১৩ জুন, ২০২৪

Howrah: দু'দিনে হাওড়ার ফ্ল্যাটে উদ্ধার ৮ কোটির বেশি টাকা! কারা এই শৈলেশ এবং অরবিন্দ পাণ্ডে
CN Webdesk      শেষ আপডেট: 2022-10-17 13:01:01   Share:   

হাওড়ার (Howrah Money) মন্দিরতলার পর এবার শিবপুর। ফের সেই পাণ্ডে ভাইদের বাড়িতেই বিপুল নগদ উদ্ধার। শনি এবং রবিবার মিলিয়ে ৮ কোটি টাকার বেশি উদ্ধার পাণ্ডে ভাইদের দুই ফ্ল্যাট থেকে। রবিবার রাতে শিবপুরের (Shibpur) ৩৫ নম্বর অপ্রকাশ মুখার্জি লেনের বৈভব অ্যাপার্টমেন্টের এক ফ্ল্যাটে হানা দেয় অ্যান্টি ব্যাঙ্ক ফ্রড টিম, হেয়ারস্ট্রিট থানা (Kolkata Police) ও শিবপুর থানার পুলিস। যৌথ অভিযান চালিয়ে শৈলেশ পান্ডের ফ্ল্যাট থেকে উদ্ধার হয়েছে প্রায় ৬ কোটি টাকা। এই নগদ রাখা ছিল ৫০০ এবং ২০০০ টাকার বান্ডিলে। টাকা উদ্ধারের পর ফ্ল্যাটটি সিল করে দিয়েছে পুলিস।

উল্লেখ্য, শনিবার হাওড়ার কাউসঘাট রোডে একটি অভিজাত আবাসনে শৈলেশ পাণ্ডের ফ্ল্যাটেই হানা দিয়েছিলেন গোয়েন্দারা। সেই আবাসনের গ্যারেজে থাকা একটি গাড়ি থেকে (WBC 7751) প্রায় ২ কোটি ২০ লক্ষ টাকা-সহ সোনা, হিরের গহনা উদ্ধার করে পুলিস। পরে রবিবার বিকেলে ওই ফ্ল্যাটে পুনরায় হানা দেয় গোয়েন্দা আধিকারিকরা। তালা ভেঙে ফ্ল্যাটে ঢুকে সেখান থেকে টাকা উদ্ধার না হলেও বেশ কিছু নথিপত্র উদ্ধার করে সিল করে দিয়ে যান গোয়েন্দারা।

এরপরেই খবর পাওয়া গিয়েছে, রবিবার রাতেই শিবপুরে অপ্রকাশ মুখার্জি লেনে শৈলেশের আরও একটি ফ্ল্যাটে হানা দিয়েছে আধিকারিকরা। এদিকে টাকা উদ্ধারের আগে থেকেই 'পলাতক' দুই ভাই। তাঁদের খোঁজে লুকআউট নোটিস জারি করেছে পুলিস। এই বিপুল নগদ নিয়ে পালানোর ছকে ছিলেন শৈলেশ এবং অরবিন্দ পাণ্ডে।

এদিকে এই বিপুল টাকা উদ্ধারের খবরে ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন স্থানীয়রা। ক্ষিপ্ত জনতাকে সামাল দিতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হয় পুলিসকে। নগদ টাকা উদ্ধারের পর পুলিস ক্ষিপ্ত জনতাকে কোনওরকমে সামলে সেখান থেকে উদ্ধার হওয়া টাকার ব্যাগ ও সুটকেস গাড়িতে তুলে এলাকা ছাড়েন।

স্থানীয় সূত্রে খবর, ২০১৩ সালের শেষের দিকে প্রায় ৯০০ স্কোয়ার ফিটের শিবপুরের এই ফ্ল্যাট কেনেন পাণ্ডে ভাই। বড়ভাই শৈলেশ, ছোটভাই রোহিত ওরফে অরবিন্দ ও তাঁদের মা থাকতেন সেখানে। ২০১৬-র মাঝামাঝি তারা ফ্ল্যাট ছেড়ে চলে যায় কাউসঘাট রোডের আবাসনের প্রায় দেড় কোটি টাকা মূল্যের টাওয়ার ৩-র ২-ডি ফ্ল্যাটে।

অপ্রকাশ মুখার্জি লেনের বৈভব আবাসনের ৩সি ফ্ল্যাটে তারপর থেকে স্থায়ীভাবে পাণ্ডে পরিবারের কেউ থাকতেন না। মাঝেমধ্যে শৈলেশকে দেখা গেলেও একটু বেশি যাতায়াত ছিল ছোট ভাই অরবিন্দের।  স্থানীয় সূত্রে আরও জানা যায়, এবছরই দুর্গাপুজোর  সময় একদিন রাতে মা'কে সঙ্গে নিয়ে রোহিত একটি গাড়িতে চেপে আসে এই ফ্ল্যাটে। অল্পসময়ের মধ্যে গাড়ি থেকে বেশ কয়েকটি ব্যাগ ও সুটকেস নিয়ে ফ্ল্যাটে ঢোকেন। তার কিছুক্ষণ পরেই তাঁরা সেই ফ্ল্যাট থেকে আবার বেড়িয়ে যান। যে গাড়িটি কাউসঘাট রোডের আবাসনের গ্যারেজে রাখা ছিল এবং সেই গাড়ির ভিতর থেকে উদ্ধার হয়েছে টাকা এবং গয়না।


Follow us on :