ফের গত ২৪ ঘন্টায় কমল সংক্রমণ

ফের স্বস্তি মিলল সংক্রমণে।গত ২৪ ঘণ্টা দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ৫০৯ জন। তবে সামান্য বেসামাল হলে করোনা পরিস্থিতি ফের ভয়াবহ রূপ নিতে পারে বলে বারবার সতর্ক করছেন বিশেষজ্ঞরা।গত ২৪ ঘণ্টায় কোভিডে মৃত্যু হয়েছে ৬৪০ জনের। বেশিরভাগ রাজ্যে সংক্রমণ কমলেও উদ্বেগ বাড়াচ্ছে কেরল। দক্ষিণের এই রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা ২২ হাজার ১২৯, যা দেশের দৈনিক সংক্রমণের প্রায় ৫১ শতাংশ।

এদিকে ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে উঠেছেন ৩৮ হাজার ৪৬৫ জন। করোনার দ্বিতীয় ঢেউযে সংক্রমণ কিছুটা কমলেও সামনেই তৃতীয় ঢেউ আসার সম্ভাবনা।দেশে টিকাকরণ শুরু হয়ে গেছে। কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছে এই বছরের মধ্যে টিকাকরণ সারতে হবে. তৃতীয় ঢেউ মোকাবিলা করতে প্রস্তুত নিচ্ছে কেন্দ্র।

CORONA UPDATE : ফের স্বস্তি দৈনিক সংক্রমণে

বেশকয়েকদিন ধরে সংক্রমণ ওঠা-নাম করছে। তবে গত দুদিন ধরে সংক্রমণ অনেকটা কমের দিকে। মঙ্গলবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের  বুলেটিন অনুযায়ী, দেশে দৈনিক করোনা সংক্রমণ নামল ৩০ হাজারের নিচে। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২৯.৬৮৯ জন। সোমবারও এই সংখ্যা ছিল ৩৪ হাজারের বেশি। মৃত্যু হয়েছে ৪১৫ জনের। মঙ্গলবার দেশের করোনা পরিসংখ্য়ান বলছে, শুধু দৈনিক সংক্রমণই নয়, কমেছে অ্যাকটিভ  রোগীর সংখ্যাও।

এই মুহূর্তে দেশে করোনা অ্যাকটিভ রোগী ৩ লাখ  ৯৮ হাজার ১০০ জন। সোমবারও যা ছিল ৪ লাখ ১১ হাজারের বেশি। ইতিমধ্যে দেশে টিকাকরণ কর্মসূচি শুরু হয়ে গেছে। এদিকে কেন্দ্রের লক্ষ্য ডিসেম্বরের মধ্যে অধিকাংশ মানুষের টিকাকরণ সারতে হবে. সামনেই তৃতীয় ঢেউ আসার সম্ভাবনা।তার আগে কেন্দ্র যাবতীয় প্রস্তুতি নিচ্চ্ছে।





করোনা আপডেট: দেশে সামান্য কমল দৈনিক সংক্রমণ

প্রতিনিয়ত সংক্রমণ ওঠা-নামা করছে। তবে দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ কমলেও,তৃতীয় ঢেউ আসার আতঙ্ক বেড়েই চলেছে। এদিকে শপথের প্রথম দিনেও কিন্তু কোনরকম পরিবর্তন দেখা গেলোনা। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের সোমবার পরিসংখ্যান অনুযায়ী,  দৈনিক করোনা সংক্রমণে তেমন পরিবর্তন নেই। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করোনা ভাইরাসে  আক্রান্ত হয়েছেন ৩৯ হাজার ৩৬১ জন, রবিবারের তুলনায় কিছুটা কম।

তবে দৈনিক মৃত্যুর হারে খানিক স্বস্তি। রবিবার করোনায় মৃত্যু হয়েছিল ৪৩৫ জনের। আর সোমবার তা নেমে দাঁড়াল ৪১৬এ। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ৩৫ হাজার ৯৬৮ জন। ইতিমধ্যে দেশে শুরু হয়েছে টিকাকরণ। এদিকেতৃতীয় ঢেউ আসার প্রবল সম্ভাবনা। তবে বেশকিছু জায়গায় কিন্তু তৃতীয় ঢেউ আসতে শুরু করেছে। মানুষের ওপর প্রভাব পড়ছে। করোনার নয়া প্রজাতি ডেল্টা আরও ভয়ঙ্কর রূপ ধারণ করছে।মানুষ কিন্তু এই নয়া সংক্রমণের কবলে পড়ছে। তবে সাধারণ মানুষের সামাজিক সচেতনতার অভাবে কারণ কিন্তু আরও বিপদ আনতে পারে,বিশেষজ্ঞমহল তাই মনে করছেন। ইতমধ্যে কেন্দ্রের তরফে তৃতীয় ঢেউয়ের  জন্য যাবতীয় প্রস্তুত নেওয়া হচ্ছে।

ফের স্বস্তি মিলল দৈনিক সংক্রমণে

করোনার দ্বিতীয় সংক্রমণে কিছুটা স্বস্তি হলেও তৃতীয় ঢেউ আস্তে আর বেশি দেরি নেই । স্কিন্তু প্রতিনিয়ত কমছে ও বাড়ছে দৈনিক সংক্রমণ। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের করোনা সংক্রমণের গ্রাফ কমবেশি একই থাকল। আগের দিনের মতোই দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যাটা থাকল ৪০ হাজারের সামান্য নিচে। তবে আগের দিনের তুলনায় বেশ খানিকটা বাড়ল করোনাজয়ীর সংখ্যা। যা স্বস্তি দেবে স্বাস্থ্যমন্ত্রককে। মৃতের সংখ্যাটা কমবেশি আগের দিনের মতোই।

তবে, এদিন টিকাকরণ নিয়ে বড়সড় দাবি করেছে কেন্দ্র। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দাবি, ইতিমধ্যেই রাজ্যগুলিকে ৪৫ কোটি ৩৭ লাখের বেশি টিকা সরবরাহ করা হয়েছে। যার মধ্যে প্রায় ৩ কোটি ৮০ লাখ টিকা এখনও ব্যবহার হয়নি। আরও ১১ লাখের বেশি ভ্যাকসিন রাজ্যগুলির কাছে পাঠানো হচ্ছে।রবিবার সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের  পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩৯ হাজার ৭৪২ জন করোনা  আক্রান্ত হয়েছেন। যা আগের দিনের থেকে সামান্য হলেও বেশি। ফলে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ১৩ লাখ ৭৩ হাজারের বেশি। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আপাতত মৃতের সংখ্যা ৪ লাখ ২০ হাজার ৫৫১ জন। যদিও সংক্রমণের ওঠানামা হলেও, তৃতীয় ঢেউ মোকাবিলা করতে ইতিমধ্যে প্রস্তুত নিচ্ছে কেন্দ্র। 

দেশের করোনা আপডেট: ফের ২৪ ঘন্টায় বাড়ল দৈনিক সংক্রমণ

দেশে প্রতিনিয়ত সংক্রমণ বাড়ছেও কমছে। এরমধ্যে তৃতীয় ঢেউয়ের সম্ভাবনা। তবে গতকাল দেশে দৈনিক সংক্রমণ অনেকটাই কম ছিল.কিন্তু শনিবার ফের বাড়ল করোনা সংক্রমণ। শনিবারও দেশের করোনা পরিসংখ্যান তুলে ধরে সে কথা স্পষ্ট করে দিল স্বাস্থ্যমন্ত্রক। অর্থাৎ সুস্থতার হার স্বস্তিজনক বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে আগস্টেই দেশে তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আশঙ্কা। মারণ ভাইরাস থেকে শিশুদের সুরক্ষিত রাখতে তাই সেপ্টেম্বর থেকেই ভ্যাকসিন দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছে এইমস।

এদিকে শনিবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুযায়ী,গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩৯ হাজার ৯৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। যা গতকালের তুলনায় খানিকটা বেশি। এদিকে দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণে স্বস্তি মিললেও,কিন্তু তৃতীয় ঢেউ ইতিমধ্যে বেশকিছু জায়গায় ছড়িয়েছে। আগামী আগস্ট মাসেই কিন্তু দেশে এই তৃতীয় ঢেউ আসবে। তারমধ্যে করোনার জন্য প্রজাতি ডেল্টা আরও ভয়ানক হয়ে উঠেছে।যা মানুষের শরীরে ছড়াচ্ছে। এই নিয়ে চিনিটি কিন্তু চিকিৎসামহল. এছাড়া তৃতীয় ঢেউ মোকাবিলা করতে টিকাকরণ যে আবশ্যক তা বারংবার জানাচ্ছে বিশেষজ্ঞরা।

করোনা আপডেট : ফের স্বস্তি দৈনিক সংক্রমণে

 করোনার দ্বিতীয় ঢেউ শুরু হলেও তবে অনেকটাই এখন কম। কিন্তু চিন্তা বাড়াচ্ছে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ. এদিকে করোনার নয়া প্রজাতি ডেল্টা যেভাবে ভয়ঙ্কর হচ্ছে,তাতে কিছুটা চিন্তা বাড়ছে। প্রতিনিয়ত দেশে সংক্রমণ ওঠা-নাম তো চলছেই। শুক্রবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় দেশে নতুন করে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩৫,৩৪২ জন. যদিও বৃহস্পতিবার এর সংখ্যাটা ছিল ৪১ হাজারের বেশি।

একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৪৮৩ জনের। আর গত ২৪ ঘণ্টায় করোনার কবলমুক্ত হয়েছেন ৩৮ হাজার ৭৪০ জন। এদিকে যেহারে মৃত্যু সংখ্যা বাড়ছিল,তাতে কিন্তু আজ অনেকটাই নিম্নমুখী। তবে তৃতীয় ভাইরাস ইতিমধ্যে দেশে প্রবেশ করতে শুরু করেছে। মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে। এদিকে শিশুদের নিয়ে ক্রমশ চিন্তার কারণ রয়েছে। দেশজুড়ে শুরু হয়েছে ভ্যাকসিন ইতিমধ্যেই। এখন তৃতীয় ঢেউ কতটা প্রভাব ফেলবে দেশে সেটাই দেখার।


করোনা আপডেট : ফের চিন্তা বাড়াল দৈনিক সংক্রমণ

করোনার দ্বিতীয় ঢেউতে সংক্রমণ কমলেও তৃতীয় ঢেউ কি একেবারে দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে? কয়েকদিন আগেই দেশের দৈনিক করোনা আক্রান্তের সংখ্যাটা ৪০ হাজারের বেশ নিচেই ঘোরাফেরা করছিল। গতকাল তা একলাফে অনেকটা বাড়ে। আজও দেশের দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যাটা ৪১ হাজারের উপরেই। উপরন্তু, পরপর দ্বিতীয় দিন বাড়ল করোনার অ্যাকটিভ কেস। যা বেশ চিন্তায় ফেলছে স্বাস্থ্যমন্ত্রককে।

বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্যদফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৪১ হাজার ৩৮৩ জন করোনায়  আক্রান্ত হয়েছেন। যা আগের দিনের থেকে সামান্য কম হলেও গত কয়েকদিনের তুলনায় বেশি। ফলে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ১২ লাখ  ৫৭ হাজার ৭২০ জন । এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৫০৭ জনের। তবে সামনেই তৃতীয় ঢেউ আসার প্রবল সম্ভাবনা। চিন্তিত গোটা দেশ।

ফের স্বস্তি মিলল দৈনিক সংক্রমণে

করোনা পরিসংখ্যানে বড়সড় স্বস্তি। একদিনে দেশে দৈনিক আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা, দুটোই অনেকটা কমল। একদিকে যেমন দীর্ঘদিন বাদে দৈনিক আক্রান্ত নামল ৩০ হাজারে। যা কিনা গত ১২৫ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন। অন্যদিকে তেমনই মৃতের সংখ্যা নেমে এল চারশোরও নিচে। যা কিনা কয়েক মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। তবে, গত কয়েকদিন ধরেই করোনার পরিসংখ্যান ওঠানামা করছে।

মঙ্গলবার সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩০ হাজার ৯৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যা আগের দিনের থেকে প্রায় আট হাজার কম। ফলে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ১১ লাখ ৭৪ হাজার ৩২২ জন।গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৩৭৪ জনের। এদিকে কয়েকদিন ধরেই সংক্রমণের ওঠানামা চলছে। তবে দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ কিছুটা কমলেও সামনেই তৃতীয় ঢেউ আসার প্রবল সম্ভাবনা। ইতিমধ্যেই দেশের অধিকাংশ জায়গাতে তার প্রভাব পড়ছে।

দেশের করোনা আপডেট একনজরে

 করোনার তৃতীয় ঢেউ আসতে চলেছে। তার আগে দেশের করোনার  গ্রাফে ওঠানামার খেলা চলছেই। রবিবার দেশের দৈনিক সংক্রমণ ছিল ৪১ হাজারের বেশি। আর সোমবার তা নেমে এল ৩৮ হাজারে। স্বাস্থ্যমন্ত্রকের  পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩৮ হাজার ১৬৪ জন। তবে মৃত্যুর হারে স্বস্তি। মহামারীতে দৈনিক মৃত্যু নেমে এল পাঁচশোর নিচে।

গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় প্রাণ হারিয়েছেন ৪৯৯ জন। একদিনে সুস্থ হয়ে ফিরেছেন ৩৮ হাজার ৬৬০ জন।দেশে মোট কোভিড আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ১১ লক্ষ ৪৪ হাজার ২২৯। সুস্থ হয়েছেন ৩ কোটি ৩ লক্ষ ৮ হাজার ৪৫৬। দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ কমলেও তবে আশঙ্কা থেকে যাচ্ছে তৃতীয় ঢেউয়ের।



ফের বাড়ল দৈনিক সংক্রমণ

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে সংক্রমণ কমলে ও ফের তৃতীয় ঢেউ আসতে চলেছে।আগামী মাসেই তৃতীয় ঢেউ আছড়ে পড়ার আশঙ্কায় ত্রস্ত গোটা দেশ। সংক্রমণ রুখতে কড়া প্রশাসনও। বাতিল করা হচ্ছে একের পর এক ধর্মীয় সমাগম। পর্যটকদের ঘুরতে যাওয়ার উপরও জারি হচ্ছে নানা বিধিনিষেধ। আর এসবের মধ্যেই ওঠানামা করছে করোনা সংক্রমণ ও মৃত্যু। শনিবার দৈনিক সংক্রমণ কমলেও রবিবারের রিপোর্ট বলছে, ফের ৪০ হাজারের গণ্ডি ছাড়াল দৈনিক সংক্রমণ।

তবে খানিকটা কম মৃত্যু।রবিবার স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৪১ হাজার ১৫৭ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যা গতকালের তুলনায় ৭.৪ শতাংশ বেশি। একদিনে এই মারণ ভাইরাসে প্রাণ হারিয়েছেন ৫১৮ জন। দেশে এখনও পর্যন্ত করোনার বলি ৪ লাখ  ১৩ হাজার ৬০৯ জন।  ইতিমধ্যে তৃতীয় ঢেউ আসতে  কেন্দ্রের সরকার প্রস্তুতি নিচ্ছে।এদিকে রাজ্যেও অনেকটা বেশি করোনাবিধিনিষিধের ওপর বিশেষ নজরদারি চালানো হচ্ছে।


ফের চিন্তা বাড়াচ্ছে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ কিছুটা স্থিতিশীল হলে ও চিন্তা বাড়াচ্ছে তৃতীয় ঢেউ। এদিকে প্রতিনিয়ত সংক্রমণের সংখ্যা কখনও বাড়ছে কিংবা কমছে। তবে আগামী মাসের মধ্যেই কিন্তু আসতে চলেছে করোনার তৃতীয় ঢেউ। আইসিএমআর গবেষকরা জানাচ্ছেন, এই সংক্রমণ ১ লাখের গন্ডি পেরোবে। যার একমাত্র কারণ হল মানুষের সামাজিক সচেতনতার অভাবের কারণ।

শনিবার স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান বলছে, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩৮ হাজার ৭৯ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। একদিনে এই মারণ ভাইরাসে প্রাণ হারিয়েছেন ৫৬০ জন। তবে ইতিমধ্যেই দেশজুড়ে টিকাকরণ শুরু হয়ে গেছে। দেশে এখনও পর্যন্ত করোনার বলি ৪ লাখ ১৩ হাজার ৯১ জন। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনামুক্ত হয়েছেন ৪৩ হাজার ৯১৬ জন। তবে এর মধ্যে আবার দেশে মাথাচাড়া দিয়েছে করোনার  একাধিক ভ্যারিয়েন্ট। দিনে দিনে চিন্তা বাড়াচ্ছে এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট।

ফের ঊর্ধ্বমুখী আক্রান্তের সংখ্যা

দেশে দৈনিক করোনা আক্রান্তের  সংখ্যাটা  অনেকটা নেমে এসেছিল মাত্র ৩১ হাজার। যা কিনা চার মাসের মধ্যে ছিল সর্বনিম্ন। বৃহস্পতিবার ফের বাড়ল । দেশের দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা ৪০ হাজারের উপরে। নতুন করে ঊর্ধ্বমুখী অ্যাকটিভ কেসও। যা চিন্তা বাড়াচ্ছে স্বাস্থ্য মন্ত্রকের। তবে, এদিন বড়সড় স্বস্তি মিলেছে করোনায় দৈনিক মৃতের সংখ্যায়। দীর্ঘদিন পর দেশের দৈনিক মৃত্যুর সংখ্যা নেমে এসেছে ছ’শোর নিচে।

এদিকে বৃহস্পতিবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুযায়ী,গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৪১ হাজার ৮০৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যা আগের দিনের থেকে হাজার দশেক বেশি। ফলে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ৯ লাখ  ৮৭ হাজার ৮৮০ জন। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আপাতত মৃতের সংখ্যা ৪ লাখ ১১ হাজার ৯৮৯ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৫৮১ জনের।  ইতিমধ্যে দেশজুড়ে শুরু হয়েছে টিকাকরন। টিকাকরণের আওতায় রয়েছে বহু মানুষ।তবে তৃতীয় ঢেউ আসার জের একটা চিন্তার কারণ থেকেই যাচ্ছে।

ফের কমল দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা

এবার দেশে দৈনিক করোনা আক্রান্তে বড়সড় স্বস্তি এল। বেশ কয়েকদিন ধরে ৪০ হাজারের ঘরে ঘোরাফেরা করার পর গতকাল তা নেমে এসেছে ৩০ হাজারের নীচে। আজ অর্থাৎ মঙ্গলবার আরও কমল দৈনিক আক্রান্ত। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনার কবলে পড়েছেন মাত্র ৩১ হাজার ৪৪৩ জন। যা কিনা গত ১১৮ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন। সেই সঙ্গে দেশের সক্রিয় রোগীর সংখ্যাও একলাফে অনেকটা কমে দাঁড়িয়েছে ৪ লক্ষ ৩১ হাজার ৩১৫ জন। যা কিনা ১০৯ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন।

দেশের সুস্থতার হার ৯৭.২৮ শতাংশ।  এদিকে মঙ্গলবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুযাযী,  গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৩১ হাজার ৪৪৩ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। যা আগের দিনের থেকে অনেকটাই কম। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আপাতত মৃতের সংখ্যা ৪ লাখ  ১০ হাজার ৭৮৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে ঘরে ফিরেছেন ৪৯ হাজার ৭ জন। । এখনও পর্যন্ত সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৩ কোটি ৬৩ হাজার ৭২০ জন।  দেশে কমছে আক্রান্তের সংখ্যা অনেকটাই।



ফের দৈনিক সংক্রমণ ৪০ হাজারের নীচে, কমল মৃত্যু

ফের দেশে খানিকটা স্বস্তি মিলল করোনায়। সোমবার স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুযায়ী,দেশে দৈনিক সংক্রমণ নামল ৪০ হাজারের নিচে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে নতুন করে করোনায়  আক্রান্ত হয়েছেন ৩৭ হাজার ১৫৪ জন। রবিবারও এই সংখ্যা ছিল ৪১ হাজারের বেশি। একদিনে মৃত্যু হয়েছে ৭২৪ জনের। কমেছে অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যাও। এই মুহূর্তে দেশে অ্যাকটিভ করোনা রোগী ৪ লাখ ৫০ হাজার ৮৯৯ জন।

এদিকে দ্বিতীয় সংক্রমণ খানিকটা কমলেও, নয়া স্ট্রেনগুলি চোখ রাঙাচ্ছে প্রতিনিয়ত। তৃতীয় ঢেউ আসতে বেশি দেরি নয়.তবে এই প্রজাতিগুলি ইতিমধেও বেশকয়েকটি দেশে হানা দিয়েছে। তবে এখন ভাইরাস রোধ করতে একটায় উপায় যা হল,টিকাকরণ। ইতিমধ্যে দেশগুলিতে চলছে প্রতিনিয়ত টিকাকরন।


দেশে ফের কমল দৈনিক সংক্রমণ

দেশে দৈনিক সংক্রমণ অনেকটাই কম। সেই সঙ্গে করোনাজয়ীর সংখ্যাও প্রায় ৩ কোটি ছুঁইছুঁই। অনেকটা কমেছে মৃতের সংখ্যাও। রবিবার সকালে স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৪১ হাজার ৫০৬ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ফলে দেশে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ কোটি ৮ লাখ  ৩৫ হাজারের কাছাকাছি মানুষ। স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রকের দেওয়া পরিসংখ্যান অনুযায়ী, আপাতত মৃতের সংখ্যা ৪ লাখ ৮ হাজার ৪০ জন।

এদিকে গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে ৮৯৫ জনের। তবে এরমধ্যেই চিন্তা বাড়াচ্ছে করলে। সেখানে সংক্রমণ দিন দিন বেড়ে চলেছে। গত ২৪ ঘন্টাতেও কেরলে সংক্রমিত হয়েছেন ১৪ হাজারের বেশি মানুষ। সামনেই আস্তে চলেছে তৃতীয় ওয়েভ। এখন দেখার কতটা প্রভাব ফেলে।