রবিরশ্মির রং আজ রুপোলি

টোকিওঃ সোনা পেলেন না দারুন লড়েও রবিকুমার দাহিয়া । কিন্তু ভারতের ঘরে এলো আরও একটি রৌপ্য পদক এবারের টোকিও অলিম্পিক থেকে । কুস্তির লড়াইয়ের ফাইনালে গতকালই উঠেছিলেন চমক দিয়ে রবিকুমার । ফাইনালে এই মুহূর্তে বিশ্ব সেরা রাশিয়ার জাভুর উগুয়েভের সাথে লড়াই ছিল রবির । প্রথম রাউন্ডে ২-৪ এ পিছিয়ে পড়েন রবি । পরের রাউন্ডে আরও পিছিয়ে যান, ফল দাঁড়ায় ২-৭ । তারপর ঘুরে দাঁড়ান রবি, যথেষ্ট বেগ দেন জাভুরকে । শেষ পর্যন্ত ফল দাঁড়ায় ৪-৭ । 

এবারে ভারতের ঘরে অনেক মেডেল ঢুকলো । রবিকুমারের সিলভার নিয়ে দাঁড়ালো ২ টি সিলভার ৩টি ব্রোঞ্জ, মোট ৫ টি । যদিও লন্ডন অলিম্পিকে ২০১২ তে ভারত ৬ টি পদক পেয়েছিলো । দেখার বিষয় আরও মেডেল ভারতের টেবিলে আসে কিনা ।


রবির উদয়ে ফের অলিম্পিক পদক ভারতের

এবারে পুরুষদের মধ্যে কেউ পদকের মধ্যে চলে এলেন অবশেষে । বক্সিং বা ভারোত্তোলনে ভারতের ভাগ্যে কিছুই জোটে নি । পায়নি তীরন্দাজ অথবা বন্দুকের কেরামতিতে । ২৩ বছরের রবি কুমার দহিয়া ৫৭ কেজি কুস্তিতে সেমিফাইনালে জয় পেয়ে ফাইনালে উঠলেন । ফাইনাল মানেই হয় সোনা বা রুপা । হরিয়ানার সোনিপথের নাহরির ছেলে রবি ।

২০১৯ এ বিশ্ব কুস্তির আসরে রবি ব্রোঞ্জ পদক পায় । তখন থেকেই তাঁর মধ্যে একটা জেদ কাজ করেছিল অলিম্পিকে কিছু করে দেখার জন্য । সেমিফাইনালে ফ্রিস্টাইল রেস্টলিংএ রবি হারায় কাজাখস্তানের নুরিসলাম সানায়েদকে । প্রথমে ২-১ এ পিছিয়েছিলো রবি কিন্তু তারপরই ঘুরে দাঁড়িয়ে মাটিতে চিৎ করে দেয় বিপক্ষকে এবং সাথেসাথেই ফাইনালে উত্তীর্ণ হন । ভারতের স্বপ্ন এবারে সোনা জয়ের দিকে । দেখার বিষয় রবির উদয় হয় কি না । 

খারাপ দিন ভারতের খেলার

টোকিওঃ একের পর এক বিভাগে ভারত পরাজিত হচ্ছে পদক পাবার আগেই । তীরন্দাজি থেকে ভারউত্তোলন থেকে অন্য বিভাগ । গতকালই বক্সিংয়ে পরাজিত হয়েছিলেন মেরি কম, আজ পরাজিত হলেন পূজা রানী । পূজা শেষ ৪ এ উঠতেই পারলেন না । তাঁর পদক পাওয়ার আশা ছিল , চেষ্টাও ছিল বিস্তর কিন্তু শেষ পর্যন্ত পারলেন না ।

অন্যদিকে ভারতের রুপোর মেয়ে পি ভি সিন্ধু আজ পরাজিত হলেন এই মুহূর্তে বিশ্বের ১ নম্বর খেলোয়াড় তাইপের তাই জুর কাছে । ফল হলো ২১-১৮ , ২১-১২ । প্রত্যাশিত ফল জানাচ্ছে বিশেষজ্ঞ মহল । প্রথম সেটে মোটামুটি লড়াই দিলেও দ্বিতীয় সেট তাঁর পক্ষে খুবই কঠিন ছিল । তবে ব্রোঞ্জের জন্য লড়তে হবে সিন্ধুকে । আশা এখন বক্সার লাভ্লীনকে নিয়ে । তিনি ব্রোঞ্জ পাচ্ছেনই কিন্তু তাঁর টার্গেট আরও বেশি ।


আরও মেডেল আসছে ভারতে?

মীরাবাঈ চানুর ভারোত্তোলনে রুপা জয় টোকিও অলিম্পিকে ভারতের প্রথম খেতাব এনে দিয়েছিল । চানু দেশে ফিরে জেনেছিলেন যে, আরও পদক আসতে পারে । অবশ্য যতটা পদক প্রতি অলিম্পিকে আশা করা হয় ততটা শেষ পর্যন্ত  আসে না । ১৯৮৪ তে লস এঞ্জেলেসে ভাবা হয়েছিল পি টি উহা নিশ্চই পদক জিতবেন কিন্তু ফটো ফিনিশে তিনি চতুর্থ স্থান পেয়েই ক্ষান্ত হন । ১৯৯৬ আটলান্টা অলিম্পিক থেকে কিন্তু নিয়মিত ছিল ভারতের পদক পাওয়া । লন্ডন অলিম্পিকে সর্বোচ্চ ৬ টি পদক আসে ভারতের ঘরে । গত অলিম্পিক ছিলি ব্রাজিলের রিও তে । সেখানে ১টি রুপা ও ১টি ব্রোঞ্জ পায় ভারত ।

এবারে চানুর পর নিশ্চিত একটি পদকের দাবিদার বক্সার লভ্লিনা বড়গোহাঁইয় । আসামের এই মেয়েটি আপাতত সেমিফাইনালে । জিতলে সোনা বা রুপার সন্ধানে যেতে পারে কিন্তু না হলে ব্রোঞ্জ পাবেনই । অন্যদিকে বক্সিংয়ে পদকের দিকে এগোচ্ছেন পূজা রানী । কিন্তু পূজার সামনে কঠিন লড়াই । আজ ও কাল প্রত্যেকের নজর ব্যাডমিন্টনের সিন্ধুর দিকে । সিন্ধুরও কঠিন লড়াই ব্যাডমিন্টনের পয়লা নম্বরের সাথে । জিতলে সোনা বা রুপার লড়াই ফাইনালে কিন্তু হারলে ব্রোঞ্জের জন্য লড়তে হবে ।


সিন্ধু পারে মেডেলের আহ্বান

টোকিওঃ সিন্ধু উপত্যকার পার থেকেই উঠে এসেছিলো ভারতীয় সভ্যতা । এই কারণে সিন্ধুপারের মানুষকে হিন্দু বলা হয় বলে দাবি সঙ্ঘ পরিবারের । কিন্তু জাতিধর্মের বিষয় নয়, বিষয় ভারতীয় সংস্কৃতির বা সম্মানের । অলিম্পিক এমন এক খেলার জগৎ যেখানে ব্যক্তি নয় দেশের সম্মানটাই বড় হিসাবে দেখা হয় । তবে ব্যক্তিবিশেষও সম্মানিত হন কিন্তু দেশের প্রতিনিধি হিসাবে ।

আরও পড়ুনঃ জলমগ্ন কলকাতা ও শহরতলী

এক সময়ে হকি ছাড়া আর অন্য কিছুতে মেডেল পাওয়ার কোনও স্থান ছিল না ভারতের । বলা হতো তখনকার দিনে কোটি কোটি মানুষের বাস ভারতে সেখানে একটিমাত্র মেডেল ? তাও ১৯৮০ র পর থেকে অর্থাৎ ১৯৮৪ থেকে ১৯৯২ অবধি ভারতের কপালে জোটে নি কিছুই । ১৯৯৬ তে প্রথম ব্যক্তি হিসাবে একক শক্তিতে ব্রোঞ্জ পদক যেতেন টেনিস তারকা এই বাংলার লিয়েন্ডার পেজ । তারপর থেকে এবারের টোকিও অলিম্পিক অবধি মেডেল, ব্যক্তি কেন্দ্রিক হয়ে গিয়েছে ।

আরও পড়ুনঃ প্রকাশিত হল CBSE-র দ্বাদশের ফল, পাসের হার ৯৯.৩৭ শতাংশ

গত ২০১৬ র রিও অলিম্পিকে ব্যাডমিন্টনে রুপো জেতেন পি ভি সিন্ধু । দুর্দান্ত ফাইনাল খেলে স্পেনের কাছে পরাজিত হন সিন্ধু । এবারেও কোমর বেঁধে টোকিও অলিম্পিকে নেমেছেন তিনি । একের পর এক প্রতিযোগীকে অনায়াসে স্ট্রেইট সেট হারিয়ে আপাতত পদকের থেকে এক কদম দূরে । তিনি আজ জাপানের ইয়ামাগুচিকে ২১-১৩ ও ২২-২০ তে হারিয়ে সেমিফাইনালে উঠলেন । সারা ভারত তাকিয়ে তার সেরা খেলার জন্য ।


Tokyo Olympics : নক আউটে সিন্ধু, পদকের আশা ভারতের

টোকিও অলিম্পিকের মহিলা ব্যাডমিন্টনের সিঙ্গলসের নক আউট পর্বে পৌঁছলেন পিভি সিন্ধু। জি গ্রুপের দ্বিতীয় ম্যাচে হংকংয়ের চেয়ুং গান ই-কে ২১-৯, ২১-১৬ ফলাফলে হারিয়েছেন তিনি। ফলে পদকের আশা ভারতের। 

আরও পড়ুনঃ ঋতুস্রাবের যন্ত্রণা নিয়ে পদক জয় চানুর

গ্রুপের দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে পয়েন্টের বিচারে সহজেই নক আউটে পৌঁছলেন সিন্ধু। তবে প্রি-কোয়ার্টার ফাইনাল কঠিন হতে পারে সিন্ধুর। কারণ সিন্ধুর লড়াই বিশ্বের ১২ নম্বর তারকা ডেনমার্কের মিয়া ব্লিচফেল্ডের সঙ্গে। তাঁকে হারাতে পারলেই কোয়ার্টার ফাইনালে সম্মুখ সমর জাপানের আকানে ইয়ামাগুচির সঙ্গে।

প্রসঙ্গত, প্রথম রাউন্ডে ইজরায়েলের পলিকারপভা সেনীয়াকের বিরুদ্ধে ভারতের তারকা শাটলার পিভি সিন্ধু স্ট্রেট সেটে জিতে অভিযান শুরু করেছিলেন। 

olympics: রুপোজয়ী চানু পেয়ে যেতে পারেন সোনার পদক!

টোকিও অলিম্পিক্স থেকে ভারতকে প্রথম পদক এনে দিলেন মীরাবাঈ চানু। ভারোত্তোলনে ৪৯ কেজি বিভাগে রুপো জিতেছেন তিনি। কিন্তু তাঁর রুপোর পদক এবার বদলে যেতে পারে সোনায়!


ভারোত্তোলনে এবার সোনা জিতেছেন চিনের ভারত্তোলক হাউ ঝিহুই। তিনি তার পদক হারাতে পারেন। কারণ ডোপ পরীক্ষা করার জন্য তাঁকে টোকিও ছাড়তে বারণ করেছে অ্যান্টি ডোপিং সংস্থা। 

আজ সোনাজয়ী হাউয়ের ডোপ পরীক্ষা হবে। সেই ডোপ পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে না পারলে, হাউয়ের সোনা বাতিল হবে, আর নিয়ম অনুযায়ী এই বিভাগে রুপো জয়ী ভারতের মীরবাঈ চানু জিতে যেতে পারেন সোনা। 


এবার টোকিও অলিম্পিকে প্রথম ভারতীয় হিসেবে পদক পেয়েছেন মীরাবাই চানু। ভারোত্তলনে ভারতের একমাত্র প্রতিনিধি ছিলেন তিনিই। ২০১৭ সালে বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপে ৪৮ কেজি বিভাগে সোনা জিতে নজর কেড়েছিলেন মণিপুরের ভারোত্তলক।

গতবছর এশিয়ান চ্যাম্পিয়নশিপে ব্রোঞ্জ পদক পান তিনি। তার আগে ২০১৪ কমনওয়েল্থ গেমসে রুপো এবং ২০১৮ কমনওয়েলথে সোনা জিতে দেশের মুখ উজ্জ্বল করেছিলেন মীরাবাই।