ডোবাবে শুভেন্দু বাঁচাবে দিলীপ ?

সোশ্যাল নেটওয়ার্কে এখন দিলীপ ঘোষ বনাম শুভেন্দু অধিকারীকে লড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে । সম্প্রতি দিলীপ ঘোষ দিল্লি গিয়ে দলের সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডার সাথে দীর্ঘ বৈঠক করেন । সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে দিলীপবাবু রাজ্যদলের নানান জটিলতা নিয়ে কথা বলেছেন । এমনও কথা হয়েছে যে অনেক বিষয়ে রাজ্য সভাপতিকে অন্ধকারে রেখে যে যা পারছে করছে । ইঙ্গিতটি কি শুভেন্দুর দিকে ?  মঙ্গলবার নাকি বিজেপি বিধানসভা সদস্যরা তাঁদের প্রাপ্ত ৯ টি চেয়ারম্যানের পদ থেকে পদত্যাগ করবেন । এই ঘটনায় আদি বিজেপি কর্মীরা ক্ষুব্দ । তাদের ক্রোধ গিয়ে পড়েছে বিরোধী নেতা শুভেন্দু অধিকারীর উপর ।

প্রশ উঠেছে বলে সূত্র মারফত খবর যে প্রাপ্ত চেয়ারম্যান পদগুলি ছেড়ে পরোক্ষে সেগুলো তৃণমূলের হাতে তুলে দেওয়ার যুক্তি কোথায় ? এই ভাবে কি দল কে ডোবাচ্ছেন শুভেন্দু,, সোশ্যাল নেটে এমনই প্রশ্ন উঠেছে  । অন্যদিকে আদি বিজেপির কর্মী সমর্থকরা দিলীপ ঘোষের উপর কেন্দ্রের ভরসা দেখে বেজায় খুশি । তাঁকে যে কেন্দ্রের মন্ত্রী না করে ক্ষমতা বাড়ানো হয়েছে তাতেও পরম তৃপ্তি বিজেপি কর্মীদের । একটি বিষয়ে পরিষ্কার রাজনৈতিক মহল মনে করে দিলীপ ঘোষের নেতৃত্বে ৩ থেকে ৭৪ আসনে দাঁড়িয়ে রাজ্য বিজেপি ।

মন্ত্রীসভায় নেই মোদি?

অত্যন্ত শান্ত মানুষ, উচ্চশিক্ষিত এবং জনতার ভাবনার সঙ্গে চলতে ভালোবাসেন। এমনই এক ব্যক্তিত্ব বিহারের প্রাক্তন উপমুখ্যমন্ত্রী সুশীল মোদী। বিগত বিহারের নির্বাচনের পর তাকে নীতিশ কুমারের মন্ত্রিসভায় দেয়নি কেন্দ্রীয় বিজেপি। অথচ দীর্ঘদিন এ রাজ্যে তিনি উপমুখ্যমন্ত্রী থেকেছেন। কথা ছিল এও তাঁকে রাজ্যসভায় নিয়ে এসে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী করা হতে পারে। কিন্তু সঙ্ঘ না করা সুশীলের ভাগ্যে এখনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রীত্ব জোটেনি।

শোনা যায় তিনি নীতিশের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ। কোনোদিনই  নরেন্দ্র মোদি বা অমিত শাহের উৎবুগে ছিলেন ছিলেন না শোনা যায়। এখন দেখার আগামী দিনে কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভার সম্প্রসারণ তার সুযোগ আছে কিনা।


M Yoga অ্যাপের ঘোষণা প্রধানমন্ত্রীর

করোনা অতিমারিতে গোটা দেশ ত্রস্ত। এই পরিস্থিতিতে আবার শরীর সুস্থ রাখার বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে।  যদিও এই সময়ে অনেকের একাকীত্ব গ্রাস করেছে।তাই মন ভালো রাখতে প্রতিনিয়ত করতে হবে 'যোগাব্যায়াম. সোমবার সপ্তম 'যোগা' দিবসে সকল দেশবাসীর উদ্দেশ্যে তিনি ভাষণ দেন ।  এছাড়া 'এম যোগা' নাম একটি আইপের ঘোষণা করেন। এই অ্যাপে যাবতীয় যোগা করার  তথ্য জানা যাবে। এটিকে আন্তর্জাতিক স্তরে পৌঁছে দেওয়ার ঘোষণা করেন তিনি।

এছাড়া করোনা রোগীদের চিকিৎসার জন্য এই মুহূর্তে যোগাসনের দরকার,এমনটাই জানালেন নরেন্দ্র মোদি। শিশুদের ওপর যোগব্যায়াম করার ওপর নজর দিয়েছেন। এছাড়া তা অনলাইনের মাধ্যম্যে করতে হবে,এমনই  বার্তা দিলেন প্রধামন্ত্রী। যদিও করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আছড়ে পড়তে যেভাবে বেড়েছিল সংক্রমণ।ধীরে ধীরে কমছে সংক্রমমন।

তবে এবার শিশুদের ওপর একটা সংক্রমণ আসার সম্ভাবনা।তাই 'যোগা ' দিবসের দিন সকলকেই এই করোনায় সুস্থ থাকতে যোগব্যায়াম করার বার্তা দিলেন নরেন্দ্র মোদি। 

কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভায় রদবদল, আসতে পারেন দিলীপ ঘোষ?

কৃষি আন্দোলন, করোনার প্রভাব এবং পশ্চিমবঙ্গে ক্ষমতা দখল করতে না পারার কারণে মোদি সরকারের উপর প্রবল চাপ তৈরী হয়েছে | কেন্দ্রীয় সূত্রে জানা যাচ্ছে এ মাসেই মন্ত্রিসভায় আসতে পারে নতুন মুখ | তবে এখনও এ বিষয়ে মুখ খুলছে না বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব | বিজেপির জোট সঙ্গী নীতীশকুমারের জেডিইউ  থেকে উত্তর প্রদেশের আপনা দল এবং নিষাদ পার্টি সরাসরি দাবি তুলেছেন মন্ত্রিত্বের | জোট ভেঙে বেরিয়ে যাওয়ার হুমকিও দেওয়া হচ্ছে | পাশাপাশি দাবিদার মধ্যপ্রদেশের প্রাক্তন কংগ্রেসি জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়াও এবং বিহারের সুশীল মোদি | 

পশ্চিমবঙ্গের ভোট ফলের পর খোলস ছেড়ে বেরিয়ে এসেছেন নীতীশবাবু |তাঁর দাবি ন্যূনতম দুটি মন্ত্রিত্ব | অন্য দিকে আপনা দলের অনুপ্রিয়া প্যাটেল এবং নিষাদ পার্টির প্রবীনকুমার মন্ত্রীত্বর দাবিদার | এই শেষ দুই দল এমনও হুমকি দিয়েছে মন্ত্রিসভায় স্থান না দিলে তাঁরা ভোটের আগে জোট ছাড়বে |

এ রাজ্য থেকেও নতুন মন্ত্রী হতে পারেন | শোনা যাচ্ছে সভাপতি দিলীপ ঘোষের নাম | তবে দিলীপ ঘনিষ্ঠরা চাইছেন না পশ্চিমবঙ্গের সভাপতির পদ থেকে দিলীপ বাবু চলে যান | পাশাপাশি উঠে আসছে কোচবিহারের নিশীথ প্রামানিকের নাম | একই ভাবে দিল্লিতে তিন দিন ধরে বসে আছেন সৌমিত্র খানও |     

মোদির বৈঠকে মমতার না থাকার কোপ আলাপনে?

শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী ইয়াস ঝড়ের পরবর্তী অবস্থা দেখতে উড়িষ্যা এবং বাংলায় এসেছিলেন | এই সফর ঘিরে এক বৈঠকের আয়োজন করে কেন্দ্রীয় সরকার মেদিনীপুরের কলাইকুণ্ডাতে | মুখ্যমন্ত্রী যেতেনও কিন্তু তিনি জানতে পারেন ওই বৈঠকে ডাকা হয়েছে রাজ্যপাল এবং শুভেন্দু অধিকারীকেও | শেষ মুহূর্তে বেঁকে বসেন মমতা | তিনি স্পষ্ট জানান, শুভেন্দু থাকলে তিনি যাবেন না | কিন্তু তবুও শুভেন্দুকে বৈঠকে রাখা হয় | বৈঠক চলাকালীন মমতা উপস্থিত হয়ে মোদিকে জানান, তিনি এসেছিলেন এবং অন্য কাজে ব্যস্ত থাকায় সভায় থাকতে পারবেন না| তিনি মোদিকে ক্ষতির একটি বিবরণ দেন এবং প্রয়োজনীয় অর্থ দাবি করেন | এতেই ক্ষিপ্ত হয় কেন্দ্রীয় সরকার | বিভিন্ন মন্ত্রী টুইট করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমালোচনা করেন | সবথেকে সক্রিয় হন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, তিনি টুইট করে জানান, মুখ্যমন্ত্রীর আজকের আচরণ দুর্ভাগ্যজনক ভাবে অশোভন | ঘূর্ণিঝড় বহু মানুষের উপর প্রভাব ফেলেছে | এখন ক্ষতিগ্রস্থদের পাশে দাঁড়ানোর সময় | দিদি তাঁর ঔদ্ধত্যকে জনস্বার্থের উর্ধ্বে স্থান দিয়েছেন | আজকের আচরণ তার প্রমান | এরপরই দ্রুত বদলাতে থাকে পটভূমি | সম্প্রতি অবসরের পথে যাওয়া প্রধান সচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে তিন মাসের এক্সটেনশন দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী | সে বিষয়ে কেন্দ্রকে জানানোও হয়েছিল | সন্ধ্যার পরই কেন্দ্র থেকে চিঠি আসে ৩১ মে র মধ্যে আলাপনকে দিল্লিতে বিশেষ কাজে নিয়োগ করা হলো | তাঁকে সোমবার সকাল ১০ টার মধ্যে দিল্লিতে তলব করা হয়েছে | আম জনতা মনে করছে মোদি মমতার যুদ্ধ জারি রইলো | তবে ইদানিং যা চলেছে তা ভারতীয় রাজনীতিতে অভূতপূর্ব ঘটনা | দেখার বিষয় মমতা কি করেন |