আজও বিতর্কে ২১ জুলাই

রাজ্যের পাশাপাশি এবার ভিনরাজ্যে একুশের শহিদ দিবস পালন করল তৃণমূল। পাল্টা ওই দিন শহিদ শ্রদ্ধাঞ্জলি দিবস পালন করল বিজেপি। কিন্তু আজও বিতর্কিত একুশে জুলাই। 

১৯৯৩ সাল। মহাকরণ অভিযানের ডাক দিয়েছিল যুব কংগ্রেস। তখন প্রদেশ যুব কংগ্রেসের সভাপতি ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তখনও তৃণমূল কংগ্রেস তৈরি হয়নি। সেই দিন পুলিসের গুলিতে যারা শহিদ হয়েছিলেন তারা সবাই কংগ্রেস কর্মী। যুব কংগ্রেস এর তরফ থেকে তারপর প্রতি বছরই পালন করা হয় শহিদ দিবস। 

১৯৯৮ সালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূল কংগ্রেস তৈরি করেন। তারপর থেকে কার্যত তৃণমূলের হাতেই চলে গিয়েছে শহিদ দিবস। তবুও প্রতি বছর যুব কংগ্রেস পালন করে শহিদ দিবস। এ বছরও তারা গঙ্গায় তর্পণ করে পালন করল শহিদ দিবস। অন্যদিকে বিজেপি পালন করল শহিদ শ্রদ্ধাঞ্জলি দিবস। ফলে প্রশ্ন উঠেছে ? ২১ শে জুলাই কার ?

এদিকে এবার ভিনরাজ্যে তৃণমূল একুশের শহিদ দিবস পালন নিয়ে শাসক দলকে কটাক্ষ বিজেপি নেতা তথা বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর। তিনি বলেন, বাইরের রাজ্যে তৃণমূলের শহিদ দিবস হল গরুর গাড়ির হেডলাইট।  উত্তরপ্রদেশ, আসাম, ত্রিপুরায় তৃণমূল ভোটে লড়েছে। সেখানে নোটার থেকেও কম ভোট পেয়েছে। 

রাজ্যে ২১শে জুলাই তৃণমূলের শহিদ দিবসের দিনই হেস্টিংসে বিজেপির কার্যালয়ে "গণতন্ত্র বাঁচাও, পশ্চিমবঙ্গ বাঁচাও" কর্মসূচি পালন করল বিজেপি। পাশাপাশি জেলায় জেলায় পালিত হয়  শহিদ শ্রদ্ধাঞ্জলি দিবস। 


তৃণমূলের একুশে জুলাইয়ের পাল্টা শহিদ শ্রদ্ধাঞ্জলি দিবস পালন বিজেপির

প্রতিবারের মত এবারও একুশে জুলাই শহিদ দিবস পালন করল তৃণমূল। যদিও করোনা পরিস্থিতিতে ভার্চুয়াল পালন করা হয় শহিদ দিবস। অন্যদিকে শহিদ দিবসের পাল্টা শহিদ শ্রদ্ধাঞ্জলি দিবস পালন করল বিজেপি। 

এদিন দিল্লিতে রাজঘাটে ধর্নায় বসে বিজেপি। যার নেতৃত্বে ছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তিনি বলেন, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল আমাদের যে ১৭৫ জন কর্মীকে খুন করেছে, তাঁদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছি। এছাড়া কর্মসূচি পালিত হয় রাজ্যের ব্লক-বুথ ও জেলাস্তরেও। 

১৯৯৩ সালে ২১ জুলাই। ভিক্টোরিয়া হাউসের সামনে প্রতিবাদ কর্মসূচি নিয়েছিল তৎকালীন প্রদেশ কংগ্রেস। প্রতিবাদ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন তত্কালীন যুব কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ওই কর্মসূচীতে পুলিসের গুলিতে শহিদ হয়েছিলেন ১৩ জন কংগ্রেস কর্মী। এরপর থেকেই প্রতি বছর ১৩ জন শহিদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শহিদ দিবস পালন করে তৃণমূল কংগ্রেস। 


একুশের ২১ Live

আজ ২১শে জুলাই দুপুর ২ টোয় ভার্চুয়ালি ভাষণ দেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  শুধু রাজ্য নয়, সারা দেশ তাকিয়ে আছে, কী বার্তা দেন। কারণ  আগামী ২০২৪-এ লোকসভা নির্বাচন। 

১৯৯৩ সালের ২১ জুলাই কলকাতার রাজপথে পুলিশের গুলিতে মৃত্যু হয় ১৩ জন যুব কংগ্রেস কর্মীর। তারপর থেকে প্রতিবছর ২১ জুলাই দিনটিকে "শহিদ দিবস" হিসেবে পালন করে আসছে তৃণমূল।


২১ জুলাইঃ মমতার বক্তৃতা শুনতে আমন্ত্রণ মোদী-বিরোধী নেতাদের

করোনা পরিস্থিতিতে  এবারও ‘শহিদ দিবস’ ২১ জুলাই ভার্চুয়ালি করবে তৃণমূল। ওই দিন দুপুরে বক্তব্য রাখবেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তার ভার্চুয়াল বক্তৃতা শোনার জন্য দিল্লিতে মোদী-বিরোধী নেতৃত্বকে আমন্ত্রণ তৃণমূলের। 

দেশের রাজধানী দিল্লির কনস্টিটিউশনাল ক্লাবে জায়ান্ট স্ক্রিন লাগিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তৃতা শোনানোর আয়োজন করেছেন দলীয় সাংসদরা। এছাড়া ওই ক্লাবেই মোদী-বিরোধী নেতাদের আমন্ত্রণ জানিয়েছে তৃণমূল।  

শুধু দিল্লি নয়, জায়েন্ট স্ক্রিনে তৃণমূল নেত্রীর বক্তব্য শোনানোর জন্য দেশের একাধিক শহরকে চিহ্নিত করা হয়েছে। ইতিমধ্যেই ত্রিপুরায় দলীয় নেতৃত্বকে ২১ জুলাইয়ের প্রস্তুতির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।