ব্রেকিং নিউজ
tmc-mp-abhishek-banerjee-held-public-meeting-at-jalpaiguri-ahead-of-panchayet-vote
Abhishek: মমতা থাকতে বাংলা ভাগ হতে দেবে না, উত্তর আর দক্ষিণবঙ্গ এক: অভিষেক

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-07-12 19:23:32


জলপাইগুড়িতে একুশে জুলাই প্রস্তুতি বৈঠক করেন তৃণমূল সংসদ অভিষেক বন্দোপাধ্যায়। এই বৈঠকে দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে একগুচ্ছ বার্তা পাঠান তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক। ডায়মন্ড হারবারের সংসদ বলেছেন, 'মমতা থাকতে বাংলা ভাগ হতে দেবে না। উত্তরবঙ্গ আর দক্ষিণবঙ্গ এক। চক্রান্ত করে যারা বাংলা ভাগ করবে, শেষ রক্তবিন্দু দিয়ে সেই ভাগ রুখবো।' তিনি জানান, আমি ভোট চাইতে আসিনি।নির্বাচনের পাখি তৃণমূল কংগ্রেস নয়। তৃণমূল দুঃখে পাশে থাকবে। 

একুশের বিধানসভা নির্বাচনে দল প্রত্যাশিত ফল করতে পারিনি। সেই প্রসঙ্গ উল্লেখ করে সাংসদ বলেন,  'আমরা বিধানসভায় প্রত্যাশিত ফল করতে পারিনি। 

নিজের কানে শুনবো, নিজের চোখে দেখব, জলপাইগুড়ির মানুষ কেন আমাদের বঞ্চিত করেছে। তাই পথে নেমেছিলাম।'


এদিন দোহমনি বাজারে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেন অভিষেক। সাংসদ গাড়ি থেকে নামতেই অনেক মানুষ এসে তাঁকে সমস্যার কথা বলেন। সেই প্রসঙ্গে অভিষেক বলেছেন, 'এই জেলার মানুষ তৃণমূলকে স্বাগত জানাতে বসে আছে।  আমাদের নেতা কর্মীরা তাঁদের কাছে পৌছতে পারছে না।সেই ফাঁকা  চেয়ারে বিজেপির নেতারা বসে আছে। অভিমানে যারা তৃণমূলের থেকে মুখ ঘুরিয়েছেন তাঁদের কাছে ক্ষমা চাইতে এসেছি।'

আর কী বললেন অভিষেক বন্দোপাধ্যায়? 

১) যতদিন মমতা থাকবে পৃথক রাজ্য করার সাহস দেখাতে পারবে না

২) আমার উত্তরবঙ্গ বলতে ভালো লাগে না

৩) দক্ষিণ নয় উত্তর নয় একটাই বাংলা পশ্চিম বাংলা

৪)  মানুষের মধ্যে যারা বিভাজন করতে চায় এখন থেকে চিনহিত করতে হবে

৫) আমাদের অভিধানে উত্তর বঙ্গ বলে কিছু নেই

৬) চক্রান্ত করে বাংলা ভাগ করব শরীরের শেষ রক্ত বিন্দু দিয়ে রক্ষা করব

৭) আমি যা বলি তা করি, এক বাপের ব্যাটা, বুকের পাটা আছে

এদিন তাঁর বক্তৃতায় এসেছে হয় ঠিকাদারি, নয় তৃণমূল প্রসঙ্গ তাঁর দাবি,  'হয় তৃণমূল, নয় ঠিকাদারি ব্যবস্থা সারা বাংলায় বাস্তবায়িত করে দেখাব। ঠিকাদারদের কথায় পঞ্চায়েত চলবে এই ধারণা ভুল। একমাত্র মানুষের সার্টিফিকেট থাকলে পঞ্চায়েতের টিকিট পাবেন। দলে একটাই  নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, একটাই চিহ্ন জোড়া ফুল। এই নীতি পছন্দ না হলে রাস্তা খোলা আছে।' লক্ষ্য বেঁধে দিয়ে সাংসদ জানান, যেখানে ফল খারাপ হয়েছে, প্রতি বুথে ঢুকতে হবে আগামী ২ মাসের মধ্যে। সাত দিন পর কলকাতা যাবেন, যাওয়ার সময় হাতে বুথ রিপোর্ট নিয়ে আসবেন। গত ১ বছরে কে ক'টা বুথে গেছেন আমার ছবি-সহ সেই প্রমাণ চাই। 

যে আনতে পারবেন না, তারা বিকল্প ভেবে রাখুন। সাধারন মানুষের জন্য তৃণমূল কংগ্রেস, নেতাদের খুশি করার জন্য নয়। যখন ভোট দেবেন কানে শুনে নয় চোখে দেখে ভোট দেবেন।' 

এই প্রস্তুতি সভায় তিনি কেন্দ্রের বিজয়পুর সরকারকেও তোপ দাগেন। অভিষেক বলেন,  'আচ্ছে দিন মানে ৪০০ টাকার রান্নার গ্যাস ১০৭৯ টাকা।বাংলার মানুষকে ভাতে মারতে চায়। শুভেন্দু,সুকান্ত,দিলীপ ঘোষরা স্বীকার করেছে বাংলার মানুষের টাকা আটকেছে কেন্দ্র। প্রকল্প কার নামে হবে? বাংলায় হলে বাংলার নামে হবে। দিল্লি কবে টাকা দেবে বাংলার মানুষ হাত পেতে নেই। শ্রীলঙ্কা,আফগানিস্থানে যা হয়েছে, ভারতের অবস্থা তাই করবে বিজেপি সরকার। দিদি টাকা দিচ্ছে, মোদী টাকা নিচ্ছে।টাকা নিয়ে ইন্টারনেটে সব বিক্রি করে দিচ্ছে।' তাঁর স্পষ্ট বার্তা, 'রাজনীতি মানে ভোটে নয়, মানুষের পাশে দাঁড়াতে হবে। ফোন রাজনীতি করা যাবে না। প্রতি বুথে ৩৬৫ দিনের মধ্যে ১০০ দিনের কর্মসূচি নিতে হবে। মাঠে নেমে রাজনীতি করতে হবে। বিধানসভা ভোটার আগে প্রস্তুতিতে নিশ্চিত ভাবে গাফিলতি ছিল। তাই আমরা এখানে প্রত্যাশিত ফল করতে পারিনি। মাদারিহাটে হাতির উপদ্রব থেকে বাঁচানোর জন্য তৃণমূল কর্মীদের কাজ করতে হবে, এই নিদান দেন অভিষেক। তাঁর আশ্বাস, 'সেচের সমস্যা নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সঙ্গে কথা বলব। আমার কাছে ডায়মন্ডহারবার যা, জলপাইগুড়ি তা।' নেতা-কর্মীদের প্রতি তাঁর বার্তা, 'দলে দু নম্বর বা তিন নম্বর বলে কেউ নেই। আগামী ৬ মাসে যে তৃণমূল আপনারা দেখতে চান, তা তৈরি করব।' 

তিনি জানান,  এক ডাকে অভিষেক এবার জলপাইগুড়ি,কোচবিহার, আলিপুর দুয়ারে। এই জেলাগুলোর জন্য  হেল্পলাইন নম্বর ৭৮৮৭৭৭৮৭৭। সকাল ৯ টা থেকে সন্ধ্যা ৬ টা পর্যন্ত কল করে জানানো যাবে। আগামী দিনে প্রতি ২ মাসে আসব আমি এই জেলাগুলোতে। সামনে পেছনে চারটে গাড়ি বন্ধ করুন, যারা পরাজিত হয়েছেন, বিরোধী নেতার মতো নিজেদের তৈরি করুন। নেত্রীর বার্তা বাহক হিসেবে কাজ করব। জেলার দায়িত্বে মানে, সামনে পুলিশের গাড়ি, পিছনে গাড়ি এসব বন্ধ করুন। বাইকে ঘুরুন, সাইকেলে ঘুরুন।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন