খড়দহ কেন্দ্রে শোভনদেব

শেষ পর্যন্ত সমস্ত জল্পনার অবসান | উপনির্বাচনে ভবানীপুর কেন্দ্রে দাঁড়াবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তৃণমূলের কাজল সিংহের প্রয়াণে খড়দহ কেন্দ্র শূন্য হওয়াতে ওই কেন্দ্রে  দাঁড়াতে চলেছেন ভবানীপুর কেন্দ্র থেকে পদত্যাগ করা শোভনদেব চট্টোপাধ্যায় | শোভনদেব জানান, তিনি দলের এক সৈনিক কাজেই দল যেখানে দাঁড়াতে বলবে সেখানেই দাঁড়াবো | এই মুহূর্তে শোভনবাবু আসন্ন ঝড় নিয়ে ব্যস্ত | তিনি বর্তমানে পশ্চিমবঙ্গের কৃষিমন্ত্রী | একটি প্রশ্ন কিন্তু থেকেই যাচ্ছে অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র দাঁড়াবেন কোথায় ? শোনা যাচ্ছে শান্তিপুর কেন্দ্র খালি হওয়াতে সেখান থেকেও দাঁড়াতে পারেন ড.মিত্র | অন্যদিকে এটাও লক্ষণীয় দিনহাটা কেন্দ্রে দাঁড়াবেন কে? 

অবিলম্বে ডাকুন জিএসটি কাউন্সিলের বৈঠক, নির্মলাকে চিঠি অমিত মিত্রর

ছয় মাসের বেশি সময় হয়ে গিয়েছে জিএসটি কাউন্সিলের বৈঠক হয়নি। তৃতীয় তৃণমূল মন্ত্রীসভায় অর্থমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিয়েই জিএসটি কাউন্সিলের বৈঠক নিয়ে তোপ দাগলেন অমিত মিত্র। তিনি এই বিষয়ে সরাসরি চিঠি দিলেন কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্রকে। চিঠিতে তিনি অভিযোগ করেছেন, যেখানে নিয়মমাফিক তিন মাস অন্তর জিএসটি কাউন্সিলের একটি করে বৈঠক হওয়ার কথা। কিন্তু, গত বছর থেকে এখনও পর্যন্ত দু’বার এই নিয়ম লঙ্ঘিত হয়েছে। তিনি আরও লিখেছেন, ২০২০ সালের অক্টোবর মাসে শেষবার বৈঠক হয়েছিল জিএসটি কাউন্সিলের। এরপর থেকে আজ পর্যন্ত কোনও বৈঠক হয়নি। যা যুক্তরাষ্ট্রীয় পরিকাঠামোর পরিপন্থী বলেই উল্লেখ করেছেন বাংলার অর্থমন্ত্রী অমিত মিত্র। সেই সঙ্গে তিনি অবিলম্বে ভার্চুয়াল মাধ্যমেই বৈঠক ডাকার দাবি তুলেছেন। এমনিতেই করোনা আবহে দেশজুড়ে চলা লকডাউনের জেরে দেশের অর্থনৈতিক মেরুদণ্ড অনেকটা ভেঙে পড়েছে। এর ওপর করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে আশঙ্কার কালো মেঘ দেখা যাচ্ছে। রাজ্য সরকারগুলোও অর্থনৈতিক সমস্যার মধ্যে দিয়ে চলছে। এই পরিস্থিতিতে সংবিধানের ২৭৯এ এবং ২৭৯এ (৮) অনুচ্ছেদ মেনেই এই বৈঠক ডাকা উচিত বলেই অমিত মিত্র কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামণকে চিঠিতে জানিয়েছেন।