ব্রেকিং নিউজ
  রাষ্ট্রগুরু এভিনিউতে ভুয়ো কল সেন্টার খুলে ঋণের প্রতিশ্রুতি দিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে গ্রেফতার তিন মহিলা সহ মোট ৫ জন     মালদহে বন্ধুদের সঙ্গে পিকনিক করতে গিয়ে মৃত্যু এক যুবকের, চাঞ্চল্য     সামশেরগঞ্জে শনিবার গভীর রাতে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আতঙ্ক ছড়ায়  
first-place-holder-in-hs-adisha-devsharma-wants-to-do-something-for-Street-childrens
HS: সৎভাবে দাঁড়িয়ে পথশিশুদের জন্য কিছু করব, বলছেন অদিশা

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-06-10 13:37:17


গোটা রাজ্যে উচ্চ মাধ্যমিকে পরীক্ষা দিয়েছিলেন ৭ লক্ষ ২০ হাজার ৮৬২ জন পরীক্ষার্থী। রাজ্যের লক্ষ লক্ষ পরীক্ষার্থীর মধ্যে প্রথম হয়েছেন কোচবিহারের দিনহাটার ছোট্ট মেয়েটা। দিনহাটার সোনিদেবী জৈন স্কুলের অদিশা দেবশর্মা ৪৯৮ নম্বর পেয়ে প্রথম হয়েছেন। পশ্চিমবঙ্গ উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের তরফে তখন সবে সাংবাদিক সম্মেলনে অদিশার নাম ঘোষিত হয়েছে। টেলিভিশনের পর্দায় সকাল থেকেই চোখ ছিল দেবশর্মা পরিবারের। নামখানা ঘোষিত হতেই আনন্দে ভাসলো গোটা পরিবার। মা-বাবা আজ বাড়িতেই। দাদু চেয়েছিলেন, নাতনি ভালো ফলে করুক। খবরটা আসতেই দাদুর চোখে জল, নাতনি দাদুর স্বপ্নটাকে বাস্তবায়িত করেছে। 

ফল ঘোষণা হতেই সাংবাদিক, পাড়া-পড়শিদের ভিড় অদিশার বাড়িতে। ছোট্ট একটা জেলার স্কুলে পড়া মেয়েটাকে জেলার নাম উজ্জ্বল করেছে। একের পর এক ফোন এসেই চলেছে অদিশার বাবা-মায়ের ফোনে। শুভেচ্ছা-বার্তায় ভরে তুলছেন সকলে। মেয়ে প্রথম হয়েছে। সাংবাদিকদের ক্যামেরার সামনে মেয়েকে মিষ্টি মুখের পালা চলল। ছটফটে মেয়েটা ছোট থেকেই পড়াশোনায় ভালো। আগাগোড়াই যথেষ্ট ভালো ফলাফল করে এসেছে অদিশা। তবে অদিশা জানালেন, কখনও তাঁর বাবা-মা পড়াশোনার জন্য চাপ দেননি। কোনও স্থান অর্জন করতে হবে, এমনটা বলেননি তাঁরা। তবে বলতেন ভালো ফল করলেই হবে।

বইয়ের মধ্যে মুখ গুঁজে থাকা না-পসন্দ ছিল অদিশার। যতক্ষণ পড়তে ভালো লাগে,ততক্ষণই পড়াশোনা। এরপর নাচ-গান-আবৃত্তিতে ডুব। মা-বাবা মেয়ের প্রশংসায় ভরিয়ে তুলছেন। সাংবাদিকরা শুভেচ্ছাবার্তা দিয়ে, পরবর্তীতে কী নিয়ে পড়াশোনা করতে চান?-এর মতো প্রশ্ন ছুঁড়ে দিচ্ছেন অদিশার দিকে। রাজ্যের মধ্যে প্রথম হওয়া মেয়েটা মিষ্টি হেসে জানালেন, অঙ্ক ভালো লাগে। অঙ্ক নিয়েই পড়াশোনা করতে চান তিনি।

তবে কেরিয়ারের এতো জটিল অঙ্কে মাথা গলিয়ে, মানুষের মতো মানুষ হওয়ার ইচ্ছেটাকেও কোনওভাবে দমিয়ে দিতে নিমরাজি অদিশা। তাঁর বক্তব্য,''সৎভাবে নিজের পায়ে দাঁড়াতে তো হবেই। তবে পথশিশুদের দেখে মনটা কেঁদে ওঠে। ওঁদের জন্য যদি কিছু করতে পারি, সেটাই আমার  জন্য অনেক।''






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন