ব্রেকিং নিউজ
  (15:40 PM)-ফের আগামি কাল গোয়া সফর করবেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায়     (15:37 PM)-রাজ্য সরকারের সামাজিক প্রকল্পের জন্য ১০০০ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদন করল বিশ্ব ব্যাঙ্ক     (14:19 PM)-কালিম্পং জেলার সামসিং ফাঁড়ির মণ্ডলগাও এবং খাসমহল গ্রামে ভল্লুকের আতঙ্ক      (14:17 PM)- বাঁকুড়ার গঙ্গাজলঘাটিতে হাতির দলের তাণ্ডব। জখম ও মৃত একাধিক গবাদিপশু      (14:15 PM)-বাসন্তীতে উদ্ধার চারটি বেআইনি আগ্নেয়াস্ত্র। ধৃত এক। এলাকায় চাঞ্চল্য      (14:14 PM)-অবৈধ গ্যাস সিলিন্ডার রাখার অভিযোগে মঙ্গলকোটে গ্রেপ্তার এক ব্যক্তি     (14:13 PM)-ডোমজুড়ে পাওয়ার হাউসে অগ্নিকাণ্ড। একটি স্পঞ্জ কারখানায় আগুন     (14:12 PM)-বোমা বিস্ফোরণে জখম তিন শিশু। বহরমপুরের টিকটিকিপাড়া এলাকার ঘটনা     (10:42 AM)-মুম্বাইয়ের বহুতলে সকাল ৭টা নাগাদ আগুন, মৃত ২, হাসপাতালে ভর্তি ১৫     (10:40 AM)-৫ বি তিলজলা রোডে এক প্রৌঢ়ের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার, প্রাথমিক ধারণা আত্মহত্য়া     (10:03 AM)-প্রয়াত প্রাক্তন ফুটবলার তথা কোচ সুভাষ ভৌমিক     (08:15 AM)-২৪ ঘণ্টায় দেশে আক্রান্তের সংখ্যা ৯৪,৭৭৪, সুস্থ ২,৫১,৭৭৭      (08:07 AM)-করোনায় মৃত ৩৫, সংক্রমণের হার কমে ১২.৫৮ শতাংশ      (08:06 AM)-গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্ত ৯,১৫৪     (07:59 AM)-২২ থেকে ২৪ জানুয়ারি হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা     (07:58 AM)-পশ্চিমী ঝঞ্ঝার জেরে রাজ্য জুড়েই বৃষ্টির সম্ভাবনা  
football-mohunbagan-eastbengal
Football দৈন্যদশা ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগানের


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2021-12-13 12:22:48


কথায় আছে, খাচ্ছিল তাঁতি তাঁত বুনে, কাল হল এঁড়ে গরু কিনে। ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগানের অবস্থা এখন তাই। একটা সময় ভারতীয় ফুটবলে অনেকগুলি ট্রফি ছিল। আইএফএ শিল্ড, ডুরান্ড কাপ, রোভার্স কাপ ইত্যাদি। এছাড়া ফেডারেশন কাপ তো ছিলই। এছাড়াও ইস্ট-মোহন দার্জিলিং গোল্ড, সিকিম গোল্ড, অসমের বড়দোলুই কাপেও অংশগ্রহণ করত। এরপর এল আই লিগ। কলকাতায় লিগ ফুটবলও একইরকম জনপ্রিয় ছিল। এই টুর্নামেন্টগুলিতে সারা ভারতের নামি ক্লাবগুলি অংশ নিত। 

ফেড কাপে অংশ নেওয়াটা তো প্রায় বাধ্যতামূলক ছিল। ইস্টবেঙ্গল বা মোহনবাগান সারা ভারতের এই ট্রফিগুলির কোনও না কোনও একটা জিততে পারত। সারা বছর এই দু-দলের সমর্থকরা খুশি থাকত যে, একটা বা একাধিক ট্রফি তো ক্লাব তাঁবুতে এসেছে। একই বছর আইএফএ শিল্ড, ডুরান্ড, রোভার্স জিতলে বলা হত ত্রিমুকুট জয়ী। এখনও ট্রফিগুলি রয়েছে, কিন্তু কোথাও যেন আকর্ষণ হারাচ্ছে। একই সাথে এই দুই দলের সমর্থকদের ফুটবল উন্মাদনা অনেকটাই কমেছে। আজকালকার ছেলেমেয়েদের এই দুই ক্লাবের প্রতি কোনও বিশেষ আকর্ষণ নেই। ফলে ট্রফি জেতার চাপও কমেছে কর্মকর্তাদের। করোনা আবহে এমনিতেই খেলা কমেছে। এখন ছেলেমেয়েদের নজরে বিদেশি ফুটবল, রোনাল্ডো, মেসি ইত্যাদি। তাদের রাতজাগা খেলার আকর্ষণ।

এই টুর্নামেন্টগুলিকে বাদ দিয়ে ইস্ট-মোহনের টার্গেট একটাই, নব্য আইএসএল ট্রফি খেলতে হবে। দুবছর আগেও সব নতুন ক্লাব তৈরি হয়েছিল, যার আগে কোনও অস্তিত্ব ছিল না। অনেকটাই আইপিএলের মতো। কোটি কোটি টাকা খরচ করা ক্লাবগুলির মালিকও হয় কোনও ব্যবসায়ী অথবা সেলিব্রিটি। এই টুর্নামেন্টে হঠাৎই গত বছর আবির্ভূত হল ইস্টবেঙ্গল ও মোহনবাগান। কিন্তু আসার আগে তাদের টাকা ছিল না। ফলে তারা বাণিজ্য মহলের মুখাপেক্ষী হল। মোহনবাগান সাময়িক বিক্রি হল এটিকে-র কাছে। এরপর নাম হল এটিকে মোহনবাগান। অন্যদিকে একই ঘটনা হল ইস্টবেঙ্গলের সঙ্গেও। বর্তমান তাদের নাম এসসি ইস্টবেঙ্গল। কোটি টাকার টিম করে প্রাপ্তি অশ্বডিম্ব। ক্রমাগত খারাপ খেলার প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে দুই দলের। প্রশ্ন একটাই, বাঙালি দর্শকের কাছে আইএসএলের কোনও বিশেষ মূল্য আছে কি? নাকি তারা ক্লাব তাঁবুতে ফেলে আসা ট্রফিগুলি দেখতে চায় ?





All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us