক বাইক আরোহীর। আহত বেশ কয়েকজন। আটক বাস ও বাসচালক। 

জানা গিয়েছে, এদিন সকালে হাওড়ার সাঁকরাইল থেকে দ্বিতীয় হুগলি সেতু হয়ে  নিউটাউনের দিকে আসছিল একটি যাত্রীবোঝাই বাস। সেই সময় একটি চলন্ত বাইককে সজোরে ধাক্কা দেয় ওই বাসটি। দুর্ঘটনার কবলে পড়ে ঘটনাস্থলেই মৃত্যু হয় বাইক চালকের। ফলে দ্বিতীয় হুগলি সেতুতে যানজট দেখা দেয়। 

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় হেস্টিংস ও মন্দিরতলা থানার পুলিশ। তারাই দেহ উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠায়। এরপর পুলিশের তৎপরতায় ট্রাফিক স্বাভাবিক হয়।

সাত সকালে কীভাবে দুর্ঘটনা ঘটল, তা খতিয়ে দেখছে পুলিশ। 

কানের মধ্যে ফাটল ব্লুটুথ হেডসেট, হাসপাতালে মৃত্যু যুবকের

জয়পুর: অনেকের কানেই দেখা যায় ব্লুটুথ হেডসেট। এবার সেই ব্লুটুথ হেডসেটেই ঘটল মর্মান্তিক ঘটনা। এক যুবকের কানের ভিতরেই ফেটে গেল ব্লুটুথ হেডসেট। আহত অবস্থায় হাসপাতালে নিয়ে গেলে,তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসরা। মৃত যুবকের নাম রাকেশ নাগর।

জানা গিয়েছে কানে ব্লুটুথ হেডসেট লাগিয়ে পড়াশোনা করছিল ওই যুবক। হেডসেটের মাধ্যমে ফোনে কথা বলছিলেন। সেই সময় এই দুর্ঘটনা ঘটে। ঘটনাটি ঘটেছে রাজস্থানের জয়পুরের উদয়পুরিয়া গ্রামের চাউমি এলাকায়।  

ব্লুটুথ প্রোটোকল বাস্তবায়নকারী যন্ত্রাংশ বা ডিভাইসগুলি দ্বিমুখী সংযোগ স্থাপন করে কাজ করে। বর্তমানে কম্পিউটার, মোবাইল ফোন, ট্যাব, গেমিং কনসোল, ডিজিটাল ক্যামেরা, সাউন্ড বক্স, প্রিন্টার, ল্যাপটপ, জিপিএস রিসিভার প্রভৃতি যন্ত্রাদিতে ব্লুটুথ প্রযুক্তি ব্যবহার হচ্ছে। ৯০০ খ্রীস্টাব্দের পরবর্তী সময়ের ডেনমার্কের রাজা Harald Bluetooth-এর নামানুসারে এই প্রযুক্তির নামকরণ করা হয়েছে। 

আরও পড়ুনঃ করোনায় মৃত সাংবাদিকদের পরিবারের জন্য ৫ কোটি টাকা বরাদ্দ করল কেন্দ্র

বাংলায় দৈনিক মৃতের সংখ্যা কমলেও,বেড়েছে সংক্রমণ

রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় কিছুটা কমেছে মৃত্যু। কিন্তু গতকালের তুলনায় বেড়েছে সংক্রমণ। একদিনে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৬৯ জন রাজ্যবাসী। পজিটিভিটি রেট ১.৬০ শতাংশ। 

বুধবার সন্ধের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৬৯ জন। মঙ্গলবার ছিল ৭৫২ জন। সবমিলিয়ে এদিন রাজ্যের মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৫ লক্ষ ২০ হাজার ৪৬৮ জন।

একদিনে সুস্থ হয়েছেন ৯৮১ জন। মোট সংখ্যাটা ১৪ লক্ষ ৯০ হাজার ৫০ জন। ফলে সুস্থতার হার বেড়ে ৯৮ শতাংশ। এদিন রাজ্যে ৫৪ হাজার ৪৩৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। 

গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। মঙ্গলবার ছিল ১০ জন। তারফলে রাজ্যে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১৮ হাজার ২১ জন। মৃত্যু হার হল ১.১৯ শতাংশ। 


ভয়ঙ্কর পরিস্থিতিঃ দেশে দৈনিক মৃত্যু একলাফে দশগুণ বেশি

তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আগেই বিপদ বাড়ল দেশে। একদিনে দশগুণ বাড়ল মৃত্যু। ফলে  নতুন করে চিন্তা বাড়ল স্বাস্থ্যমন্ত্রকের।  

আজ বুধবারের স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৪২ হাজার ১৫ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যা গতকালের তুলনায় অনেকটাই বেশি। সব মিলিয়ে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৩ কোটি ১২ লক্ষ ১৬ হাজার ৩৩৭। পজিটিভ রেট ২.২৭ শতাংশ। 

এছাড়া ফের চিন্তা বাড়াল মৃত্যু সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় দেশে মৃত্যু হয়েছে ৩৯৯৮ জনের। যা গতকালের তুলনায় ১০ গুন বেশি। গতকাল সংখ্যাটা ছিল মাত্র ৩৭৪ জনে। 

বিস্তারিত আসছে 


ফের বাড়ল রাজ্যের দৈনিক করোনা সংক্রমণ

কিছুতেই বাগে আনা যাচ্ছে না করোনাকে। রাজ্যে এখনও কড়া বিধি নিষেধ চলছে। রয়েছে নাইট কার্ফু। তা স্বত্বেও রাজ্যে সোমবারের তুলনায় মঙ্গলবার বাড়ল দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা। 

মঙ্গলবার সন্ধের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৭৫২ জন। সোমবার সংখ্যাটা ছিল ৬৬৬। সবমিলিয়ে এদিন রাজ্যের মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৫ লক্ষ ১৯ হাজার ৫৯৯ জন। রাজ্যের পজিটিভিটি রেট দাঁড়াল ১.৪৮ শতাংশ।

একদিনে সুস্থ হয়েছেন ৯৯২ জন। মোট সংখ্যাটা ১৪ লক্ষ ৮৯ হাজার ৬৯ জন। ফলে সুস্থতার হার দাঁড়াল ৯৭.৯৯ শতাংশ। এদিন রাজ্যে ৫০ হাজার ৭১৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। 

গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ১০ জনের। সর্বাধিক মৃত্যু হয়েছে উত্তর ২৪ পরগনা ও হুগলিতে। এই দুই জেলায় ২৪ ঘন্টায় মোট ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া কলকাতা, হাওড়া, পূর্ব মেদিনীপুর, ঝাড়গ্রাম, দাঁর্জিলিং, ও জলপাইগুড়িতে এক জন করে করোনা রোগীর মৃত্যু হয়েছে।  তারফলে রাজ্যে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১৮ হাজার ২১ জন। মৃত্যু হার হল ১.১৯ শতাংশ। 


corona: রাজ্যে ফের বাড়ল দৈনিক মৃত্যু

কলকাতাঃ রাজ্যে ফের বাড়ল দৈনিক মৃতের সংখ্যা। প্রায় তিন মাস পর গতকাল সংখ্যাটা ১০-এর নিচে নেমে এসেছিল। আজ তা ফের বেড়ে গেল। তারফলে মোট মৃতের সংখ্যা প্রায় ১৮ হাজার। 

রবিবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৮০১ জন। গতকাল ছিল  ৮৯৯ জন। সব মিলিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লক্ষ ১৮ হাজার ১৮১ জন। 


অন্যদিকে ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ১১ জনের। গতকাল এই সংখ্যাটা ছিল মাত্র ৮ জনে। প্রায় তিন মাস পর গতকাল সংখ্যাটা ১০-এর নিচে নেমে এসেছিল। তবে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭ হাজার ৯৯৯ জন। 

তবে দৈনিক আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা বেশি। একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ১২ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৪ লক্ষ ৮৭ হাজার ৭১ জন। 

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা কমে ১৩ হাজার ১১১ জন। একদিনে কমেছে ২২২ জন। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা টেস্ট হয়েছে ৫১ হাজার ৩১৬ টি। বর্তমানে রাজ্যের ১২৬ টি ল্যাবরেটরিতে টেস্ট হচ্ছে। 


corona: রাজ্যে দৈনিক মৃত্যু ১০-এর নিচে

রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ তুলনামূলক না কমলেও,স্বস্তি দিচ্ছে মৃত্যু সংখ্যা।  

শনিবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৮৯৯ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লক্ষ ১৭ হাজার ৩৮০ জন। 

অন্যদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে মাত্র ৮ জনের। অনেক দিন পর কমল দৈনিক মৃতের সংখ্যা। গতকালও সংখ্যাটা ছিল ১০-এ। তবে মোট মৃতের সংখ্যা  ১৭ হাজার ৯৮৮ জন। 

তবে দৈনিক আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা বেশি। একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ৪২ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৪ লক্ষ ৮৬ হাজার ৫৯ জন। 

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা কমে ১৩ হাজার ৩৩৩ জন। একদিনে কমেছে ১৫১ জন। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা টেস্ট হয়েছে ৫৭ হাজার ১০ টি। বর্তমানে রাজ্যের ১২৬ টি ল্যাবরেটরিতে টেস্ট হচ্ছে। 


Breaking: বাংলাদেশ অগ্নিকাণ্ডে কারখানার মালিকসহ আটক ৮, খুনের মামলা দায়ের

নারায়ণগঞ্জ: জুস কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে ইতিমধ্যেই ৫২ জনের মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের মধ্যে অধিকাংশই শিশু শ্রমিক বলে খবর। তাছাড়া এখনও বেশ কয়েকজন শ্রমিক নিখোঁজ।এই ঘটনায় কারখানার মালিকসহ আটজনকে আটক করেছে বাংলাদেশ পুলিশ।

এদিকে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ থানায় একটি খুনের মামলা দায়ের করা হয়েছে। নারায়ণগঞ্জের পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম জানালেন,আটককৃতদের মধ্যে হাশেম ফুডস অ্যান্ড বেভারেজ নামক কারখানাটির স্বত্বাধিকারী এমএ হাশেম রয়েছেন।  

বিস্তারিত আসছে --

রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ কমলেও,বাড়ছে মৃত্যু

কলকাতাঃ রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ সামান্য কমলেও, ফের বাড়ছে মৃত্যু। ফলে উদ্বেগ বাড়ছে স্বাস্থ্য দফতরের।  

শুক্রবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৯৯০ জন। গতকাল ছিল ৯৯৫ জন। সব মিলিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লক্ষ ১০ হাজার ২০৮ জন।

বিস্তারিত আসছে --

২৪ ঘন্টা পরও জ্বলছে আগুন! মৃত কমপক্ষে ৫২

নারায়ণগঞ্জঃ যত সময় যাচ্ছে ততই বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। উদ্ধার হচ্ছে একের পর এক মৃতদেহ। এখনও নিখোঁজ বহু। কারখানাটিতে প্রায় ৭ হাজার শ্রমিক কাজ করত একসময়। কিন্তু করোনাকালে কারখানাটিতে ১০০০ থেকে ১২০০ শ্রমিক কাজ করতেন বলে জানা গিয়েছে।

বিস্তারিত আসছে --

১৬ ঘণ্টায়ও নিয়ন্ত্রণে আসেনি আগুন-মৃত ৩, নিখোঁজ বহু শ্রমিক

নারায়ণগঞ্জঃ কারখানায় অতিরিক্ত দাহ্য পদার্থ থাকায় নিয়ন্ত্রণে আসছে না আগুন। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে দমকলের ১৮টি ইউনিট কাজ করছে। টানা ১৬ ঘণ্টা ধরে আগুন জ্বলতে থাকায় বহুতলে ফাটল দেখা দিয়েছে।

বিস্তারিত আসছে --

প্রয়াত রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী এবং আইপিএস রচপাল সিং

কলকাতাঃ প্রয়াত রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী এবং আইপিএস রচপাল সিং।মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৮ বছর। তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আজ, বৃহস্পতিবার ভোরে কলকাতায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তারকেশ্বরের প্রাক্তন বিধায়ক রচপাল সিং। তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শোকবার্তায় তিনি লেখেন, "রচপাল সিংয়ের মৃত্যুতে রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক  জগতে  শূন্যতার সৃষ্টি হল। আমি ওঁর পরিবার, পরিজন ও অনুরাগীদের প্রতি আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি।"

১৯৭৪ ব্যাচের এই আইপিএস চাকরিজীবন থেকে অবসর নেওয়ার পরই তৃণমূলে যোগ দেন। ২০১১ সালে রাজ্যে পালাবদলের সময় হুগলির তারকেশ্বর থেকে বিধায়ক হন তিনি। ২০১৬ সালেও ফের তারকেশ্বর থেকে ভোটে জিতে আসেন। ২০১১ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত তিনি রাজ্যের পর্যটন এবং পরিকল্পনা দপ্তরের মন্ত্রী ছিলেন। পরে তিনি রাজ্য পরিবহণ নিগমের চেয়ারম্যান হন।

বাংলাদেশে উদ্বেগ বাড়াচ্ছে করোনা

ঢাকাঃ করোনার সংক্রমণ প্রতিদিনই বাড়ছে। করোনার ডেল্টা প্রজাতির সংক্রমণে কাবু বাংলাদেশ। প্রতিদিনই বাড়ছে মৃতের সংখ্যা। বাংলাদেশ সরকার আগামী ৭ জুলাই পর্যন্ত কঠোর লকডাউন পালনের নির্দেশ দিয়েছে।

তবে লকডাউন চালু থাকলেও ঠেকানো যাচ্ছে না করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু। বাংলাদেশে একদিনে আক্রান্ত ৮ হাজার ৬৬১ জন। মোট সংখ্যা ৯ লক্ষ ৪৪ হাজার ৯১৭ জন। ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে  ১৫৩ জনের। তারফলে মোট মৃতের সংখ্যা ১৫ হাজার ৬৫ জন। তবে মোট সুস্থ হয়েছেন ৮ লক্ষ ৩৩ হাজার ৮৯৭ জন। একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ৪ হাজার ৬৯৮ জন।

বাংলাদেশে করোনা টিকা দেওয়া হয়েছে ১ কোটি ১ লাখ ৭৭ হাজার ৯০ জনকে। তার মধ্যে প্রথম ডোজ পেয়েছেন ৫৮ লাখ ৮৪ হাজার ৯৪০ জন। আর দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছেন ৪২ লাখ ৯২ হাজার ১৫০ জন।

রাষ্ট্রপতির কনভয়ের কারণে মৃত্যু মহিলার

এই বাংলায় হলে খবরের শেষ পাতায় চলে যেত দেবাঞ্জনের ভ্যাকসিন কান্ড, যা অনায়াসেই হয়ে গেলো কানপুরে | রাষ্ট্রপতি তাঁর গ্রামের বাড়িতে যাবেন বলে সাজ সাজ রব | বিশেষ ট্রেন সাজানো হয়েছিল দিল্লি থেকে | সেই ট্রেনে কানপুর এসে নিজের গ্রামের দিকে যাবেন ঠিক ছিল | রাষ্ট্রপতি বলে কথা তাই রামনাথ কবিন্দ সময়মতো এসেও পৌঁছালেন কানপুর |

রাষ্ট্রপতির কনভয়ের জন্য রাস্তাঘাট আটকে দিলো উত্তরপ্রদেশ পুলিশ | ঠিক সে সময়ে বন্ধনা মিশ্র বলে এক মহিলাকে (৫০) অসুস্থ হওয়ার কারণে  এম্বুলেন্স করে হাসপাতালের দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিলো কিন্তু রাষ্ট্রপতির কনভয়ের কারণে রাস্তায় প্রবল যানজট হয় | শেষ পর্যন্ত রুগীকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করা হয় |

শ্রীমতি মিশ্র আইএআই এর মহিলা শাখার কর্মী  | তাঁর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করে কানপুর পুলিশ | তাদের প্রধান পুলিশ কর্তা অসীম অরুন এই মৃত্যুর জন্য শোক প্রকাশ করেন | ব্যাস এখানে দায় এবং দায়িত্ব শেষ ...... উত্তরপ্রদেশ বলে কথা |