Partha Chaterjee: সিবিআই দপ্তরে যাচ্ছেন না পার্থ

সোমবার ভুয়ো অর্থলগ্নি সংস্থা 'আইকার' কাণ্ডে সিবিআই রাজ্যের শিল্পমন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়কে ডেকে পাঠিয়েছিল তাদের কলকাতার অফিস সিজিও কমপ্লেক্সে । গত সপ্তাহেই তাঁকে সহযোগিতার জন্য ডাকা হয় । এর আগে গত ১২ মার্চ তাঁকে ডাকা হয়েছিল কিন্তু দুবারই পার্থবাবু নির্বাচনের যুক্তিতে যেতে পারবেন না জানিয়ে দিয়েছিলেন । সারদা এবং রোজভ্যালির মতো আইকারও বাজার থেকে লক্ষ লক্ষ টাকা তুলেছিল । সিবিআই তদন্তে এসে তাদের মালিককে গ্রেফতার করে । গ্রেফতার হয় সংস্থার আরও অনেকে । এই বিষরে সিবিআয়ের কাছে নাকি তথ্য আছে যে পার্থবাবুর সাথে যোগাযোগ ছিল তাদের । এই কারণে তাদের বিষয়ে বিস্তারিত জানতেই পার্থবাবুকে ডাকা হয় ।

পার্থবাবু জানিয়েছেন ই-মেল্ মারফত যে , সামনে উপনির্বাচনের কাজে তিনি ব্যস্ত ফলে এখন যেতে পারছেন না । সামনে ৩০ সেপ্টেম্বরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপনির্বাচন ভবানীপুরে এবং ওই নির্বাচনের দায়িত্বে আছেন পার্থ চট্টোপাধ্যায় । এদিকে শোনা যাচ্ছে আজই সিজিও কমপ্লেক্সে সিবিআই এর বিশেষ বৈঠক হচ্ছে । সম্ভবত তারা পার্থবাবুর দপ্তরে বা বাড়িতে গিয়ে জিজ্ঞসাবাদ করতে চাইছে  ।

Partha Chaterjee: প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে বিজেপি : পার্থ

শনিবার কেন্দ্রের সংস্থা ইডি কয়লা কাণ্ডে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নোটিশ পাঠিয়ে দিল্লিতে দেখা করতে চেয়েছে এবং তারপরই গর্জে ওঠে তৃণমূলের নানান শাখা । সোশ্যাল নেটওয়ার্কে তুলোধোনা করা হচ্ছে বিজেপিকে । এ দিন তৃণমূলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় মিডিয়াকে জানান যে, বিজেপি প্রতিহিংসার রাজনীতি করছে । যখনই রাজনৈতিক চাপে পড়ছে কেন্দ্রীয় সরকার তখনই বিরোধী দলগুলিকে সিবিআই ইডি ইত্যাদি দিয়ে চাপে ফেলার চেষ্টা করছে । বিধানসভার উপ চিফহুইপ তাপস রায় বলেন, এখন অভিষেক ভারতীয় রাজনীতির উজ্জ্বল মুখ তাই বিজেপি প্রতিহিংসার পথে যেতে চাইছে কিন্তু এসব করে লাভ নেই কিছু ম, মানুষ তৃণমূলের পাশে আছে ।

অন্যদিকে রবিবার বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেছেন, সিবিআই তে তৃণমূলের এতো আপত্তি কোথায় ? এক সময় তো খোদ বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী কথায় কথায় সিবিআই চাইতেন , আজ এতো রাগ কেন ? এর উত্তরে সাংসদ সৌগত রায় বলেন, অবশ্যই আপত্তি আছে কারণ বর্তমান সরকারের মুখপাত্র হয়ে গিয়েছে কেন্দ্রীয় এজেন্সিগুলো । তিনি আরও বলেন, দিলীপ ঘোষ কোন মুখে কথা বলেন তাঁদের দল ভোটে হেরে গিয়েছে ।