Sports: শাস্ত্রীর পর কোচ কে?

টি ২০ বিশ্বকাপ শেষ মানেই রবি শাস্ত্রীর কাজ শেষ । সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের ইচ্ছায় রবির ফিরে আসার কোনও সম্ভবনা নেই বলেই খবর । একই সাথে নতুন টি ২০ অধিনায়ক কে হবে তা নিয়ে রয়েছে প্রশ্ন কারণ কোহলি নেতৃত্ব ছাড়ছেন । সৌরভের দুই প্রিয় খেলোয়াড়ের নাম শোনা যাচ্ছে । এই দুই খেলোয়াড়কে ভারতীয় দলে সুযোগ দিয়েছিলেন বারবার । এঁরা বীরেন্দ্র শেহবাগ এবং ভিভিএস লক্ষণ । শেহবাগ এবং লক্ষণ চিরকালই সৌরভ ভক্ত । সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে বিরু জানিয়েছিলেন যে, ধোনির থেকে সৌরভ অনেক বড় অধিনায়ক ছিলেন, সৌরভ শূন্য থেকে একটি নতুন দল তৈরী করেছিলেন যার সুবিধা পেয়েছিলেন ধোনি । অন্যদিকে লক্ষণ তাঁর প্রিয় অধিনায়ক সৌরভ খেলা ছাড়ার দিন তাঁকে কাঁধে নিয়ে সারা মাঠ ঘুরেছিলেন ।

সৌরভ কিন্তু তাঁর পুরাতন সতীর্থদের ভোলেন নি । রাহুল দ্রাবিড়কে জুনিয়র দলের কোচ করার পিছনেও মস্ত হাত ছিল 'দাদার' । এবারে সৌরভ চাইছেন হয় শেহবাগ অথবা লক্ষণ ভারতীয় দলের কোচ হন । অন্যদিকে কোহলি অধিনায়ক পদ ছাড়ার সাথে জানিয়েছেন কোনও ভাবেই যেন রোহিতকে অধিনায়ক করা না হয় কারণ তাঁর বয়স নাকি ৩৪ । অদ্ভুত আবদার তার, প্রতিবাদ উঠেছে সোশ্যাল নেটওয়ার্কে । গাভাসকার অবশ্য রোহিত শর্মাকেই অধিনায়ক চাইছেন ।


Sports:সরছেন শাস্ত্রী, সরতে চান কোহলিও

রবি শাস্ত্রী কোচ হওয়ার পর ভারতীয় ক্রিকেটের আলাদা কোনও উন্নতি হয় নি কিন্তু দুই দেশের খেলতে সিরিজ জিতলেও আন্তর্জাতিক স্তরের ট্রফি আসেনি ঘরে । অন্যদিকে একই সমস্যা বিরাট কোহলির । তিনিও সিরিজ জিতেছেন কিন্তু বহুদলীয় টুর্নামেন্টে ট্রফি আসে নি । গত দু বছরের উপর একসময় বিশ্বের সেরা ব্যাটসম্যান কোহলির কোনও সেঞ্চুরি নেই । প্রশ্ন উঠে গিয়েছে তার পারফর্মেন্স নিয়ে । কোহলি নিজেও চিন্তিত নিজের ব্যাটিং নিয়ে । প্রবাদপ্রতিম সুনীল গাভাসকার বলেছেন, সময়মতো কোহলি বালের লাইনে পা নিয়ে যেতে পারছেন না । 

আপাতত যা খবর তাতে রবি শাস্ত্রীর ৭ বছরের চুক্তি শেষ হয়ে যাবে টি২০ বিশ্বকাপের পরেই । শোনা যাচ্ছে সৌরভদের নতুন কোচ নিয়ে ভাবনা রয়েছে । সৌরভের পছন্দ রাহুল দ্রাবিড় এবং জয় শাহের পছন্দ মাহেন্দ্র সিং ধোনি । ধোনিতে আপত্তি নেই সভাপতি সৌরভেরও । ইতিমধ্যে ধোনিকে টি ২০ র চিফ মেন্টর করে শাস্ত্রীর উপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে । অন্যদিকে কোহলি জানিয়েছেন তিন পর্যায়ের ক্রিকেটের অধিনায়ক থাকতে চান না । কোহলি শুধু টেস্টের অধিনায়ক থাকতে চাইছেন বলে খবর । সে ক্ষেত্রে সল্প ওভারের ক্রিকেটের সেরা রোহিত শর্মাকে ভাবা হচ্ছে । মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স রোহিতের অধিনায়কত্বে বহুবার ট্রফি জয় করেছে এবং রোহিতও ভালো ব্যাট করেছেন ।


Sports: টি ২০ বিশ্বকাপে ভারতের মেন্টর ধোনি

মাহেন্দ্র সিং ধোনি, যতদিন অধিনায়ক ছিলেন ততদিন তাঁকে ক্যাপ্টেন কূল বলা হতো । ঠান্ডা মাথায় কি ভাবে দল পরিচালনা করতে হয় তার মস্ত উদাহরণ ধোনি । ধোনির আমলে ভারত কখনও হারেনি এমন নয় কিন্তু দলের একটা ভারসাম্য ছিল । ধোনি রাঁচির ক্রিকেটার হওয়াতে মুম্বাই বা দিল্লি লবির রাজনীতি ভারতীয় ক্রিকেটে আসে নি । বিরাট নিঃসন্দেহে ভালো ক্রিকেটার এবং সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়ের মতো একটা লড়াকু শরীরী ভাষা আছে কিন্তু ইদানিং একদম ফর্মে নেই । তার সাথে দল নির্বাচনের ক্ষেত্রে তিনি এবং রবি শাস্ত্রী বেশকিছু বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে । দল থেকে ব্যাড পড়েছেন দেশের সেরা স্পিনার অশ্বিন । মাঠেই বিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ছেন কোহলি এবং রোহিত শর্মা । বারম্বার প্রাক্তন ক্রিকেটাররা ভারতীয় দলের সমালোচনায় মুখর হচ্ছেন ।

এরপরই পট পরিবর্তন হতে থাকে । এমনিতেই কোচ রবি শাস্ত্রীর পালা শেষ হয়ে এসেছে । নতুন কোচের খোঁজ করা হচ্ছে । কিন্তু আসন্ন টি ২০ বিশ্বকাপে রবি, কোহলির জুটিই থাকছে । এরই মাঝে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের সচিব জয় শাহের সাথে কথা হয় মাহেন্দ্র সিং ধোনির । জয় ধোনিকে দলের মেন্টর হতে অনুরোধ করেন এবং দীর্ঘ আলোচনার পর ধোনি রাজি হন । এরফলে আগামী বিশ্বকাপে ধোনি "সুপার কোচ" হতে চলেছেন । রবি শাস্ত্রীর চাপ বাড়লো বলাই বাহুল্য ।  তার সাথে কোহলির একাধিপত্যের উপরও নজরদারি বাড়লো বলেই ধারণা ক্রীড়া মহলের । 


Sports: কোহলি কোথাও আটকে যাচ্ছেন

বিরাট কোহলি, বিশ্বক্রিকেটে বিরাট নাম কিন্তু কোথাও ফর্ম হারিয়েছেন ব্যাটিংয়ে । দু বছরের উপর সেঞ্চুরি নেই কোনও ভাবে ৫০ করলেও দ্রুত আউট হয়ে যাচ্ছেন । গাভাসকার, সচিন প্রমুখদেরও মাঝে মধ্যে ফর্ম হারাতে দেখা গিয়েছিলো কিন্তু দ্রুত তাঁরা ফিরেও এসেছেন । এই মুহূর্তে ভারতীয় দলে অনেক সেঞ্চুরিয়ান ক্রিকেটার আছেন কিন্তু তাঁদেরও সেরা ফর্ম দেখা যাচ্ছে না যথা অজিঙ্ক রাহানে, চেতেশ্বর পূজারা ইত্যাদি । দলের অধিনায়কের ভালো খেলাটা কিন্তু দলকে চাঙ্গা করতে প্রয়োজন । অবশ্য কেউ না কেউ খেলে দিচ্ছেন । ওভালের দ্বিতীয় ইনিংসে রোহিত শর্মার দুর্দান্ত শুরুটা কিন্তু ভারতকে জয়ের স্বপ্ন দেখাচ্ছে ।

এবারে কিন্তু ইংল্যান্ড সফরে ভারতীয় বোলাররা খুব একটা ভালো ফর্ম দেখতে পারে নি । সোমবার ওভাল টেস্টার শেষদিন । দুই দলের যা অবস্থান তাতে ভারতীয় বোলাররা ভালো বোলিং করতে পারলে ম্যাচ জিতে পারবে ভারত ।  

Sports: ভারতীয় দলে রবি শাস্ত্রী সহ ৪ জন করোনা আক্রান্ত

ভারতীয় দলে ফের করোনাতঙ্ক। রবি শাস্ত্রী সহ ৪ জনকে পাঠানো হল আইসোলেশনে। 

শনিবার সন্ধেয় রবি শাস্ত্রী, বোলিং কোচ বি অরুণ, ফিল্ডিং কোচ আর শ্রীধর এবং ফিজিওথেরাপিস্ট নীতিন প্যাটেলের র‍্যাপিড টেস্টের ফল পজিটিভ আসে। তারপরই তড়িঘড়ি আইসেলোশনে পাঠানো হয় তাদেরকে। 

বিস্তারিত আসছে --


সৌরভই সেরা অধিনায়ক-শেহবাগ

অমিতাভ বচ্চন শোতে সৌরভকেই সেরা অধিনায়ক বেছে নিলেন বিশ্বেৰ অন্যতম সেরা ওপেনার বীরেন্দ্র শেহবাগ । এক প্রশ্নের উত্তরে বিরু জানান , দাদা আর ধোনিকে নিয়ে অনেক তুলনা হয়েছে , নিঃসন্দেহে ধোনির মুকুটে অনেক পালক জমা পড়েছে । তিনি বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক এবং টি ২০ বিশ্বকাপও ভারত জিতেছে ধোনির নেতৃত্বে জানালেন শেহবাগ, কিন্তু দেখতে হবে দল তৈরী করলো কে । বিরু বলেন, সৌরভ যখন দলের দায়িত্ব পেলেন তখন ভারতের অবস্থান ছিল শূন্য সেখান থেকে সারা ভারত থেকে নতুন মুখ এনে নতুন দল তৈরী করেন দাদা । এই দল অস্ট্রেলিয়াতে সিরিজ জয় করেছে ইংল্যান্ডের ন্যাটওয়েস্ট ট্রফি জয় করে । সীমিত ওভারের বিশেষ বিশ্বকাপে শ্রীলংকার সাথে যুগ্ম বিজয়ী হয় । বিরু বলেন সৌরভের তৈরি করা দল নিয়ে ধোনি এত সাফল্য পান ।

অনুষ্ঠানে সৌরভ বলেন, বিরু একটি জিনিয়াস । ওর সঙ্গে বহু ম্যাচে ওপেন করেছেন তিনি । দাদা বলেন একটি ম্যাচ খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল তো সৌরভ শেহবাগকে ধরে খেলতে বলেন, প্রতিফলনে ওই ওভারে প্রথম ৫ বলে ৫ টি বাউন্ডারি মারেন বিরু তবে অধিনায়কের কথা রাখতে তিনি নাকি শেষ বলটি ডিফেন্স করেন । সৌরভ বলেন, ওকে বলে কোনও লাভ হবে না দেখে শেষ পর্যন্ত ডেকে বলেন " মারছিস মার্ কিন্তু আউট হলে খুব খারাপ হবে" । এমনটাই ছিল নাকি দলে  সবার সঙ্গে দাদার সম্পর্ক জানালেন কিংবদন্তি বীরেন্দ্র শেহবাগ ।


Sports: অশান্তির ছায়া ভারতীয় ক্রিকেটে

গত ৬০ বছর ধরে ভারতীয় ক্রিকেটে রাজনীতি ছিল তুঙ্গে । মূলত লড়াই ছিল মুম্বাই এবং দিল্লি লবির । এক মাত্র পাতৌদি যখন অধিনায়ক ছিলেন তখন ক্রিকেটার থেকে নির্বাচন কমিটির কেউ ট্যাঁ ফো করতে পারতো না । পাতৌদিকে ভয় পেত খেলোয়াড়রা । কিন্তু তারপর ওয়াদেকার যখন অধিনায়ক হন তখন ফের লবির খেলা শুরু হয় । তারপর বেদি, গাভাসকার, কপিল ইত্যাদি যে যখন অধিনায়ক হয়েছেন তখনই নিজের 'অঞ্চলের' খেলোয়াড়দের সুযোগ দিয়েছে ।

এই রাজনীতির পাকেচক্রে সবচাইতে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বাংলার খেলোয়াড়রা । এর মধ্যে আজহারউদ্দিন অধিনায়ক হয়ে অন্তত ৭ খেলোয়াড়কে ঠান্ডা ঘরে পাঠিয়ে দেন, অবশ্য ওই সময়ে ভারতীয় ক্রিকেট বেটিং চক্রে জড়িয়ে পরে । একমাত্র সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় অধিনায়ক থাকা কালীন একটি "টীম ইন্ডিয়া" তৈরি হয় ।

এরপর চ্যাপেল এসে সর্বনাশ করে ছাড়েন দলের । দ্রাবিড় অধিনায়ক হিসাবে একদম ফ্লপ করেন । পরে ধোনি অধিনায়ক হলে দলে ভারসাম্য আসে । কিন্তু এই ধোনিও নিজের মর্জিমাফিক দল থেকে বহু খেলোয়াড়কে বিদায় করে দেন । এখন কোহলির জমানা । কোহলির অধিনায়কত্বে ভারত সফল হলেও শেষ পর্যন্ত কোনও বড় ট্রফি আসে নি । পারেন নি কোহলি তার সাথে জঘন্য ফর্মে তিনি ।

এরই মধ্যে চতুর্থ টেস্টে কি দল হবে তাই নিয়ে টিমের মধ্যেই বিতর্ক শুরু হচ্ছে । অশ্বিন, ধোনির প্রিয়পাত্র ছিলেন কিন্তু কোহলির জমানায় তাঁকে বাদ দেওয়া হচ্ছে বারবার । এই মুহূর্তে বিশ্বের পয়লা নম্বর স্পিনারকে মাঠের বাইরেই কাটাতে হচ্ছে । 


Sports: ভারতীয় দলে পরিবর্তন কি

তৃতীয় টেস্টে ভারত ইংল্যান্ডের কাছে জঘন্য ভাবে হেরেছে । তাদের বিখ্যাত ব্যাটিং বোলিং উভয় বিভাগেই প্রশ্ন উঠে গিয়েছে দল নিয়ে । আগামী ২ সেপ্টেম্বর থেকে লন্ডনের ওভালে চতুর্থ তথা শেষ টেস্ট । এবারে কি দলে রদবদল হতে পারে ? শোনা গিয়েছে দলের অন্যতম নিভরযোগ্য অল রাউন্ডার রবীন্দ্র জাদেজা খেলতে পারবেন না কারণ লিডস টেস্টে তিনি চোট পেয়েছেন । তাঁর জায়গায় আসতে পারেন অশ্বিন । এছাড়াও সহ অধিনায়ক অজিঙ্ক রাহানে বাদ পড়তে পারেন । রাহানেকে বাদ দেওয়া প্রসঙ্গে এই প্রশ্নও উঠেছে যে অধিনায়ক বিরাট কোহলি কি এমন খেলছেন যে শুধু অধিনায়ক থাকার জন্য তাঁকে দলে রাখতে হবে ? 

কিন্তু বাঙালির লক্ষ রাজ্যের অন্যতম মুখ তথা এই মুহূর্তে বিশ্বের সেরা উইকেট রক্ষক ঋদ্ধিমান সাহা কি দলে সুযোগ পাবেন ? পরিবর্তিত ঋষভ পন্থ ভালো ব্যাটসম্যান কিন্তু সেরকম ভালো ফর্মে নেই তিনি এছাড়া উইকেটকিপার হিসাবেও আহামরি কিছু নন । তাঁকে দলে রাখাই হয়েছে ব্যাটিং ভালো বলেই । আপাতত দুই দলের ফলাফল ১-১ । ওভালে জেতার ব্যাপারে দুটি দলই যে ঝাঁপাবে তা বলাই বাহুল্য ।


রাহুলের ক্রিকেট জীবনে একটাই দুর্বল স্থান

শ্রীলংঙ্কার জাতীয় দলকে ভারতের দ্বিতীয় দল হারিয়ে সিরিজ জয় করলো । ভারতীয় দলের ক্রিকেট কোচ রাহুল দ্রাবিড় এই জয়ের সমস্ত কৃতিত্ব তাঁর দলকে দিলেন । কিন্তু দলের খেলোয়াড়রা বলছে অন্য কথা । তাঁরা জানাচ্ছে, রাহুলস্যার সমস্ত দলকে উজ্জীবিত করেছেন ।

রাহুল দ্রাবিড়, এমন একটি নাম ক্রিকেট দুনিয়াতে যাঁর নাম নীরবে শ্রদ্ধার স্থান অর্জন করেছে । ভারতের সর্বকালের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান ছিলেন। অসাধারণ একেকটি ইনিংস খেলেছেন । দলের বিপর্যয়ে পাঁচিল হয়ে দাঁড়িয়ে ব্যাট করেছেন । বহু ম্যাচ জিতিয়েছেন । ওয়ান ডেতেও দারুন ফল করেছেন । স্লীপের অন্যতম সেরা ফিল্ডার ছিলেন । বোলিং অবশ্য করেন নি , তবে উইকেটকিপিং করেছেন বহু ম্যাচে এবং বিশ্বকাপেও । তাঁর জীবনে একটাই দুর্বল জায়গা ছিল। .অধিনায়ক হিসাবে অসফল ছিলেন তিনি তাই দ্রুত সরেও আসেন । আজ কোচ হিসাবে কিন্তু দুর্দান্ত পারফর্মেন্স রাহুল দ্রাবিড়ের । এবারে অপেক্ষা কবে তিনি ভারতীয় মূল দলের দায়িত্ব পাবেন । 


সৌরভের আজব যুক্তি

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় সর্বকালের অন্যতম সেরা ক্রিকেট বিশেষজ্ঞ । খেলা ছাড়াও কমেন্ট্রি বা লেখালেখিতেও সিদ্ধহস্ত তিনি । বর্তমানে ভারতীয় ক্রিকেটের সর্বময় কর্তা । ইদানিং ভারতীয় ক্রিকেটে ভুল ত্রুটি হলেও মুখে কুলুপ আঁটছেন কিংবা ত্রুটির সপক্ষে কথা বলছেন । অনেকেই বলছেন সৌরভ নয় আসলে বোর্ড চালাচ্ছেন অমিত শাহ পুত্র জয় । এই জয়ের ক্রিকেট খেলা নিয়ে কোনও ধ্যান ধারণাই নেই কিন্তু গদি আগলে বসে আছেন কারণ তাঁর বাবা অমিত শাহ জানাচ্ছেন ক্রিকেটপ্রেমীরা ।

সম্প্রতি পরিবার নিয়ে ক্রিকেট সফর করার বিষয়ে কিছু বিধি নিষেধ থাকলেও শোনা যায় সৌরভের কল্যানে অনেকেই স্বপরিবারে ইংল্যান্ডে গিয়েছেন । টেস্ট ক্রিকেটের ফাইনালে ভারত নিউজিল্যান্ডের কাছে পরাজিত হওয়ার পর ভারতীয় দল ইংল্যান্ডেই থেকে যায় । অনেকেই পরিবার নিয়ে বেড়াতে যান আবার অনেকেই উইম্বলডন টেনিস কিংবা ইউরো কাপ ফুটবল মাঠে যান । এখানেই ঋষভ পন্থ এবং আরও এক ক্রিকেটার করোনার কবলে পড়েন । জানা যায় ঋষভের মুখে মাস্ক ছিল না । যথেষ্ট অপরাধের । কিন্তু সৌরভ ঋষভের পশে দাঁড়িয়েছেন এবং বলেছেন , সবসময়ে মুখে মাস্ক পরে থাকা যায় নাকি ? আজব যুক্তি বোর্ড প্রেসিডেন্টের, সমালোচনার মুখে মহারাজ ।

বিশ্ব চ্যাম্পিওনরাই খেলবে ফাইনাল

একদিকে ইউরো কাপ ফাইনাল অন্যদিকে কোপা আমেরিকান ফাইনাল এবং দুটি ম্যাচই চরম উত্তেজনাময় । এবারে ল্যাটিন আমেরিকায় খেলবে চির প্রতিদ্বন্দ্বী ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনা অন্যদিকে ইউরোতে ইংল্যান্ড বনাম ইতালি । মজার বিষয় এই চারটি দলই বিশ্বকাপ ফুটবল চ্যাম্পিয়ন অর্থাৎ চমক নেই নতুন দলের । চমক একটাই ১৯৬৬-র পর ইংল্যান্ড কোনও একটি বড় টুর্নামেন্টের ফাইনালে খেলবে ।


সাধারণত যে কোনও রবিবার এইসব টুর্নামেন্টের ফাইনাল হয়ে থাকে । কিন্তু করোনা আবহে ফিফা একসাথেই দুটি কন্টিনেন্টের খেলা আয়োজন করায় শনিবার কোপা ফাইনাল, যা ভারতীয়রা দেখতে পারবে রবিবার ভোর ৫.৩০ এ । অপর টুর্নামেন্ট অর্থ্যাৎ  ইউরো চ্যাম্পিয়নশিপ হবে রবিবার এবং ভারতীয় সময়ে সোমবার গভীর রাত ১২.৩০ এ । কলকাতাবাসীর ঘুম থাকবে কি রবিবার ?