শেষ পর্যন্ত প্রার্থী মিঠুন?

তবে কি শেষপর্যন্ত প্রার্থী হতে পারে মিঠুন চক্রবর্তী ? সূত্র মারফত জানা গেলো, মিঠুন চক্রবর্তী মুম্বাইয়ের ভোটার ছিলেন কিন্তু সম্প্রতি তিনি কলকাতার ভোটার হলেন | একটি ঠিকানার হদিশ পাওয়া গেলো ২২/১৮০ রাজা মনীন্দ্র রোড | এটি পাইকপাড়া অঞ্চলের ঠিকানা, যেখানে নাকি মিঠুন একসময় থাকতেন, বর্তমানে তাঁর বোন থাকেন | যতদূর জানা গেছে , এক সময়ে বিডন স্ট্রিট অঞ্চলে তাঁর আড্ডা ছিল, থাকতেনও নাকি সেখানেই | তবে স্কটিশ কলেজে পড়তেন এবং জড়িয়ে গিয়েছিলেন নক্সাল আন্দোলনে, তবে ৭০ দশকের মধভাগেই তিনি নাকি মুম্বাইতে চলে যান এবং রানা রেজ নাম চলচিত্রে ডান্সারের ভূমিকায় অভিনয় করা শুরু করেছিলেন প্রাথমিক ভাবে |


আপাতত বিজেপি থেকে তাঁকে প্রার্থী করার ব্যাপারে চাপ দেওয়া হয়েছে | প্রথমে রাজি না হলেও এখন রাজি হয়েছেন বলে শোনা গেলো, সেই কারণেই তড়িঘড়ি ঠিকানা বদল | কিন্তু দাঁড়াবেন কোন কেন্দ্রে, উঠেছে প্রশ্ন | শোনা গেলো কলকাতার কোনও একটি  কেন্দ্রই তাঁর পছন্দ | আপাতত বিজেপির হাতে রয়েছে চৌরঙ্গী এবং বেলগাছিয়া-কাশিপুর কেন্দ্র | তাঁর মধ্যে বেলগাছিয়াতেই তাঁর নব্য ঠিকানা, সুতরাং এখানেই প্রার্থী হতে পারেন তিনি |      


১২ মার্চ নন্দীগ্রামে মনোনয়ন শুভেন্দুর, থাকবেন একাধিক হেভিওয়েট

একুশের নজরকাড়া কেন্দ্র নন্দীগ্রাম। এই কেন্দ্রেই এবার শাসকদল ও প্রধান বিরোধী দলের দুই হেভিওয়েট প্রার্থী মুখোমুখী। একজন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা বিদায়ী মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবং অন্যজন তাঁরই দীর্ঘদিনের সঙ্গী তথা রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী বর্তমানে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। তাই এবারের বাংলার ভোটে এটাই সবচেয়ে বড় লড়াই বলে মনে করছেন রাজ্যবাসী। এই পরিস্থিতিতে আগামী ১২ মার্চ মনোনয়ন পেশ করতে পারেন নন্দীগ্রামের বিজেপি প্রার্থী শুভেন্দু অধিকারী। বিজেপি সূত্রে খবর, ওই দিন শুভেন্দুর সঙ্গে থাকতে পারেন একাধিক কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং রাজ্যস্তরের শীর্ষ নেতৃত্ব। বিজেপি সূত্রে জানা যাচ্ছে, কেন্দ্রীয় মন্ত্রী স্মৃতি ইরানি এবং ধর্মেন্দ্র প্রধান থাকতে পারেন শুভেন্দুর সঙ্গে। মিঠুন চক্রবর্তীও থআকতে পারেন। অপরদিকে, আগামী শিবরাত্রীর দিন মনোনয়ন পেশ করতে পারেন তৃণমূল নেত্রী। সবমিলিয়ে উত্তেজনা চরমে নন্দীগ্রামে। ইতিমধ্যেই নন্দীগ্রামের দেওয়ালে দেওয়ালে দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর নাম লেখা চলছে। প্রচারও চলছে দুই দলের। তৃণমূল নেত্রী এখানে আসবেন বলে স্থানীয় নেতৃত্ব ইতিমধ্যেই চারটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে ফেলেছেন। এরমধ্যে একটি বাড়িতে নেত্রী সয়ং থাকবেন, অন্য একটিতে তাঁর নির্বাচনী কার্যালয় হবে। বাকি দুটি বাড়িতে কলকাতা থেকে নন্দীগ্রামে প্রচারে যাওয়া হেভিওয়েট নেতা-নেত্রী এবং সেলিব্রেটিরা থাকবেন।

‘মানুষের কাজ করতে হবে’, টিকিট পেয়েই বললেন অদিতি মুন্সি

মিষ্টি চেহারা, সুকন্ঠের অধিকারী হয়ে গানেই মন দিয়েছিলেন অদিতি মুন্সি। বাংলা টেলিভিশনের এক জনপ্রিয় রিয়েলিটি শো তাঁকে পরিচিতি দেয় গোটা বাংলায়। দেখতে দেখতে আধুনিক কীর্তনের সুপারষ্টার হয়ে গেলেন। সোশ্যাল মিডিয়ার যুগ, ইচ্ছা হলেই মানুষ বিশ্ব সংগীতের আধুনিক গান বা মিউজিক হাতের মুঠো ফোনে শুনতেই পারেন। তখন অদিতি গানের তরঙ্গে বাংলার আদি সংগীতকে তুলে ধরতে পারলেন। সেই অদিতি বৃহস্পতিবার যোগ দিলেন তৃণমূলে এবং সাংবাদিকদের অনুরোধে 'দিদি'র প্রিয় গান শোনালেন। শুক্রবার তৃণমূল নেত্রী প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করার পর দেখা গেল রাজারহাট-গোপালপুরে টিকিট পেয়ে গেলেন জনপ্রিয় এই গায়িকা।