ব্রেকিং নিউজ
  Weather Update: বজ্রবিদ্যুৎ-সহ হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনা বঙ্গের বিভিন্ন জেলায়      Sourav-Wriddhi: বেহালা ছেড়ে ৪০ কোটির বাড়িতে সৌরভ, কিন্তু বাংলা ছাড়ছেন না ঋদ্ধি     Delhi Rain: ঝড়বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত দিল্লি, বিদ্যুৎ-বিভ্রাট, ব্যাহত বিমান চলাচল     Monkeypox: মাঙ্কিপক্স নিয়ে ভারতকে সতর্ক করল হু     Lake Club: আজই খুলছে দুটি রোয়িং ক্লাব, তবে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে, উঠছে সতর্কতা নিয়ে প্রশ্ন     Anubrata: এবার ভোট পরবর্তী হিংসা মামলায় মঙ্গলবার তলব অনুব্রতকে     Fire: মহেশতলায় গেঞ্জি কারখানায় বিধ্বংসী আগুন     SSC: ব্রাত্য বসুকে আজই তলব করলেন রাজ্যপাল     Market: ভোজ্যতেল, আলুর পর কি এবার ডালের দামও বাড়ছে? আশঙ্কায় সাধারণ মানুষ     Corona Update: দেশে সংক্রমণ এবং মৃত্যু নিম্নমুখী      Suicide: কিশোর ভারতী স্টেডিয়ামের পাশেই নিরাপত্তারক্ষীদের সুপারভাইজারের ঝুলন্ত দেহ     Ceremony: ৯৫ বছর বয়সে বৃদ্ধ খুঁজে নিলেন স্বপ্নের মহিলাকে, বাঁধলেন গাঁটছড়া     Arjun singh: আজ জেলা নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠক অর্জুনের, তৃণমূলে ফিরতে পারেন ছেলেও     Delhi: মাটিতে জাতীয় পতাকা পেতে নমাজ পাঠ! দিল্লির ঘটনায় তোলপাড় দেশ     Alipurduar: লক্ষ্মীর ভাণ্ডারের টাকা ঢুকছে পুরুষের অ্যাকাউন্টে!     Nabanna: আজ নবান্নে লোকায়ুক্ত বৈঠক, মমতার মুখোমুখি হচ্ছেন না শুভেন্দু  
The-terracotta-industry-which-is-almost-extinct-due-to-the-touch-of-modernity
Purulia: আধুনিকতার ছোঁয়ায় লুপ্তপ্রায় পোড়ামাটির শিল্প, রুটিরুজিতে টান


Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-04-16 20:09:53


হাঁড়ি, কলসি, কুঁজোর দিন শেষ। তীব্র গরমে শরীর ঠাণ্ডা রাখতে বাজার চলতি বিভিন্ন কোম্পানির ঠান্ডা পানীয়ই (Cold drinks) যেন ভরসা। আধুনিকতার ছোঁয়ায় অতিপ্রাচীন কেন্দার মৃৎশিল্পীদের (Potter) রুটিরুজিতে টান।

পুরুলিয়ার গরম মানেই ফুটিফাটা পুকুর। ভূগর্ভস্থের জল (Underground Water) নীচে নেমে যাওয়ায় জলের নাগাল পায় না নলকূপ (Tubewell)। শুকনো বুক নিয়ে আগুন ছড়ায় কংসাবতী, দ্বারকেশ্বর। মাইলের পর মাইল উজিয়ে মহিলারা জল নিতে আসেন। প্রায়শই দেখা যায় সে চিত্রও। প্রকল্পের পর প্রকল্প যায়, কিন্তু এই ছবি বদলায় না।

পুরুলিয়ার একটি প্রত্যন্ত গ্রাম (Remote Village) কেন্দা। ২০০ টিরও বেশি পরিবার একসময় মৃৎশিল্পের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।  তাঁরা প্রায় একযোগে ১০০ টি গ্রামে রান্নার বাসন (Utensils) থেকে শুরু করে ছোট বাচ্চাদের খেলনার (toy) যোগান দিতেন। তাঁদের হাত দিয়ে তৈরি হত অজস্র পোড়ামাটির হাতি, ঘোড়া, যা আদিবাসীদের গরাম থানে প্রকৃতি পূজাতেও ব্যবহার করা হয়। আর এর মাধ্যমেই চলত তাঁদের সংসার, টান পড়ত না তাঁদের রুজিরুটিতে।

বর্তমানে ফ্রিজ, ফাইবারের কলসি, স্টিলের থালাবাসনের ব্যবহার পোড়ামাটির শিল্পকে আধুনিক সমাজ থেকে দূরে রেখেছে। আধুনিক প্রযুক্তির (Modern technology) ব্যবহারে সেই দূরত্ব ক্রমেই বেড়ে চলেছে।

হাড়ভাঙা খাটুনি দিয়ে সংগ্রহ করা পুরুলিয়ার রুখা মাটিকে শিমুল তুলার মতো নরম করে তোলা। তারপর তা দিয়ে তৈরি বিভিন্ন বাসনপত্র। কুমোর পাড়ার অনেকের দাবি, মাটির কলসির জল খেলে পেটের রোগের সমস্যা দূর হয়। এই জল স্বাস্থ্যের পক্ষে উপকারী। কিন্তু আধুনিকতার ঘেরাটোপে এই পারিপার্শ্বিক সমাজ নিজেদের অজান্তেই যেন ভুলে গেছে সেই কথা। তাই মাটির জিনিসপত্র তৈরি হলেও, তা বিক্রি হয় না বললেই চলে, জানাচ্ছেন মৃৎশিল্পীরা।

আর্থিক অনটনের কারণে বিকল্প জীবিকা বেছে নিতে বাধ্য হচ্ছেন তাঁরা। তবে এর মধ্যেও এই শিল্পকে বাঁচিয়ে রাখতে চাইছেন অনেকেই। কিন্তু আদৌ কি কেন্দার মৃৎশিল্পীদের ভাগ্যের চাকা ঘুরবে? আধুনিক সমাজে কি জায়গা পাবে মৃৎশিল্পীদের তৈরি মাটির হাঁড়ি-কলসি? প্রশ্ন ফিরছে কেন্দার মৃৎশিল্পীদের মুখে মুখে।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন