ব্রেকিং নিউজ
mamata-banerjee-calls-on-meeting-for-tmc-leaders-over-recent-displeasure-on-candidate-list
Mamata Banerjee: মমতা-অভিষেক 'দূরত্ব', কালীঘাট বৈঠক নিয়ে প্রসঙ্গ এড়ালেন পার্থ

Post By : সিএন ওয়েবডেস্ক
Posted on :2022-02-12 16:50:36


শনিবার সন্ধ্যায় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) ডাকা বৈঠক কালীঘাটে হয়েছে । এই বৈঠকে (Kalighat Meeting)  দলের শীর্ষ নেতৃত্ব উপস্থিত ছিলেন। দলের সর্বভারতীয় নেত্রী হিসেবে এদিন তিনি ২০ জনের জাতীয় কর্মসমিতির নাম ঘোষণা করেন। এই কমিটিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, অমিত মিত্র, চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, মলয় ঘটক, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, অনুব্রত মণ্ডল-সহ ১৬ জনের নাম ঘোষণা করেছন পার্থ চট্টোপাধ্যায়। এই কমিটিতে নাম নেই ফিরহাদ হাকিম, অরূপ বিশ্বাসের মতো হেভিওয়েটের নাম। পরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এই কমিটির পদাধিকারীদের নাম ঘোষণা করবেন। সেই নাম যাবে নির্বাচন কমিশনে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য। একমাত্র সভানেত্রীর পদ ছাড়া আপাতত তৃণমূলের সব কমিটি অবলুপ্ত। অর্থাৎ ক্ষমতার ভরকেন্দ্র রইল মমতার হাতেই।  এমনটাই দলীয় সূত্রে খবর।

এই বৈঠকে তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়, সংসদীয় দলের নেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়-সহ অন্য সাংসদ এবং বিধায়করা। বৈঠকে যোগ দিতে কালীঘাটে ছিলেন চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, অরূপ বিশ্বাস এবং ফিরহাদ হাকিম। ইতিমধ্যে এক ব্যক্তি, এক পদ এবং পুরভোটের প্রার্থীতালিকা নিয়ে বিস্তর অসন্তোষ দলের তৃণমূল স্তরে। সাংগঠনিক স্তরে একটা রদবদলের সম্ভাবনা এই বৈঠক থেকে উঠে আসতে পারে। কারণ পুরো সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা দলের সুপ্রিমোর ঘাড়েই।

এদিন বিশেষ কোন বিষয়ে আলোচনা হয়েছে, স্পষ্ট করেননি পার্থ বাবু। এমনকি আইপ্যাক নিয়ে দলের অন্দরে যে সমস্যা তৈরি হয়েছিল, সে বিষয়ে এক বাক্য খরচ করেননি পার্থ চট্টোপাধ্যায়। সাংবাদিকরা এই বিষয়ে প্রশ্ন করলেন, কার্যত বিষয় এড়িয়ে গিয়েছেন রাজ্যের পরিষদীয় মন্ত্রী। এদিন তাঁর ১০ মিনিট দীর্ঘ সাংবাদিক বৈঠকে কোথাও আসেনি মমতা-অভিষেক ঠাণ্ডা লড়াই প্রসঙ্গ কিংবা দু'জনের সম্পর্কের অবনতি বা উন্নতির প্রসঙ্গ। মূলত আইপ্যাককে কেন্দ্র করে দলের মধ্যে তৈরি হওয়া অসন্তোষ নিয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়েছে কিনা? জানায়নি পার্থ চট্টোপাধ্যায়।

পরে সাংবাদিকদের সামনে আই-প্যাক-তৃণমূল ভবিষ্যৎ প্রসঙ্গ এড়িয়ে গিয়েছেন সাংসদ সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়। সাম্প্রতিক খবর, মমতা এবং অভিষেকের মধ্যে একটা টানাপোড়েন তৈরি হয়েছে। সেই টানাপোড়েনের একটা প্রভাব পড়তে পারে সংগঠনে। যা এই মুহূর্তে মোটেই কাম্য নয়। তাই বিবাদ ভুলে নতুন কৌশল রচনা করলেন কী দলনেত্রী? সেই প্রশ্নের উত্তর এড়িয়ে গিয়েছেন দলের মহাসচিব। তৃণমূলের সংবিধানে দলনেত্রী বা সুপ্রিমোকে পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ দেওয়া। সেই নিয়ন্ত্রণ বলে শাসক দলকে ঢেলে সাজাতে এবং সাংগঠনিক ভিত মজবুত করতেও কতটা উদ্যোগ নিলেন মমতা, স্পষ্ট নয় বৈঠকের নির্যাস থেকে।






All rights reserved © 2021 Calcutta News   Home | About | Career | Contact Us

এই সংক্রান্ত আরও পড়ুন