ব্রেকিং নিউজ
  নাটাপুকুরে আগ্নেয়াস্ত্র, বোমা ও বোমা বাধার সরঞ্জাম উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেফতার আইএফএস নেতা     ফের উলুবেড়িয়ায় জাতীয় সড়কে যান নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে মৃত্যু এক সিভিক ভলেন্টিয়ারের     ফের শ্রমিক মৃত্যু দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানায়     তাপমাত্রার পারদ সামান্য নামল বঙ্গে  
treatment-negligence-death
Hospital ভুল ইঞ্জেকশনে প্রসূতির মৃত্যু, বিক্ষোভ সরকারি হাসপাতালে

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-12-18 11:27:26


আবারও প্রসূতির মৃত্যু। আর তাকে ঘিরে বিক্ষোভে সামিল পরিবারের লোকজন। একের পর এক সরকারি এবং বেসরকারি স্বাস্থ্যকেন্দ্র প্রশ্নের মুখে। কিন্তু কেন এরকম দুরবস্থা? 

শনিবার সকাল হতেই মর্মান্তিক খবরটি পায় পরিবার। শুক্রবার বিকালে ভর্তি করা হয়েছিল যে প্রসূতিকে, তিনি মারা যান শনিবার সকালে। আর এরপরই নদিয়ার হাঁসখালি থানার বগুলা রুরাল হসপিটাল চত্বরে বিক্ষোভে সামিল পরিবার। 

প্রসঙ্গত, লিপিকা বিশ্বাস নামে ওই প্রসূতির বাড়ি ভায়না পূর্বপাড়ায়। তাঁর বাবার নাম রামচন্দ্র বিশ্বাস, স্বামী তাপস বিশ্বাস। তাঁর বিয়ে হয়েছিল হাঁসখালি থানার বেনালি গ্রামে। শুক্রবার বগুলা হসপিটালে বছর ২৬ শের ওই প্রসূতি ভর্তি হন প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে। সেখানে কর্মরত ডাক্তারবাবু তাঁকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যান। অ্যানাস্থেশিয়া করার পর ইঞ্জেকশন দেওয়া হয় তাঁকে। কিন্তু তারপর হঠাৎই তাঁর অবস্থার অবনতি হতে থাকে। তড়িঘড়ি ডাক্তারবাবুরা শক্তিনগর জেলা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করার জন্য ব্যবস্থা করেন। তবে সেখানে নিয়ে যাওয়ার পথেই তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুর খবর পেতেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন পরিবারের সদস্যরা। এরপরই বগুলা হাসপাতাল ঘেরাও করে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে পরিবার।

লিপিকার আত্মীয়-পরিজনরা জানান, প্রথমে তাঁদের ডেকে নিয়ে গিয়ে সেখানকার সরকারি ডাক্তারবাবু তাঁর নিজস্ব বেসরকারি নার্সিংহোমে ভর্তি করার কথা বলেন। তবে অর্থের অভাবে পরিবার বেসরকারি নার্সিংহোমে নিয়ে যেতে রাজি হয়নি। তাঁদের আরও অভিযাগ, রাজি না হওয়ার পরই প্রসূতিকে ভুল ইঞ্জেকশন দেওয়া হয়। তারপর থেকেই তাঁর অবস্থার অবনতি হতে শুরু করে। পরে মারা যান প্রসূতি। মূলত এই অভিযোগ তুলেই হাসপাতাল চত্বরে বিক্ষোভ দেখায় গোটা পরিবার। কান্নায় ভেঙে পড়েন আত্মীয়-পরিজনরা। হাসপাতালের চিকিৎসা পরিষেবা বেহাল বলেই অভিযোগ তাঁদের। সরকারি নজরদারি ও প্রশাসনের কাছে তাঁদের আর্জি স্বাস্থ্য পরিষেবার দিকে একটু নজর দেওয়ার।

বিক্ষোভের খবর পেয়েই বগুলা হাসপাতালে ছুটে আসে হাঁসখালি থানার পুলিস। সেখানে গিয়ে পরিবারের সঙ্গে কথা বলে তাঁদের বিক্ষোভ তুলে দেওয়া হয়।

ঘটনায় রীতিমতো শোকের ছায়া নেমে এসেছে পরিবার সহ এলাকায়। তবে প্রশ্ন উঠেছে সরকারি হাসপাতালগুলির চিকিৎসা পরিষেবা নিয়ে। কেন সরকারি সুযোগ থেকে বঞ্চিত থেকে যাচ্ছে আমজনতা? কেনই বা সঠিক পরিষেবা দেওয়া হচ্ছে না? 






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন