মায়াপুরে জগন্নাথের ৫৬-ভোগে থাকে চাইনিজ-রাশিয়ান খাবারও

0
70

মায়াপুরের ইসকন মন্দির, জগৎ জোড়া যার নাম-ডাক। প্রতিবছর রথযাত্রা উপলক্ষ্যে এখানে ভিড় জমান দেশ বিদেশের বহু ভক্ত। কিন্তু এবছর করোনা ভাইরাসের থাবায় বিশ্বজুড়ে লকডাউন চলছে। ফলে এবারের রথে লোক সমাগম নেই মায়াপুরে। কিন্তু প্রভু জগন্নাথ দাদা বলরাম ও বোন সুভদ্রাকে নিয়ে যথারীতি এসেছেন মাসির বাড়িতে। ফলে জগন্নাথের আতিথ্যে কোনও কার্পণ্য করছেন না ইসকন কর্তৃপক্ষ। জগন্নাথের জন্য নিয়ম মেনে ৫৬ ভোগের আয়োজন হচ্ছে প্রতিদিন। ইসকনের এক সেবায়তের কথায়, নামেই ৫৬ ভোগ, প্রায় ২০০ রকমের খাবার পরিবেশন করা হয় প্রভু জগন্নাথকে প্রসন্ন করার জন্য।

কথিত আছে জগন্নাথ খেতে ভালোবাসেন। তাই দেশ-বিদেশের বহু খাবারই ভোগ হিসেবে দেওয়া হয়। ইসকনের বহু ভক্ত বিদেশী, তাঁরাও প্রভুকে নিজেদের দেশের সেরা খাবার ভোগ হিসেবে দেন। ফলে জগন্নাথের পাতে পড়ে রাশিয়ান, চাইনিজ সহ ইউরোপীয় ও কন্টিনেন্টাল নিরামিষ পদ। চাউমিন, নুডলস, কাস্টার্ড, কেক সহ নানান বিদেশী খাবার দেওয়া হয় এই ৫৬ ভোগে। পাশাপাশি সাদা ভাত, খিচুড়ি, নানান রকমের ডাল, ভাজা, তরকারি তো আছেই। সেই সঙ্গে থাকে বিভিন্ন রকমের ফল। বিশেষ করে কাঁঠাল হল জগন্নাথের সবচেয়ে প্রিয়। মায়াপুরের ইসকন মন্দিরে রথযাত্রা উপলক্ষ্যে দেখা যায় সর্বধর্ম সমন্বয়। তবে এবার করোনার থাবায় বিদেশী ভক্তদের ভিড় নেই। ফলে কিছুটা মনমরা মায়াপুর।