০২ মার্চ, ২০২৪

Sandeshkali: প্রায় পাঁচ ঘণ্টা পর গ্রেফতার নিরাপদ, পুলিসের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ালেন প্রাক্তন বিধায়কের স্ত্রী
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2024-02-11 20:39:50   Share:   

রবিবার সকাল ১০টা নাগাদ বাঁশদ্রোণীর ছেলের বাড়ি থেকে আটক হয়েছিলেন সিপিএম নেতা নিরাপদ সর্দার। মোবাইল টাওয়ারের লোকেশন ধরে প্রাক্তন সিপিএম বিধায়কের সন্ধান পায় বাঁশদ্রোণী থানার পুলিস। তাঁকে প্রায় ঘণ্টা পাঁচেক আটক করে রাখার পর বসিরহাট জেলা পুলিসের হাতে তুলে দেওয়া হয় নিরাপদ সর্দারকে। বেলা আড়াইটের কিছু পর তাঁকে গ্রেফতার করে বসিরহাট জেলা পুলিস। তিনটের পর সন্দেশখালির উদ্দেশে নিয়ে যাওয়া হয় সিপিএম নেতাকে। সেই সময় সিপিএম কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি হয় পুলিসের, ওঠে স্লোগানও। জানা গিয়েছে, সোমবার আদালতে তোলা হবে তাঁকে।

পুলিসের 'অতিসক্রিয়তা'কে কাঠগড়ায় তুলে ছুটির দিনের সকাল থেকেই উত্তেজনা বাঁশদ্রোনী থানা চত্বরে। থানার সামনে জমায়েত হয়ে স্লোগান-শাউটিং চালান সিপিএম কর্মী-সমর্থকরা। রবিবার থেকেই একনাগাড়ে রাজ্যের প্রতি থানার ঘেরাও করবে সিপিএম, স্পষ্ট হুঁশিয়ারি দেন দলের রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিম। জঙ্গলরাজের অভিযোগের সরব তাঁরা। এদিকে কোনওরকম নথি না দেখিয়েই সিপিএম রাজ্য কমিটির সদস্যকে জোর করে থানায় তুলে আনে পুলিস। কার্যত এই অভিযোগে সরব ছিলেন ধৃত সিপিএম নেতার স্ত্রী দীপা সর্দার। আইনজীবী ফিরদৌস শামিম জানান, আইপিসির একাধিক ধারায় গ্রেফতার সিপিএম নেতা। গ্রেফতারি দেখানো হয়েছে দুপুর ২টো বেজে ৫০ মিনিটে। কিন্তু প্রায় ৫ ঘণ্টা তাঁকে আটক করে রাখা হয়েছিল।

উল্লেখ্য, সন্দেশখালির প্রভাবশালী শাসক নেতা শেখ শাহজাহান ঘনিষ্ঠ তৃণমূল নেতা শিবু হাজরার এফআইআর-এর সূত্রে গ্রেফতার নিরাপদ সর্দার। সন্দেশখালিতে জনরোষ আছড়ে পড়ার ঘটনায় এবং তৃণমূলে নেতার বাড়ি-পোলট্রি ফার্মে হামলা-কাণ্ডে শতাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের হয়েছে। আর এই এফআইআর-এর একদম এক নম্বরে নাম ধৃত সিপিএম নেতার নাম। ঘটনাচক্রে এই শিবু হাজরা এই মুহূর্তে অন্তরালে। তবে সন্দেশখালির জনতা শিবুর বিরোধিতায় সোচ্চার। শাসক নেতার অত্যাচারের প্রতিবাদে পথে নেমে বিক্ষোভ দেখিয়েছে সন্দেশখালি। শিবুর বাড়ি, পোলট্রি ফার্মে হামলাও হয়েছে। উত্তম সর্দার এবং শিবু হাজরার বিরুদ্ধে গুরুতর নারী নিগ্রহের অভিযোগ উঠেছে। জনতার কাঠগড়ায় থাকা সেই শাসক নেতার অভিযোগের বিরুদ্ধে কীভাবে অতিসক্রিয় পুলিস, প্রশ্ন তুলছেন সিপিএম কর্মী-সমর্থকরা।

সিপিএম-এর রাজ্য সম্পাদক মহম্মদ সেলিমের অভিযোগ, মিথ্যা অভিযোগে গ্রেফতার নিরাপদ সর্দার। ঘটনার দিন রাজ্য কমিটির বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন প্রাক্তন সিপিএম নেতা, দাবি সেলিমের। সাধারণ মানুষের জল-জমি দখল করেছেন শাসক নেতারা, মন্তব্য সিপিএম রাজ্য সম্পাদকের। দলের নেতার গ্রেফতারির প্রতিবাদে আইনি পথে লড়াইয়ে ডাক দেন সিপিএম সাংসদ তথা আইনজীবী বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য। পুলিসের আইন মেনে কাজ করা উচিত, মন্তব্য সিপিএম সাংসদের। বিশৃঙ্খলা তৈরি করা, জমায়েত করা, অশান্তি তৈরি করা, লুটপাঠের ধারায় গ্রেফতার নিরাপদ, জানান বিকাশরঞ্জন ভট্টাচার্য।

যিনি অভিযুক্ত, উল্টে তাঁর অভিযোগের ভিত্তিতে গ্রেফতার সিপিএম-এর প্রাক্তন সাংসদ, কটাক্ষ সিপিএম-র। মূলত সন্দেশখালিতে শাসক-বিরোধী প্রতিবাদ দমনেই পুলিসমন্ত্রীর নির্দেশে এহেন কাজ করা হয়েছে, এভাবেই তৃণমূল সরকার এবং শাসক দলের বিরুদ্ধে ক্ষৌভ উগড়ে দেন সিপিএম কর্মী-সমর্থকরা।


Follow us on :