ব্রেকিং নিউজ
  নাটাপুকুরে আগ্নেয়াস্ত্র, বোমা ও বোমা বাধার সরঞ্জাম উদ্ধারের ঘটনায় গ্রেফতার আইএফএস নেতা     ফের উলুবেড়িয়ায় জাতীয় সড়কে যান নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে মৃত্যু এক সিভিক ভলেন্টিয়ারের     ফের শ্রমিক মৃত্যু দুর্গাপুর ইস্পাত কারখানায়     তাপমাত্রার পারদ সামান্য নামল বঙ্গে  
Order-of-environment-court-notice-of-closure-of-at-least-100-home-stays-in-Buxa-tiger-project
Tour: গ্রিন কোর্টের নির্দেশ, বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পে অন্তত ১০০টি হোম স্টে বন্ধের নোটিস

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-07-31 09:19:21


আদালতের রায়ে বক্সার পর্যটনের আকাশে কালো মেঘ। আর তাই নিয়ে চিন্তিত এই এলাকায় পর্যটনের সঙ্গে যুক্ত স্থানীয় বাসিন্দারা। একদিকে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী যখন আলিপুরদুয়ার সফরে এসে জেলার পর্যটন উন্নয়নে ও আর্থিক স্বনির্ভতার লক্ষ্যকে সামনে রেখে বিভিন্ন এলাকায় আরও বেশি হোম-স্টে তৈরি করার জন্য উৎসাহিত করেছেন, তখন পরিবেশ আদালতের ৩০ মের নির্দেশ মেনে বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের কমপক্ষে ১০০ টি হোম-স্টে অবিলম্বে বন্ধ করে দেওয়ার নোটিস জারি করেছে বন দফতর। ওই নির্দেশিকা প্রকাশ্যে আসার পর রীতিমতো আতঙ্কিত বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের কয়েক হাজার স্টেকহোল্ডার।

শুধুমাত্র পর্যটনের উপর নির্ভর করেই এতদিন ধরে যাঁদের রুটিরুজি চলত, এখন উচ্ছেদ ও জীবিকা হারানোর ভয়ে রীতিমতো আতঙ্কিত ওই অসহায় মানুষগুলি। শেষ পর্যন্ত দেওয়ালে পিঠ ঠেকে যাওয়ায় তাঁরা আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। বনকেন্দ্রিক ইকো ট্যুরিজমের ধারণা বাম আমলে তৈরি হলেও বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পে তার খুব একটা বাস্তবায়ন হয়নি। বরং ২০১১ সালে রাজ্যে ক্ষমতার পরিবর্তনের পর থেকে রাজ্য সরকারের উদ্যোগে বনবস্তির বাসিন্দাদের অর্থনৈতিকভাবে স্বনির্ভর করার লক্ষ্যে বক্সায় প্রচুর পরিমাণে হোম-স্টে তৈরিতে উৎসাহিত করা হয়। হোম-স্টে তৈরি হওয়ার জন্য একদিকে যেমন জঙ্গল ও বন্যপ্রাণের উপর মানুষের চাপ কমে যায়, অন্যদিক দিয়ে চাঙ্গা হয়ে ওঠে এলাকার অর্থনীতি।

তবে কোভিডের অধ্যায়ে একেবারেই মুখ থুবড়ে পড়ে পর্যটনের ব্যবসা। সেই চাপ কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই পরিবেশবিদ সুভাষ দত্তের করা একটি মামলার রায়ে চলতি বছরের ৩০ মে পরিবেশ আদালত পত্রপাঠ জানিয়ে দেয়, বক্সা ব্যাঘ্র প্রকল্পের অন্দরে হোটেল, রিসর্ট তো দূরের কথা, সেখানে কোনওরকম বাণিজ্যিক কাজ চলবে না। নির্দেশে এও স্পষ্ট করে বলা হয়, ওই নির্দেশ কার্যকর করতে গিয়ে রাজ্য বন দফতর ঠিক কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে, তা তিনমাসের মধ্যে হলফনামা দিয়ে পরিবেশ আদালতকে জানাতে বাধ্য থাকবেন রাজ্যের বন্যপ্রাণ শাখার প্রধান মুখ্য বনপাল।

বনজীবী-শ্রমজীবী মঞ্চের আহ্বায়ক লাল সিং ভুজেল বলেন, আমাদের তো এখন সবই শেষ। বনবস্তিবাসীর অধিকার ক্ষুণ্ণ হচ্ছে। আমরা কোর্টের দ্বারস্থ হব। আলিপুরদুয়ারে এসে শুক্রবার রাজ্যের বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক বলেন "পরিবেশ আদালত যে রায় দিয়েছে, তা পুনর্বিবেচনার দাবি জানিয়ে পরিবেশ আদালতের দ্বারস্থ হবে রাজ্য সরকার। তিনি জানান, পর্যটন দফতর যদি জমি চায়, আমরা জমি দিতে রাজি আছি।

বনমন্ত্রী জানান, এত লোকের জীবিকা নষ্ট করা যাবে না। প্রয়োজনে আমরা আমাদের রেঞ্জ কমিয়ে দেব। আমরা এই মামলায় অংশগ্রহণ করছি। তবে এই মুহূর্তে এই মানুষগুলোকে কিছুটা স্বস্তি দিয়ে হাইকোর্টের জলপাইগুড়ি ডিভিশন বেঞ্চ ছয় সপ্তাহের জন্য গ্রিন বেঞ্চের রায়ের ওপর স্থগিতাদেশ দিয়েছে। এখন দেখার, শেষ পর্যন্ত বক্সার মানুষের ভাগ্যের আকাশের কালো মেঘ কবে পুরোপুরি কাটে।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন