কেন্দ্রীয় বাজেটঃ ভোটের বাজারে কী কী পেল বাংলা?

মাস দুয়েকের মধ্যেই রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন। তার আগে ২০২১ সালের কেন্দ্রীয় বাজেটে কী কী বরাদ্দ করা হচ্ছে তার দিকেই নজর ছিল বাংলার রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক মহলের। আসন্ন বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করেছে বিজেপি। তাই ইতিমধ্যেই কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এবং বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জেপি নাড্ডা বারেবারে ছুটে আসছেন বাংলায়। এমনকী প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও আসছেন রাজ্যে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে অংশ নিতে। তাই বিশেষজ্ঞরা ধরেই নিয়েছিলেন এবারের বাজেটে বাংলার দিকে বাড়তি নজর দেবেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামণ। এবার দেখে নেওয়া যাক, কেন্দ্রীয় বাজেটে অর্থমন্ত্রী বাংলার জন্য কী কী বরাদ্দ করলেন। 


রাজ্যের সড়ক পরিকাঠামো এবং সংস্কারে বাড়তি নজর দিল কেন্দ্র। এবারের বাজেটে পশ্চিমবঙ্গের রাস্তা সংস্কার এবং নির্মানের জন্য ২৫ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে কেন্দ্রীয় সরকার। বাজেট ভাষণে অর্থমন্ত্রী জানিয়েছেন, এই রাজ্যে ৬৭৫ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণ করা হবে। একইসঙ্গে সংস্কার করা হবে কলকাতা থেকে শিলিগুড়ির মধ্যে সংযোগকারী প্রধান রাস্তা। উত্তরবঙ্গের সঙ্গে কলকাতার যোগাযোগের মাধ্যম রাস্তার হাল দীর্ঘদিন ধরেই বেহাল। এই রাস্তা সংস্কারের দাবি ছিল উত্তরবঙ্গবাসীর। এবার কেন্দ্রীয় বাজেটে এই রাস্তা সংস্কারের বার্তা দিয়ে কেন্দ্র উত্তরবঙ্গবাসীদের সুখবর দিলেন। তবে শুধু পশ্চিমবঙ্গই নয়, ভোট হতে চলা বাকি চার রাজ্যের জন্যও সড়ক নির্মাণে বড়সড় বরাদ্দ করা হয়েছে। কেরলে ১,১০০ কিমি রাস্তা এবং তামিলনাড়ুতে সাড়ে তিন হাজার কিমি রাস্তা নির্মাণের জন্য বাজেটে অর্থ বরাদ্দ করা হয়েছে। 


পণ্য পরিবহণের জন্য আলাদা করে একটি ডেডিকেটেড ফ্রেট করিডর পেতে চলেছে রাজ্য। অর্থমন্ত্রী বাজেট ভাষণে জানিয়ে দিয়েছেন, খড়গপুর থেকে বিজয়ওয়াড়া পর্যন্ত একটি ফ্রেট করিডর তৈরি করা হবে। এছাড়া শেষ করা হবে গোমো থেকে ডানকুনি পর্যন্ত ২৭৪ কিলোমিটার পণ্যবাহী রেল লাইনের কাজও। রেলমন্ত্রকের আশা, ডেডিকেটেড ফ্রেট করিডরের সংখ্যা আরও বৃদ্ধি পেলে পণ্য পরিবহণের খরচ অনেকটাই কমবে। ফলে জিনিসপত্রের দামও কমবে। অর্থমন্ত্রী এদিন বলেন, রাজ্যে রেললাইনের ১০০ শতাংশ বৈদ্যুতিকরণের কাজও শেষ করা হবে। পাশাপাশি অসম এবং পশ্চিমবঙ্গের চা-শ্রমিকদের কল্যাণের জন্য ১,০০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হল এবারের বাজেটে। যদিও এবারের রেল বাজেটে কলকাতায় মেট্রো প্রকল্পের জন্য কোনও বরাদ্দ নেই।