পথে পথে বাম

না কোনও জনসভা এর নয়, এবার পথে পথেই প্রচার সারছেন বাম প্রার্থীরা। দু ভাবে ভাগ করে প্রচার করছে তারা, প্রথমত প্রার্থী হাঁটা পথে এলাকায় এলাকায় যাবেন। দ্বিতীয়ত পার্টি কর্মীরা ভোটারদের বাড়িতে বাড়িতে যাচ্ছেন। বক্তব্য পরিষ্কার হাতে হাতে কাজ, সাম্প্রদিকতার বিরুদ্ধে লড়াই এবং আরও একবার ক্ষমতায় ফিরলে কাজ করার প্রতিশ্রুতি। সুজন চক্রবর্তীরা বলছেন, যা জনসভা তা তো ব্রিগেডে হয়ে গিয়েছে আবার জনসভার দরকার কি? হাতে থাকছে সেই পুরোনো দিনের মতো কাজ করার হ্যান্ডবিল। তাঁদের বক্তব্য, একবার দেশের প্রধানমন্ত্রী ব্রিগেড করার পর তাঁকে পথসভা করতে হচ্ছে কেন?
তবে বাম কংগ্রেসের মূল টার্গেট ২০২৬, এবারে তারা প্রস্তুতি লড়াই লড়ছে বলে সূত্র মারফত খবর। যদিও সন্ধ্যার পর এলাকায় পথসভা তারা করছে। তাদের বক্তব্য, চৈত্রের কাঠফাটা রোদে দুপুরে সভা করে মানুষকে কষ্ট দেওয়া কেন? অবশ্য এরপর দিল্লির নেতারা আসলে জনসভা তাদেরও করতে হবে। যুব সিপিআই নেতা কানহাইয়া কুমার অবশ্য বিভিন্ন অঞ্চলে প্রচারে যাচ্ছেন, সেখানে ভিড় হচ্ছে বিস্তর।  

নন্দীগ্রামে মনোনয়ন পেশ করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

নন্দীগ্রাম যেন রণভূমি। বুধবার একদিকে মনোনয়নপত্র জমা করছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অপরদিকে নন্দীগ্রামে বিশাল মিছিল ও জনসভা করলেন বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। এদিন মনোনয়নপত্র পেশের আগে নন্দীগ্রামের রেয়াপাড়ার এক শিবমন্দিরে পুজো দিয়ে হলদিয়ার উদ্দেশ্যে রওনা হয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। হেলিকপ্টারেই তিনি হলদিয়া যান। এরপর হেলিপ্যাড থেকে পদযাত্রা করেই হলদিয়া এসডিও অফিসে যান তৃণমূল নেত্রী। তাঁর মনোনয়নপত্র জমা দেওয়া ঘিরে সাধারণ মানুষের উৎসাহ-উদ্দিপণা ছিল চোখে পড়ার মতো। এরপর হলদিয়ার মহকুমা শাসক তথা নন্দীগ্রামের নির্বাচনী আধিকারিকের কাছে নিজের মনোনয়নপত্র পেশ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 


নন্দীগ্রামে বামেদের প্রাথী কে? আজ চুড়ান্ত ঘোষণা

একুশের লড়াইয়ে এবার ‘খেলা হবে’ নন্দীগ্রামে। তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিপক্ষে বিজেপির প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। যুযুধান দুপক্ষেরই চলছে জোরদার প্রচার। তাই নন্দীগ্রামে এবার হেভিয়েট লড়াই। কিন্তু নন্দীগ্রামে এবার সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী কে? সেটা নিয়ে ধোঁয়াশা কাটার সম্ভাবনা আজ অর্থাৎ বুধবার। আজই জোটের প্রার্থীর নাম ঘোষণা হতে পারে বলে জানা যাচ্ছে।

 নন্দীগ্রামে তিনি ৫০ হাজারের বেশি ভোটে হারাবেন মমতাকে, দাবি করেছেন বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। তারই মধ্যে ‘মাস্টারস্ট্রোক’ হিসেবে এবার বামেরা নন্দীগামে লড়বেন বলে সিদ্ধান্ত হয়েছে। যদিও প্রথমে ঠিক ছিল আব্বাস সিদ্দিকীর নতুন দল ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট নন্দীগ্রামে প্রার্থী দেবে। কিন্তু পরবর্তী সময়ে জোটের বৈঠকে ঠিক হয় বামেদের তরফেই কেউ সেখানে প্রার্থী হবেন। সম্ভবত সিপিএম প্রার্থী দিতে চলেছে নন্দীগ্রামে। আজই বামেরা নন্দীগ্রামের প্রার্থীর নাম ঘোষণা করবেন আলিমুদ্দিনে। ISF-এর তরফে যখন আব্বাস প্রার্থী না দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তখন শেষমেষ বামেরা নন্দীগ্রামে এই দুই হেভিওয়েটের মাঝে প্রার্থী দিচ্ছেন। তবে তিনি কে? সেটা জানতে অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় বঙ্গবাসী।

ফের রাজ্যে প্রচারে আসবেন নরেন্দ্র মোদি

রাজ্যে ফের আসবেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। নির্বাচনী প্রচারের কারণেই তিনি এরাজ্যে আসবেন বলেই বঙ্গ বিজেপি সূত্রে খবর। আগামী ১৮ ও ২০ সে মার্চ ফের রাজ্যে আসছেন তিনি। ওই প্রথম সফরে পুরুলিয়া এবং দ্বিতীয় দিনে কাকদ্বীপে নির্বাচনী প্রচার সভা করার সম্ভাবনা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। গত ৭ মার্চ বিগ্রেডে বিশাল সমাবেশ করেছেন তিনি। এই সমাবেশের জন্য গত ১৫ দিন ধরে বিজেপির প্রস্তুতি পর্ব চলছিল। বিজেপির ব্রিগেড সমাবেশের ১০ দিনের মাথায় ফের বঙ্গে আসতে চলছেন প্রধানমন্ত্রী। যদিও শোনা যাচ্ছে রাজ্যে এসে আর ও ২০টি জনসভা করতে পারেন নরেন্দ্র মোদি। এর মধ্যে একটি সভা তিনি ইতিমধ্যেই করেছেন কলকাতায়। এরপর আরও ১৯টি জনসভা তিনি এখনও করবেন। বিজেপির অন্দরে শুরু হয়ে গিয়েছে জোরদার প্রস্তুতি।  


ISF নয়, নন্দীগ্রামে প্রার্থী দিচ্ছে বামেরা

'সংযুক্ত মোর্চার' জোট প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার পরও কিছু পরিবর্তন হতে পারে বলে সূত্র মারফত জানা যাচ্ছে। একুশের নির্বাচনে রাজ্যের সবারই নজর নন্দীগ্রামের দিকে। হাইভোল্টেজ এই কেন্দ্রের দুই প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং শুভেন্দু অধিকারী। প্রশ্ন ছিল জোটের তরফে তৃতীয় প্রার্থী কে হতে পারেন? প্রাথমিকভাবে আব্বাস সিদ্দিকীর দল এই বিধানসভার দাবিদার ছিল। কিন্তু বাম নেতাদের সাথে কথাবার্তা বলার পর জানা গিয়েছে আব্বাস ওখানে প্রার্থী দিচ্ছেন না। পরিবর্তে মালদহের কোনও একটি কেন্দ্র বেছে নিয়েছেন। নন্দীগ্রামে প্রার্থী দিচ্ছে বামেরাই। সূত্রের খবর, বামফ্রন্টের প্রধান শরিক সিপিএম এবার নন্দীগ্রামে প্রার্থী দিতে পারে।


নন্দীগ্রাম বিধানসভা কেন্দ্রে বামফ্রন্টের শরিক সিপিআই প্রার্থী দিয়েছে এতকাল। এবারে তাঁদেরই কেউ দাঁড়াবেন নাকি সিপিএমের তরফে কেউ দাঁড়াবেন, তা চূড়ান্ত হবে আজ অর্থাৎ সোমবার। পাশাপাশি মেদিনীপুরের এগরা, পিংলা নিয়েও জটিলতা ছিল বাম কংগ্রেসের মধ্যে, আপাতত সেটিও কেটে গিয়েছে। এই দুটি আসনই কংগ্রেসকে ছেড়ে দিয়েছে বিমানবাবুরা। রবিবার কংগ্রেসের প্রাদেশিক স্তরে আলোচনা হয়েছে। ওই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন দীপা দাশমুন্সিও।

২৯১ আসনে প্রার্থী দিলেন মমতা, পাহাড়ের তিন আসন ছাড়লেন ‘বন্ধু’ গুরুংদের

শুধুমাত্র নন্দীগ্রাম থেকেই ভোটের ময়দানে লড়বেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর নিজের কেন্দ্র ভবানীপুর আসনটি ছেড়ে দিলেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কে। তৃণমূল নেত্রী এদিন জানিয়েছেন, ২৯১ আসনে প্রার্থী দেওয়া হল। পাহাড়ের তিনটি আসন ছাড়া হচ্ছে পাহাড়ের বন্ধুদের জন্য। তিনি এও জানান, তাঁরা তৃণমূলের সঙ্গেই রয়েছেন। তৃণমূলের প্রার্থী তালিকায় এবার বাদ পড়েছেন একাধিক রাঘববোয়াল। তিনি আরও জানিয়েছেন, এবারের ভোটে তৃণমূলের হয়ে পঞ্চাশের বেশি মহিলা টিকিট পাচ্ছেন। তফসিলি জাতির জন্য ৬৮ জন সংরক্ষিত কিন্তু প্রার্থী ৮৯ জন। ১৭ জন তফসিলি উপজাতিকে প্রার্থী করেছে তৃণমূল। মমতা বলেন, এবার তৃণমূলের টিকিটে নবীন প্রজন্মের নেতাদের অগ্রাধিকার দেওয়া হয়েছে। ১০০ জনের বেশি প্রার্থীর বয়স ৫০-এর নীচে। আর ৩০ জন মতো প্রার্থীর বয়স ৪০-এর নীচে। মমতা এদিন বলেন, প্রচুর চিকিৎসক এবং অধ্যাপক টিকিট পেয়েছেন। নিজে এবার শুধুই নন্দীগ্রামে প্রার্থী হচ্ছেন ঘোষণা করে মমতা বলেন, ‘কথা দিলে কথা রাখি। ভবানীপুরে দাঁড়াচ্ছেন শোভনবদেব চট্টোপাধ্যায়, ওটা আমার হাতের মুঠোর আসন’।


দেখে নিন উল্লেখযোগ্য প্রার্থীদের নাম এবং কেন্দ্র—


নন্দীগ্রাম - মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়
ভবানীপুর- শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়
রাসবিহারী- দেবাশিস কুমার
কাশিপুর বেলগাছিয়া- অতীন ঘোষ
মানিকতলা- পরেশ পাল
দমদম উত্তর- চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য
দমদম- ব্রাত্য বসু
যাদবপুর- দেবব্রত মজুমদার

রাজারহাট নিউটাউন- তাপস চট্টোপাধ্যায়
বেহালা পূর্ব- রত্না চট্টোপাধ্যায়
বেহালা পশ্চিম- পার্থ চট্টোপাধ্যায়
জোড়াসাঁকো- বিবেক গুপ্ত
কামারহাটি- মদন মিত্র
বিধাননগর- সুজিত বসু
সিঙ্গুর- বেচারাম মান্না
কলকাতা পোর্ট- ফিরহাদ হাকিম

ক্রীড়া এবং চলচিত্র জগতের প্রার্থীদের তালিকা—



বারাসত- চিরঞ্জিত চক্রবর্তী
ব্যারাকপুর- পরিচালক রাজ চক্রবর্তী
চণ্ডীপুর- সোহম চক্রবর্তী
রাজারহাট গোপালপুর- অদিতি মুন্সি
আসানসোল দক্ষিণ- সায়নী ঘোষ
বাঁকুড়া- সায়ন্তিকা
উত্তরপাড়া- কাঞ্চন মল্লিক
চন্দননগর- ইন্দ্রনীল সেন
মেদিনীপুর- জুন মালিয়া
উলুবেড়িয়া পূর্ব- প্রাক্তন ফুটবলার বিদেশ বসু
শিবপুর- ক্রিকেটার মনোজ তেওয়ারি
কৃষ্ণনগর উত্তর- কৌশানী মুখোপাধ্যায়

৪ মার্চ কী বিজেপির প্রার্থী তালিকা? দিল্লিতে বসছে বৈঠক

পশ্চিমবঙ্গে বিধানসভা নির্বাচেনে কাদের প্রার্থী করা হবে সেটা ঠিক করতে দফায় দফায় বৈঠক হচ্ছে বঙ্গ বিজেপিতে। যদিও চুরান্ত তালিকা তৈরি করবে দিল্লির নেতৃত্ব। সূত্রের খবর, আগামী ৪ মার্চ বৃহস্পতিবার প্রথম দফার প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করতে চলেছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। জানা যাচ্ছে ওই দিনই দিল্লিতে বসবে বিজেপির কেন্দ্রীয় নির্বাচনী কমিটির সদস্যরা। তারপরই প্রথম দুই দফার ভোটের জন্য প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হতে পারে। বঙ্গ বিজেপি সূত্রে জানা যাচ্ছে, সোমবার রাতে একদফা বৈঠক হয়েছে কলকাতায়। আজ মঙ্গলবার রাতে আরেক দফা বৈঠক হবে এবং বুধবার সকালে শেষ দফা বৈঠক হওয়ার পর চূড়ান্ত খসরা তালিকা নিয়ে রাজ্য বিজেপির কোর কমিটির প্রতিনিধিরা দিল্লি যাবেন। সেই তালিকাই বাছাই করে চুরান্ত রুপ দেবেন অমিত শাহরা।