বিহারে বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত ভোট পড়ল ৫১.৬৮ শতাংশ

0

বিকেল পাঁচটা পর্যন্ত বিহারে ভোট পড়ল ৫১.৬৮ শতাংশ। সভেকে বেশিু ৬০ শতাংশ ভোট পড়েছে চকাই কেন্দ্রে। বুধবারের প্রথম দফায় ভোটদাতা ২ কোটি ১৬ লাখ। করোনার জন্য নানারকম বিধিনিষেধ জারি হয়েছে এবার। ভোটদানের সময়ও একঘণ্টা বাড়ানো হয়েছে। এখনও পর্যন্ত কিছু কেন্দ্রে ইভিএমের গোলযোগ ছাড়া কোনওরকম অপ্রীতিকর ঘটনার খবর আসেনি। তবু সকাল থেকেই ভোটারদের লাইন চোখে পড়েছে ভোটগ্রহণ কেন্দ্রগুলিতে। চেনা এই দৃশ্যের কিছুটা অমিল এবার বিহারের প্রথম দফার ভোটগ্রহণে। কারণ করোনা আবহে নিউ নর্মালে ভোটের লাইনে এসেছে পরিবর্তন। সামাজিক দূরত্ব মেনেই ভোর থেকে ভোটের লাইনে দাঁড়িয়েছে বিহারবাসী। তবে বহু কেন্দ্রেই দেখা গেল মুখে মাস্ক ছাড়াই ভোট দিতে এসেছেন বহু ভোটার। দলীয় প্রতীক ছাপ মারা মাস্ক পরে ভোট দিতে এসেছিলেন বিহারের মন্ত্রী প্েমকুমার। তাঁর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। বিহারের মোট বিধানসভা আসনের মধ্যে ৭১টি আসনে প্রথম দফার ভোটগ্রহণ চলছে বুধবার। এরমধ্যে ৩৫টি আসনে প্রার্থী দিয়েছে নীতীশ কুমারের জেডিইউ আর শরিক বিজেপি লড়ছে ২৯ আসনে। অপরদিকে প্রয়াত এলজেপি নেতা রামবিলাস পাওয়ানের ছেলে চিরাগ ৪১ আসনে প্রার্থী দিয়েছেন। লালু-তেজস্বীর দল আরজেডি লড়ছে ৪২ আসনে ও তাঁদের শরিক কংগ্রেস ২০টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বীতায় নেমেছে। ৬ মন্ত্রী ও একজন প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী-সহ বহু হাইপ্রোফাইল প্রার্থীর ভাগ্য নির্ধারণ হতে চলেছে বুধবার। প্রথম দফায় মোট ভোটপ্রার্থী ১,০৬৬ জন।
করোনা আবহেই এই প্রথম ভোটগ্রহণ চলছে। তাই নির্বাচন কমিশন কড়াভাবে কোভিড-বিধি পালনের ব্যবস্থা করেছে। প্রতিটি ভোটগ্রহণ কেন্দ্রেই রয়েছে স্যানিটাইজার। ইভিএম স্যানিটাইজ করা হচ্ছে কিছুক্ষণ পরপরই। প্রতিটি বুথে থাকবে থার্মাল স্ক্যানার, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, সাবানের ব্যবস্থা। প্রতিটি বুথে ভোটার সংখ্যাও সীমিত রেখেছে নির্বাচন কমিশন। বুথের ভিতর হাত ধুয়েই ইভিএম টিপতে হচ্ছে ভোটারদের। অপরদিকে বুধবার সকালেই হিন্দিতে ট্যুইট করে প্রধানমন্ত্রী লিখেছেন, ‘আজ বিহার বিধানসভার প্রথম দফার নির্বাচন। সব ভোটারদের কোভিড নিয়ম মেনে এই গণতন্ত্রের উত্‍‌সবে শামিল হওয়ার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি। দু গজের দূরত্ব বজায় রাখুন আর মাস্ক পরুন। মনে রাখবেন, প্রথম ভোটদান, তারপর জলপান’। বুধবার ভোট দেবেন ২.১৪ কোটি ভোটদাতা। তাঁদের মধ্যে ১.০১ কোটি মহিলা।