Afghanistan: কাবুল থেকে ভারতে ফেরা ১৬ জন করোনা আক্রান্ত

নয়াদিল্লিঃ আফগানিস্তান থেকে ভারতে আসা ১৬ জনের দেহে মিলল করোনা ভাইরাস। মঙ্গলবার কাবুল থেকে দেশে ফেরেন ৭৮ জন। 

সূত্রের খবর,  কাবুল থেকে গতকাল যারা ফিরেছেন,তাদের মধ্যে ১৬ জন করোনা আক্রান্ত। শুধু তাই নয়, মঙ্গলবার যাঁরা আফগানিস্থান থেকে গুরু গ্রন্থসাহিব নিয়ে ফিরেছিলেন,সেই তিন শিখও করেনা আক্রান্ত বলে খবর। 

কেন্দ্রীয় মন্ত্রী হরদীপ সিং পুরী মঙ্গলবার নিজে দিল্লির বিমানবন্দরে উপস্থিত ছিলেন। তারপর পর তাকে শিখ ধর্মগ্রন্থ মাথায় নিয়ে হাঁটতে দেখা যায়। তাঁর সঙ্গে ছিলেন আরেক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ভি মুরলীধরন ও বিজেপি নেতা আরপি সিং। কিন্তু এবার করোনা সংক্রমণের খবর প্রকাশ্যে আসতেই বাড়ছে উদ্বেগ। 

জানা গিয়েছে, করোনা আক্রান্ত প্রত্যেকেই উপসর্গহীন। তাও কোনও ঝুঁকি না নিয়ে আফগানিস্তান থেকে দিল্লি বিমানবন্দরে নামা বাকিদেরও কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো হয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছে শিশুরাও। 

প্রসঙ্গত, তালিবানরা কাবুল দখল করতেই,সেখান থেকে  ভারতীয়দের ফিরিয়ে আনার উদ্যোগ নিয়েছে কেন্দ্র। এখনও পর্যন্ত ৬২৬ জনকে আফগানিস্তান থেকে ভারতে নিয়ে আসা হয়েছে। যাঁদের মধ্যে ২২৮ জন ভারতীয় নাগরিক। ৭৭ জন আফগান শিখ। এছাড়া আফগানিস্তানের ভারতীয় দূতাবাসে কর্মরতদেরও দেশে ফেরানো হয়েছে। 


করোনা নিয়ে কড়া দুই বাংলা

করোনার প্রভাব এবং সংক্রমণ এখন অনেকটাই কমেছে পশ্চিমবঙ্গে, একই খবর পাওয়া যাচ্ছে বাংলাদেশ থেকেও । কিন্তু বাংলাদেশে সংক্রমণ ছড়িয়েছিলো অনেক বেশি এই রাজ্যের তুলনায় । মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনেকটা ছাড় দিলেও  বিধিনিষেধ বহাল রয়েছে । জানা গিয়েছে পুলিশ বেশ কড়াকড়ি করছে নাইট কারফিউতে । পুলিশের বক্তব্য প্রয়োজনে প্রমাণপত্র নিয়ে নিয়ম পালন করে মানুষ নিশ্চই বাড়ির বাইরে কাজে বেরোতে পারে কিন্তু মহল্লায় আড্ডা কিংবা ক্লাবের আড্ডা বরদাস্ত হবে না । তাদের বক্তব্য একটু অবস্থার উন্নতি হলেই অনেকেই মাস্ক খুলে ঘুরছে যেটা আটকানো হবে । জনগণের অনেকের ধারণা ডবল ডোজ ভ্যাকসিন নিলেই সমস্যা হবে না কিন্তু এটি ভ্রান্ত ধারণা । হয়তো তার কিছু হলো না কিন্তু সংক্রমণ বহন করে নিয়ে গেলেন ফলে পুলিশের বক্তব্য " মাস্ক মাস্ট " ।

ইদানিং বারাসাত থেকে শুরু করে শহর কলকাতায় রাতের কারফিউ যথেষ্ট কড়া । রাত ৯টা  বাজলেই পুলিশি তৎপরতা বাড়ছে । উপযুক্ত প্রমাণপত্র না থাকলে গ্রেফতার এবং জরিমানা হচ্ছে । একই খবর ওপর বাংলা বা বাংলাদেশেও । সেখানে আংশিক লক ডাউন চলছে । মাস্ক না পড়লে বা রাস্তায় ঘুরে বেড়ালে গ্রেফতার এবং জরিমানা অনিবার্য । শেখ হাসিনা এই বিষয়ে দেশের মানুষকে সতর্ক করে বলেছেন , কিছুতেই তৃতীয় ঢেউ আসতে দেওয়া যাবে না । একই বক্তব্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীও 

করোনার জ্ঞান নিয়েছে কি মানুষ ?

কোনও  সন্দেহ নেই গত বছর প্রথম ঢেউয়ের পর নভেম্বর থেকে দেশ তথা রাজ্যের মানুষ অনেকটাই গা ছাড়া ভাব এনে ফেলেছিলো । সামাজিক দূরত্ব থেকে আড্ডা ফিরে এসেছিলো ফের । এ বছর এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে ফের দ্বিতীয় ঢেউ এসেছিলো । যদিও টিকাকরনও চলেছিল কিন্তু এবারে মানুষ ভয় পেয়েছিলো । মে মাস থেকে কড়াকড়ি শুরু হয় । এবারে সতর্ক করা হয় তৃতীয় ঢেউয়ের ।

রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশিকা দেওয়ার পর মানুষ একটু গুটিয়ে গিয়েছিলো কিন্তু লোকাল ট্রেন বন্ধ থেকে বাস চালু হওয়াতে প্রচন্ড ভিড় বাসে, মিনি বাসে এবং অটোতে । দূরত্ব বলে কিছুই নেই । এ ছাড়া শহর কোলকাতাতে বিভিন্ন বাজারে অসম্ভব ভিড় । লাইন পড়ছে টিকা নিতে । সংক্রমণ একদিকে যেমন কমেছে তেমনই তৃতীয় ঢেউয়ের আগমন ঘটেছে উত্তরপূর্ব ভারতে । বাংলার মানুষ সতর্ক তো ?


বাংলায় দৈনিক মৃতের সংখ্যা কমলেও,বেড়েছে সংক্রমণ

রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় কিছুটা কমেছে মৃত্যু। কিন্তু গতকালের তুলনায় বেড়েছে সংক্রমণ। একদিনে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৬৯ জন রাজ্যবাসী। পজিটিভিটি রেট ১.৬০ শতাংশ। 

বুধবার সন্ধের স্বাস্থ্য দফতরের বুলেটিন অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৬৯ জন। মঙ্গলবার ছিল ৭৫২ জন। সবমিলিয়ে এদিন রাজ্যের মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ১৫ লক্ষ ২০ হাজার ৪৬৮ জন।

একদিনে সুস্থ হয়েছেন ৯৮১ জন। মোট সংখ্যাটা ১৪ লক্ষ ৯০ হাজার ৫০ জন। ফলে সুস্থতার হার বেড়ে ৯৮ শতাংশ। এদিন রাজ্যে ৫৪ হাজার ৪৩৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। 

গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৬ জনের। মঙ্গলবার ছিল ১০ জন। তারফলে রাজ্যে করোনায় মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে হল ১৮ হাজার ২১ জন। মৃত্যু হার হল ১.১৯ শতাংশ। 


শিশুদের শরীরে আঘাত হানতে পারবে না করোনার তৃতীয় ঢেউ

করোনার তৃতীয় ঢেউয়ে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হতে পারে শিশুরা। এমন তথ্য উঠে আসার পর চিন্তা বাড়ছিল মা-বাবাদের। কিন্তু সেই আশঙ্কাকে উড়িয়ে দিলেন শহর কলকাতার একদল চিকিত্সক। 

চিকিত্দের মতে, করোনার তৃতীয় ঢেউ আসার আগেই ভাইরাস কাবু করার ‘প্রোটিন কোষ’ অর্জন করে ফেলেছে অনেক খুদে। 

অতি সম্প্রতি ১৮ বছরের নিচের শিশুদের জন্য শুরু হয়েছিল করোনা টিকার ট্রায়াল। কলকাতার পার্ক সার্কাসের ইনস্টিটিউট অফ চাইল্ড হেলথ-এ হয়েছে এই ট্রায়াল। সেখানে অনেক শিশু মধ্যে করোনার অ্যান্টিবডি পাওয়া গিয়েছে। অর্থাত্ ‘প্রোটিন কোষ’ তৈরি হয়েছে তাদের শরীরে।  ফলে তাদেরকে করোনা টিকা দিতে হয়নি। 

একজন চিকিত্সক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, যে সব শিশুদের শরীরে করোনার অ্যান্টিবডি (প্রোটিন কোষ) তৈরি হয়েছে, তারা করোনা আক্রান্ত হয়েছিল। উপসর্গ না থাকায় পরিবারের লোকেরা টের পাননি। তাদের অজান্তেই শিশুরা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অর্জন করে নিয়েছে। এই অ্যান্টিবডি যতদিন থাকবে করোনা তাদের কিচ্ছু করতে পারবে না।


corona: রাজ্যে দৈনিক মৃত্যু ১০-এর নিচে

রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ তুলনামূলক না কমলেও,স্বস্তি দিচ্ছে মৃত্যু সংখ্যা।  

শনিবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৮৯৯ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লক্ষ ১৭ হাজার ৩৮০ জন। 

অন্যদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে মাত্র ৮ জনের। অনেক দিন পর কমল দৈনিক মৃতের সংখ্যা। গতকালও সংখ্যাটা ছিল ১০-এ। তবে মোট মৃতের সংখ্যা  ১৭ হাজার ৯৮৮ জন। 

তবে দৈনিক আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা বেশি। একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ৪২ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৪ লক্ষ ৮৬ হাজার ৫৯ জন। 

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা কমে ১৩ হাজার ৩৩৩ জন। একদিনে কমেছে ১৫১ জন। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা টেস্ট হয়েছে ৫৭ হাজার ১০ টি। বর্তমানে রাজ্যের ১২৬ টি ল্যাবরেটরিতে টেস্ট হচ্ছে। 


আজকের করোনা আপডেট একনজরে

কলকাতাঃ রাজ্যে আরও কিছুটা কমল দৈনিক মৃতের সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় মৃত্যু হয়েছে মাত্র ১০ জনের। এছাড়া সংক্রমণের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা বেশি। তারফলে কমছে অ্যাক্টিভ করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।

শুক্রবার সন্ধেয় রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৮২ জন। গতকাল ছিল ৮৯১ জন। তারফলে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১৫ লক্ষ ১৬ হাজার ৪৮১ জন।



অন্যদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ১০ জনের। গতকাল ছিল ১২ জন। সব মিলিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা দাঁড়াল ১৭ হাজার ৯৮০ জন।

তবে দৈনিক আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা বেশি। একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ২৫ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৪ লক্ষ ৮৫ হাজার ১৭ জন। সুস্থতার হার ৯৭.৯৩ শতাংশ।

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা কমে ১৩ হাজার ৪৮৪ জন। একদিনে কমেছে ১৫৩ জন। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা টেস্ট হয়েছে ৫৭ হাজার ৯২ টি। বর্তমানে রাজ্যের ১২৬ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে।

রাজ্যে কমল দৈনিক মৃতের সংখ্যা

কলকাতাঃ রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণের সুস্থতার সংখ্যা বেশি। তারফলে কমছে অ্যাক্টিভ করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।বাড়ছে সুস্থতার হার।

বুধারের রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৩১ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১৫ লক্ষ ১৩ হাজার ৮৪৫ জন।

অন্যদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৪ জনের। গতকাল এই সংখ্যাটা ছিল ১৭ জনে। তবে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭ হাজার ৯৮৪ জন। প্রায় ১৮ হাজার।

তবে দৈনিক আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা বেশি। একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ১৬১ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৪ লক্ষ ৮২ হাজার ৯০৩ জন। সুস্থতার হার ৯৭.৯৬ শতাংশ। প্রায় ৯৮ শতাংশ।

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা কমে ১২ হাজার ৯৮৪ জন। একদিনে কমেছে ৩৪৪ জন। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা টেস্ট হয়েছে ৫৫ হাজার ৫৭১ টি। বর্তমানে রাজ্যের ১২৬ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে।

তৃতীয় ঢেউয়ের আগেই দেশে ফের বাড়ল বিপদ

নয়াদিল্লি: দেশে করোনায় দৈনিক মৃত্যু কমলেও,বাড়ল আক্রান্তের সংখ্যা। গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন, ৩৮ হাজার ৭৯২ জন।


কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের বুধবারের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যু হয়েছে ৬২৪ জনের। মোট মৃতের সংখ্যা ৪ লক্ষ ১১ হাজার ৪০৮ জন। মৃত্যু হার ১.৩৩ শতাংশ। এছাড়া মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৯ লক্ষ ৪৬ হাজার ৭৪। মোট অ্যাক্টিভ কেসের সংখ্যা ৪ লক্ষ ২৯ হাজার ৯৪৬। একদিনে কমেছে ২,৮৩২ জন।


তবে করোনাকে জয় করে সুস্থ হয়েছে উঠেছেন মোট ৩ কোটি ১ লক্ষ ৪ হাজার ৭২০ জন। একদিনে সুস্থতার সংখ্যা ৪১ হাজার।দেশে সুস্থতার হার ৯৭.২৮ শতাংশ। মোট ভ্যাকসিন পেযেছেন ৩৮ কোটি ৭৬ লক্ষ ৯৭ হাজার ৯৩৫ জন। গত ২৪ ঘন্টায় পেয়েছেন ৩৭ লক্ষ ১৪ হাজার ৪৪১ জন।


আগামী সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে দেশে আচড়ে পড়তে পারে করোনার তৃতীয় ঢেউ। তার আগে করোনার দৈনিক সংক্রমণ বাড়ায় উদ্বেগ বাড়ছে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকের।

রাজ্যে একদিনে মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের

কলকাতাঃ রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণের সুস্থতার সংখ্যা বেশি। তারফলে কমছে অ্যাক্টিভ করোনা আক্রান্তের সংখ্যা।

মঙ্গলারের রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮৬৩ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে ১৫ লক্ষ ১৩ হাজার ৮৭৭ জন।

অন্যদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের। তারফলে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৭ হাজার ৯৪৪ জন। প্রায় ১৮ হাজার।

তবে দৈনিক আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা বেশি। একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ১৮৬ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৪ লক্ষ ৮১ হাজার ৭৪২ জন। সুস্থতার হার ৯৭.৮৮ শতাংশ। প্রায় ৯৮ শতাংশ।

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা কমে ১৪ হাজার ১৯১ জন। একদিনে কমেছে ৩৪০ জন। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা টেস্ট হয়েছে ৪৬ হাজার ৯০৯টি। বর্তমানে রাজ্যের ১২৬ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা টেস্ট হচ্ছে।

পশ্চিম মেদিনীপুরে ৫৫টি কনটেইনমেন্ট জোন- ঘোষণা প্রশাসনের

পশ্চিম মেদিনীপুরে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। তাই এই জেলায় ৫৫টি কনটেইনমেন্ট জোনের ঘোষণা করল জেলা প্রশাসন। কনটেইনমেন্ট জোনের আওতায় খড়গপুর পুরসভার ৫টি ওয়ার্ড।

পাশাপাশি সংক্রমণ রুখতে কড়া মনোভাব নিয়েছে জেলা প্রশাসন। রাজ্যে যে কড়া বিধি নিষেধ চলছে,তা মানা হচ্ছে কিনা,তার জন্য চলছে নজরদারি। করোনা বিধি ভাঙলেই পুলিশ আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নিচ্ছে পুলিশ।  

শনিবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, পশ্চিম মেদিনীপুরে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৭১ জন। মোট সংখ্যাটা প্রায় ৫০ হাজার। তবে গত ২৪ ঘন্টায় এই জেলায় করোনায় কারও মৃত্যু হয়নি। কিন্তু মোট মৃতের সংখ্যা ৩৬২ জন। এই মূহুর্তে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ১ হাজার ৩২৯ জন। তবে মোট সুস্থ হযে উঠেছেন ৪৭ হাজার ৯৬৭ জন রোগী।

এদিকে রাজ্যে একদিনে নতুন করে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৯৯৭ জন। মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লক্ষ ১১ হাজার ২০৫ জন। গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের। মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে  ১৭ হাজার ৯০৩ জন।

রাজ্যে দৈনিক মৃত্যু কমলেও, বাড়ল সংক্রমণ



কলকাতাঃ রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ ফের বাড়ল। ফলে উদ্বেগ বাড়ছে স্বাস্থ্য দফতরের।  

শনিবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৯৯৭ জন। গতকাল ছিল ৯৯০ জন। সব মিলিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লক্ষ ১১ হাজার ২০৫ জন।

অন্যদিকে গত ২৪ ঘন্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের। গতকাল ছিল ১৯ জন। তারফলে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে  ১৭ হাজার ৯০৩ জন।



তবে দৈনিক আক্রান্তের তুলনায় সুস্থতার সংখ্যা বেশি। একদিনে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ১ হাজার ৩৩৬ জন। মোট সুস্থ হয়েছেন ১৪ লক্ষ ৭৭ হাজার ৯৯৮ জন।

অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা কমে ১৫ হাজার ৩০৪ জন। একদিনে কমেছে ৩৮৬ জন। গত ২৪ ঘন্টায় করোনা টেস্ট হয়েছে ৫২ হাজার ৫৪১ টি। বর্তমানে রাজ্যের ১২৬ টি ল্যাবরেটরিতে টেস্ট হচ্ছে।

রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ কমলেও,বাড়ছে মৃত্যু

কলকাতাঃ রাজ্যে দৈনিক সংক্রমণ সামান্য কমলেও, ফের বাড়ছে মৃত্যু। ফলে উদ্বেগ বাড়ছে স্বাস্থ্য দফতরের।  

শুক্রবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৯৯০ জন। গতকাল ছিল ৯৯৫ জন। সব মিলিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লক্ষ ১০ হাজার ২০৮ জন।

বিস্তারিত আসছে --

রাজ্যে ফের বাড়ল দৈনিক সংক্রমণ ও মৃত্যু

কলকাতাঃ রাজ্যে ফের বাড়ল দৈনিক সংক্রমণ ও মৃত্যু। গত ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত প্রায় এক হাজার। যা গতকালের তুলনায় বেশি। বেড়েছে মৃতের সংখ্যাও।

বৃহস্পতিবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, একদিনে নতুন করে করোনা আক্রান্ত ৯৯৫ জন। গতকাল ছিল ৯৮২ জন। সব মিলিয়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লক্ষ ৯ হাজার ২১৮ জন।

বিস্তারিত আসছে --

দেশে ফের ঊর্ধ্বমূখী করোনার গ্রাফ

নয়াদিল্লিঃ দেশে ফের ঊর্ধ্বমূখী করোনার গ্রাফ। গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত ৪৫ হাজার ৮৯২ জন। একই সময় মৃত্যু হয়েছে মৃত্যু হয়েছে ৮১৭ জনের।

বিস্তারিত আসছে --